শীর্ষ শিরোনাম
Home » খেলাধুলা » রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে ৭ রানে রোমাঞ্চকর জয় বাংলাদেশের

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে ৭ রানে রোমাঞ্চকর জয় বাংলাদেশের

bangladesh_129295ক্রীড়া প্রতিবেদক: ক্রিকেট যে অনশ্চিয়তার খেলা মিরপুরে আবারও সত্যি হলো সেটা। ৪৫ ওভার পর্যন্ত আধিপত্য ধরে রেখেও শেষ পর্যন্ত পারলো না লড়াকু আফগানরা। ম্যাচের শেষ দিকে অনেক নাটক আর উত্তেজনার জন্ম হলো। যে নাটকে শেষ পর্যন্ত জয়ী বাংলাদেশই। ৭ রানে রুদ্ধশ্বাস ম্যাচটি জিতে ১-০তে সিরিজে এগিয়ে গেল টাইগাররা। তবে মিরপুরে যে লড়াইটা চালিয়ে গেছে সফরকারীরা তারও তুলনা নেই।

প্রথমে ব্যাট করে বাংলাদেশ তুলেছিল ১০ উইকেটে ২৬৫। জবাবে পুরো ৫০ ওভার ব্যাট করে আফগানিস্তান অল আউট ২৫৮ রানে।

দিবা রত্রির ম্যাচে টসে জিতে  প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্তটা ঠিক ছিল মাশরাফির। কিন্তু সাকুল্যে ২৬৫ রানের স্কোরটা একটু কমই ছিল মিরপুরের তক্তা উইকেটে।

সৌম্য সরকারকে যে কেন বারবার একাদশে নেওয়া হয়! এদিন ফিরেছেন ০ রানে, দলকে যথারীতি বিপদে ফেলে।

এরপর অবশ্য তামিম ইকবাল ও ইমরুল কায়েস ৮৩ রানের পার্টনারীপ গড়ে শুরুর ধকল সামলে নেন। ৫৩ বলে ব্যক্তিগত ৩৭ রানে ফিরেন কায়েস। মানে রান করার গতি যথেষ্ঠই মন্থর ছিল তার।

ইনজুরি থেকে ফিরেই রানের মধ্যে তামিম। কায়েসের পর তিনি জুটি বাঁধেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সঙ্গে। দু’জনে ব্যাট থেকে আসে ৭৯ রান। ৩৬তম ওভারে মিরওয়াইস আশরাফকে ছক্কা মারতে গিয়ে লং অফে নাভিন উল হকের হাতে ধরা পড়েন তামিম ইকবাল।ফিরেন ৮০ রান করে, ৯৮ বলে।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ করেন ৬২ রান, ৭৪ বলে। সাকিব বেশ পিটিয়ে খেলেন। ৪০ বলে তার ৪৮ রানের ইনিংসটা ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। লোঅর্ডারে আর কিছু রান হলে স্কোরটা আরো বড় হতে পারত। কিন্তু সেটা না হওয়ায় ২৬৫ রানে থামতে হয় টাইগারদের।

আফগানিস্তানের  দৌলৎ জাদরান ৩টি, মোহাম্মদ নবী ২টি, রশীদ খান ২টি, মিরওয়াইস আশরাফ ১টি ও নাভিন-উল-হক ১টি করে উইকেট নেন।

দিবা রাত্রির ম্যাচে ২৬৬ রানের টার্গেট ছোট নয়। কিন্তু লড়াকু আফগানদের কাছে সেটা খুব বড় বলে মনে হয়নি ম্যাচের বেশিরভাগ অংশ জুড়ে। যদিও শুরুটা খুব ভালো ছিল না তাদের।২৪ বল খেলে ৯ রান করে সাকিবের বলে ফিরতে হয় ওপেনার নুরিকে। শাহজাদ ফিরেন ৩১ রানে, মাশরাফির বলে।

৪৬ রানে ২ উইকেট। এরপর বাংলাদেশকে হতাশায় ডোবান রহমত শাহ ও হাশতমউল্লাহ। ৪৬ থেকে এ জুটি রান নিয়ে যান ১৯০ এ। রহমত শাহ ৭১ ও হাসমতউল্লাহ ৭২ করে ফিরে যাবার পরও ম্যাচ আফগানদের নিয়ন্ত্রণে ছিল। ৫ উইকেটে ২৩০।২৭ বলে আফগানদের দরকার ৩৬ রান।মানে ম্যাচ পুরোপুরি আফগানদের অনুকূলে।

কিন্তু ক্রিকেট যে অনিশ্চয়তার খেলা। সেটা আবারও সত্যি হলো। নিজের প্রথম ৬ ওভারে প্রচুর রান খরচ করেও কোনো উইকেট না পাওয়া তাসকিন জ্বলে উঠলেন নিজের সপ্তম ওভারে, দুই উইকেট নিয়ে। ফিরিয়ে দেন বাংলাদেশের জন্য শেষ চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ানো মোহাম্মদ নবী ও আসগরকে। তাসকিনের এ জোড়া অঘাতেই ম্যাচ চলে আসে বাংলাদেশের অনুকূলে।  শেষ ১২ বলে আফগাননদের দরকার ছিল ২১ রান, হাতে ৩ উইকেট। রশীদ খানকে ৭ রানে ফিরিয়ে ম্যাচের মোড় আরেকটু ঘুরিয়ে দেন রুবেল।

শেষ ওভারে আফগানদের দরকার পড়ে ১৩ রান। নিজে না করে মাশরাফি বল তুলে দেন তাসকিনের হাতে। মূল্য দিলেন তিনি। এ ওভারেও জ্বলে ওঠানে তাসকিন। এ ওভারেও ২ উইকেট! রান দেন মাত্র ৫। আর সব নাটকের শেষ এখানেই। এ নাটকের নায়ক তো তাসকিনই।

২৫৮ রানে অলআউট সফরকারীরা।বোলিং অ্যাকশন শুধরে অনেকে হারিয়ে যান। কিন্তু সেই অনেকের মধ্যে নেই তাসকিন।আর্ন্তজাতিক ক্রিকেটে ফেরার প্রথম ম্যাচেই সেটা জানিয়ে দিলেন তাসকিন।

৫৯ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন তিনি। দুটি করে উইকেট নেন মাশরাফি ও সাকিব।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now