শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » সুরমা নদীতে নির্মিত শৌচাগার ভাঙ্গার আশ্বাস জেলা প্রশাসকের

সুরমা নদীতে নির্মিত শৌচাগার ভাঙ্গার আশ্বাস জেলা প্রশাসকের

pic-bapa-sylhet-1-600x337
সিলেট রিপোর্ট:  সিলেটে কাজিরবাজার এলাকায় সুরমা নদী তীর দখল করে স্থাপন করা সেই শৌচাগার ২৪ ঘন্টার মধ্যে ভাঙ্গা হবে বলে পরিবেশবাদীদের আশ্বস্ত করেছেন সিলেটের জেলা প্রশাসক মো. জয়নাল আবেদীন। ‘সুস্থ নদী, সুস্থ নগর’-এ প্রতিপাদ্যে রোববার বিশ্ব নদী দিবস উদযাপনে সিলেটের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে অবস্থান নেয় বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) ও সুরমা রিভার ওয়াটার কিপার। অবস্থানকালে তারা সিলেটের জেলা প্রশাসকের কাছে একটি স্মারকলিপি দেয়। স্মারকলিপিতে সুরমা নদী দখল করে নির্মিত শৌচাগার বন্ধে জেলা প্রশাসকের সহযোগিতা কামনা করা হয়। জবাবে জেলা প্রশাসক বলেন, ‘বিশ্ব নদী দিবসের প্রতিপাদ্য বিবেচনায় এটি কোনোভাবেই মানা যায় না। আমি ২৪ ঘন্টার মধ্যে এটি ভাঙার ব্যবস্থা নেব।’
এর আগে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে ‘কাজিরবাজারে সুরমা নদীতীর দখল করে বিলাসী শৌচাগার ভাঙতে প্রশাসনের নিরবতায় প্রতিবাদী অবস্থান ও স্মারকলিপি পেশ’ শীর্ষক ব্যানার নিয়ে প্রায় আধাঘন্টা প্রতিবাদী অবস্থান চলে। এতে প্রবীণ আইনজীবী ও মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুর রহমান চৌধুরী, টিআইবির সচেতন নাগরিক কমিটির সভাপতি ইরফানুজ্জামান চৌধুরী, দৈনিক উত্তরপূর্বের প্রধান সম্পাদক আজিজ আহমদ সেলিম, সিলেট প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকরামুল কবির, বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির সিলেট বিভাগীয় প্রধান সৈয়দা শিরিন আক্তার, মরমি কবি হাসন রাজা গবেষক সামারীন দেওয়ান, দৈনিক সবুজ সিলেটের বার্তা সম্পাদক ও বাপা সিলেটের সংগঠক ছামির মাহমুদ, যুগান্তর স্বজন সমাবেশের সভাপতি, সহকারী অধ্যাপক প্রণব কান্তি দে, এডভোকেট শাব্বির আহমদসহ পরিবেশবাদী নাগরিকেরা একাত্ম হন।
প্রতিবাদী অবস্থান চলাকালে বাপা সিলেটের সাধারণ সম্পাদক ও সুরমা রিভার ওয়টারকিপার আবদুল করিম কিম লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। তিনি এবার বিশ্ব নদী দিবস পালনে সুস্থ্য নদী, সুস্থ নগর-এ প্রতিপাদ্যের মধ্যে সিলেটের জন্য সবচেয়ে বড় দৃষ্টিকটু সুরমা নদীতীর দখল করে স্থাপন করা ওই শৌচাগার বলে অভিহিত করে বলেন, সুরমা নদীর তীরে আমার ঠিকানা রে…বলে যে সুরমা নিয়ে গর্ব করে সিলেটের মানুষ, সেই সুরমা নদীর জায়গা দখল করে কাজিরবাজারে শৌচাগার নির্মাণ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামান্য দূরে এবং নগর ভবন (অস্থায়ী) ও কোতোয়ালী থানার একেবারেই নিকটে নদী দখল করে বিনা বাঁধায় উদ্ভট এই স্থাপনা নির্মাণ করে কাজিরবাজার মৎস্য আড়তদার ব্যবসায়ী সমিতি।
এটি অপসারণ করতে জেলা প্রশাসনের কাছে স্মারকলিপিতেও এ বিষয়টি উল্লেখ করে বলা হয়, অবৈধ এই শৌচাগারটি নিয়ে একটি সচিত্র প্রতিবেদন একাধিক স্থানীয় ও জাতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। নগরের প্রাণকেন্দ্রে নদী দখলের এই রুচিহীন চিত্র দেখে সিলেটের সর্বস্তরের নদীপ্রেমিকরা ক্ষুব্ধ হন। তাঁরা আশা করেছিলেন সিলেটের প্রশাসন অবিলম্বে ব্যাবস্থা গ্রহণ করে নদীকে তার ভূমি ফিরিয়ে দেবে। কিন্তু বিষয়টি জানাজানি হওয়ার মাস তিনেক পরও আশানুরূপ কোনো পদক্ষেপ লক্ষ্য করা যায়নি।
স্মারকলিপিতে আরও বলা হয়, এ অবস্থায় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের পরিচালক (সমন্বয়) ইকরামুল হক সিলেটের জেলা প্রশাসক বরাবর ‘জরুরী চিঠি’ দেন। জেলা প্রশাসক ‘জেলা নদী রক্ষা কমিটি’র আহ্বায়ক হওয়ায় তাঁর কাছে ২২ জুন ওই চিঠি দিয়ে সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নিতে বলা হয়। জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের এ ভূমিকায় নাগরিকরা আশ্বস্ত হয়েছিলেন, কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় প্রায় তিন মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও রুচিহীন দখলদারদের বিরুদ্ধে অদ্যাবধি কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। বিলাসী এ শৌচাগার বহাল তবিয়তে আছে। সেখানে নিয়মিত শৌচকর্মও চলছে। যা সিলেটের ঐতিহ্যবাহী সুরমা নদীকে প্রতিনিয়ত দূষিত করছে । একই সাথে এই অপকর্মকে দূষিত না করায় নদী দখলের সংস্কৃতি উৎসাহিত হচ্ছে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now