শীর্ষ শিরোনাম
Home » বিজ্ঞান-প্রযুক্তি » সদ্যপ্রয়াত সৈয়দ হকের কবিতা নিয়ে অনলাইনে ঝড় !

সদ্যপ্রয়াত সৈয়দ হকের কবিতা নিয়ে অনলাইনে ঝড় !

syedhaqu
অনলাইন ডেস্ক : সদ্যপ্রয়াত ”সব্যসাচী” লেখক সৈয়দ শামসুল হকের  কবিতা নিয়ে অনলাইনে ব্যাপক ঝড়উঠেছে। সামাজিক জনপ্রিয় সাইন ফেসবুকে এনিয়ে নানা জনে নানা মন্তব্য ব্যক্ত করেছেন।
তন্মধ্যে কযেকটি মন্তব্য তুলে ধরা হলো:
Mjh Jamil তার পোস্টে লিখেছেন :  সব্যসাচী হোক আর কাব্য সাচী হোক কোন ইসলামবিদ্বেষীর রুহের মাগফেরাত আমি কামনা করতে পারলাম না !!!
আল্লাহ পাক রাব্বুল আল-আমীন উত্তম বিচারক। সুতরাং- ইসলাম বিদ্বেষী নাস্তিক মুরতাদ দের প্রাপ্য শাস্থি মহান রবের আদালতেই নির্ধারিত হোক।
এম জে এইচ জামিল অন্য একটি পোস্টের জবাবে যা লিখেছেন তা-পাঠকদের হুবুহু তুলে ধরা হলো:

সরি জানানোর জন্য এই পোস্ট…..Don’t mind
মসজিদ থেকে ভেসে আসা আযানের ধ্বনি ভীষণ অপছন্দ ছিল কবি #সৈয়দ_শামসুল_হকের। এরচেয়ে কাকের ‘কা কা’ শব্দ নাকি তার কাছে বেশি মধুর লাগে। তাই তিনি তার ‘মরা ময়ূর’ নামক কাব্যনাট্যে ভোরের কাককে অনুরোধ করেছেন- ”ও কাক! তুই খুব জোরে কা কা কর, যাতে মুয়াজ্জিনের আজানটা আর শোনা না যায়। ”
এই কুখ্যাত ব্যক্তিটি যে কেবল ইসলামবিদ্বেষী ছিল তা কিন্তু নয়, একইসাথে সে একজন নোংরা মনের মানুষও বটে। অশ্লীল কাব্য রচনায় তার জুড়ি মেলা ভার। প্রাপ্তবয়স্ক কবিতার নামে চটিকাব্য রচনায় সে বিশেষ পারদর্শী। আরেক কুখ্যাত নাস্তিক তসলিমা নাসরিনের সাথে যৌবনে শামসুলের বিশেষ সম্পর্ক ছিল। আরো অনেকের মত সেও নাকি সুযোগ বুঝে অসহায় তসলিমাকে ভোগ করেছিল- এ অভিযোগ খোদ তসলিমার। #শামসুল_হকের_আলোচিত_কয়েকটি_কবিতার_খন্ডাংশ দেয়া হল-
১। যখন দু’স্তন মেলে ডেকে নিলে বুকের ওপরে
স্বর্গের জঘন খুলে দেখালে যে দীপ্তির প্রকাশ
মুহুর্তেই ঘুচে গেল তৃষিতের অপেক্ষার ত্রাশ

২। বৃষ্টিও বৃষ্টি তো নয় – জরায়ুর রক্তিম ক্রন্দন,
আজ তিনদিন থেকে অবিরাম, ক্ষান্তি নেই তার।
নিষেধ পতাকা লাল, পতাকায় শরীরী স্পন্দন,
তবুও তবুও জাগে, জাগে ইচ্ছা সেখানে যাবার।
শত বাধা সত্ত্বেও থামতে পারে না কামুক পুরুষ,
দুজনের দেহ ছিড়ে বের হয় দুধ-পূর্ণিমা,
আর তা নেমে আসে স্তনের চুড়ায়,
বাড়তে থাকে কামনার জ্বর।
আর জ্বরতপ্ত হাত কুড়ায় কামনার ফুল…
(বি.দ্র. প্রথম অংশে মেয়েদের পিরিয়ড এবং দ্বিতীয় অংশে শারীরিক সম্পর্কের ব্যাপারটি তুলে ধরা হয়েছে)

৩। যখন খুলছো তুমি দেহ থেকে শাড়ি ও শেমিজ,
তখন উদ্বেল কেউ হয়ে ওঠে কৃষি-প্রতিভায়…
(বি.দ্র. এখানে কৃষি প্রতিভা রূপকটি দ্বারা যৌনতাকে ইঙ্গিত করা হয়েছে)

৪। দেবী তুমি দাঁড়িয়ে রইলে,
আমি চুম্বনের ফুলে
সারাদেহ ঢেকে দিয়ে
পূজাপাঠ শুরু করলাম।
তুমি তো মাটি নও
ছুঁয়ে আমি দেখেছি আঙুলে,
তবুও মন্দিরে ঢুকে
প্রথমেই তোমাকে প্রণাম।
যাদের সাহিত্যের ভাষা এমন নোংরা তারা সেক্যুলার/নাস্তিক হবে এটাই স্বাভাবিক। এরা যদি নিজেকে মুসলমান দাবী করতো তাহলে ইসলামকে অপমান করা হত। এইসব কুখ্যাত চরিত্রহীন লম্পটদের ইসলাম বিদ্বেষী মনোভাব থেকেই বুঝা যায় ইসলাম সঠিক পথে আছে। মন্দরা সবসময় ভালোর বিরোধীতা করবে এটাই তো জগতের নিয়ম।
অথচ, এই লম্পটটার নাকি জানাযা হবে ঢাবি মসজিদে! আর তারই মৃত্যুতে শোকবাণী প্রকাশ করেন ৯০ শতাংশ মুসলমানের দেশের প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি মহোদয়!!   (বিকৃত চটি কবিতাগুলো প্রকাশের জন্য মাফ করবেন! চরম সত্যগুলো জানানোর জন্যই এই লেখা!)
এবাদুর রহমান লিখেছেন,

©©© একজন চিরো বেশ্যাগমন লেখকের কবল থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন হলো ©©©
সদ্য প্রায়ত সৈয়দ শামসুল হক লিখেছে-)
পবিত্র আজানের আওয়াজ থেকে নাকি বেশ্যার সূর
ভেসে আসে!! নাউযুবিল্লাহ
সে তার ‘মরা ময়ূর’ নামক কাব্যনাট্যে ভোরের কাককে
অনুরোধ করেছিল-
ও কাক! তুই খুব জোরে কা কা কর,
যাতে মুয়াজ্জিনের আজানটা আর শোনা না যায়!!
Kamal Hossain
লিখেছেন,
আমার পরিচয়
সৈয়দ শামসুল হক…

“আমিতো এসেছি বাঙ্গালি পাহাড়পুরের বৌদ্ধবিহার থেকে।
এসেছি বাঙ্গালি জোড় বাংলার মন্দির-বেদি থেকে”
মুসলমান নাম ধারণকারি ঐ হিন্দুর জানাজা দেওয়া আমাদের ইবাদতের সাথে ঠাট্টা করার শামিল।
সুতরাং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে নয়, মন্দির কিংবা বৌদ্ধবিহারে তার সৎকার করা উচিৎ বলে আমি মনে করি।

সাদিক মাহমুদ :

নাস্তিক সাহিত্যিক শামসুল হক মারা গেছেন।
মোনাফেক মুসলিম নামধারী এই নাস্তিক বলেছিল- পবিত্র আজানের আওয়াজ থেকে নাকি বেশ্যার সূর ভেসে আসে!!
.
সে তার ‘মরা ময়ূর’ নামক কাব্যনাট্যে ভোরের কাককে অনুরোধ করেছিল- ও কাক! তুই খুব জোরে কা কা কর, যাতে মুয়াজ্জিনের আজানটা আর শোনা না যায়!!
.
এই কুখ্যাত ব্যক্তিটি যে কেবল ইসলামবিদ্বেষী ছিল তা নয়, একইসাথে সে ছিল একটা জঘন্য নোংরা মনের মানুষ। অশ্লীল কাব্য রচনায় তার জুড়ি মেলা ভার। প্রাপ্তবয়স্ক কবিতার নামে চটিকাব্য রচনায় সে ছিল বিশেষ পারদর্শী।
.
কি ভাবে আপনি তাকে জান্নাত পাবার দোয়া করছেন ? তিনিতো আল্লাহ,জান্নাত, জাহান্নাম এর উপর বিশ্বাস রাখতেন না, তিনি ছিলেন একজন স্বঘোষিত নাস্তিক। একজন মুসলিম শুধু একজন মুসলিমের জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করতে পারে, আর অন্য কারো জন্য বেচে থাকা অবস্থায় হেদায়েত এর জন্য দোয়া চাইতে পারে। একজন নাস্তিক এর জানাজা কেনো হবে, তাকে কেনো কবর দেওয়া হবে ? তাকে কুকুর দিয়ে খাইয়ে দেওয়া হোক, তাতে একটি ক্ষুধার্ত প্রানীর পেট ভরবে। একজন নাস্তিক এর মৃত্যুতে ইন্নালিল্লাহ পরা যাবে কি ??

Shahadat Hossain প্রবাস থেকে নিখেছেন :
“ও কাক! তুই খুব জোরে কা কা কর, যাতে মুয়াজ্জিনের আজানটা আর শোনা না যায়।” — সৈয়দ হক
সাহিত্য পাড়ায় তাকে নিয়ে বিরাট হৈ চৈ তার দেহ ত্যাগে নাকি সাহিত্যর বিশাল ক্ষতি হয়েগেল| আমি মনে করি এই সকল সাহিত্যিকরা সাহিত্যাঙনকে অপবিত্র করেছে|

Jahed Ahmed
লিখেন
ও কাক! তুই খুব জোরে জোরে কা কা কর।
যাতে মুয়াজ্জিনের আযান টা আর শোনা না যায়।
………সৈয়দ সামসুল হক। (নাউজুবিল্লাহ)
.
সে নাস্তিক সেটা আমার সমস্যা নয়। সমস্যা হল এই কুলাঙ্গার জীবদ্দশায় আমার ধর্মকে নিয়ে এভাবেই জঘন্য কুটুক্তিতে লিপ্ত ছিল। কিন্তু আফসোস, আমার মুসলিম দেশের মুসলিম প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী এই মুরতাদের মৃত্যুতে তার সম্মানার্থে গভীর ভাবে ব্যাথিত হয়ে শোকবানী দিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী নিজের জন্মদিনের আয়োজন বাতিল করেছেন। মুসলিম বাঙালি হিসেবে আমি লজ্জিত।

Muktar Hussain ইমাগেনের উদ্দেশে লিখেছেন :
হে সন্মানিত ইমামগণ!!! দয়া করে এই জানোয়ারের জানাজা পড়াবেন না। মসজিদ থেকে ভেসে আসা আযানের ধ্বনি ভীষণ অপছন্দ ছিল কবি #সৈয়দ_শামসুল_হকের। এরচেয়ে কাকের ‘কা কা’ শব্দ নাকি তার কাছে বেশি মধুর লাগে। তাই তিনি তার ‘মরা ময়ূর’ নামক কাব্যনাট্যে ভোরের কাককে অনুরোধ করেছেন- ”ও কাক! তুই খুব জোরে কা কা কর, যাতে মুয়াজ্জিনের আজানটা আর শোনা না যায়। ”
এই কুখ্যাত ব্যক্তিটি যে কেবল ইসলামবিদ্বেষী ছিল তা কিন্তু নয়, একইসাথে সে একজন নোংরা মনের মানুষও বটে। অশ্লীল কাব্য রচনায় তার জুড়ি মেলা ভার। প্রাপ্তবয়স্ক কবিতার নামে চটিকাব্য রচনায় সে বিশেষ পারদর্শী। আরেক কুখ্যাত নাস্তিক তসলিমা নাসরিনের সাথে যৌবনে শামসুলের বিশেষ সম্পর্ক ছিল। আরো অনেকের মত সেও নাকি সুযোগ বুঝে অসহায় তসলিমাকে ভোগ করেছিল- এ অভিযোগ খোদ তসলিমার। #শামসুল_হকের_আলোচিত_কয়েকটি_কবিতার_খন্ডাংশ দেয়া হল-
১। যখন দু’স্তন মেলে ডেকে নিলে বুকের ওপরে
স্বর্গের জঘন খুলে দেখালে যে দীপ্তির প্রকাশ
মুহুর্তেই ঘুচে গেল তৃষিতের অপেক্ষার ত্রাশ
২। বৃষ্টিও বৃষ্টি তো নয় – জরায়ুর রক্তিম ক্রন্দন,
আজ তিনদিন থেকে অবিরাম, ক্ষান্তি নেই তার।
নিষেধ পতাকা লাল, পতাকায় শরীরী স্পন্দন,
তবুও তবুও জাগে, জাগে ইচ্ছা সেখানে যাবার।
শত বাধা সত্ত্বেও থামতে পারে না কামুক পুরুষ,
দুজনের দেহ ছিড়ে বের হয় দুধ-পূর্ণিমা,
আর তা নেমে আসে স্তনের চুড়ায়,
বাড়তে থাকে কামনার জ্বর।
আর জ্বরতপ্ত হাত কুড়ায় কামনার ফুল…
..
যাদের সাহিত্যের ভাষা এমন নোংরা তারা সেক্যুলার/নাস্তিক হবে এটাই স্বাভাবিক। এরা যদি নিজেকে মুসলমান দাবী করতো তাহলে ইসলামকে অপমান করা হত। এইসব কুখ্যাত চরিত্রহীন লম্পটদের ইসলাম বিদ্বেষী মনোভাব থেকেই বুঝা যায় ইসলাম সঠিক পথে আছে। মন্দরা সবসময় ভালোর বিরোধীতা করবে এটাই তো জগতের নিয়ম।
অথচ, এই লম্পটটার নাকি জানাযা হবে ঢাবি মসজিদে!
আর তারই মৃত্যুতে শোকবাণী প্রকাশ করেন ৯০ শতাংশ মুসলমানের দেশের প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি মহোদয়!!
(বিকৃত কবিতাগুলো প্রকাশের জন্য আন্তরিক ভাবে দুঃখীত মাফ করবেন! চরম সত্যগুলো জানানোর জন্যই এই লেখা!)(Copied from সন্ত্রাসমুক্ত ক্যাম্পাস চাই)

M Anfor Ali
লিখেন:

গীতিকার: সৈয়দ শামসুল হক
……….
হায়রে মানুষ, রঙ্গীন ফানুস
দম ফুরাইলেই ঠুস,
তবুতো ভাই কারোরই নাই
একটুখানি হুঁশ।
হায়রে মানুষ, রঙ্গীন ফানুস
রঙ্গীন ফানুস, হায়রে মানুষ ।।

পূর্ণিমাতে ভাইসা গেছে, নীল দরিয়া,
সোনার পিনিশ বানাইছিলা, যতন করিয়া।
চেলচেলাইয়া চলে পিনিশ, ডুইবা গেলেই ভুস ।।

মাটির মানুষ থাকে সোনার, মহল গড়িয়া,
জ্বালাইয়াছে সোনার পিদিম, তীর্থ হরিয়া।
ঝলমলায়া জ্বলে পিদিম, নিইভ্যা গেলেই ফুস ।।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now