শীর্ষ শিরোনাম
Home » বিজ্ঞান-প্রযুক্তি » সিলেবাসে ‘কঠিন পুস্তক’ সংযোজন করে সনদের স্বীকৃতি দিন : শাহীনুর পাশা চৌধুরী

সিলেবাসে ‘কঠিন পুস্তক’ সংযোজন করে সনদের স্বীকৃতি দিন : শাহীনুর পাশা চৌধুরী

shahinoor-sylhetreportসিলেট রিপোর্ট: কওমী সনদের সরকারী স্বীকৃতির বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রণালয় কর্তৃক মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসউদকে আহ্বায়ক করে নবগঠিত ৯ সদস্যের কমিটিকে প্রত্যাখ্যান করেছে বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড (বেফাক)। বেফাক সভাপতি শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর সভাপতিত্বে (২৯ সেপ্টেম্বর) বৃহস্পতিবার দেশের সবচেয়ে বড় কওমি মাদ্রাসা চট্টগ্রামের দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসায় বেফাক শীর্ষ নেতৃবৃন্দের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বেফাক নেতৃবৃন্দের বৈঠকের একদিন পর সৌদিআরব সফররত জমিয়তে উলামাযে ইসলাম বাংলাদেশ এর কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব সাবেক এমপি এডভোকেট মাওলানা শাহীনুর পাশা চৌধুরী ফেসবুকে নিজ আইডি থেকে স্বীকৃতি ও মাওলানা ফরীদ উদ্দীন মাসউদকে লক্ষকরে একটি পোষ্ট দিযেছেন। পোষ্টটি সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্র হুবহু তুলে ধরা হলো:

 

কওমী ঘরানার গর্বিত সন্তান মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদ সাহেবকে—-
কান্ডারী নিয়ে যাচ্ছো কোথায় ?
আপনার সম্পর্কে লিখতে গেলে হাত কাঁপে।
আপনার পক্ষাবলম্বন করা আমার জন্য স্ব-বিরোধী। আমার বিরুদ্ধে বক্তব্য আসবে অজস্র।
কারণ বাংলার জনগণের কাছে আপনি ধিকৃত সংগঠন গণ জাগরণ মন্চের সাপোর্টার।
আর আপনার বিপক্ষে কলম ধরাও এ দুঃসময়ে বুদ্ধিমানের কাজ নয়- কারণ বন্দুক এখন আপনার।
তবুও বায়তুল্লাহ শরীফে বসে জাতির এ ক্রান্তিকালে দু’ কলম লিখতে বাধ্য হলাম।
ঐতিহ্যবাহী শোলাকিয়ার মুহতারাম ইমাম জনাব মাসউদ সাহেব আপনি ভুলে গেলে চলবেনা সরকারের কাছে আপনার ক্বদর কওমী পরিবারের গর্বিত সন্তান হিসেবে।
সরকার এদেশেরই। আর পীর আউলিয়ার এ দেশে আপনার পীর মাদানি কাফেলার কওমীর অনুসারী ১৫ কোটি মানুষ। নিকট অতীতের শাপলা চত্তরে জানান দিয়েছিল। যে কারণে সরকারের একজন আস্তাভাজন হিসেবে সরকার আপনার মাধ্যমেই কওমী সনদের স্বীকৃতি দেয়ার চেষ্টা করছে। দাবার গুটি আপনার হাতেই।
তাই আপনার কাছে বিনম্র অনুরুধ- বিষয়টির সুন্দর সুরাহার জন্য আপনি আল্লামা আহমদ শফী ও আল্লামা নূর হোসাইন কাসিমী সাহেবদের পরামর্শ নিন।
আমরা কওমী সনদের স্বীকৃতির পক্ষে। তবে আমাদের অস্তিত্ব বিসর্জন দিয়ে নয়। আর এ বিষয়ে আমার একটি মাত্র প্রস্তাবনা।
১. সিলেবাসে আধুনিক শিক্ষার কঠিন পুস্তক সংযোজন করে আমাদের সনদের স্বীকৃতিটা শুধু দিয়ে দিন। আমাদের ছাত্ররা মেধাবী। বেতন আমাদের লাগবেনা- আর এতে সরকারের খবরদারীর ও প্রয়োজন পড়বেনা। কারণ কওমীর আলেম সমাজ ১ হাজার টাকার বেতনেও চাকরী করার ইতিহাস রয়েছে।
কারণ তাদের মূল মকসদ রেজায়ে মাওলা।
সুতরাং এ বিযয়ে সতর্কতার সাথে আপনার জাতি ভাইদের সাথে থাকুন। কবি নজরুলের ভাযায়–
“এ তুফান ভারী দিতে হবে পাড়ী
নিতে হবে তরী পার
লংঘিতে হবে রাত্রী নিশীতে
কান্ডারী হুশিয়ার।”

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now