শীর্ষ শিরোনাম
Home » সাহিত্য » মরমি কবি শাহ মোহাম্মদ ইবরাহীম আলী তশ্না

মরমি কবি শাহ মোহাম্মদ ইবরাহীম আলী তশ্না

indexসারওয়ার ফারুকী: শাহ মোহাম্মদ ইবরাহীম আলী তশ্না (১৮৭২-১৯৩৩) ছিলেন বহুমুখী প্রতিভাবান একজন মুসলিম চিন্তাবিদ, সমাজ-সংস্কারক, ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের অগ্রসৈনিক, খিলাফত আন্দোলনের কেন্দ্রীয় নেতা এবং বহুসংখ্যক বাঙলা-উর্দু-ফারসি সঙ্গীতের রচয়িতা । ‘তশ্না’ উপাধিতে ব্যাপক পরিচিত হন । তাঁর ‘অগ্নিকুণ্ড’ সঙ্গীতগ্রন্থ বাংলা মরমি-সাহিত্যের এক অমূল্য সম্পদ । বাংলা ভাষায় মরমি সঙ্গীত রচয়িতাদের মধ্যে ইবরাহিম তশ্না ছিলেন সর্বোচ্চ একাডেমিক, এবং সর্বভারতীয় একজন রাজনৈতিক নেতার মনস্তাত্ত্বিক বিবর্তনের বিরল নজির ।
তশ্না সামাজ-সংস্কারে ঐতিহাসিক ভূমিকা রেখেছেন, শিক্ষা-আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছেন, স্বাধীনতা সংগ্রামে লড়েছেন, জেল খেটেছেন এবং জীবদ্ধশায় জগৎকে বিদায় দিয়েছেন- হয়েছেন ‘উদাসী তশ্না’ ।

নাম- শাহ মোহাম্মদ ইবরাহীম আলী
উপাধি- তশ্না (পিপাসী)
পিতা- শাহ আবদুর রহমান কাদরী (রাহঃ)
১৮৭২- জন্ম
জন্মস্থান- বাটইআইল, কানাইঘাট, সিলেট
১৮৮৯- দারুল উলুম দেওবন্দ গমন
প্রখ্যাত উস্তাদ- আব্দুল ওহহাব চৌধুরী (রাহঃ) ফুলবাড়ি, শায়খুল হিন্দ মাহমুদুল হাসান (রাহঃ)- দেওবন্দ, নাজির হোসাইন (রাহঃ) দেওবন্দ
তাসাউফের উস্তাদ- আশরফ আলী থানবী (রাহঃ)
১৮৯৮- দেওবন্দ হতে প্রত্যাবর্তন
১৮৯৮- উমরগঞ্জ ইমদাদুল উলুম মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা
১৯০৩- ২য় বার দেওবন্দ গমন
১৯০৪- তশ্না উপাধি প্রাপ্তি
১৯০৫- দেওবন্দ হতে প্রত্যাবর্তন
১৯০৬- ইসলামি জলসা প্রবর্তনের মাধ্যমে সংস্কারধর্মী আন্দোলনের সুচনা
১৯২১- খেলাফত আন্দোলনে নেতৃত্ব প্রদানে কারাবরণ
১৯৩৩- মৃত্যু

জন্ম ও পরিচয়:
মূল নাম শাহ মোহাম্মদ ইবরাহীম আলী, ‘তশ্না’ উপাধিতে ব্যাপক পরিচিত, তাঁর বংশ-পরিচয় ‘ফারুকী’ নামে । ১২৮৯ হিজরি মোতাবেক ১৮৭২ খ্রিস্টাব্দে সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার বাটইআইল গ্রামের ঐতিহ্যবাহী এক মুসলিম পরিবারে তাঁর জন্ম । পিতা কাদরিয়া তরিকার প্রখ্যাত পীর মাওলানা শাহ্ আবদুর রহমান কাদরী এবং বড় ভাই ‘বাংলার তোতা’-খ্যাত মাওলানা ইসমাঈল আলম ছিলেন বাঙলাভাষী উর্দু কবিদের মধ্যে অন্যতম ।
ইবরাহীম তশ্না-র পূর্বপুরুষ শাহ তকিউদ্দীন (রাহঃ) ছিলেন সিলেট-বিজয়ী কিংবদন্তি হযরত শাহজালাল (রাহঃ)-এর অন্যতম সফর-সঙ্গী এবং পবিত্র মক্কানগরী হতে আগত কোরাইশ বংশোদ্ভূত, তকিউদ্দীনের মাজার বিশ্বনাথ উপজেলার জালালপুরের শেখপাড়ায় অবস্থিত । সপ্তদশ শতকের শেষদিকে শাহ তকিউদ্দীন-এর অধস্তন শাহ্ জামাল উদ্দীন আসামের কাছাড় অঞ্চলের দিকে ইসলাম প্রচারের উদ্দেশে রওয়ানা হন, পথিমধ্যে কানাইঘাট থানার বাটইআইল গ্রামের মানুষের অনুরোধে এখানেই স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন । ১৯৫৮ খ্রিস্টাব্দে সাক্ষরিত একটি গীতিকাব্যে তাঁর বংশধারা সম্পর্কে চমৎকার তথ্য পাওয়া যায়, যা বড়ভাই ইসমাঈল আলমের তৃতীয় পুত্র মাওলানা রফিকুল হক রচিত । গীতিকাব্যে তিনি লিখছেন;
“এই বাতির পরিচয় কিছু দিলাম লিখিয়া
মন দিয়া শুনো সবে একিন করিয়া ।
শাহ তকী ফারুকীর নামে আরব নিবাসী
শাহ জালাল সাহেবের সঙ্গে হইলেন প্রবাসী ।
সিলেটের জালালপুরে তাঁহার মাঝার
কামালতি কত ছিল সীমা নাহি তার ।
শাহ জামাল উদ্দিন নামে তাহার আওলাদ
বাটইআইল আসিয়া তিনি করিলেন আবাদ ।
কত মুরিদ কত শিষ্য কতই মস্তানা
তাহার জরিয়ায় পাইল মালিকের ঠিকানা ।
তাহার উত্তরসুরী শাহ আব্দুর রহমান
কামিল বুজুর্গ তিনি সাছুজ্জামান ।
কত মুরিদ কত শিষ্য সীমা নাহি তার
তাহার ওছিলায় পাইল ঠিকানা আল্লাহর ।
তাহার ঔরশে পয়দা দুইটি ইয়াকুত
কামিল বাপের ঘরে হইল কামিল দুইটি পুত ।
তাহার প্রহরে হইল দুনিয়া উজিয়ালা
বুরাই মিটাইয়া দিল কেবল রইল ভালা ।
এই দুইটি ইয়াকুত তোরা চিনিবার চাও
একে একে বলিতেছি সবে বুঝিয়া নাও ।
প্রথমে মৌলানা মোহাম্মদ ইসমাঈল
শাইরী তখল্লুছ তাহার ‘আলম’ আছিল ।
দ্বিতীয়তে মৌলানা মোহাম্মদ ইবরাহীম
শাইরী তখল্লুছ ‘তশ্না’ আছিল ক্বাইম ।” (আংশিক)
স্বাক্ষর
রফিকুল হক ফারুকী
০২ মোহররম, ১৩৭৮হিজরী
২শ্রাবণ, ১৯৬৫বাংলা
১৮জুলাই, ১৯৫৮ইংরেজী ।

তশ্না-র চলন-বলনের চমৎকার বর্ণনা লিখেছেন ঐতিহাসিক আবদুল জলীল বিসমিল তাঁর ‘সিলহেট মে উর্দু’ গ্রন্থে- “তশ্না সাহেব মধ্যম গড়ন ও শ্যামলা বর্ণের  ছিলেন । চেহারায় ছিল উজ্জ্বল বসন্তের দাগ । চক্ষের পুতলি ছিল গাঢ় কালো এবং মাথায় বাবরি চুল রাখতেন । আওয়াজ ছিল ভারি, কথা বলতেন নরম তবিয়তে । ঘন-কালো দাড়িতে খুবই সুন্দর দেখাত । তুর্কি টুপি পরিধান করতেন, পাগড়ি মাথায় জলসায় যেতেন এবং বক্তব্যের সময় প্রায়ই পাগড়ি খুলে রাখতেন । লম্বা কুরতা, শেরওয়ানি, আরবি-কোট ও পায়জামা পরতেন । লাঠি হাতে থাকত, চশমা ব্যবহার করতেন । স্বাভাবিক খানা নিজে খেতেন এবং অন্যকে খাওয়াতেন । কখনও নিজ হাতে রান্না করে মেহমানদারি করতেন । হাদিয়া-তোহফা পেয়ে কখনও বণ্টন করতেন আবার কখনও কেতাব ছাপানোর কাজে ব্যবহার করতেন । চা পানে ছিলেন খুবই অভ্যস্ত ।”

লেখাপড়া:

প্রাথমিক শিক্ষা পিতার একান্ত তত্ত্বাবধানে, তারপর তদানীন্তন আসাম প্রদেশের খ্যাতনামা ইসলামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ফুলবাড়ি আজিরিয়া মাদ্রাসায় ভর্তি হন ইবরাহীম তশ্না । সেখানে আলেম এবং সুফিপণ্ডিত মাওলানা আব্দুল ওহাব চৌধুরী-র সাহচর্যে ইসলামি শিক্ষার পাঠ শুরু করেন । প্রখর মেধাবী তশ্না এখানে আরবি, ফারসি শিক্ষা লাভে মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষকদের মাঝে বেশ সুনাম অর্জন করেন । ফুলবাড়ি মাদ্রাসায় শিক্ষা সমাপ্তির পর ১৮৮৯ খ্রিস্টাব্দে চলে যান ভারতীয় মুসলমানদের শ্রেষ্ঠ দ্বীনি শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান বিশ্বখ্যাত ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয় দারুল উলুম দেওবন্দ-এ । সেখানে তিনি হাদিস-শাস্ত্রে ১ম স্থান অধিকার করেন । দারুল উলুম দেওবন্দ মাদ্রাসায় শিক্ষা সমাপ্তির পরও তশ্না-র জ্ঞানপিপাসা মেটেনি, তিনি চলে যান দিল্লি । দেওবন্দ ও দিল্লির একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একটানা নয় বছর অধ্যয়ন করে ইলমে-হাদিস, উর্দু এবং ফারসি ভাষায় গভীর পাণ্ডিত্য অর্জন করেন ।

শিক্ষা আন্দোলন

নয় বছর জ্ঞান-সাধনার পর ১৮৮৯ খ্রিস্টাব্দে তশ্না দেশে ফিরেন । মুসলমানদের পশ্চাৎপদতা তাঁর মনে প্রচণ্ড প্রতিক্রিয়া তৈরি করে । নয় বছরের অর্জিত জ্ঞান তিনি মানুষের মাঝে ছড়িয়ে দিতে উদ্যোগী হন । এ উদ্দেশ্যে একদিন পার্শ্ববর্তী সাত গ্রামের জনসাধারণকে নিয়ে স্থানীয় উমরগঞ্জ বাজারে এক আলোচনা সভার আয়োজন করেন । সভায় শিক্ষার প্রয়োজনীয়তার ওপর বক্তব্য দিয়ে শেষ পর্যায়ে হঠাৎ বলেন, ‘আমি দীর্ঘ নয় বছর বিদেশে থেকে আপনাদের জন্য সামান্য খেজুর নিয়ে এসেছি । আমার ইচ্ছা আজকের সভায় খেজুরগুলো বণ্টন করে দিই ।’ জনতার অনেকেই খেজুরের আশায় এদিকওদিক তাকালো ! তিনি তখন বললেন, ‘এ খেজুর ইলমে দ্বীনের খেজুর । আজ আমি এ মাটিতে ইলমে দ্বীনের একটি বীজ রোপণ করতে চাই, ইলমে দ্বীনের এ বীজের বদৌলতে ইসলামের আলো চিরদিন জ্বলতে থাকবে ।’ এ কথা বলে উপস্থিত জনতার মতামত জানতে চান । উপস্থিতি তাঁর কথায় সম্মতি প্রদান করলে ১৩১৭হিজরি; ১৮৯৮খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত হয় বৃহত্তর জৈন্তা অঞ্চলের দ্বিতীয় প্রাচীন ইসলামীক প্রতিষ্ঠান ‘মাদ্রাসায়ে ইমদাদুল উলুম- উমরগঞ্জ’।
তখনকার সময়ে জৈন্তা-অঞ্চলে সঠিকভাবে কোরআনের সঠিক শিক্ষাপদ্ধতি তথা তাজবিদের কোন উল্লেখযোগ্য প্রতিষ্ঠান ছিল না । তাঁর প্রতিষ্ঠানের হাত ধরে জৈন্তা অঞ্চলে তাজবিদের মাধ্যমে কোরআন শিক্ষার প্রচলন হয় । সে সময়ের লোকমুখে প্রচলিত একটি ইসলামি গান থেকে এর পরিচয় পাওয়া যায়;
‘বাটইআইলের মাদ্রাসাতে উড়িল দীনের নিশান
মিসরী এলহান ও লেজহায় শিখাইন কোরআন ।”
উমরগঞ্জ ইমদাদুল উলুম মাদ্রাসা বৃহত্তর জৈন্তিয়া অঞ্চলে ইলমে দীনের প্রচার ও প্রসারে পথিকৃতের ভূমিকা পালন করেছে । এ মাদ্রাসা স্থানীয় পরিসরে অনেক সংস্কার আন্দোলনের সূচনা করেছে । তশ্নার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সেসময়ে ইমদাদুল উলুম উমরগঞ্জ মাদ্রাসা সিলেট অঞ্চলের এক সু-প্রতিষ্ঠিত শিক্ষাকেন্দ্র হিসাবে পরিগণিত হয়েছিল ।

তশ্না উপাধি

ইবরাহীম তশ্না মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠার পর কিছুদিন নিজেই শিক্ষকতা করেন । কিন্তু তাঁর জ্ঞান অর্জনের তৃষ্ণা তখনো মেটেনি । কয়েকজন ছাত্রসহ ১৯০৩ খ্রিস্টাব্দে তিনি আবার দিল্লীর উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন । দিল্লী ছাতারি স্টেট-এ ওস্তাদ শায়খুল হাদিস মাওলানা নাজির হুছাইন মদনী (রাহঃ)-র খেদমতে আরও দু’বছর থেকে হাদিস-শাস্ত্রে উচ্চতর সনদপ্রাপ্ত হন । ওস্তাদ জ্ঞানের তীব্র পিপাসা দেখেই তাঁকে ‘তশ্না’ অর্থাৎ ‘পিপাসু’ উপাধি প্রদান করেন । তখন থেকে শাহ মোহাম্মদ ইবরাহীম আলী ‘ইবরাহীম তশ্না’ নামে অধিক পরিচিত হন । প্রাতিষ্ঠানিক-শিক্ষা সমাপ্তি পর তশ্না কিছুদিন হাকিমুল উম্মত হজরত মাওলানা আশরফ আলী থানবী (রাহঃ)-এর খেদমতে থেকে তাঁর মুরিদ হন এবং ১৯০৫ খ্রিস্টাব্দে দেশে ফিরে মারিফাতের কঠোর সাধনায় আত্মনিয়োগ করেন ।

ইসলামি জলসার প্রচলন

তশ্না ১৯০৬ খ্রিস্টাব্দে তৎকালীন আসাম অঞ্চলের প্রথম ইসলামি জলসার আয়োজন করেন ‘ইমদাদুল উলুম, উমরগঞ্জ’ মাদ্রাসা ময়দান-এ । জলসার মাহফিল আয়োজন ছিল তশ্না-র এক বিরল ও ঐতিহাসিক সংস্কার আন্দোলন । এ জলসার প্রভাব ছিল ব্যাপক । সেসময় বৃহত্তর সিলেট ও আসাম অঞ্চলে ইসলামি জলসার কোন প্রচলন ছিল না, বিভিন্ন স্থানে পুঁথিভিত্তিক মাহফিল এবং বিভিন্ন মসজিদ ও খানকাহ্ কেন্দ্রিক ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন হতো । সাধারণ জনগণের মাঝে ইসলামি শিক্ষা-সংস্কৃতি চর্চার ব্যাপকভিত্তিক কোন ব্যবস্থা ছিল না, যার প্রমাণ পাওয়া যায় প্রখ্যাত আলেমে দীন, সুফি পণ্ডিত- হজরত মাওলানা আব্দুল ওহাব (রাহঃ) রচিত ‘উম্মি তরান’ পুঁথির নিম্নোক্ত পঙক্তিমালায়ঃ
‘পণ্ডিতে বুঝে ভাই কালাম আল্লাহর
জাহিলে বুঝিতে শক্তি নাহি আছে তার ।
আধা পণ্ডিতের লাগি হইল কিতাব
উম্মি লোকের লাগি পুঁথি করিল ওহাব’ ।
খ্রিস্টান মিশনারিজদের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণাকারী মুনশি মেহেরউল্লাহ আঠারো শতকের শেষদিকে তাঁর রচিত ‘রদ্দে খ্রীষ্টিয়ান ও দলিলোল এস্লাম’ গ্রন্থে ইসলামি সভা-সমিতির অনুপস্থিতির কথা অত্যন্ত আবেগভরে উল্লেখ করেছেন, “ইসাঈ পাদৃগণ সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হযরত রসুল আলায়হেস্ সালামের ও পবিত্র কোরাণ মুজিদের প্রতি যে সকল অযথা আক্রমণ ও দোষারোপ করিয়াছেন, হিন্দুস্থানী মস্লেম ওলামা মণ্ডলী তাহার সহস্র সহস্র প্রতিবাদ পুস্তক, ঊর্দু ও পার্সী ভাষায় লিখিয়া, আক্রমণকারীদিগের বিষদন্ত ভগ্ন করিয়া দিয়াছেন । আমাদের বঙ্গদেশে কোনও প্রকার মুসলমান ধর্মত্তেজিকা সভা-সমিতি নাই । ধর্মের সম্যক আলোচনা নাই উপযুক্ত প্রচারকও নাই । যদিও মাদ্রাসা পাস করা মৌলভী সাহেবগণ দেশে দেশে ভ্রমণ করিয়া ও মুরিদ করিয়া ফেরেন, কিন্তু তাঁহাদের সেই চিরন্তন বাঁধা গৎ প্রচার ও ‘তেলে মাথায় তেল দেওয়া’ ভিন্ন বিপক্ষের আক্রমণ রোধ করিবার ক্ষমতা নাই ।” গ্রন্থের টীকায় লেখক উল্লেখ করেছেন, ‘বরিশাল, রাজশাহী, রংপুর এবং টাঙ্গাইল ইত্যাদি কয়েক স্থলে যদিও কয়েকটি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সভা আছে, কিন্তু সেই সমস্ত সভার প্রতি সাধারণের তাদৃশ সহানুভূতি নাই ।’ জনসাধারণের সচেতনতার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে মুনশি মেহেরউল্লাহ ১৮৯৭-৯৮ খ্রিস্টাব্দের দিকে ব্যাপক ভিত্তিক ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করেন ।
সমসময়ে ইবরাহীম তশ্না সিলেট অঞ্চলে কোরআন-হাদিস আমজনতার মধ্যে প্রচারের উদ্দেশে ১৯০৬ খ্রিস্টাব্দ মোতাবেক ১৩২৪ হিজরি সনে ইসলামি জলসার প্রবর্তনের মাধ্যমে ঐতিহাসিক ভূমিকা পালন করেন । এ আন্দোলনের ফলে সাধারণ মানুষের মধ্যে ইসলামি জ্ঞানের প্রচার-প্রসার হয় এবং এ আন্দোলন পরবর্তীকালে জৈন্তা অঞ্চলের সাধারণ জনতাকে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে উদ্বুদ্ধ হতে অনন্য ভূমিকা পালন করে । ভিন্নধর্মী এ আয়োজনের খবর অতি দ্রুত সিলেট ও আসাম অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে এবং বিভিন্ন স্থানে এ ধরনের ওয়াজ মাহফিল বা ইসলামি জলসার আয়োজন হতে থাকে । বিশেষ করে তখনকার সময়ে উমরগঞ্জ ইমদাদুল উলুম মাদ্রাসার জলসার প্রতি সিলেটের মানুষের হৃদয়ের টান ছিল উচ্ছ্বসিত । জলসায় উপস্থিতি ছিল ব্যাপক, লোকমুখে প্রচলিত একটি গানে আমরা এর একটি পরিসংখ্যান পাই;
পঁচিশ-ত্রিশ হাজার লোক হয় এই মহফিলের মাঝে
ইসলামের ডঙ্কা বাজে- হায় হায়
রঙ্গে ঢঙ্গের ওয়াজ করে কত রঙ্গের উলামায় ॥
শতাধিকবর্ষ পূর্বে একটি মাহফিলে পঁচিশ/ত্রিশ হাজার মানুষের উপস্থিতি পর্যালোচনার দাবি রাখে । বর্তমানে দেশের সর্বত্রই এ ধরনের ইসলামি জলসার আয়োজন হচ্ছে ।
তশ্না যখন মাহফিলে বক্তব্য দিতেন তখন লোকেরা তন্ময় হয়ে তাঁর কথা শুনত, বক্তব্যের সময় আবেগপ্রবণ হয়ে পড়তেন, উৎসাহ উদ্দীপনার সাথে বক্তব্য দিতেন এবং কোরআন হাদিস থেকে প্রাসঙ্গিক দলিল নিখুঁতভাবে পেশ করতেন বলে ‘সিলহেট মে উর্দু’ গ্রন্থে উল্লেখ করা হয়েছে । জলসায় স্বরচিত কবিতার মাধ্যমে জনগণকে ব্রিটিশ বিরোধী জেহাদের দিকে আহ্বান করতেন ।

খেলাফত আন্দোলন

ব্রিটিশবিরোধী স্বাধীনতা সংগ্রামের এক উল্লেখযোগ্য অধ্যায় ‘খেলাফত আন্দোলন’ । এই আন্দোলনের নেতৃত্বে ছিলেন মাওলানা শওকত আলী, মাওলানা মুহাম্মদ আলী, মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা আকরাম খাঁ প্রমুখ সর্বভারতীয় নেতৃবৃন্দ । এ সময় খেলাফত আন্দোলনের নেতা মাওলানা মুহাম্মদ আলী এবং শায়খুল হিন্দ মাওলানা মাহমুদুল হাসান (রাহঃ)-এর নির্দেশে ইবরাহীম তশ্না সিলেট ও আসামের ময়দানে ঝাঁপিয়ে পড়েন । তাঁর জ্বালাময়ী বক্তৃতায় গ্রামেগঞ্জে অভূতপূর্ব জাগরণের সৃষ্টি হয় । এসময় তাঁর রচিত অনেক গান গ্রামেগঞ্জে মানুষের মুখে মুখে ছিল ।
ইবরাহীম তশ্না-র সাহস ও রাজনৈতিক দক্ষতার স্বীকৃতিস্বরূপ তাঁকে অল-ইন্ডিয়া খেলাফত আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির অন্তর্ভুক্ত করা হলে তাঁর দিল্লি-কেন্দ্রিক রাজনৈতিক জীবনের সূত্রপাত হয় । তশ্না যখন গ্রামেগঞ্জে অভূতপূর্ব জাগরণ সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখছেন, তখন ব্রিটিশ সরকার তাঁর ওপর তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখে এবং গ্রেফতার করে । সিলেট কেন্দীয় কারাগারে বন্দিবস্থায় তাঁর ওপর অকথ্য নির্যাতন চালানো হলে তিনি সুস্পষ্ট জানিয়ে দেন- ‘বন্দী অবস্থায়ও আমরা স্বাধীনতার সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছি । এটা কখনও মনে করবেন না যে আমরা এখানে বৃথা সময় নষ্ট করছি । আমরা কখনও খ্রিস্টান সরকারের ভয়ে স্বাধীনতার সংগ্রাম ত্যাগ করতে পারি না । রূহ জগতে আমরা করুণাময় আল্লাহর কাছে ওয়াদা করেছি যে, আমরা দ্বীনের জন্য ও ন্যায় বিচারের জন্য সংগ্রাম করবই করব ।” দৈনিক সিলেটের ডাক-এর নির্বাহী সম্পাদক আবদুল হামিদ মানিক বলেন, ‘ইবরাহীম তশ্না (রাহঃ) যখন সিলেট কারাগারে বন্দি তখন নামাজের সময় নামায ও আজানের কোন ব্যবস্থা ছিল না । ইবরাহীম তশ্না ও ড. মর্তুজা চৌধুরী-র আন্দোলনের ফলেই তখনকার জেল কর্তৃপক্ষ পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের সময় আজান ও নামাজের জন্য মসজিদের বন্দোবস্ত করতে বাধ্য হয় ।’ কারাগারে তাঁর সাথে ছিলেন মাওলানা আবদুল মুছব্বির, বিপ্লবী ও অনলবর্ষী বক্তা ফজলুল হক সেলবর্ষী, ড. মর্তুজা চৌধুরী, মাওলানা সাখাওয়াতুল আম্বিয়া প্রমুখ নেতৃবৃন্দ ।
ভারত উপমহাদেশের মুসলিম রাজনীতির কেন্দ্রবিন্দু দিল্লি জামে মসজিদে উর্দু ভাষায় তাঁর এক বক্তব্যে উপস্থিতিরা চমকে যান । তারা জানতে চায়, মাওলানা কোন এলাকার লোক । যখন জানলো তিনি বাংলার অধিবাসী, তখন ‘বাংলাদেশে এমন উর্দু বক্তা আছে?’- বলে বিস্ময় প্রকাশ করে । ‘কল্লোল’ পত্রিকার উদ্ধৃতি দিয়ে মাওলানা আবদুল আওয়াল লিখেন, খিলাফত আন্দোলনের লক্ষ্ণৌ সম্মেলনে সব নেতাই ব্রিটিশ পণ্য এবং ইংরেজি শিক্ষা বর্জনের পক্ষে জোরালো বক্তব্য রাখলেও দুরদর্শী তশ্না তখন বুঝতে পেরেছিলেন যে-হারে ইংরেজি শিক্ষা বর্জন শুরু হয়েছে তাতে ইংরেজী শিক্ষিতরাই লাভবান হবে । তাই তিনি লক্ষ্ণৌ সম্মেলনে ইংরেজি শিক্ষার পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে বলেছিলেন, ‘আমরা আরবি, ফারসি, উর্দু এবং অন্যান্য ভাষায় শিক্ষা অর্জন করে থাকি । তদ্রুপ ইংরেজি একটি ভাষা মাত্র । ইংরেজদের সাথে আদর্শিক ভিন্নতা থাকতে পারে, তাই বলে ইংরেজি ভাষা শিক্ষা অপরাধ নয় । ইংরেজদের আচরণ অনুকরণ করাই অপরাধ ।’ এ বক্তব্যে তিনি দৃঢ় থাকায় সমকালীন অনেক আলেমের কাছে যদিও সমালোচিত হয়েছিলেন, তবু এতে তাঁর রাজনৈতিক দূরদর্শিতার পরিচয় পাওয়া যায় । বক্তব্যের বাস্তব প্রয়োগ করেন তাঁর ভাতিজা পীর মাওলানা শফিকুল হক (রাহঃ)-কে ইসলামী শিক্ষার পাশাপাশি ইংরেজি শিক্ষা দেয়ার মাধ্যমে । যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে দু’শ বছরের গোলামির জিঞ্জির ভেঙে স্বাধীনতার সূর্য ভারতবর্ষের ভাগ্যাকাশে উদিত হয়েছিল ইবরাহীম তশ্না (রাহঃ) ছিলেন তাঁদের অগ্রসৈনিক ।

কানাইঘাটের লড়াই

উপমহাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের উত্তেজনাকর মুহূর্তে জৈন্তিয়া-খাসিয়া পাদদেশের অঞ্চলেও তার প্রভাব পড়ে । পাহাড়ি হিমেল হাওয়ায় বেড়ে ওঠা এ অঞ্চলের গণমানুষের রক্ত জেহাদি জোশে টগবগ করতে থাকে ।
১৯২২ খ্রিস্টাব্দ । ব্রিটিশ-ভারতজুড়ে দুর্বার গতিতে চলছে খেলাফত আন্দোলন । ইবরাহীম তশ্না প্রবর্তিত ইসলামি জলসাসমূহ তখন সিলেট অঞ্চলের খেলাফত আন্দোলনের চেতনা-কেন্দ্র হয়ে উঠেছে । আন্দোলনের অংশ হিসেবে ১৯২২ খ্রিস্টাব্দের ২৩শে মার্চ কানাইঘাট মানসুরিয়া মাদ্রাসা-র জলসা উপলক্ষে জনসভা আহবান করা হয় । ইবরাহীম তশ্না-র সভাপতিত্বে জলসার কার্যক্রম শুরু হলে ব্রিটিশ প্রশাসন জলসা নিষিদ্ধ করে ১৪৪ ধারা জারি করে । সুরমা ভেলির কমিশনার জে. ই. ওয়েবস্টার ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন । ঘটনার প্রেক্ষাপটে জনতার মাঝে প্রচণ্ড উত্তেজনার সৃষ্টি করে । কমিশনার গুর্খা ও পুলিশবাহিনীকে গুলি বর্ষণের আদেশ প্রদান করলে ঘটনাস্থলেই শহিদ হন স্থানীয়: মৌলভী আব্দুস সালাম (গ্রাম: বায়মপুর), মো. মুসা মিয়া (গ্রাম: দুর্লভপুর), আব্দুল মজিদ (গ্রাম: নিজ বাউরবাগ), হাজী আজিজুর রহমান (গ্রাম: সরদারিপাড়া), ইয়াসিন মিয়া (গ্রাম: চটিগ্রাম)। এ ঘটনার জের ধরে কানাইঘাটের জনগণের ওপর অকথ্য নির্যাতন চালানো হয় । কারাগারে নিক্ষেপ করা হয় নেতৃত্বে থাকা ইবরাহীম তশ্না (রহ.) সহ অনেককে । এই ঘটনার প্রেক্ষিতে তশ্না (রহঃ) একটি উর্দু কবিতা রচনা করেন ।
কাব্যানুবাদঃ
দুনিয়ার অবস্থা দেখে অন্তর আমার পেরেশান
অন্তর পেরেশান আজ বীরত্বের দূরাবস্থা দেখে ।
জ্ঞানীরা বলে নিজ-গৃহে নীরবে বসে থাকো
জাতীয়তা বলে, ঝাঁপিয়ে পড়ো ময়দানে, তা হলে মানুষ থাকবে ।
হে আমার মুসলমান ভায়েরা !
তোমরা মনে-প্রাণে বিশ্বাস করো
সামনে আমার কর্মের বিস্তৃত ময়দান ।
তুমি মানুষের সেবা কর, ফিতনা-ফ্যাসাদ পরিত্যাগ কর ।
করো কল্যাণ নিঃস্ব মানুষের ।

ঐক্যই হল মুসলমানের শ্রেষ্ঠত্ব ।
অথচ বিভক্তিই যেন আজ আমাদের নীতি ।
একতা আমাদের সম্পদ । নয়তো ধ্বংস হব আমরা জাতি হিসাবে
গৃহযুদ্ধ হলো আমাদের উভয় জাহানের ধ্বংস ।
ঐক্যবদ্ধতা শিশুখেলা নয়
বলা সহজ কিন্তু কাজে পরিণত করা কঠিন ।
আদর্শের ভিত্তিতেই আমরা ঐক্যবদ্ধ হতে পারব
আর যদি না পারো তাহলে শেষ পর্যন্ত মৃত্যু অবধারিত ।

মানুষের সামনে চল সাদাসিধে হয়ে
মানুষতো মানুষেরই জন্য ।
স্বাধীনতার স্লোগানে তশ্না লাবণ্য ও আনন্দ উপভোগ করে
আজকাল আমার কণ্ঠে তাই ঐক্যের বাঁশরী ।

উপস্থিত বুদ্ধি

ইবরাহীম তশ্না-র প্রখর উপস্থিত বুদ্ধি ছিল । যেকোনো বিষয়ে এবং যে কোনো পরিস্থিতিতে চমৎকার সমাধান দিতেন । একবার দিল্লিতে দাড়ির উপকারিতার ওপর বক্তব্য চলাকালীন একজন ইংরেজি শিক্ষিত লোক হঠাৎ বলে ওঠেন, ‘মাওলানা সাহেব, দাড়ি যদি সৌন্দর্যের পর্যায়ে পড়ত তা হলে সকলেই মায়ের গর্ভ হতে দাড়ি নিয়েই জন্মগ্রহণ করত ।’ ইবরাহীম তশ্না সাথেসাথে জবাব দেন, ‘দাঁতেরও তো একই অবস্থা । দাঁত সৌন্দর্যের প্রতীক না হলে একটি লাঠি দিয়ে ভেঙে দিন ।’
তশ্না-পুত্র মাওলানা ওলিউর রহমান ‘উদাসী তশ্না’ গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন, সে যুগের আলেমগণের মধ্যে মিলাদ মাহফিলে কিয়াম নিয়ে মতানৈক্য হতো । কেউ মিলাদ জরুরি, আবার কেউ বিদআত মনে করতেন । একবার জকিগঞ্জে এক মিলাদ মাহফিলে কিয়ামের পক্ষের লোক দাঁড়িয়ে যান এবং কিয়ামের বিপক্ষের লোকেরা বসে থাকেন । এ দৃশ্য দেখে তশ্না শুয়ে পড়েন ! লোকেরা শোয়ে পড়ার কারণ জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ‘আল্লাহ তায়ালার জিকির-আজকার দাঁড়িয়ে, বসে এবং শোয়ে পড়ার নির্দেশ আছে, আপনারা কেউ বসে কেউ দাঁড়িয়ে আছেন, বাকি দিকটা না হয় আমিই পূর্ণ করলাম ।’ এসব চমৎকার জ্ঞানপূর্ণ বিষয়াবলির ব্যাপারে শায়খ ইয়াকুব বদরপুরী (রাহঃ) বলেন, ‘আমাদের জ্ঞান বুকের মধ্যে আর তশ্না-র জ্ঞান ছিল ঠোঁটের মধ্যে ।’

রশিকতা

তশ্না ছিলেন খোলামনের, খোশমেজাজি ও রশিক স্বভাবের । মাওলানা তফজ্জুল আলী ফজলি সিলেটের ইসলামি মহলে পরিচিত এক নাম । একদিন তিনি পারিবারিক অনুষ্ঠানে কয়েকজন বন্ধুকে দাওয়াত দেন । তখনকার সামাজিক রীতিনুসারে মাওলানা ফজলি পুদিনা পাতা পাঠিয়ে তাঁর বন্ধুদের দাওয়াত দিলেন । কিন্তু তশ্না সে অনুষ্ঠানের দাওয়াত না পেয়ে মাওলানা ফজলিকে একটি কবিতা লিখে পাঠান । কবিতাটি ছিল ফারসি ভাষায় ।
সরল রূপান্তরঃ

পুদিনা পাতা ছুটলো বিশেষ বিশেষ ব্যক্তিপানে ।
তশ্নার কাছে আসে নি ! কেন সেই পার্থ্যক্য?

ফজলি উত্তরে আরেকটি কবিতা পাঠিয়ে দেন;

পুদিনার পাতা এমনি এমনি প্রস্ফুটিত হয় নি।
হে বন্ধু,
বহু কষ্টের বিনিময়ে পুদিনা-সুবাস কিনেছি
কিন্তু তশ্নার কানে গোপন সে সংবাদ পৌঁছামাত্র
খুশবুশুদ্ধা পুদিনা ফজলি হতে উড়ে উড়ে গেল !”

রচনাবলী ও ‘অগ্নিকুণ্ড’ প্রসঙ্গ

ছুটিল বসন্ত হাওয়া গোলাপ ফুটিল
ভ্রমর ব্যাকুল হইয়া উড়িল উড়িল ।
গুলবদনীর দেখি রূপ ভুবন ও মোহন
রসিক হৃদয়ে অনল জ্বলিয়া উঠিল ॥
….
বারে বারে উঠে দিলে আগুন্নির জ্বালা গো
কোথায় মধুমালা ।
প্রেমের সায়রে উঠে আগুন্নির ঢেউ
পানিতে আগুন্নি জ্বলে মহব্বতের লীলা ॥
….
কী সন্ধানে হেরি গো আমি কী সন্ধানে হেরি
অকুল সায়রে আমার ভরা গেল মরি ।
বিদ্যা গেল বুদ্ধি গেল আর কুল ও মান
তবুও তো না পাই আমি যার লাগি মরি ॥

এমনই তিন শতাধিক উচ্চাঙ্গের মরমি গান ‘অগ্নিকুণ্ড’ কাব্যের অন্তর্গত । অগ্নিকুণ্ড মাওলানা ইবরাহীম তশ্না-র অমর রচনা । প্রখ্যাত উর্দু সাহিত্যিক আব্দুল জলীল বিসমিল ইবরাহীম তশ্নার উর্দু ও ফারসিতে দু’শোর অধিক এবং বাংলায় ৩৬০টি সঙ্গীতের উল্লেখ করেছেন । গ্রন্তর্ভুক্ত রচনা সমূহে উচ্চাঙ্গের আধ্যাত্মিক ভাবধারার প্রকাশ হয়েছে । বিভিন্ন সময়ে সংক্ষিপ্তাকারে তাঁর জীবনাংশের সাথে অগ্নিকুণ্ডের গুটিকয় গান প্রকাশ হয়েছে । তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে ইন্সপেক্টর সেন্ট্রাল এক্সাইজ পদে চাকুরিরত উর্দুভাষী সাহিত্যিক আব্দুল জলীল বিসমিল ইবরাহীম তশ্না-র জীবনীসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ পাণ্ডুলিপি প্রকাশের উদ্দেশ্যে গ্রহণ করেন । তবে দুঃখজনক হলো তিনি ছুটিতে পশ্চিম পাকিস্তানে গেলে মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাঙলাদেশ স্বাধীন হয় এবং তিনি আর ফেরেন নি, ফলে তশ্না-র জীবনের উল্লেখযোগ্য দিক ও রচনাবলি হারিয়ে যায় । বিসমিল ‘তশ্না কি জজবা’ নামে একটি বই প্রকাশ করেছিলেন বলে জানা যায় । বিসমিল তাঁর অপর গ্রন্থ ‘সিলহেট মে উর্দু’ গ্রন্থে তশ্নার ওপর আংশিক আলোচনা করেছেন । একুশে বইমেলা, ঢাকা- ২০০৯-এ কবি সরওয়ার ফারুকী সম্পাদিত ‘মরমি কবি ইবরাহীম আলী তশ্না ও অগ্নিকুণ্ড গানের সংকলন’ গ্রন্থে ২৯৭টি গান সংকলিত করে মদিনা পাবলিকেশন্স, ঢাকা কর্তৃক প্রকাশ করলে নতুনভাবে তশ্না-র ওপর দৃষ্টি পড়ে সুধীজনের ।

‘নুরের ঝংকার’ নামে তশ্না-র সঙ্গীত প্রথম প্রকাশ হয় ১৩৪৪ বাংলা ১৯২৭ খ্রিস্টাব্দে । ইবরাহীম তশ্না-র জীবনী ও অগ্নিকুণ্ড গ্রন্থের কয়েকটি গান তাঁর বড়ছেলে মাওলানা সিদ্দিকুর রহমান ১৯৬০ খ্রিস্টাব্দে ‘ইবরাহীম তশ্নার সংক্ষিপ্ত জীবনী ও অগ্নিকুণ্ড’ শিরোনামে নামে ৩৪টি গানসহ একটি ছোট্ট সংকলন প্রকাশ করেন । তশ্না-র ২য় ছেলে মাওলানা ওলিউর রহমান (রহ.) ‘অগ্নিকুন্ড ও শাহ শীতালং রচিত কতিপয় রাগ’ শিরোনামে ১৩৯৮ বাংলা, ১৯৯২ খ্রিস্টাব্দে একটি বইয়ে তশ্না ও মরমি কবি শীতালং শাহ’র ওপর তথ্যপূর্ণ আলোচনা করেন । এছাড়া পত্র-পত্রিকায় তাঁকে নিয়ে গবেষণাধর্মী প্রবন্ধ লিখেছেন গবেষক অধ্যাপক মুহম্মদ আসাদ্দর আলী, সামছুল করিম কয়েস, গবেষক আবদুল মতিন চৌধুরী সহ অনেকেই । ইসলামি বিশ্বকোষ, ৪র্থ খণ্ড, পৃষ্ঠাঃ ৭০০, ২য় সংস্করণ, জুন-২০০৬খ্রিঃ-এ তশ্না’র ওপর আলোচনা হয়েছে ।
মাওলানা ইবরাহীম তশ্না উর্দু ও ফার্সি ভাষায় গভীর পাণ্ডিত্য অর্জন করেন । অধ্যয়ন ছিল তাঁর স্বভাবজাত । স্বাভাবিকভাবে তাঁর রচনাতে উর্দু ফারসি শব্দের বিরল সমাহার ঘটে । বাংলা সাহিত্যের আধ্যাত্মিক রচয়িতাদের মধ্যে মাওলানা ইবরাহীম তশ্না ছিলেন সর্বোচ্চ একাডেমিক শিক্ষায় শিক্ষিত । তাঁর রচনাবলি বৈশিষ্ট্য সমৃদ্ধ এবং এতে রূপকের ব্যবহার অত্যধিক । বিশিষ্ট গবেষক সৈয়দ মোস্তফা কামাল বলেছেন, ‘এ কথা সত্য যে, তাঁর সংগীতের মর্ম বুঝতে হলে জ্ঞান মার্গের বাসিন্দা হতে হবে ।’ বিশেষ করে তাঁর উর্দু ও ফার্সি রচনাসমূহ অত্যন্ত উঁচু মানের ছিল । আকবর এলাহাবাদীর মতো ভারত বিখ্যাত ব্যক্তিও তাঁর একটি রচনায় আশ্চর্য হয়ে যান; ফার্সি কবিতার সরল বাংলা অনুবাদ করেছেন মাওলানা মুতাসিম বিল্লাহঃ
এক নতুন নমুনা দেখা যাচ্ছে সর্বত্র
জীবনযাপনে অসন্তুষ্ট আমি
পশ্চিমাদের কুৎসা রটানো দেখে ।
নতুন শিক্ষা নতুন সভ্যতা
ভীষণ এক সূর্য তাপ ।
কী বলব আমি ?
মুসলিম জাতির আলো যেন অন্ধকারে ঢেকে গেছে
চিরকালের জন্য ।
পশ্চিমা শিক্ষার ফলাফল কি দাঁড়াচ্ছে ?
কলেজগুলোতে কি বরকতময় শিক্ষা আছে ?
মুসলমানদের সন্তান হয়ে ইংরেজের চালচলন হবে
বেনামাজি দাঁড়িহীন মুসলমানদের নেতা হবে
নেতাদের এই পদ্ধতি বিচিত্রময় বৈকি !

হে যুবক! তুমি যে জিহাদের দাবি কর
অতঃপর মহিলাদের সাদৃশ্যে কীভাবে ধারণ করো ।
হিন্দুদের মধ্যে মুচির সন্তান ছিল আশ্চর্য কালো
ইউরোপের সম্পদে তারা আজ সুন্দরী হয়ে গেছে
জামানার কী বিচিত্র চালচলন !

যে তার ধর্মকে রক্ষা করে বেঁহুশ হয়ে
দুনিয়ার জীবন তার হয়ে যায় অতি তুচ্ছ
আল্লাহ তা’আলা যাকে বলেছেন বোকা, জাহিল, মূর্খ
আশ্চর্য লাগে ওই মানুষের উপর যারা বলে জ্ঞানী
হাদিসের সংবাদ হলো,
যে কিছু কোরান পড়েছে, স্পর্শ করেছে
সে-ই হলো মুফতি কাজি ও মাওলানা ।
ভাগ্যের ব্যাপারে অভিযোগ করা যায় না
এট হলো আপন আমলের দুর্ভাগ্যের রঙ ।
শুকনো মাটিতে চল উজ্জ্বল চন্দ্রের মতো
আর নিজেই বানিয়ে নাও নিজের উদ্যান ।
স্বাধীনতার জন্যে ব্যাকুল তশ্না দেশ ও জাতির জন্যে হৃদয়ের হাহাকার অত্যন্ত জোরালোভাবে কয়েকটি উর্দু কবিতায় বর্ণনা করেন ।
কাব্যপ্রতিভা ইবরাহীম তশ্না রচনা করেছেন কয়েকখানা মৌলিক কিতাব । যে-সবের মধ্যে তাজবীদ একটি । এছাড়াও লিখেছেন শরাহে কাফিয়্যা, শরাহে উসুলুসসাশী ও শরাহে তাহজীব । যদিও এ কিতাবগুলো দুষ্প্রাপ্যই বটে ।

মনস্থাত্ত্বিক বিবর্তন

একদিন তশ্না নিজ বাড়ি বাটইআইল হতে সিলেট জকিগঞ্জ রোড হয়ে শাহপুর গ্রামে যাচ্ছেন । পথিমধ্যে ‘জুলাইর পুল’ নামক স্থানে পৌঁছলে এক মহিলার আর্তনাদ শোনেন এবং তিনি ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেখেন এক মহিলার সাথে এক গ্রাম্যলোক কুকর্ম করতে চাইলে মহিলা চিৎকার করছে । তিনি পৌঁছলেই লোকটি পালিয়ে যায় এবং মহিলা তাঁর আশ্রয় গ্রহণ করে । এ ঘটনা তশ্না-র মনে ব্যাপক পরিবর্তন আনে । তাঁর একটি গানেও এর ইঙ্গিত পাওয়া যায়ঃ
উঠিল আগুন্নি জ্বলি রইতে কিছু দূর
বাড়ি হইতে রাজপন্থে আসতে শাহপুর ।
রাজপন্থে আসিয়া মিলিলা মহারাজ
প্রেমের বাঁশির সুরে করিলা আওয়াজ ।
ফুলের উপর দেখি রূপ দয়ালের লীলা
প্রেমবাগানে গিয়া তশ্না উদাসী হইলা ॥
তাঁর পরিবর্তনের এমন বর্ণনা দিয়েছেন মরহুম গবেষক গ্রুপক্যাপ্টেন ফজলুর রহমান তাঁর রচিত ‘সিলেটের একশত একজন’ গ্রন্থে । কিন্তু রাজনৈতিক ময়দানে সক্রিয় এ ব্যক্তিত্ব হঠাৎ করে কেনই-বা উদাসী হলেন এ ব্যাপারে এক-কথায় উত্তর দেয়া যায় না । মাওলানা ওলিউর রহমান তাঁর রচনায় পিতার রচিত একটি উর্দু কবিতার উল্লেখ করেছেন, যা তশ্না একটি জলসায় ওয়াজ করার সময় রচনা করেছিলেন । কবিতাটির বাংলা রূপ:
দুনিয়ার চাকচিক্য শূন্যতা আমার অপছন্দ
দুনিয়াবাসী হতে তাই আমি পৃথক হলাম ।
দুনিয়ার চাকচিক্য আর মানুষের অসহায়ত্ব তাঁর মনে যে বিরূপ-চিত্র অঙ্কন করে তারই ফলশ্রুতিতে এক বিবর্তিত তশ্নার জন্ম হয় । তাই শিক্ষা-প্রেমে মশগুল এক শিক্ষক, রাজনৈতিক ময়দানে দৃঢ়চেতা এক রাজনীতিক, যুদ্ধের ময়দানে সটান দাঁড়িয়ে থাকা এক মর্দে মুজাহিদ হলেন বনবাসী, ছাড়লেন সংসার, নিজেকে হারালেন বিশ্বখ্যাত সুফি জালালুদ্দীন রুমীর প্রতিচ্ছায়ায়- এ যেন বাংলায় এক অনুদিত রুমী । তিনি বলছেনঃ
ভব কুলেতে জন্ম লইয়া হইলাম অপমান
দেখিয়া মোরে ভিন্ন বাসে জিন ও ইনসান ।
বিদ্যার সাগর আর বুদ্ধির চেরাগ
মৌলানায়ে রুমি হইলা এশ্কের মস্তান ।

সঙ্গীত বৈচিত্র

ইবরাহীম তশ্না ইসলামী শিক্ষায় সর্বোচ্চ শিক্ষাপ্রাপ্ত, সুপরিচিত এক আলেম । জীবন ধারণে তিনি ছিলেন শরিয়ত নিয়ন্ত্রিত পূর্ণাঙ্গ মুসলিম । তাঁর সঙ্গীতও চমৎকারভাবে ইসলামী ভাব নিয়ন্ত্রিত ।
লোক গবেষক প্রফেসর নন্দলাল শর্মা তাঁর গীতিগুচ্ছকে বিষয় বস্তু অনুযায়ী ১১টি ভাগে ভাগ করেছেনঃ ১. আল্লাহ স্মরণ ২. নবী স্মরণ ৩. ওলি স্মরণ ৪. মুর্শিদ স্মরণ ৫. ভক্তিমূলক ৬. ফকিরি তত্ত্ব ৭. নিগূঢ় তত্ত্ব ৮. মন:শিক্ষা ৯. দেহতত্ত্ব ১০. কামতত্ত্ব ১১. বিচ্ছেদ ইত্যাদি।
আল্লাহ স্মরণ বিষয়ক গীতি সংখ্যা ২৫ টি । তশ্না বিশ্বের সর্বত্র  দয়াল রব্বানি আল্লাহর জয়ধ্বনি শুনতে পেয়েছেন । আকাশে ও পাতালে তাঁর  মহান নামের জয়ধ্বনি । আমরা ইহজগতে যাদের বন্ধু বলে জানি তারা প্রকৃত বন্ধু নয় বলে তাঁর অভিমত ।
মহানবী (সা.) ও স্মরণে তশ্না পঁচিশটি গান রচনা করেছেন । ‘উম্মতের কান্ডারী নবী রহমতের সাগর’; তাঁর রওজা মোবারক জিয়ারত করতে সক্ষম না হওয়ায় কবি আফছোছ করেছেন । তাঁর মনে হয়েছে এজন্য তাঁর ‘জমানা বিফলে গেছে’ ।
মহান ওলি হজরত খাঁজা মঈনুদ্দিন চিশতি (রাহঃ) স্মরণে তশ্না গান রচনা করেছেন । তিনি লিখেছেনঃ
যে গেল তোমার দ্বারে রহমত নদীয়ার পারে
অমূল্য রতন পাইয়া হইল জগতে ধনী।
কেবল ভারত নহে আলোয় তোমার নূরে
মশরিফ ও মাগরিবে চমকে তোমার ফয়জে নুরানি ।
সুফি সাধনার বিভিন্ন তত্ত্ব নিয়ে ইবরাহীম তশ্না গান রচনা  করেছেন । যেমন- ফকিরিতত্ত্ব, নিগূঢ়তত্ত্ব, দেহতত্ত্ব, কামতত্ত্ব প্রভৃতি । ফকিরিতত্ত্ব সম্পর্কে তাঁর রচিত গীতি সংখ্যা বেশি নয় । ফকির বলতে বর্তমানে ভিক্ষুক বা উদাসী বে’শরা ফকির বা মাজারে মাজারে ঘুরে বেড়ানো মাদকাসক্তদের বোঝানো হয় । এরা প্রকৃত ফকির নয় । প্রকৃত ফকির হলেন দীনের ফকির । একমাত্র আল্লাহকে লাভ করার আশায় যারা পার্থিব সুখশান্তি ভোগবিলাস বর্জন করে সৃষ্টিরহস্য অনুসন্ধানের পথে নেমেছেন । “সুফিগণ আহারে-বিহারে পোশাক-পরিচ্ছদে অত্যন্ত সাধাসিধে জীবনযাপন করেন । সুফি সাধক হাসান বসরী বা সুফি সাধিকা রাবেয়া বসরীর জীবনী আলোচনা করলে দেখা যায় তারা উভয়েই অত্যন্ত সহজসরল জীবনযাপন করতেন । সুফি সাধিকা রাবেয়া বসরী ছিলেন চিরকুমারী এবং আজীবন নিরামিষ ভোজী,” (কোশল ১৯৯৮:৩৮-৩৯) বাহ্যিক আচারসর্বস্ব বা লোকদেখানো পোশাকি ফকির প্রকৃত ফকির নয় । যিনি আল্লাহ প্রেমে বিভোর হয়ে আল্লাহতে ফানা বা মিশে যেতে চান তিনিই প্রকৃত ফকির ।
ইবরাহীম তশ্না বলেন, ফকিরি আসমানের তারা নয় । যারা আল্লাহর প্রেমে বিভোর, এজন্য পার্থিব সকল কিছু অবহেলা করে আল্লাহর এবাদতে মশগুল তারাই ফকির । ফকিরের লক্ষ্য সম্পর্কে তিনি বলেছেনঃ
ক্ষুধা নিদ্রা নাই তার, কলঙ্ক তার অলঙ্কার
কেবল বন্ধুয়া সার, বন্ধু পাইয়া বন্ধু হারা
যেই দিকে দৃষ্টি করে, কেবল বন্ধুকে হেরে
থাকে সদা জলের ধারে, তবু পিয়াসে মরা ।
থাকে সদায় উদাসী, সন্ন্যাসী বনিয়া তারা
গৃহে বসে কিবা ঘুরে, যথায় যায় দেখে তারে
বিনাকারে কি আকারে আকাশ ও পাতাল শরা ।
আল্লাহকে চিনতে হলে প্রেমনগরে যাবার জন্য উদাসী তশ্না পরামর্শ দিয়েছেন । কেবল পীরের ব্যাটা হলে, হাতে লুটা, মাথায় জটা রাখলেই ফকির হওয়া যায় না ।
উদাসী তশ্না ফকিরিতত্ত্ব সম্পর্কে চূড়ান্ত কথা বলেছেন এভাবেঃ
না করিও কোনো নিন্দা লোকের কথা শুনিয়া
ফকিরির রাখো আশ, বলি তাহার দাসের দাস
কলঙ্কপুরে কর বাস, থাক নীরব হইয়া ।
উদাসী তশ্নায় বলে প্রেমরোগে মারা গেলে
সব জাগায় বন্ধুয়া মিলে, প্রেমে থাক মজিয়া ।
বাউলদের মতো সুফি সাধকগণও দেহকে ব্রহ্মাণ্ডের প্রতিরূপ মনে করেন । তাই তাদের মরমি গানে দেহের উপাদান এবং দেহের অভ্যন্তরস্থ শিরা-নাড়ি প্রভৃতির পরিচয় পাওয়া যায় । প্রখ্যাত সুফিগণ বিশ্ব সৃষ্টিতত্ত্বের রূপরেখা প্রণয়ন করেছেন ।
উদাসী তশ্না দেহকে গৃহের সঙ্গে তুলনা করেছেন । আসলে দেহ হচ্ছে রূহের বা জীবাত্মার আধার মাত্র । আমরা সাধারণ মানুষ দেহকেই ‘আমি’ বলে ভুল করে থাকি । সুফি সাধকগণ তাই দেহকে প্রাধান্য না-দিয়ে এক দেহে ছয় লত্বিকার অবস্থিতির কথা বলেন ।
নিগূঢ়তত্ত্ব বা পরমতত্ত্ব সম্পর্কে সুফি কবিগণ গান রচনা করেছেন । এ ধরনের গানে রূপকের সাহায্যে সৃষ্টি, স্থিতি নয় এবং জীবাত্মা ও পরমাত্মার সম্পর্কের গূঢ়তত্ত্ব বিধৃত হয়েছে । সুফি সাধক না-হলে এসব রূপক তত্ত্বের অর্থ অনুধাবন করা সম্ভব নয় । এ ধরনের পঙক্তিমালা উদাসী তশ্নার রচনায় অনেক আছে । যেমনঃ

দুই দিকে দুই অগ্নিকুণ্ড মধ্যে সিংহাসন
বিরাজ করে নূর নগরী ডাইনে বামে তারা গো।

রূপ দিয়া রূপ ধরতে গেলে রূপের পানে চাও
বদরপুরের নিকটে রূপসী বাড়ি যাও ।

উদাসী তশ্নায় বলে যদি ফুল চাও
শুদ্ধ চিত্তে বদরপুরে জলের ঘাটে দাঁড়াও।
সুফি কবি হলেও ইবরাহীম তশ্না শরিয়তের পাবন্দ ছিলেন । তিনি যখন বলেনঃ
প্রভু নৈরাকার সৃজিলা ভবের বাজার
হায় হায় আনওয়ারে মস্তফার
প্রেমের তরঙ্গ দিয়া নূরে নবী বানাইয়া
সেই নূরের ঝলকে প্রভু সৃজিলা শয়াল সংসার ।
তাঁর নিগূঢ়তত্ত্ব বিষয়ক গানে আল্লাহর কুদরতের কথা বলা হয়েছে ।
তশ্না মনঃশিক্ষা বিষয়ক পাঁচটি গান রচনা করেছেন । কেবল সুফি কবিরাই নন, বৈষ্ণব, শক্তি ও বাউল পদকর্তাগণও মনঃশিক্ষা বিষয়ক গান রচনায় মনোযোগী ছিলেন । এ ধরনের গান হলো “রচয়িতার আপন মনের প্রতি আপন মনের উক্তি । বস্তু জগতের বিচিত্র বন্ধন এবং আবিলতায় আমাদের মন ভক্তিময় নিষ্কাম জগৎ হইতে নিরন্তর সরিয়া আসিতেছে । মনঃশিক্ষার গান যেন সেই মরিয়া আসা মনকে ভগবৎ প্রসঙ্গ স্মরণ করাইয়া দেওয়া । মনকে এই গানের মাধ্যমে এই রূপ শিক্ষা দেওয়া হয় বলিয়া এই ধারার গানকে বলা হয় মনঃশিক্ষা গান”।
উদাসী তশ্না মনকে নির্বোধ বলে অভিহিত করে বলেছেন যে সে ভেবেও ভাবে না । কারণ তাঁর ভাষায় “হাওয়া জলে বন্দি হয়েই তার এত যাতনা ।” মানব দেহ আব, আতশ, খাক, বাদ এই চার চিজে তৈরি । এই দেহে বন্দি আছে জীবাত্মা বা রূহ । মন অশুদ্ধ কাজ করলে “আল্লা নবীর শক্র হবে দোজখে তার ঠিকানা”। এজন্য তিনি মনকে সতর্ক করে দিয়েছেন ।
মরমি কবি ইবরাহীম তশ্না পঞ্চাশটির বেশি ভক্তিমূলক গান রচনা করেছেন । এসকল গানে ‘মানব হৃদয়ের গভীর এশক মহব্বত এবং এলাহি প্রেমের আধ্যাত্মিক বাণী, আর্তনাদ ও আহাজারি ধ্বনিত হয়েছে। তিনি আল্লাহর কাছে আবেদন করেছেন এভাবে:
করিম ও রহিম আল্লাহ সৃষ্টির করতার
কৃপাযোগে আমায় কর পার ।
কুরআন শরিফের মাহাত্ম্য বর্ণনা করে কবি একটি দীর্ঘ গান রচনা করেছেন, তিনি শুদ্ধ চিত্তে শুদ্ধ করে কুরআন পাঠের জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন । অশুদ্ধ চিত্তে অশুদ্ধ পাঠের কুফলও তিনি বর্ণনা করেছেন। কবির ভাষায়ঃ
যাহার অন্তরে আছে মারিফতের নুর
আল্লাহর তজল্লি হয় পড়িতে কোরান ।
ভক্তিমূলক গানে উদাসী তশ্না আল্লাহর দিদার লাভের জন্য ব্যাকুলভাবে প্রার্থনা করেছেনঃ
ওহে প্রভু দয়ার নাথ সর্ব শক্তিমান
তোমার দয়ার দিকে কেবল আমি চাই ।
স্বপ্ন বেহারে আসি দিয়া দরশন
শীতল কর আমার মন গুলবদনী রাই ।
ভক্তহৃদয়ের আকুল আর্তি কবির ভক্তিমূলক গানে প্রকাশিত হয়েছে । কবি অনুভব করেছেন ভবলোকে তিনি নিরাশ্রয়, তাঁর কোনো সঙ্গী-সাথি নেই । একমাত্র অনাথের নাথ আল্লাহ তাঁকে আশ্রয় দিতে পারেন । সমস্ত পাপতাপ থেকে তিনি যেন তাঁকে উদ্ধার করেন এজন্য মাবুদের দরবারে আকুল আবেদন করেছেন ।
মরমি কবি ইবরাহীম তশ্না বিচ্ছেদ পর্যায়ের গানই বেশি রচনা করেছেন । সুফি কবিদের রচনায় বিচ্ছেদের প্রাধান্য বেশি থাকে । কারণ পৃথিবীতে আসা মানেই পরমত্মার সঙ্গে জীবাত্মার বিচ্ছেদ ।
অন্যান্য মরমি কবির মত উদাসী তশ্নার গানেও যমুনা, কালাচান্দ বা কৃষ্ণ, বাঁশি, রাধা প্রভৃতি রূপক ব্যবহৃত হয়েছে। যেমন:
যমুনার কূলে বসি কালাচান্দে বাজায় বাঁশি
সুললিত বাঁশির সুরে রাধিকার প্রাণ বাঁচেনা ।
পরমাত্মার সাথে জীবত্মার বিচ্ছেদ বোঝাতেই এ রূপক ব্যবহৃত হয়েছে । কবির মন বিরহী । বিরহের অনল তাঁর অন্তরে জ্বলে উঠেছে । পরমাত্মার পিরিতে জ্বলে জীবাত্মা ছারখার হয়ে যাচ্ছে । তাই কবি কায়মনো বাক্যে পরম করুণাময়ের দরবারে বলেছেনঃ
দয়াধর দয়ারনাথ হৃদয়ে বিচ্ছেদের জ্বাল
প্রভু তুমি করিম ও দয়াল
নিশ্চিতে আছিলাম আমি সুখবাগানে বসি
পূরবী বাতাস আসি করি দিল পায়মাল ।
আমার দুঃখের দুঃখী ত্রিভুবনে নাই
বিপদে বন্ধুয়া কেবল আল্লাহ করিম দয়াল ।
উদাসী তশ্নায় ডাকে বসিয়া জালালপুরে
দয়াধর ওহে প্রভু তুমি পাক জুল জালাল ।
মরমি কবিগণ মরমের কথা প্রকাশ করেন না । ইবরাহীম তশ্নাও তাঁর রচনায় নিজের পরিচিতি লিখে যান নি । তাঁর মুর্শিদ প্রসঙ্গেও তিনি নীরবতা অবলম্বন করেছেন । তাঁর গানে বারবার বদরপুর কথাটি এসেছে ।  ‘বদরপুরের ঘাটে ঘাটে প্রেম শশী উদয় থাকে’ বদরপুর এখানে রূপক অর্থেও ব্যবহার হতে পারে। আজীবন তিনি জ্ঞানচর্চা করেছেন । কুরআন হাদিসে সুপণ্ডিত উদাসী তশ্না শেষজীবনে খোদাপ্রেমে উদাস হয়ে সাধনা করেছেন, বিচরণ করেছেন ভাব রাজ্যে । তখন তিনি রচনা করেছেন তাঁর কালজয়ী পঙক্তিমালা ।

কেরামত

ইবরাহিম তশ্না থেকে অলৌকিকতা বা কারামত প্রকাশ পেয়েছিল যা তাঁর আধ্যাত্মিক মর্যাদার উচ্চতা প্রমাণ করে ।
তাঁর খাদেম শাহপুরবাসী আমীর আলী বলেন, ‘একবার শীতের রাতে আমি এবং তশ্না সাহেব একটি রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলাম । হঠাৎ একটি বাঘ আমাদের পথরোধ করে । আমি তখন ভয়ে কাঁপতে লাগলাম । তিনি আমার গায়ে তাঁর কম্বল জড়িয়ে দিলেন এবং স্বভাবজাত কণ্ঠে বললেন, হে পশুরাজ, যদি আমার আয়ু শেষ হয়ে যায় আর তুমি এ কাজের জন্যে এসে থাক, তবে আমাকে নিয়ে শীঘ্রই চল নতুবা পথ ছেড়ে দাও, এ কথা বলা মাত্রই বাঘ চলে গেল ।’
বাটইআইল গ্রামের মসজিদের ইমাম প্রখ্যাত লাতুর হুজুর সুফি ক্বারি জিব আলী; যিনি আশরফ আলী থানবী (রহঃ)-র বিশিষ্ট খলিফা ছিলেন- তিনি মাওলানা ওলিউর রহমান (রহঃ)-র কাছে বর্ণনা করেছেন, ‘তশ্না সাহেবের মৃত্যুর পরে আমি যখন পবিত্র হজে যাই, তখন আমি স্বচক্ষে তশ্না সাহেবকে কাবাঘর তাওয়াফ করতে দেখি । দেখামাত্র আমি সাক্ষাতের জন্য এগিয়ে গেলে আর খুঁজে পেলাম না ।’ এ ঘটনার ব্যাখ্যায় আশরাফ আলী থানবী (রাহঃ) বলেন ‘ আল্লাহর কোন কোন ওলি আলমে বরজখ হতে জিছমে মিছালীর সাথে এ জগতে আসতে পারেন । এটা তাঁদের কারামত ।’
আল্লামা ইবরাহীম তশ্না (রহ.)-র ধ্যানশক্তি ছিল বিপুল । যখন তিনি খোদাপ্রেমে মগ্ন হতেন, তখন পার্থিব কোন মোহ-ই তাঁকে আকৃষ্ট করতে পারত না । একবার জকিগঞ্জ আটগ্রামের মতুমিয়া লস্করের বাড়িতে থাকাবস্থায় তাঁর পায়ে বহুমুখ বিশিষ্ট ফোঁড়া হয় । তখন তিনি পার্শ্ববর্তী আটগ্রাম সরকারি হাসপাতালের শরণাপন্ন হন । ডাক্তার অপারেশনের পরামর্শ দিলেন । কিন্তু রোগীকে অজ্ঞান করার ব্যাপারে স্থানীয় হাসপাতালে কোন রকম যন্ত্রপাতি না থাকায় ডাক্তাররা চিন্তিত পড়েন । তখন তিনি আশ্বস্থ করেন- ‘চিন্তা করবেন না । আমি খাতা-কলম নিয়ে লিখতে বসলে আপনারা অপারেশন শুরু করবেন । কথামতো তাঁকে কাগজ কলম দিয়ে বসানো হলো, আর অপরদিকে অপারেশনের কাজ চললো । একদিকে তশ্না সঙ্গীত রচনা করেন আর অন্যদিকে অপারেশন চলতে থাকে । অবশেষে অপারেশন শেষ হওয়ার পর ডাক্তাররা তাঁকে লেখার তন্ময়তা থেকে জাগিয়ে তুলেন !
ইবরাহীম তশ্না ছিলেন সড়কের বাজার আলীয়া মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা । একবার ওই মাদ্রাসা-মাঠে বার্ষিক জলসা চলাকালিন ওয়াজ মাহফিলে প্রবল বৃষ্টি আসতেই জনগণ মাহফিল ছেড়ে দৌড়াদৌড়ি করতে শুরু করে । তখন তিনি শান্তভাবে জনতাকে ওয়াজ শোনার জন্য অনুরোধ করেন এবং নিজে স্টেজের চারদিকে ঘুরে আসেন । উপস্থিত জনতা তখন দেখতে পায়- স্টেজের কয়েক হাত দূরেও বৃষ্টি হচ্ছে, কিন্তু জনতাকে নিয়ে তিনি অত্যন্ত শান্তভাবে জলসার প্রোগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন । ‘দ্য নিউ নেশন’ পত্রিকার সিনিয়র এডিটর আবদুল মুকিত চৌধুরী এ ঘটনার স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘আমার আব্বা ঐ জলসায় উপস্থিত ছিলেন, আমি আব্বার কাছে অনেক দিন এ ব্যাপারে স্মৃতিচারণ করতে শুনেছি’ ।
ইবরাহীম তশ্না স্বপ্নের ভালো তাবির করতেন । হাজি মুক্তি মিয়া নামে নিজগ্রামের একজন লোক একবার স্বপ্নে দেখেন, তিনি পবিত্র কুরআনে উপর পা রেখে নৌকা থেকে কূলে নামছেন । এমন স্বপ্ন দেখে তিনি অস্থির হয়ে ওঠেন । ইবরাহীম তশ্না-কে এই স্বপ্ন বললে তিনি বলেন, মোটেও চিন্তা করো না । তুমি খুবই ভালো একটি স্বপ্ন দেখেছ । আল্লাহপাক তোমার ঘরে এক নেক হাফিজের জন্ম দেবেন । পরবর্তীকালে তিনি একে একে পাঁচ ছেলেকেই হিফজে ভর্তি করান । কিন্তু আব্দুল মান্নান নামে মাত্র একজনই পবিত্র কুরআনের হাফেজ হতে পেরেছিলেন ।

পরিবার

পারিবারিক জীবনে ছিলেন ছয় সন্তানের জনক । করেছেন চার বিয়ে । প্রথম ছেলে হলেন মাওলানা সিদ্দিকুর রহমান, ২য় ছেলে মাওলানা ওলিউর রহমান, ৩য়া- মেয়ে আতিকা বেগম, ৪র্থ ছেলে ক্বারী আতিকুর রহমান, ৫ম ছেলে ক্বারী জমিলুর রহমান, ৬ষ্ঠ মেয়ের নাম জানা যায়নি ।

শেষ জীবন

ওগো রসিক রাই
এখন আমি তোমায় ছাড়ি যাই,
আনিয়া তোমার দ্বারে
এত কষ্ট দেও আমারে
কত লজ্জা দিলায় তাহার কোন সীমা নাই ॥
স্রষ্টার সান্নিধ্যে যাওয়ার প্রবল আকুতি আবার স্রষ্টার কাছে গিয়েও যেন যাওয়া হচ্ছে না, এই কালক্ষেপণ তাঁর কষ্টের কথা শেষ দিকের লেখায় প্রকাশ পায় । শেষজীবনে তিনি খোদাপ্রেমে উদাসী অবস্থায় জীবনযাপন করতেন । তাই তিনি উদাসী তশ্না হিসাবেও পরিচিত । সৃষ্টি রহস্য নিয়ে চিন্তা করতেন, কখনও হাসতেন, কখনও কাঁদতেন, আবার কখনও-বা হতাশ হয়ে মাঠেঘাঠে পাগলের মতো ঘুরাঘুরি করতেন । মাঘ মাসের প্রচণ্ড ঠান্ডায় তিনি গভীর রাতে খোলা আকাশের নিচে গিয়ে গান রচনা করতেন । তিনি বলেছেনঃ
কাহার বিচ্ছেদে আমি হইয়া হুতাশ
এই বাউল রচিলাম বসি রাত্র নিশাকালে ।
‘কাজিউল হাজাত’ নামে আনিয়াছি ঈমান
পূর্ণ কর আশা মোর যাহা আছে দিলে ।
খোদার প্রেমে বিভোর উদাসী তশ্না জীবনের শেষ রমজান মাসে ৬০বার কুরান খতম করেন । এ মহান মনীষী ২সেপ্টেম্বর ১৯৩১খ্রিস্টাব্দ, ১৩৩৮ বাংলা, ভাদ্র মাসের শেষ শুক্রবার ৬৩ বছর বয়সে কলেরা রোগে ইন্তেকাল করেন । তশ্নার মৃত্যুতে বড়ভাই ইসমাঈল আলম আহত হৃদয়ের আহাজারি লিখেছেন একটি উর্দু কবিতার মাধ্যমে । যুগযুগ ধরে সে আহাজারি যেন প্রজন্ম হতে প্রজন্মান্তরে ধ্বনিত হয়ে ওঠে তারই প্রত্যাশায়-
হায় আফসোস!
তোমার চিন্তায় হৃদয় আমার আহত
অকস্মাৎ ভাইয়ের মৃত্যু
আমার ভাগ্যে তার মৃত্যুই যেন জীবনের চরম ক্রন্দন
তিনি যে গতকাল্য চোখের আড়াল হলেন ।

তোমার আত্মা আজ দুনিয়ার জীবন থেকে পৃথক হয়েছে
আমাদের সাক্ষাৎ যেনো হয় জান্নাতে ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now