শীর্ষ শিরোনাম
Home » মৌলভীবাজার » জনপ্রিয়তায় ইর্ষান্বিত হয়ে প্যানেল চেয়ারম্যান আলমকে হত্যা করা হয়

জনপ্রিয়তায় ইর্ষান্বিত হয়ে প্যানেল চেয়ারম্যান আলমকে হত্যা করা হয়

indexবড়লেখা প্রতিনিধি: রাজনৈতিক জনপ্রিয়তায় ইর্ষান্বিত হয়েই উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ডের সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান আবুল হোসেন আলমকে হত্যা করানো হয়েছে বলে দাবী করেছেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। তারা বলেছেন, ষড়যন্ত্রকারীরা ভবিষ্যত রাজনীতির স্বার্থ-হাসিলের লক্ষ্যে কৌশলগতভাবে সন্ত্রাসী হামলার মাধ্যমে তাঁকে হত্যা করেছে। যা আওয়ামী লীগের স্বচ্ছ রাজনীতির জন্য অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে।

শুক্রবার রাতে বড়লেখা বাজারে বিক্ষোভ মিছিল শেষে পথসভায় বক্তব্যে এসব কথা বলেন ছাত্রলীগের নেতারা। মিছিলটি ডাক বাংলো থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে স্থানীয় কার্যালয়ের সামনে এসে পথসভায় মিলিত হয়। পথসভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ছালেক আহমদ।

বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকাল পৌনে ১১টার দিকে উপজেলার উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়নের আলিমপুর গ্রামে একটি জানাজায় যোগ দিতে যাওয়ার পথে আবুল হোসেন আলমের মোটরসাইকেলের গতিরোধের পর তাকে কুপিয়ে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা।

সাধারণ মানুষের মধ্যে আলমের শত্রু থাকতে পারে এটা বিশ্বাস যোগ্য নয় উল্লেখ করে তারা আরো বলেন, সমাজের মুখোশধারীদের সুগভীর ষড়যন্ত্রে আওয়ামী পরিবারের একের পর এক জনপ্রিয় নেতাদেরকে ধারাবাহিকভাবে হত্যা করা হচ্ছে। নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে আলম হত্যার নেপথ্যের ষড়যন্ত্রকারীদের দ্রুত চিহ্নিত করে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করলেই শাহবাজপুরের জনপদে এই হত্যাযজ্ঞ বন্ধ হবে এবং এলাকাবাসী কলঙ্কমুক্ত হবে।

উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আহমদ ও হাফিজুর রহমানের যৌথ সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু আহমদ হামিদুর রহমান, যুগ্ম আহবায়ক ছালেহ আহমদ জুয়েল, প্রচার সম্পাদক সাইফুর রহমান, পৌর আহবায়ক হারুনুর রশীদ বাদশা, সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক জালাল আহমদ, ছাত্রলীগের সাবেক সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের পৌর সভাপতি নাজমুল হোসেন, প্রজন্মলীগের সভাপতি নোমান আহমদ, সহসভাপতি কবির আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুর রহমান সাইদুল, নিজ বাহাদুরপুর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক বদরুল আলম উজ্জ্বল, পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি আসাদুজ্জামান আসাদ, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সঞ্জয় দাস, চম্পক দাস, ময়নুল ইসলাম, কামরান হোসেন, নাসির হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক সুমন আহমদ, জুনেদ আহমদ, প্রচার সম্পাদক কামরুজ্জামান রাসেল, অর্থ সম্পাদক ফয়সল আহমদ, পৌরসভাপতি সিদ্রাতুল কাদের আবির, ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ছামাদ আহমদ, মারুফ হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা সাইফুর রহমান, মান্নান আহমদ, টিপু সুলতান, বর্ণি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন দাস, নিজবাহাদুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি কয়েছ আহমদ, দক্ষিণ শাহবাজপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি নাসির আহমদ, সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি প্রীতম কান্তি দাস, সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান, তালিমপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ইকবাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক শিপু লাল দাস, কাঁঠালতলী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক ইমরান হোসেন, সুজানগর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি জামিল হায়দার, সাধারণ সম্পাদক ফয়সল আহমদ, দক্ষিণভাগ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইদুল ইসলাম, প্রজন্মলীগ নেতা রাসেল আহমদ প্রমুখ।

এদিকে শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) আলম হত্যাকাণ্ডের মূল আসামী কাজল মিয়াকে (৪৭) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সকাল ৬টার দিকে উপজেলার সারপার ও সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার নয়াগ্রাম এলাকার মানুষ ও নয়াগ্রাম বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা কাজল মিয়াকে সোনাই নদীর নির্মাণাধীন সেতুর কাছে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now