শীর্ষ শিরোনাম
Home » খেলাধুলা » জীবন পেয়ে শতকের রেকর্ডে তামিম

জীবন পেয়ে শতকের রেকর্ডে তামিম

image-1384ডেস্ক রিপোর্ট:
ওয়ানডেতে সর্বশেষ সেঞ্চুরি গত বছর এপ্রিলে। পাকিস্তানের বিপক্ষে ওই সিরিজে পরপর দুই ম্যাচেই শতক উদযাপন করেছিলেন। পরের দুই ম্যাচেও একটু স্থির থাকলে শতক পেতে পারতেন। ইনিংসের ইতি টানেন ৬০ এবং ৬৪ রানে। অর্ধশতকের পর যেতে যেতে তামিমের থেমে যাওয়ার ঘটনা নেহাত কম নয়। এরপর পাঁচটা ম্যাচে অর্ধশতকের পর সাজঘরে ফেরেন দেশেসেরা ওপেনার।
আজ শুরুতে জীবন পেয়েছিলেন। তৃতীয় ওভারের প্রথম বলে পুল করতে যেয়ে অধিনায়ক আজগরের হাতে লোপ্পা ক্যাচ তুলে দেন। তখন ব্যক্তিগত এক রানে ছিলেন। তামিম এরপর আর কোনো সুযোগই দেননি। সাব্বিরকে নিয়ে শতাধিক রানের জুটি গড়ে দলকে টেনে নিয়ে যান।
শতকে পৌঁছান ১১০তম বলে। দৌলত জাদরানের লাফিয়ে ওঠা বল জায়গায় ফেলে সাকিবের সঙ্গে দ্রুত জায়গা বদল করে সপ্তম ওয়ানডে শতকের আনন্দে মাতেন তিনি। বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ওয়ানডেতে সাতটি শতক হাঁকানোর নজির গড়লেন তামিম।  এর আগে ৬টি শতক নিয়ে সাকিবের সঙ্গে যৌথভাবে শীর্ষে ছিলেন। চারটি শতক নিয়ে মুশফিক তৃতীয়।
তামিমের অর্ধশতক আছে ৩৩টি।
প্রথম ম্যাচে দেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৯ হাজার রানের মালিক হন। ওই দিন থেমেছিলেন ৮০ রানে। পরের ম্যাচে ২০ রানে কাটা পড়েন।
তামিম আজ থামেন ১১৮ রানে। ৩৯তম ওভারে রুম করে ডাউন দ্য ট্রাকে এসে নবীর চতুর্থ ডেলিভারি হাফভালি বানান। তুলে দেন অফসাইডে। টাইমিংয়ে গড়মিল হওয়ার কারণে ডিপকাভারে দ্বদাশ ফিল্ডার হিসেবে মাঠে নামা নাভিদুলের দারুণ ক্যাচে পরিণত হন। খেলেই বুঝেছিলেন পার হবে না। তাই তড়িঘড়ি করে সাজঘরের পথ ধরেন। দলকে রেখে যান ২১২ রানে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now