শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » এরশাদের ঘোষণা: প্রাদেশিক সরকার ও সিলেটকে ১০০ আসনে উন্নীত করা হবে

এরশাদের ঘোষণা: প্রাদেশিক সরকার ও সিলেটকে ১০০ আসনে উন্নীত করা হবে

ersad-sylhetreport-jpeg1রুহুল আমীন নগরী,সিলেট রিপোর্ট:  সিলেট রিপোর্ট: জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ শনিবার সিলেট রেজিস্ট্রি মাঠে জাতীয় পার্টির উদ্যোগে অনুষ্ঠিত জনসভায়  ২২ মিনিটের তার বক্তব্যে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন, দেশের আইন শৃংখলা পরিস্থিতি এবং অতীতে সিলেটের তার অবদানের কথা বিস্তারিত বক্তব্য রাখেন। এরশাদ বলেন, দলকে সুসংগঠিত করে আগামী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিতেই এবার সিলেট এসেছি। সিলেটকে আমি বেশী গুরুত্ব দেই বলেই আজ ১২৮ জন র্শীষ নেতা নিযে পবিত্র ভুমিতে এসেছি। বৃহত্তর সিলেটের সকল উন্নয়ন আমি করেছি। এম আতাউল গনী ওসমানীকে আমি বাবার মতো শ্রদ্ধা করতাম। আমি তার নামে অনেক প্রতিষ্ঠানের নামকরণ করেছি। সিলেটে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, সুরমা নদীর উপর শাহজালাল সেতু করেছি, সিলেটের একটি জেলাকে চারটি জেলায় উন্নীত করেছি। আমার সময়ে সিলেটে হাইকোর্টের বেঞ্চ চালু করেছিলাম। পরে তা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। আমি ক্ষমতায় গেলে আবার তা চালু হবে। তিনি বলেন, আমার সময়ে একজন এসিড ছুঁড়েছিলো। তাকে ফাঁসি দিয়েছিলাম। এখন এসিড মারার কারণে কারো শাস্তি হয় না। এবার ঈদে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেলো ১৬৫ মানুষ। ঈদে মানুষ এখন লাশ হয়ে বাড়ি যায়। এক কোটি নব্বই লাখ ভুয়া লাইন্সেস দিয়ে চালক করা হয়েছে। এদের কারণেই এসব প্রাণহানি হয়। তিনি বলেন, এখন কে কখন গুম হয়ে যাই তার ঠিক নেই। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জিজ্ঞেস করলেও কোনো খোঁজ দিতে পারে না। তাহলে খোঁজ দিবে কে? এরশাদ বলেন, ক্ষমতায় গেলে আমি প্রাদেশিক সরকারব্যবস্থা চালু করবো। সিলেট হবে জালালাবাদ প্রদেশের রাজধানী। উপজেলাকে পুর্নাঙ্গ জেলা করা হবে। সিলেট বিভাগে ১৯ টি নির্বাচনী আসন। এই বিশাল এলাকায় মাত্র ১৯ জন জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে জনগনের উন্নয়ন সম্ভব নয়। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় গেলে ১৯ আসন থেকে ১০০ আসনে উন্নীত হবে সিলেট। রেজিষ্ট্রারী মাঠে জাতীয় পার্টির সিলেট বিভাগীয় মহাসমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক সিলেট জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট গিয়াস উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে সমাবেশে তিনি বলেন- জাতীয় পার্টি সকল শুভ কাজ সিলেটের হযরত শাহজালাল ও শাহপরান (রহ.) মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে শুরু করে। তাই আজও আমরা ঢাকা থেকে সকল প্রেসিডিয়াম সদস্য ও এমপিরা সিলেট থেকে আমাদের আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করলাম।

তিনি সিলেটের কৃতি সন্তান, স্বাধীনতার সর্বাধিনায়ক এমএজি ওসমানীর কথা স্মরণ করে এরশাদ বলেন- আমি ক্ষমতায় থাকতে ওসমানীর নামে বিমানবন্দর করেছি, ঢাকায় ওসমানী মিলনায়তন করেছি, যেখানে তিনি থাকতেন, সেটাকে ওসমানী যাদুঘর করেছি। নিজের উন্নয়নের বর্ননা দিয়ে তিনি বলেন- সিলেটে একটি জেলা ছিলো, চারটি করেছি। দেশের প্রথম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় করেছি সিলেটে। রংপুরের পরেই সিলেট আমার প্রিয় স্থান।

সমাবেশে পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় নেত্রী বেগম রওশন এরশাদ, কো-চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী জিএম কাদের, মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও পানি সম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপিসহ পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য, সংসদ সদস্য, কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

এর আগে দুপুর পৌনে ১টায় বেসরকারী বিমান সংস্থা ইউএস বাংলার একটি বিমানে করে সিলেট ওসমানী বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান তিনি।

সিলেটে পৌঁছেই নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে হযরত শাহজালাল (রহ:) ও শাহপরাণ (রহ.) মাজার জিয়ারত করেন এরশাদ। সেখানে ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন তারা।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now