শীর্ষ শিরোনাম
Home » পত্রিকার পাতা থেকে » ‘কমাশিসা’র অপপ্রচারের জবাবে হাসান মুহাম্মদ জামীল যা বল্লেন

‘কমাশিসা’র অপপ্রচারের জবাবে হাসান মুহাম্মদ জামীল যা বল্লেন

hasanjamil-tajul-sylhetreportরেজওয়ান আহমদ,সিলেট রিপোর্ট:   হাসান মুহাম্মদ জামীল (Hasan Muhammad Zamil) ফেসবুকী নাম। একজন জনপ্রিয় মিডিয়া মিডিয়া ব্যক্তিত্ব,আলেম ও খতীব। সম্প্রতি ক্বওমী মাদরাসা ও স্বীকৃতি নিযে সামাজিক জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুকে নিয়মিত লেখালেখি হচ্ছে।
কমাশিসা
  নামক এ্কটি ওয়েব সাইটে আল্লামা আহমদ শফীসহ দেশের র্শীষ আলেম উলামাদের নিযে মিথ্যাচার করা হয়েছে। এসব অপপ্রচারের জবাবে তরুণ কওমী ধারার কিছু তরুণ কড়া ভাষায় জবাব দিয়েছেন। অনুসন্ধানে জানাগেছে, সিলেটের প্রিন্সিপাল মাওলানা হাবীবুর রহমানের জামাতা ইংল্যান্ড প্রবাসী খতীব তাজুল ইসলাম বির্তকিত এই ওয়েব সাইটের সাথে যুক্ত আছেন। এজন্য তাকে লক্ষ করেই ফেসবুকে ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছে। অনেকেই খতীব তাজুলকে কটাক্যকরে গালমন্দও করেছেন।
জানাগেছে, কিছু দিন আগে এই সাইটে দেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেম আল্লামা শাহ আহমদ শফী সম্পর্কে কোটি টাকা কেলেংকারীর মিথ্যা অপবাদ প্রচার করা হয়,পরে জনরোষের পরিপ্রেক্ষিতে সংবাদটি মুছেফেলা হয়।
জানাগেছে, গত  ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ দুইটি নিউজের হেডলাইন :  স্বীকৃতি প্রত্যাখ্যানে বেফাকের বিরুদ্ধে সিলেটে গণবিস্ফোরমুখ পরিস্থিতি।
এই নিউজে যে ছবি ব্যবহার করা হয়েছে সে ছবি অনেক পুরাতন , অন্য একটি প্রোগ্রামের। উক্ত ছবিতে জমিয়তের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সহ সিলেটে পরিচিত আরো অনেক রয়েছেন। জমিয়তের সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব সাবেক এমপি শাহীনূর পাশা চৌধুর ও কেন্দ্রীয় জমিয়ত সদস্য মাওলানা অাব্দুল মালিক চৌধুরী সহ- সিলেট জেলা ও মহানগর জমিয়ত নেতৃবৃন্দের ছবি দেখা যাচ্ছে। অথচ  শাহীনূর পাশা চৌধুরী বর্তমানে সৌদি আরব অবস্থান করছেন।
২য় নিউজের হেডলাইন : মওদুদিবাদের দালালরাই কওমি সনদের স্বীকৃতি নিয়ে ধুম্রজাল সৃষ্টি করছে। এই নিউজে যে ছবি ব্যবহার করা হয়েছে
সে ছবি হলো অাল্লামা অাহমদ শফীর অাহবানে হাটহাজারী মাদরাসায় বেফাকের জরুরী বৈঠকের যে বৈঠক থেকে ফরিদ মাসউদের গঠিত কমিটিকে প্রত্যাখ্যান করা হয়েছে। এই নিউজে মওদুদীবাদের দালাল বলে অাখ্যায়িত করেছে শীর্ষ অালেমদের। এইসমস্ত ছবি দিয়ে মিথ্যাচার করছে তথাকথিত কমাশিসা।
এসব মিথ্যাচারের জবাবে অনেকেই লিখেছেন সব উল্লেখ করা সমীচীন নয়। শুধু মাত্র হাসান মুহাম্মদ জামীল (Hasan Muhammad Zamil) এর একটি ট্যাটাস সিলেট রিপোর্ট ডটকম এর পাঠকদেরজেন্য হুবহু তুলে ধরা হলো :
আপনি সুন্দর লেখেন। ঝরঝরে লেখা। সুন্দর গাঁথুনিতে চমৎকার উপস্থাপনা। ক্লাস ফাঁকি দিয়ে কিংবা নিয়মিত থেকেই রবিন্দ্রনাথ, জিবনান্দ, এ কে আযাদ, হুমায়ুন, জাফর, সৈয়দ শামসুলদের লেখা পড়েছেন, সাহিত্য চর্চা করেছেন, ভালো, খুব ভালো!
অথবা বিদেশের মাটিতে কাড়িকাড়ি ইউরো/ডলার/ রিয়াল/দিনার গুনছেন, বাহ ভালো, খুব ভালো!

আপনার চমৎকার সাহিত্যপূর্ণ লেখায় অথবা দেশে এসে কিছু খরচা পাতির কারণে ভক্তও জুটিয়েছেন বেশ; বিশেষ করে ফেবুতে!
আপনার পোস্টগুলো লাইক-কমেন্টে সেজেগুজে আপনাকে করেছে সেলেব্রেটি!
তা দেখে আপনি মনে মনে ভাবা শুরু করেছেন আসলেই আমি কিছু একটা!
আর ভাবতে ভাবতে অলিগলি পেরিয়ে চলতে চাচ্ছেন মহাসড়কে; আপনিতো বিশাল ব্যাক্তিত্ব; গবেষক, সংস্কারক!
এবার আপনি উপদেশদাতারও ভূমিকায়!
যাদের থেকে সাহিত্যের দৌলত পেয়েছেন তাদেরকে খাঁটি মুমিন বানাতে সিদ্ধহস্ত! কেউ কেউ আবার আক্ষেপ করছেন ‘ তাদের কাছে দাওয়াত কেনো পৌঁছানো হলো না’ এই বলে!
তাদের নিয়ে আমার কোনো আগ্রহ নেই; প্রশংসা-আক্রমণ কিছুতেই নেই!
তারা উপযুক্ত পাওনা বুঝে পেয়েছেন অথবা পাবেন।

আমি বলতে চাই আমার বাড়ি নিয়ে।
সেই আপনারা নিজেদের গণ্ডি ও বাস্তবতা ভুলে হয়ে উঠছেন সংস্কারক, শিক্ষা সংস্কারক!
বড়দের তুলোধুনো করতে পারাকে ভাবেন দায়িত্বের অংশ হিসেবে।
কিছু লাইক আর পক্ষের কমেন্টে কখনো হয়ে উঠেন ‘মুজাদ্দিদে জমান!’
আপনি থামছেন না, কচুকাটা না করে যেনো শান্ত হবেন না। আপনার বিরুদ্ধে কেউ গেলেই তাকে বানাচ্ছেন জামাত অথবা আওয়ামী লীগের দালাল!
এসব ট্যাগ লাগানোর আন্তর্জাতিক ঠিকাদার আপনি!
আপনি যা বুঝেন তাই একমাত্র সঠিক। সংস্কার আন্দোলনের নেতৃত্ব আপনার হাতে; বাহ চমৎকার!
এতো মায়া আর দরদ ক্বাওমদের নিয়ে, অথচ নিজে পড়াচ্ছেন না কোনো মাদ্রাসায়! অথবা নিজের মিশন বাস্তবায়নে প্রতিষ্ঠা করছেন না কোনো মাদ্রাসা! একেই বুঝি বলে ‘পরের উপর পোদ্দারি?!’

মাঝে মাঝে আপনাদের কর্মকাণ্ডে হাসিও পায়।
সেদিন দেখলাম নষ্ট দাড়িপাল্লার তেলেসমাতি!
আবার কয়েকবছর আগের ছবিকে দেখালেন জনরোষ হিসেবে;
মিছিলে একজন জমিয়ত নেতার ছবি দেখে আমার হাসি থামছেই না, কারণ তিনি হজ্বের সফরে!
আমি জানতে চাই কীসের আক্ষেপ? কেনো এতো ক্ষোভ আকাবিরদের উপর? হাতে কাজ না থাকলে নাস্তিকদের উদ্ভট প্রশ্নের উত্তর দিন; বাতিলের মোকাবেলা করুন।
বড়রা নবী নন যে ভুলের উর্দ্ধে। কিন্তু সারাজীবনের শ্রম আর মেহনতকে প্রশ্নবিদ্ধ করার আপনি কে?
বেফাকুল মাদারিসের অফিস যখন ফরিদাবাদ মাদ্রাসায়, তখন দেখেছি আব্দুল জব্বার জাঁহানাবাদীকে, একজন সহকারী (মাওলানা দেলোয়ার সাহেব, বর্তমানে ফরিদাবাদের শিক্ষক) কে নিয়ে কি কষ্টে তিনি এ প্রতিষ্ঠান দাঁড় করিয়েছেন; দেখেছি নিজ হাতে রান্না করতে! আজকের বেফাক জাতীয় প্রতিষ্ঠান!
যাঁদের ঘামে তরতাজা হয়ে আজকের এই অবস্থান, তারাই এখন আপনাদের অপবাদ আর আক্রমণের শিকার!?
আপনার মত-আদর্শ প্রতিষ্ঠায় নিজেই করুন না এমন একটা প্রতিষ্ঠান। অন্যের প্রতিষ্ঠিত বিষয়ে নাক গলালে হিংসুটে প্রাণি ছাড়া আপনাকে কী ভাববো?!
বয়স হলে মানুষের সব কিছুতেই দুর্বলতা প্রকাশ পায়, আল্লাহই বলেছেন : ومن نعمره ننكسه في الخلق الآية (সূরা ইয়াসীন, আয়াত৬৮), এটা বাস্তবতা। কিন্তু বেফাকের সিদ্ধান্তগুলো কি ওনি একা নেন? দেশের শ্রেষ্ঠ আলেমদের সম্পৃক্ততা কি তাতে নেই? গোটা দেশের বড় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের দিয়েই বেফাক পরিচালিত। তবে কেনো ব্যাক্তিই আপনার টার্গেট? নাকি এটা একটা অজুহাত, আসল টার্গেট ক্বাওমী মাদ্রাসা, ভুল হলে ক্ষমা করবেন; আল্লাহু আ’লাম।
সংস্কার আমরাও চাই, সাথে আমাদের বেয়াদবি মনোভাবেরও সংস্কার হোক।
মনে রাখতে হবে বেফাকে আব্দুল জব্বার সাহেবের পোস্ট সিদ্ধান্ত দেবার জন্যে নয়, তাঁর অবদানের স্বীকৃতি স্মরূপ।
স্বীকৃতি নিয়েও দেখছি আপনারা বেফাককে প্রতিপক্ষ বানাচ্ছেন! বেফাক স্বীকৃতি বিরুধী নয়, শুধু প্রচেষ্টা চলছে বিষয়টি যেনো ‘ ৫ই জানুয়ারি’র নির্বাচন না হয়! পর্দার আড়ালে গোষ্ঠী একটাই, এতো সহজে বিশ্বাস করার মতো নির্বোধ নন বেফাক কর্তৃপক্ষ।
সময়টি ভালো নয়। বড়দের বিতর্কিত করে কোন সংস্কার আর স্বীকৃতি চান আমার মাথায় ধরে না।
আমি বড়দের শ্রদ্ধা করি, বিশ্বাস করি, আস্থা রাখি, ভালোবাসি।
তাই তাদের বিরুদ্ধে যে কোনো নোংরা অবস্থানের বিরুদ্ধে আমার লড়াই চলবেই ইনশাআল্লাহ!
( বিষয়টি ব্যাপক, নির্দিষ্ট কেউ টার্গেট নয়, কারো সাথে মিলে গেলে আমি দুঃখিত)”

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now