শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » লালদিঘি নতুন হকার্স মার্কেট দোকান মালিক ও ব্যবসায়ী ঐক্য পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত

লালদিঘি নতুন হকার্স মার্কেট দোকান মালিক ও ব্যবসায়ী ঐক্য পরিষদের সভা অনুষ্ঠিত

hkars
সিলেট রিপোর্ট:
সিলেট সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক লালদিঘি নতুন হকার্স মার্কেট ব্লক- এ, বি, সি, ডি-কে ভাঙার জন্য নিলাম বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হওয়ার প্রেক্ষিতে লালদিঘি নতুন হকার্স মার্কেট দোকান মালিক ও ব্যবসায়ী ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে  সোমবার (৩ অক্টোবর) রাতে মার্কেট প্রাঙ্গণে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

লালদিঘি নতুন হকার্স মার্কেট দোকান মালিক ও ব্যবসায়ী ঐক্য পরিষদের সভাপতি আখলিছুর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সিলেট মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্সের পরিচালক মো. হুরায়রা ইফতার হোসেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলা টাইমস সিলেট ব্যুরো চীফ ও ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন সিলেটের পাবলিসিটি সেক্রেটারী আবু তালেব মুরাদ, হাসান মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হাজী রইছ আলী, ব্রহ্মময়ী বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আতিকুর রহমান, বন্দরবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি অলিউর রহমান বেলাল, সিটি সুপার মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি জয়নুল মিয়া, বিশিষ্ট সাংবাদিক আনোয়ার উদ্দিন, লালদিঘি নতুন মার্কেট বি-৮২ এর সভাপতি মোঃ মাজহারুল ইসলাম, সেক্রেটারী হাজী বদরুল আলম মজনু মিয়া।

ব্যবসায়ী কমিটির সাবেক উপদেষ্টা ও দোকান মালিক সমিতির সহ সভাপতি মোঃ মাজেদ আহমদ সামির পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন লালদিঘি নতুন মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মোঃ আকিদ মিয়া, ঐক্য পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক ফারুক মিয়া, মাছুম আহমদ, বাছিত মিয়া, শিরু মিয়া, হাবিবুর রহমান, গিয়াস উদ্দিন, লালদিঘি মুদ্রণ সমিতির সভাপতি আব্দুল হামিদ, যুগ্ম আহবায়ক মোঃ জহিরুল ইসলাম, মোঃ কবির হোসেন, ঐক্য পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক মোঃ কাবুল মিয়া, মনসুর আহমদ, লোকমান আহমদ, তারেক আহমদ, মোঃ কামরুল ইসলাম প্রমুখ।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৭৫-৭৬ সালে তৎকালীন সিলেট পৌরসভায় মাটি ভরাটের আবেদন জানানো হয়। ১৯৮৫-৮৬ সালে নিজ খরচে লালদিঘিটি মাটি ভরাটের জন্য বলা হয়।

পরবর্তীতে মার্কেট নির্মাণের জন্য পৌরসভার একাউন্টে টাকা জমা দেয়া হয়। যার ফলে ২০০২-০৩ সালে আমাদেরকে দোকান সমজিয়ে দেয়া শুরু হলেও নকশা মোতাবেক কোন কিছু নির্মাণ করা হয়নি। ৪টি ব্লকের মধ্যে একটিতেও কোন বাথ রুম রাখা হয়নি। যা সভ্য সমাজে নজিরবিহীন।

আমরা পুনরায় ২০০৮ সালে তৎকালীন মেয়র মহোদয় বরাবরে বার বার আবেদন করি যে, মার্কেটের মধ্যখান দিয়ে রাস্তা, সিড়ি, ড্রেনেজ ব্যবস্থা করার জন্য। কিন্তু এসব না করে কিছু স্বার্থান্বেষী মহলের পরোচনায় আমাদের সাথে ছিনিমিনি খেলা হচ্ছে। ২০১২ সাল থেকে মার্কেটে ব্যবসা জমে উঠে।

আমরা বুকভরা আশা নিয়ে ব্যবসা করে আসছি এবং পাশাপাশি সিলেট সিটি কর্পোরেশনকে বিভিন্ন তারিখে আবেদনের মাধ্যমে আমাদের দোকানের ভাড়া, হোল্ডিং টেক্স ও চুক্তিপত্র সম্পাদনের জন্য বলি। কিন্তু আজ পর্যন্ত আমাদের সাথে কোন প্রকার চুক্তিপত্র সম্পাদন হয়নি।

আমাদের সাথে কোন প্রকার আলোচনা না করে গত ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৬ইং তারিখে স্থানীয় একটি দৈনিক পত্রিকায় ৪টি ব্লক ভাঙার জন্য নিলাম বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। আমরা সিসিকের এ সিদ্ধান্তে হতাশ ও হতবাক হয়েছি। আমরা দোকানের ভাড়া, হোল্ডিং টেক্স ও চুক্তিপত্র সম্পাদনের জোর দাবী জানাচ্ছি এবং ব্যবসায়ীদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা না করে মার্কেট না ভাঙ্গার জন্য আহবান জানান।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now