শীর্ষ শিরোনাম
Home » মসজিদ-মাদরাসার খবর » স্বীকৃতি নিয়ে আন্দোলনের সুত্রপাতটা বেফাকেই করেছিল : মুসলেহ উদ্দীন রাজু

স্বীকৃতি নিয়ে আন্দোলনের সুত্রপাতটা বেফাকেই করেছিল : মুসলেহ উদ্দীন রাজু

muslehuddinraju-sylhetreportসিলেট রিপোর্ট: সিলেটের জামিয়া গহরপুরের মুহতামিম এবং সিলেট জেলা বেফাক সভাপতি ও কেন্দ্রয়ি সাংগঠনিক সম্পাদক  হাফিজ মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন রাজু কওমী সনদের স্বীকৃতি বিষয়ে একটি র্দীঘ সাক্ষাৎকার দিয়েছেন একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে। সাৎকারে তিনি অনেক বিষয় তুলে ধরে ছেন। এ প্রসঙ্গে মাওলানা রাজু বলেন, স্বীকৃতি নিয়ে আন্দোলনের সুত্রপাতটা বেফাকেই শুরু করেছিল। আর বেফাক যখন স্বীকৃতি নিয়ে আন্দোলন শুরু করে,  কেউ তখন বেফাকের স্বীকৃতির পক্ষে কেউ ছিল না। স্বীকৃতি জিনিসটা যে কি সেটা বুঝানোর পূর্ণ কৃতিত্বের দাবিদার একমাত্র বেফাকই। আর গঠিত ৯ সদস্যের কমিটিতে যারা আছেন তাদের মধ্যে সবাই এক সময় বেফাকের সদস্য ছিলেন। বিভিন্ন কারণে হয়তো তারা এখন বেফাক থেকে দূরে। কিন্তু সবাই তো এক সময় তো বেফাকের সদস্য ছিলেন। যেমন ফরিদ উদ্দীন মাসউদ সাহেবের মাদরাসা বেফাকের অধিনে পরীক্ষা দেয়।তিনিও  বেফাকের একাধিক আয়োজন উৎসবে আমন্ত্রিত হন। মাওলানা রুহুল আমীন সাহেব তিনি বেফাকের সাবেক মহাসচিব। ফরিদাবাদ মাদরাসার আবদুল কুদ্দুস তিনি বেফাকের নীতিনির্ধানী পর্যায়ের লোক। জামিয়া ইমদাদিয়া, কিশোরগঞ্জের মুহতামিম মাওলানা আনওয়ার শাহ, তিনিও বেফাকের সহ সভাপতি।তারপর পটিয়া মাদরাসার মাওলানা আবদুল হালিম বুখারি। তিনিও ১৯৯৬-এর আগে দুই টার্মে বেফাকের সহকারি মহাসচিব ছিলেন। তখন আমার আব্বা নুরুদ্দীন গহরপুরী রহ. বেফাকের সভাপতি ছিলেন। তারপর আছেন আবদুল বাসিত বরকতপুরী। তিনি যদিও সিলেটের আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালীম বাংলাদেশ-এর মহাসচিব, তারপরও তিনিও একটার মাদরাসার মুহতামিম। আর সেই মাদরাসাটা বেফাকে অন্তর্ভূক্ত আছে। সঙ্গত কারণে তিনিও বেফাকের সদস্য। তারপর মুফতি এনামুল হক, সিনিয়র মুহাদ্দিস, বসুন্ধরা ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার। বসুন্ধরা  মাদরাসা তো দীর্ঘদিন বেফাকের অধিনেই পরীক্ষা দিয়েছিল। এই তো গেল কয়েক বছর যাবত তারা পরীক্ষা দিচ্ছে না । মনে হয় সিস্টেমগত কোনো কারণে তারা এখন আর বেফাকের অধীনে নেই। কিন্তু তাদেরও বেফাকের প্রতি শতভাগ আন্তরিকতা রয়েছে। আমি মনে করি সবাই বেফাকের লোকজন। সবাই বেফাককে ভালো চোখেই দেখে। তবে স্বীকৃতির নিয়ে আন্দোলনটাতে বেফাকের অবদান সবচেয়ে বেশি।
মাওলানা রাজু বলেন,  মাওলানা আবদুল জব্বার প্রথম স্বীকৃতি নিয়ে আলোচনা শুরু করেছিলেন। তাঁর পক্ষ থেকে শায়খুল হাদীস আল্লামা আজিজুল হককে বলা হয়েছিল স্বীকৃতি নিয়ে মাঠে ময়দানে জনমত গড়ে তোলার জন্য। কিন্তু শাইখুল হাদিস রহ. তখন অস্বীকৃতি জানিয়ে বলেছিলেন, মুরব্বি (নূরুদ্দীন গহরপুরী রহ.) যদি আমাকে লিখিত অনুমতি দেন তাহলে আমি স্বীকৃতির পক্ষে জনমত গড়ে তোলার কাজে অগ্রসর হতে পারি। তারপর আবদুল জব্বার সাহেবরা ঢাকা থেকে পাঁচজনের একটা টিম আব্বার কাছে পাঠিয়েছিলেন। তখন আব্বা এ বিষয়ে লিখিত অনুমতি দেন। তারা আব্বাকে বলেছিলেন, আপনি যদি শায়খুল হাদীস সাহেবকে বলে দেন তাহলে তিনি এ নিয়ে কাজ করতে রাজি আছেন। তারপর শায়খুল হাদীস রহ. স্বীকৃতির দাবি নিয়ে মাঠে নেমেছিলেন। কিন্তু এ সম্পর্কে সবকিছু বলা হয়, কিন্তু স্বীকৃতির জন্য প্রথম যিনি নির্দেশ দিয়েছিলেন, তার কথা চেপে যাওয়া হয়। ওই পাঁচজন টিমের আজ অনেকেই বেঁচে নেই। জোবায়ের চৌধুরী আছেন, তার সাথে আলাপ করলে বিস্তারিত জানতে পারবেন। আর শাইখুল হাদীস রহ. শুধুমাত্র আব্বার নির্দেশের কারণেই স্বীকৃতির জন্য আন্দোলনে নেমেছিলেন। আর এ কারণেই তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগের কোনো শেষ ছিলো না। কারণ সে সময়ের পরিস্থিতি এখনকার মতো ছিল না।
আলেমদের প্রায় অনেকেই সে সময় স্বীকৃতির বিপক্ষে ছিলেন।  আর এখন যারা স্বীকৃতি নিয়ে আন্দোলনের মাঠে আছেন, তাদের মধ্যে এখনও অনেকেই আছেন যারা স্বীকৃতি চান না। আসলে আমরা জানি না  কওমি স্বীকৃতিটা আসলে কী? আর স্বীকৃতি হলে কী পন্থায় হবে সেটাও আমাদের অনেকের কাছে এখনও পরিস্কার নয়। আমরা কী শুরুতেই মার্স্টাসের মান পেয়ে যাবো না ধাপে ধাপে অগ্রসর হতে হবে। মূলত এর প্রক্রিয়াটা কি হবে সে বিষয়ে আমরা এখনও অন্ধকারে।

সিলেট রিপোর্ট/সু-আই ০৪/১০/২০১৬

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now