শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » বদরুলের ফাসিঁর দাবীতে টুকেরবাজার তেমুখীতে মানববন্ধন

বদরুলের ফাসিঁর দাবীতে টুকেরবাজার তেমুখীতে মানববন্ধন

01-1-600x338wwwwwwwwwসিলেট রিপোর্ট:  সিলেট সরকারি মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী খাদিজা বেগম নার্গিসকে নির্মমভাবে কুপিয়ে গুরুতর আহত করার ঘটনায় বদরুল আলমের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে সদর উপজেলার টুকেরবাজার তেমুখীতে মানববন্ধন করেছেন স্থানীয়রা। বুধবার দুপুরে ‘সদর উপজেলার সচেতন নাগরিকবৃন্দ’র ব্যানারে আয়োজিত এই মানববন্ধনে একই কাতারে দাঁড়িয়ে বদরুলের শাস্তির দাবি জানান সর্বদলীয় নেতৃবৃন্দ। মানববন্ধনে আওয়ামী লীগ-বিএনপি,আনজুমানে আল ইসলাম,জমিযতে উলামাযে ইসলাম,খেলাফত মজলিসের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ছাত্র নামধারী বখাটে নরপশু বদরুল আলমকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। তাকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিলে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা ঘটাতে অন্য কেউ দ্বিতীয়বার ভাববে। কিন্তু তার শাস্তি যদি নিশ্চিত না হয়, তবে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটবে।  নেতৃবৃন্দ বিশেষ ট্রাইবুন্যালে দ্রুত বিচারের দাবী জানান। ‘ফাসিঁ ফাসিঁ ফাসিঁ চাই-বদরুলের ফাসিঁ চাই’ এমন শ্লোগানে মুখরিত হযে উঠে গোটা তেমুখি। যুবক,ছাত্র সহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার লোকজন একাত্মতা ঘোষণা করে মানববন্ধনে অংশনেন। বক্তারা সিলেটের প্রতিটি কলেজ ভার্সিটিতে সিসি ক্যামেরা প্রতিস্থাপনের জোর দাবী জানান।
মানববন্ধনে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন কামরান, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, সিলেট জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আশফাক আহমদ, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সেক্রেটারী আবুল কাশেস, টুকেরবাজার ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শহিদ আহমদ, বিএনপি নেতা শাহ জামাল নুরুল হুদা, সিলেট প্রেসক্লাব ফাউন্ডেশনের সভাপতি আল আজাদ, সিলেট প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকু, ৭১ টিভির সাংবাদিক ইকবাল মাহমুদ, দৈনিক সিলেটের ডাকর স্টাফরিপোর্টার  নুর আহমদ, দৈনিক উত্তর পর্ব’র স্টাফরিপোর্টার ওলিউর রহমান, অনলাইন জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশন সিলেট এর সহসভাপতি ও সিলেট রিপোর্ট ডটকম সম্পাদক মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী, আল ইসলাহ নেতা মাওলানা আজির উদ্দীন পাশা, কাজী জুনায়েদ আহমদ, তালামিয নেতা শরীফ উদ্দীন,  সহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন। পরিচালনায় ছিলেন বাসস এর ব্যুরো প্রধান মকসুদ আহমদ মকসুদ।
এদিকে, মেয়েকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে রাখা হলেও এসব বিষয়ে কিছুই জানেন না খাদিজার মা। তাকে শুধু বলা হয়েছে- খাদিজা কলেজ থেকে ফেরার পথে মাথা একটুখানি কেটে গেছে। একটু পরপর মোবাইলে মেয়ের সঙ্গে বলতে চাচ্ছেন, কিছুতেই তাকে মানানো যাচ্ছে না। তাকে বলতে পারছি না- “মেয়েটা যেকোন সময় আমাদেরকে ছেড়ে চলে যেতে পারে, যেকোনও সময় (আল্লাহ) নিয়া যাইবো।” এভাবেই চোখের জল ফেলে আক্ষেপের সাথে কথাগুলো বলেন খাদিজার মামা আব্দুল বাসেত। একটি শিক্ষিত সমাজের নরপশু ক্ষিপ্ত হয়ে চাপাতির আঘাতে স্তব্ধ করতে চেয়েছিল ক্যাম্পাস আর পরিবার মাতিয়া রাখা খাদিজার জীবন। আর একামাত্র মেয়ের জীবন নিয়ে বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন খাদিজার সৌদি প্রবাসী বাবা মাসুক মিয়া। খাদিজার পারিবারের সদস্যরা জানান- পড়ালেখায় অত্যন্ত মেধাবী ছিলো খাদিজা। এসএসসি পাশের পর একাধিকবার বিয়ের আলাপ আসলেও খাদিজা এতে রাজি হয়নি। তার এককথা আগে স্নাতক ডিগ্রিটা শেষ করে নেই। ৩ ভাই আর ১ বোনের দ্বিতীয় খাদিজা। আর বড়ভাই কয়েক বছর থেকে চীনে থেকে পড়াশুনা করছেন উচ্চতর ডিগ্রি নেয়ার জন্য। খাদিজার মা মনোয়ারা বেগম জানান- “আমার মাইয়ারে (মেয়ে) হুনছি কে মারছে, তাইর বলে শরীরটা খুব ভালা নায়। ভালা অইয়া হারলে আমার মেয়ে আমার লগে মোবাইলে মাতব। আমার ভাই বাসিতরে ফোন দিছলাম (খাদিজার মামা) তাইন কইলা।” সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার সময় একটি সিটের জন্য ভর্তিযুদ্ধে অংশ নেয় প্রায় দেড় থেকে দুই শতাধিক শিক্ষার্থীরা। কিন্তু কীভাবে শাবি থেকে বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী বদরুল আলম বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেয়েছে, এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠেছে। তার এই কর্মকা-ে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদেরকে।

প্রসঙ্গত, গত সোমবার এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে শাবি ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক বদরুল আলম এমসি কলেজের পুকুর পাড়ে নার্গিসকে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মক আহত করে। বর্তমানে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলছে। অপারেশনের পর চিকিৎসকরা তাকে ৭২ ঘন্টার অবজারভেশনে রেখে গেছেন। এঘটনায় বদরুলকে আসামী করে শাহপরান থানায় খাদিজার চাচা আব্দুল কুদ্দুস বাদি হয়ে একটি হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করা হয়েছে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now