শীর্ষ শিরোনাম
Home » সাহিত্য » মোহাম্মদ মোশতাক চৌধুরী ও তার সাহিত্য সাধনা

মোহাম্মদ মোশতাক চৌধুরী ও তার সাহিত্য সাধনা

unnamedবায়েজীদ মাহমুদ ফয়সল : মোহাম্মদ মোশতাক চৌধুরী সদা হাস্যোজ্জ্বল কর্মকুশল এক সাহিত্যপ্রেমীর নাম। কর্মজীবনে ব্যাংকার হলেও তার প্রাণ জুড়ে থাকে সাহিত্যসংশ্লিষ্ট কর্মকাণ্ড। সমাজের প্রতি তার দায়বদ্ধতার পরিচয় ফুটে ওঠে তার সামাজিক কর্মমুখরতায়। তিনি আত্মপরিচয় উদ্ভাসিত করার নিমিত্তে শেকড়ের সন্ধান তথা ঐতিহ্যের অনুসন্ধানে সদা ব্যাপৃত। ইতিহাসের অনুসন্ধিৎসু এই সাহিত্য দরদি ক্রমশ আমাদের উৎসের কথা তার রচনায় তুলে ধরছেন।
মোহাম্মদ মোশতাক চৌধুরী কানাইঘাট উপজেলার ধনমারাইটি গ্রামে ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দের পহেলা মার্চ জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার আলহাজ্ব মাস্টার আব্দুল হক চৌধুরী এবং মাতা মস্তফা খাতুন চৌধুরী। সাউথ ইস্ট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ ডিগ্রি অর্জনকারী মোহাম্মদ মোশ্তাক চৌধুরী পেশায় একজন ব্যাংকার। তিনি শেকড়সন্ধানী লেখক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তার প্রথম গ্রন্থ ‘কাছাড়ের ইতিহাস ঐতিহ্য ও নান্দনিকতা’ (২০১৫) এবং দ্বিতীয় গ্রন্থ ‘জৈন্তা রাজ্যের ইতিবৃত্ত’ (২০১৬)।
‘কাছাড়ের ইতিহাস ঐতিহ্য ও নান্দনিকতা
‘বহু দিন ধরে বহু ক্রোশ দূরে/বহু ব্যয় করে বহু দেশ ঘুরে
দেখিতে গিয়েছি পর্বতমালা/দেখিতে গিয়েছি সিন্ধু
দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া/ঘর থেকে শুধু দুু পা ফেলিয়া
একটি ধানের শীষের উপর/একটি শিশির বিন্দু।’
ভ্রমণ শিক্ষার একটি অংশ। শিক্ষা অর্জনের জন্য বিদেশ ভ্রমণের গুরুত্ব স্বীকৃত। দেশকে যেমন প্রাণভরে দেখতে হয় তেমনই কাছের এমন দেশ আছে যেখানে শিক্ষা অথবা চিত্তবিনোদনের উদ্দেশ্যে ভ্রমণ করা যায়। শৈশব-কৈশোর থেকেই আমাদের মধ্যে বেড়ানোর একটা মনোবৃত্তি কাজ করে। আমরা আমাদের আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে বেড়াতে পছন্দ করি অথবা কাছের কোনো বিনোদন কেন্দ্র অথবা প্রকৃতিক দৃশ্য সমন্বিত কোনো এলাকায় বনভোজনে যাই। এসবই আমাদের মনের খোরাক হিসেবে চিত্তের প্রশান্তি দেয়। আমারও সে রকমের মনোবৃত্তি ছিল শৈশব থেকেই। আর ভ্রমণের প্রতি আকর্ষণ বোধ করতাম সে রকম সময় থেকেই। সাহিত্যের কাছাকাছি নিয়ে আসার অনুপ্রেরণা যোগায়। ভ্রমণের প্রতি একধরনের অজানিত পুলক ছিল বিরাজমান থাকে। ভ্রমণ আর দেখার সৌন্দর্য আমাকে এখনও ঘিরে রেখেছে। ভ্রমণ এক আনন্দযাত্রা। এ যাত্রায় আমাদের ঐতিহাসিক সম্পর্কও প্রেরণা যোগায়।
মোহাম্মদ মোশতাক চৌধুরী ভ্রমণপ্রিয় ব্যক্তিসত্তা। আমার মনে হয় তাঁর ভ্রমণ মানস সবসময় কোনো না কোনো দেশে ভ্রমণে পড়ে থাকে। তিনি তাঁর হাসির মতোই সহজ সারল্যে ভ্রমণের আনন্দ ঢুকিয়ে দেন পাঠকের মন ও মননে। সম্প্রতি তিনি ভারত ভ্রমণের অভিজ্ঞতা নিয়ে লিখেছেন, কাছাড়ের ইতিহাস ঐতিহ্য ও নান্দনিকতা এতে উঠে এসেছে ভারত ভ্রমণের আনন্দ ইতিহাস ও আখ্যানের কথা। তিনি শুধু কাহিনি বর্ণনায় সীমাবদ্ধ থাকেননি, প্রাসঙ্গিক অবতারণায় তুলে এনেছেন জানা অজানা বহু ঘটনার বর্ণনাÑকৃষ্ণচন্দ্রের রাজত্বকালীন মুসলমান পীরের আবির্ভাব : রাজা কৃষ্ণচন্দ্র সিংহাসনে বসার পর ইতোমধ্যে দুইবার দুইজন মুসলমান পীরের কাছাড়ে আবির্ভাব ঘটে। প্রথমে ফেরুঢুপি নামক একজন ফকির বহু লোকজন সহ রাজ্যের পশ্চিম সীমানায় উপস্থিত হন। কাছাড়ী রাজার সৈন্যবল কম থাকায় কোন উপায়ান্তর না দেখে রাজা কৃষ্ণচন্দ্র উত্তর কাছাড়ে পলায়ন করেন। এ সময় বহু হিন্দু প্রজা ধর্মলোপের ভয়ে শ্রীহট্ট (সিলেট) ও জঙ্গলে লুকিয়ে লুকিয়ে থাকেন। তৎসময়ে ফকিরের এ কেরামতি দেখে অনেক বিধর্মী লোক মুসলিম ধর্মগ্রহণ করে। তখন রাজা কৃষ্ণচন্দ্র ব্রিটিশ সরকারের শরণাপন্ন হলে কল্যাণ সিংহ নামক একজন সৈনিক, অনেক সৈন্যসহ ফকিরকে দমন করবার জন্য প্রাচীন শ্রীহট্ট হতে প্রেরিত হয়। ফকিরকে বিতাড়িত করার পর কল্যাণ সিংহ নিজে কাছাড় দখল করতে লোভ করায় ব্রিটিশ নিয়োজিত শ্রীহট্টের কালেক্টর সাহেব, বদরপুরের পুরাতন কাছাড়ী দুর্গ সংস্কার করে কল্যাণ সিংহকে ১৭৯৯-১৮০০ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে পরাস্ত করেন।
জনশ্র“তি রয়েছে রাজা কৃষ্ণচন্দ্র মুসলিম পীর ফেরুঢুপি পীর সাহেবের ভয়ে উত্তর কাছাড়ে পলাতক অবস্থায় থাকাকালে অনেক গীত বা গান রচনা করেন।
আরেকবার একজন মুসলিম পীর ভূবন পাহাড় হইতে অবতরণ করে আলি! আলি! এই রণ শব্দে সমস্ত দেশকে ভড়কিয়ে দেন এবং তাঁর সাথে অনেক মুসলমান যোগদান করেন। হিন্দুগণ আগের মত এবারও জঙ্গলে ও শ্রীহট্টে পলায়ন করে স্বধর্ম রক্ষা করে। পীর সাহেব হাইলাকান্দি হয়ে ত্রিপুরা চলে যাওয়ায় হিন্দুরা আবার স্বস্থানে চলে আসে।
ঋণ ও অন্যান্য উপায়ে ৮০,০০০ (আশি হাজার) টাকা সংগ্রহ করে রাজা কৃষ্ণচন্দ্র তীর্থযাত্রা করেছিলেন। প্রত্যাবর্তনকালে তিনি লক্ষ্য করেন যে, শ্রীহট্ট রাজ্য (বর্তমান সিলেট), জৈয়ন্তিয়া রাজ্য প্রকাশ জৈন্তা রাজ্য (জৈন্তাপুর, কানাইঘাট, গোয়াইনঘাট) এসব স্থানে চৌধুরী, মজুমদার প্রভৃতি উপাধি ভূষিত লোক প্রত্যেক পরগণায় বাস করতেছে। তিনিও চিন্তা করছিলেন অর্থ গ্রহণপূর্বক উপযুক্ত হিন্দু এবং মুসলমান প্রজাদিগকে নতুন নতুন উপাধি প্রদান করলে রাজকোষ যথেষ্ট ধন পরিপূর্ণ হবে, এ ভেবে প্রজাদিগকে কয়েকবার আহ্বানও করেছিলেন। কিন্তু ১৮১৩ খ্রি. উপাধি দানের পূর্বেই রাজা পরলোক গমন করেন। ‘পরে রাজা গোবিন্দ চন্দ্র জৈষ্ঠভ্রাতার সিংহাসনে আরোহণ করে কৃষ্ণ চন্দ্র  প্রস্তাবিত উপাধি প্রদান বিষয় সুসম্পন্ন করেন। ১৮১৭ (এক হাজার আটশত সতের) খ্রিস্টাব্দ বাংলা ২১শে শ্রাবণ ১৭৩৯ শকাব্দ উপাধি দান কাজ শুরু হয়। অভিনব এ উপায়ে রাজকোষে বিশাল অর্থ সঞ্চিত হয়েছিল। হিন্দুদের জন্য ব্রাহ্মণ, কায়স্থ, হীদলা, পাটনী, নাথ প্রভৃতি এবং মুসলমানদের জন্য চৌধুরী, মজুমদার, লস্কর এবং ভুঁইয়া এই ৪ চারি প্রকার উপাধি প্রদান করেন।
উপাধিগুলোর মূল্য যথাক্রমে নিুে উল্লেখ করা হল :
পদবী    মূল্য মান/ টাকা
চৌধুরী    ১০০
মজুমদার    ৫০
লস্কর    ২৫
ভূঁইয়া    ১৫
প্রত্যেক বিভাগের উপাধি প্রাপ্ত ব্যক্তিগণের নাম উল্লেখ করে রাজা এক একটি ফরমান জারি করেন। এই ফরমান ১৫২৫ ইঞ্চি আকারের ভুটিয়া কাগজে লিখিত হয়। এরপর দুই বৎসর পর্যন্ত আরো বহু লোক ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র এক এক খণ্ড ভুটিয়া কাগজে লিখিত উপাধি লাভ করেন।’ ইহার পূর্বেও সময় সময় কাছাড়ে উপাধি দান হত। একখানা দানপত্রে কয়েকজন হিন্দু ও মুসলমানের নাম উল্লেখ আছেÑ১৭১৩ শকাব্দ ১১ আষাঢ় সোমবার উপাধি প্রদান করা হয়।
সিলেট-কাছাড়ের সম্পর্ক : সিলেটের সাথে কাছাড়ের সম্পর্ক সেই আদিকাল থেকেই। সিলেটের পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত করিমগঞ্জ-বদরপুর-শিলচর-হাইলাকান্দি-কাছাড় ভারত বিভক্তি পূর্বে সিলেটের সাথে একই দেশের অংশ ছিল। ১৯৪৭ খ্রিষ্টাব্দের রেফারেন্ডামের মাধ্যমে তারা পৃথক হয়েছিল। রেফারেন্ডামে পৃথক হলেও সে অঞ্চল বিশেষত কাছাড়ের সাথে সিলেটের এক আলাদা সম্পর্ক এখনও বিরাজমান। কাছাড় জেলা আসাম প্রদেশের বরাক তীরবর্তী একটি বড় শহর। মনোরম পরিবেশের এই জেলার মানুষের সাথে সিলেটে মানুষের যোগাযোগ ঘটে প্রতিনিয়ত। হিন্দু-মুসলিম ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে কাছাড়ের মানুষের সাথে সিলেটের মানুষের ধর্মীয়-সামাজিক সম্পর্কের বিনিময় হয় নিত্যনৈমিত্তিক। বিশেষ করে সাহিত্য-সাংস্কৃতি ক্ষেত্রে দুই অঞ্চলের সম্পর্ক বিনিময় ও যোগাযোগ একটি সাধারণ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। সিলেটের কোনো সাহিত্য অনুষ্ঠানে যেমন কাছাড় থেকে অনেক কবি-সাহিত্যিক-সাংবাদিক এসে শরিক হন তেমনই সিলেটের কবি-সাহিত্যিক-সাংবাদিকরাও কাছাড়ের কোনো সাহিত্য-সংস্কৃতিসভার দাওয়াত পেলে সেখানে অংশগ্রহণ করে থাকেন। সিলেটের প্রাচীনতম সাহিত্য প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ ও সুরমা নন্দিনীর অনুষ্ঠানে বরাক নন্দিনী ও কাছাড়ের অন্যান্য সাংস্কৃতিক সংগঠনের অনেক কবি-সাহিত্যিক যোগদান করেন। অন্যদিকে কাছাড়ের আমন্ত্রণে অনেক অনুষ্ঠানে সিলেটের অনেক কবি-সাহিত্যিক-সাংবাদিক-প্রকাশক-সংগঠক অংশগ্রহণ করে থাকেন।
মোহাম্মদ মোশ্তাক চৌধুরী রচিত কাছাড়ের ইতিহাস ঐতিহ্য ও নান্দনিকতা বইটি চার অধ্যায়ে বিন্যস্ত করা হয়েছে। প্রথম অধ্যায় ভারত ভ্রমণ ভাবনা, এখানে বর্ণনা করেছেন ভ্রমণের জন্য তিনি কেন ভারতকে বেছে নিলেন। শিলচর ভ্রমণের আনন্দ স্মৃতি বইয়ের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে এসে তিনি নতুন করে আবিষ্কার করেন শিলচর হাইলাকান্দি এবং কাছাড়কে, তখনই তাঁর ভেতরে ভারত ভ্রমণের প্রেরণা জাগে। ২০১৪ সালে ভ্রমণের মধ্য দিয়ে তিনি তাঁর আকাক্সক্ষার কিছুটা পূরণ করেন। শিলচরের দিনলিপিতে বেশ মজার স্মৃতিকথার প্রাঞ্জল বিবরণ দেখতে পাই-ভ্রমণে গিয়ে কী পরিমাণ আনন্দে মেতে ছিলেন এটা তার কৌতুকপ্রবণ পরিকল্পনা থেকে বুঝা যায়। শিলচরে গিয়ে দাঁতের ডাক্তার দেখানোর ইচ্ছে হয়। এই ইচ্ছাটি আসলে রোগ যন্ত্রণা থেকে তৈরি হয়নি  বরং আনন্দ ভ্রমণের এক ব্যতিক্রম চিন্তা ভাবনা। দিনলিপির একটি চুম্বক অংশÑ‘আমি হেঁটে হেঁটে শহরটি দেখার চেষ্টা করলাম খুবই ভালো লাগলো। শহরটিকে খুব বিশাল বড় মনে হচ্ছিল না, মনে হচ্ছিল আমাদের সিলেট শহরের মতোই একটা সাদামাটা শহর। তবে এবং ময়লার সংখ্যা বেশিই মনে হল। আমাকে যা অনেক আকর্ষণ করেছিল তা হল যত হাঁটি ততই ভালো লাগে, মনে হয় আমার অনেক পূর্বে থেকে চেনা হৃদয় জুড়ানো একটি শহর। কারণ সকল মানুষের হাঁটা চলা বলা ফেরা সকল কিছুই আমাদের প্রিয় সিলেটের মতোই।’ লেখকের এই যে বর্ণনাভঙ্গি এত্থেকে স্পষ্টত প্রমাণিত হয় যে ভূমি ভাগ করলেও হৃদয় ভাগ হয় না। তিনি যেন নিজেরই সবকিছু দেখতে পেলেন ওখানে। এখানে মানুষ  তো স্বজন,ভূমি তো আপন, পরিবেশ বৈচিত্র এ তো আমাদের শহর। কখনও বিদেশ মনে হয় না, বিভাজন মনে পড়ে না। দ্বিতীয় অধ্যায়ে চারজন গুণী মানুষের সংস্পর্শের কথা : সাংবাদিক তৈমুর রাজা চৌধুরী তিনি শিলচর এর বহুল প্রচারিত পত্রিকা ‘দৈনিক সাময়িক প্রসঙ্গ’ এর সম্পাদক। অধ্যাপক রামেন্দু ভট্টাচার্য : তিনি আসাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত ভিসি। ইঞ্জিনিয়ার আবদুল জলিল : তিনি একজন সরকারি ইঞ্জিনিয়ার। মিলন উদ্দিন লস্কর : তিনি সাংবাদিক, সমাজসেবক, এবং বিশিষ্ট সংগঠক। ঈদ সম্মিলনী উদ্যাপন কমিটি শিলচর ২০১৪ এর সভাপতি । এই চার গুণী ব্যক্তির পরিচয়ের উদ্দেশ্য হল, আমাদের অস্থি কোথায় আছে আমরা তা জানি, বিদেশীরা জানে না। কবি দিলওয়ার লিখেছেন,
পদ্মা সুরমা মেঘনা যমুনা…
অশেষ নদী ও ঢেউ
রক্তে আমার অনাদি অস্থি
বিদেশে জানে না কেউ
আমাদের রক্তে একই জল, একই স্রোত আর অশেষ ঢেউ এটা আমরা জানি, শিলচর জানে; বিদেশিরা জানে না। তৃতীয় অধ্যায়ে উঠে এসেছে কাছাড় রাজ্যের ইতিহাস। কাছাড় একটি প্রাচীন রাজ্য। কাছাড়ের সমতলভাগ বরাক নদীর উপত্যকা এবং ভূগোলের হিসাব অনুসারে সুরমা উপত্যকার পূর্বের অংশ। কাছাড়ের ঐতিহাসিক তথ্য দু®প্রাপ্য হলেও প্রচলিত জনশ্র“তি, লোককাহিনি ও গীতিকাব্যের মধ্যে খুঁজে পাওয়া যায়। মহাভারতের কাহিনি অনুযায়ী অর্জুন পূর্বাঞ্চলের স্ত্রী রাজ্যের রাজকন্যা প্রমিলা, ভীম হৈড়ম্ব দুহিতা হিড়িম্বার পানি গ্রহণ করেছিলেন। তাই পণ্ডিতেরা স্ত্রী রাজ্য হিসাবে  জৈন্তা বা জয়ন্তিয়া এবং হৈড়ম্ব রাজ্য হিসাবে কাছাড়কেই আবিষ্কার করেন। চতুর্থ অধ্যায়ে ব্রিটিশ শাসনের আলোচনা : ভারতবর্ষের ইতিহাসে ব্রিটিশ শাসনের অবতারণা আসলেই ইতিহাসেরই অংশ। মোশতাক চৌধুরী গ্রন্থের শেষ অধ্যায়ে ব্রিটিশ শাসনের আলোচনা করে বইটি সমাপ্ত করেছেন।
বইটির উল্লেখযোগ্য অধ্যায় হলোÑপ্রথম অধ্যায় : ভারত ভ্রমণ ভাবনা, শিলচর ভ্রমণের দিনলিপি, ১৮ আগস্ট ২০১৪ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৪ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৪ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ২১ আগস্ট ২০১৪ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার, রক্ত দিয়ে লেখা অভিন্ন ভাষাÑ‘বাংলা’ বাংলাদেশ ও ভারতে, ১৯৫২ সালের ২১শে ফেব্র“য়ারী বাংলা ভাষার জন্য শহীদ, ১৯৬১ সালের ১৯শে মে বাংলা ভাষার জন্য শহীদ, সিলটি ভাষা : বাংলাদেশ- ভারতে এক অভিন্ন ও অনবদ্য সংযোজন। দ্বিতীয় অধ্যায় : ভ্রমণকালীন সময়ে চারজন গুণী মানুষের সংস্পর্শ, সাংবাদিক তৈমুর রাজা চৌধুরী, অধ্যাপক রামেন্দু ভট্টচার্য, ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল জলিল লস্কর, সাহিত্য সংগঠক মিলন উদ্দিন লস্কর। তৃতীয় অধ্যায় : কাছাড়ের ইতিহাস ছোঁয়া, কাছাড় রাজ্য, রাজা লক্ষীচন্দ্র, নবাব গুলু মিয়া, রাজা কৃষ্ণচন্দ্র, রাজা গোবিন্দচন্দ্র, কাছাড়ে মনিপুরী জাতির বিবরণ, দুধ-পাতিল মৌজা, বিচারকার্য্য। চতুর্থ অধ্যায় : ব্রিটিশ শাসন, কাছাড়ে ব্রিটিশ শাসনের আলোকপাত, উপাধি দান সম্বন্ধে একখানা আদেশপত্রের নকল, ব্রিটিশ রাজত্বের প্রারম্ভে বিভিন্ন উপাধির মূল্যমান, অংংধস খধমরংষধঃরাব অংংবসনষু–গখঅ ১৯৩৭–১৯৪৬, অংংধস খধমরংষধঃরাব অংংবসনষু–গখঅ ১৯৪৬–১৯৫২। ভ্রমণ কাহিনির পাঠক মাত্রই খোঁজেন নির্দিষ্ট স্থানের স্বচ্ছ ছবি, স্থান সম্পর্কে তত্ব ও তথ্য আর চটকদার নতুন অভিজ্ঞতা। মোহাম্মদ মোশ্তাক চৌধুরী মাত্র চারদিনের অভিজ্ঞতা যখন বইয়ের মলাটে রূপ নেয়, তখন আমরা বিস্মিত হই না। কারণ তিনি একজন সফল ব্যাংকারও। কিন্তু এটাতো লিখতেই হবে, ব্যাংকার হলেই লেখায় শক্তি থাকে না। মোশ্তাক চৌধুরীর সেটা রয়েছে। তাঁর প্রমাণ কাছাড়ের ইতিহাস ঐতিহ্য ও নান্দনিকতা। এক বসাতেই পঠনীয় বইটি কাছাড়ের মানুষ, প্রতিবেশ ও তাদের আতিথেয়তার প্রতিচ্ছবি পাঠকের সম্মুখে তুলে ধরতে সক্ষম।
জৈন্তা রাজ্যের ইতিবৃত্ত
লেখক ও গবেষক মোহাম্মদ মোশ্তাক চৌধুরী সরেজমিন অনুসন্ধান ও গবেষণার মাধ্যমে জৈন্তা রাজ্যের ইতিবৃত্ত নামক ইতিহাসভিত্তিক গ্রন্থ রচনা করেছেন। একটি অতি প্রাচীন রাজ্য জৈন্তা যা বর্তমান ভারতের আসাম প্রদেশের নওগাঁ এবং বাংলাদেশের জৈন্তাপুর, কানাইঘাট, গোয়াইনঘাট ও কোম্পানীগঞ্জের কিয়দংশ ও সমগ্র জৈন্তা পাহাড় নিয়ে বিস্তৃত।
জৈন্তা রাজ্যের ইতিবৃত্ত গ্রন্থটি ৮ ফর্মায় মোট পাঁচটি অধ্যায়ে সাজানো হয়েছে। প্রথম অধ্যায়ে গবেষক মোশ্তাক চৌধুরী জৈন্তা রাজ্যের গোড়ার কথা, উৎপত্তি ও ক্রমবিকাশ, ১৭ পরগনার নাম, ধর্মের প্রতি একগ্রতা, পঞ্চায়েত ও শাসনব্যবস্থা, বিচারকার্য, লোকসংগীত ইত্যাদি বিষয় অত্যন্ত সাবলীলভাবে তুলে ধরেছেন। ‘নবাব ফতেহ খাঁ’ নিবন্ধে লেখক নির্ভরযোগ্য তথ্য দিয়ে দেখিয়েছেন ১৭৩১ থেকে ১৭৭১ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত রাজত্বকারী রাজা দ্বিতীয় বড়ো গোঁসাই এর সময়ে নবাব আলীবর্দী খাঁর জৈষ্ঠ্য জমাতা নবাব নওয়াজিশ মোহাম্মদ খাঁর পুত্র নবাব ফতেহ খাঁর জৈন্তা রাজ্যে আগমন ও প্রধান সেনাপতি হওয়া এবং অত্র এলাকায় মসজিদ নির্মাণ নিয়ে বিরোধ ও সর্বশেষ খাসিয়া রাজা কর্তৃক তার মৃত্যুদণ্ডের কথা।
দ্বিতীয় অধ্যায়ে বর্ণিত হয়েছে জৈন্তা রাজ্যের রাজস্ব ব্যবস্থা, গ্রামের নামকরণ, মেঘালিথিক পাথর ও নরবলি, পান্থশালা, ওয়াচ টাওয়ার, মোঘল শাসকদের সাথে শান্তিচুক্তি, ধার্মিকতা, মঙ্গলপুর গারোবস্তি, রাজ্যের ভাষা, ইসলাম প্রচারে ৩ আউলিয়া, বংশের উপাধি, দালানবাড়ি, রাজধানী যেভাবে গ্রামে পরিণত হয়, মুক্তিযুদ্ধে অবদান ইত্যাদি বিষয়।
গ্রন্থটির তৃতীয় অধ্যায়ে রয়েছে নয়নাভিরাম পর্যটন এলাকা, লোভাছড়া পাথর কোয়ারী, চা বাগান, খাসিয়া পুঞ্জি, লালাখাল চা বাগান, জৈন্তা রাজবাড়ি, শ্রীপুরপার্ক, জাফলং, পানথুমাই-লংথুমাই ঝর্ণাধারা, বিছনাকান্দি, রাতারগুল জলাবন, প্রাচীন জৈন্তা ইতিহাস ঐতিহ্য গবেষণা পরিষদ এবং বৃহত্তর জৈন্তায় জন্মগ্রহণকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দের তালিকা। বৃহত্তর জৈন্তা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি হিসেবে দেশব্যাপী পরিচিত। ভ্রমণপিপাসুদের তীর্থভূমি এই অঞ্চল দেশবিদেশের অসংখ্য মানুষের কাছে প্রিয় দর্শনীয় স্থান। লেখক এ অধ্যায়ে ভ্রমণস্পটগুলোর সৌন্দর্য বর্ণনার পাশাপাশি পর্যটকদের জন্য প্রয়োজনীয় নানাবিধ তথ্য উপস্থাপন করেছেন।
চতুর্থ অধ্যায়টি সাজানো হয়েছে বৃহত্তর জৈন্তা অঞ্চলের কয়েকজন বিখ্যাত ব্যক্তির সংক্ষিপ্ত জীবনী দিয়ে। এই অধ্যায়ে লেখক এতদঞ্চলের আলোকিত মানুষদের জীবনের নানাদিক বর্ণনা করেছেন অত্যন্ত সাবলীলভাবে। একজন লেখকের দায়বোধ থেকে তিনি তার অঞ্চলের কীর্তিমানদের স্মরণ করেছেন যা আমাদের প্রত্যেকেরই করা উচিত। ভবিষ্যতে তিনি এই তালিকায় আরও গুণীদের জীবনী সংযোজন করবেন এই আশা করা যায়।
সর্বশেষ অধ্যায়ে একনজরে জৈন্তাপুর, কানাইঘাট ও গোয়াইনঘাট উপজেলার আয়তন, জনসংখ্যা, ভোটার সংখ্যা, মোট ইউনিয়ন, পৌরসভা, গ্রাম, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাটবাজার, মসজিদ, মন্দির, হাসপাতাল, চা বাগান, প্রেসক্লাব ইত্যাদির পরিসংখ্যান উপস্থাপন করেছেন যা আগ্রহী পাঠকদের জন্য প্রয়োজনীয় হতে পারে।
মোহাম্মদ মোশ্তাক চৌধুরীর জৈন্তা রাজ্যের ইতিবৃত্ত গ্রন্থটিতে ইতিহাসের অনেক মূল্যবান অজানা তথ্যের সন্ধান পাওয়া যায়। নিঃসন্দেহে একটি চমৎকার পরিশ্রমলব্ধ গবেষণামূলক কাজ। এই গ্রন্থটি রচনার মাধ্যমে তিনি জৈন্তা অঞ্চলের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির উজ্জ্বল অতীতকে জনমানসে তুলে ধরেছেন। জৈন্তার ইতিহাসচর্চায় গ্রন্থটি অনুস্মরণীয় হয়ে থাকবে।
ব্যক্তিগত জীবনে মোহাম্মদ মোশ্তাক চৌধুরী ১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দের ২৫ জুন সিলেট জেলার কানাইঘাট উপজেলার বিষ্ণুপুর বড়োবাড়ির তৌহিদ বক্ত চৌধুরীর কন্যা জাহানারা বেগম চৌধুরী হেনার সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। বর্তমানে তিনি নাইমা চৌধুরী মৌরী ও কামরান চৌধুরী রফি নামক দুই সন্তানের জনক।
মোশতাক চৌধুরীকে ভারতের বরাক উপত্যকা বঙ্গ সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্মেলন কাছাড় জেলা সমিতি, শিলচর-এর পক্ষ থেকে ২০১৫ খ্রিস্টাব্দে সৃজনশীল  সাহিত্যকর্মের জন্য  সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। তাছাড়া তিনি এএমডি দাহার (দারা মিয়া) ও অ্যাডভোকেট আক্তারুজ্জামান ফাউন্ডেশন ২০১৫ কর্তৃক ন্যায় ও নিষ্ঠাবান কর্মকর্তা হিসেবে সম্মাননা লাভ করেন। কাছাড়ের ইতিহাস ঐতিহ্য ও নান্দনিকতা এবং জৈন্তা রাজ্যের ইতিবৃত্ত গ্রন্থ দুটির মাধ্যমে মোহাম্মদ মোশ্তাক চৌধুরী ইতিহাস ও সাহিত্যচর্চায় যে প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন তা অব্যাহত থাকুকÑএই আমাদের প্রত্যাশা।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now