শীর্ষ শিরোনাম
Home » স্মরণীয়-বরণীয় » স্মরণে-খতিব উবায়দুল হক (রাহঃ)

স্মরণে-খতিব উবায়দুল হক (রাহঃ)

katib-ubaidulhak-sylhetreportআতিক মোহাম্মদ আবু বকর :  আজ ৬ অক্টোবর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের খতিব মাওলানা উবায়দুল হক (রাহঃ)-র নবম মৃত্যু বার্ষিকী। ২০০৭ সালের এই দিনে তিনি ইন্তেকাল করেন। খতিব মাওলানা উবায়দুল হক একজন নির্ভিক রাহবার ছিলেন। সর্বজন শ্রদ্ধেয় এ আলেমে দ্বীন সিলেট শহর থেকে ৭৪ কিলোমিটার দূরে বারোঠাকুরি গ্রামে ১৯২৮ সালের ২মে শুক্রবার দিনে জন্ম গ্রহণ করেন। দ্বীনোন্নত পরিবারের জন্ম গ্রহণ করে প্রাথমিক শিক্ষা শেষে উচ্চ শিক্ষার জন্য চলে যান উপমহাদেশের বিখ্যাত দ্বীনি বিদ্যাপিঠ দারুল উলুম দেওবন্দে। হাদীস,ফিক্বাহ, তাফসীরসহ জ্ঞানের সর্বশাখায় পাণ্ডিত্য অর্জন ফিরে আসেন স্বদেশে। বড়কাটরা মাদরাসার মুহতামিম হযরত মাওলানা আবদুল ওহাব পীরজি হুযুর (রাহঃ)র আগ্রহ ও দেওবন্দের শিক্ষকবৃন্দের পরামর্শে শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। এখানে তিন বছর শিক্ষকতা করেন। তারপর হযরত মাওলানা হুসাইন আহমদ মাদানী ও মাওলানা এজাজ আলীসহ দেওবন্দের অন্যান্য শিক্ষকদের সাথে দেখা করতে যান। সেখান থেকে তাঁর উস্তাদ এজাজ আলী (রহঃ) পাঠিয়ে দেন উত্তর প্রদেশের শাহজাহানপুরে। কিছুদিন সেখানে শিক্ষকতা করার পর এজাজ আলী সাহেব করাচিতে শিক্ষক হিসেবে পাঠিয়ে দেন। মুফতী শফী (রহঃ) ছিলেন তখন মুহতামিম। সেখান থেকে মুফতী সাহেবের অনুমতিক্রমে ঢাকায় এসে রচনা ও প্রকাশনার কাজে যোগদান করেন। এ সময় ঢাকা মাদরাসায়ে আলীয়া একটি পদ শূন্য থাকায় ১৯৫৪ সালে মাদানী সাহেবের ইজাজত নিয়ে ঢাকা আলীয়া শিক্ষকতা শুরু করেন। ১৯৫৪-১৯৬৪ সাধারণ শিক্ষক, ১৯৬৪-১৯৭১ হাদিস লেকচারার, ১৯৭১-১৯৭৩ তাফসীর বিভাগের সহকারী শিক্ষক, ১৯৭৩-১৯৮০ এ্যাডিশনাল হেড এবং ১৯৮০-১৯৮৫ পর্যন্ত হেড মাওলানার দায়িত্ব নিষ্ঠার সাথে পালন করেন। ১৯৮৫ সালের ২মে অবসর গ্রহণ করেন। হেড থাকাকালীন সময়মই ১৯৮৪ সালে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররামের খতিব নিযুক্ত হোন। আমৃত্যু নির্ভিকচিত্তে খেতাবতী পালন করেন। সকলপ্রকার ভয় সংশয় উপেক্ষা করে দেশ ও জাতির কল্যাণে নীতিকথা বলেছেন সিংহের মতো।

১৯৮৫ থেকে বেশকয়েক বৎসর ফরিদাবাদ এমদাদুল উলূমে,১৯৮৬-‘৮৭ সালে পটিয়া মাদরাসায় এবং ১৯৮৭ সাল থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সিলেটের কাসিমুল উলূম দরগাহ মাদরাসায় শায়খুল হাদীসের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও অসংখ্যা মাদরাসার শায়খুল হাদীস মুহতামিম ইত্যাদি পদে নিযুক্ত ছিলেন।
তিনি অনেক গ্রন্থ লিপিবদ্ধ করেন। তন্মধ্যে তারিখে ইসলাম(২খণ্ডে), সীরাতে মোস্তফা, তাহসীলুল কাফিয়া উল্লেখযোগ্য। ইসলাম দেশ ও জাতির জন্য আত্মত্যাগী এমন আলেম থেকে দেশবাসী আজ নিরাশ।
২০০৭ সালে ইরানের আলেম বাংলাদেশে সফররত আয়াতুল্লাহ শাহরূখির সম্মানে দাওয়াত ছিলো। অনুষ্ঠানের শেষ দিকে বুকে একটু ব্যথা অনুভব করলে ল্যাভ এইড হাসপাতালে নেয়ার পথে ৬ অক্টোবর দেশবাসীকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে পরম বন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাত করেন। ইন্নালিল্লাহি ও ইন্না ইলাইহি রাজিউন। আল্লাহ তায়ালা দ্বীনের এ মহান খাদিমকে জান্নাতের সূ-উচ্চ আসনে সমাসীন করুন।
লেখক: স্টাফরিপোর্টার-সিলেট রিপোর্ট ডটকম।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now