শীর্ষ শিরোনাম
Home » নারী ও শিশু » থামছেনা- খাদিজার মায়ের আহাজারী, দেশে ফিরেছেন বাবা-ভাই

থামছেনা- খাদিজার মায়ের আহাজারী, দেশে ফিরেছেন বাবা-ভাই

img_20161006_143339বিশেষ প্রতিনিধি : সিলেট সদর উপজেলার মোগলগাঁও ইউনিয়ন। এই ইউনিয়নের একটি গ্রাম হাউসা পূর্ব পাড়া গ্রামে মাসুক মিয়ার বাড়ি। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় লোকজনের ভিড়। ঘরের ভেতর থেকে আসছিল কান্নার শব্দ। খাদিজা বেগম নার্গিসের মা মনোয়ারা বেগম বিলাপ করে কাঁদছেন। তাকে সান্ত্বনা দিচ্ছে এলাকার বৃদ্ধ, মধ্যবয়সী ও ছোট ছেলেমেয়েরা। তবু তার কাঁন্না যেন শেষ হচ্ছেনা, হাউমাউ করে আরও জোরে কেঁদে ওঠেন তিনি। বিলাপ করতে করতে বলেন, ‘আমি দুধ-কলা খাইয়ে কালসাপ পুষেছিলাম। যাকে নিজের ছেলের মতো আশ্রয় দিয়েছি, সে এ কাজ করল? সে আমার মেয়েকে নির্মমভাবে কুপালো। সন্তানদের খাওয়ার আগে তাকে খাইয়েছি। সে কিকরে এমন নিমক হারামী করলো।
খাদিজার মা জানান, কলেজে যাওয়ার আগে মেয়েকে খাওয়ার কথা বলেছিলেন। প্রত্যুত্তরে নার্গিস মাকে বলেন, ‘আম্মা আমি আইয়া খাইমু।’ মনোয়ারা বেগমের পাশে বসা খাদিজার চাচাত বোন নাদিয়া ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছিলেন। নাদিয়া জানান, সারাদিন তারা দু’জন মিলে দুষ্টুমি করতেন। দু’বোন মিলে পুরো বাড়ি মাতিয়ে রাখতেন। গত সোমবার থেকে তাদের বাড়িতে বইছে পিনপতন নীরবতা। সিলেট সেন্ট্রাল কলেজের শিক্ষার্থী নার্গিসের ছোট ভাই সালেহ আহমদ জানান, প্রায় ৭ বছর আগে তাকে এবং তার ছোট ভাইবোনদের বাড়িতে লজিং থেকে পড়াতেন বদরুল। বছর তিনেক আগে জাঙ্গাইল কলেজে তার বোনের সঙ্গে অশোভন আচরণ করায় এলাকার লোকজন বদরুলকে মারধর করে। এর পরও তার বোনের পিছু ছাড়েনি বদরুল। তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান সালেহ। আবদুল আহাদ, গিলমান আহমদ, সালমান আহমদ, জিয়াউর রহমান, আনোয়ার হোসেন, আবুল হাসনাতসহ নাম না জানা অনেক _ তাদের প্রত্যেকের বয়স ১৫ থেকে ১৭ বছরের মধ্যে। তাদের কেউ বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে আছে, কেউবা ঘরের ভেতর ঢুকে নার্গিসের মাকে সান্ত্বনা দিচ্ছে। তাদের কয়েকজন জানায়, লজিং মাস্টার বদরুলকে তারা চেনে। তবে ওই মাস্টার এমন কাজ করবে তা তারা ভাবতেই পারছে না। তারা বদরুলের ফাঁসির দাবি জানায়।
ওই গ্রামের কয়েকজন বাসিন্দা জানান, শিক্ষা-দীক্ষায় এ গ্রাম অনেকটা পিছিয়ে। কিন্তু নার্গিসদের পরিবারের লোকজন সবাই শিক্ষিত। প্রবাসে থাকা মাসুক মিয়া অনেক কষ্ট করে জীবনের সব সঞ্চয় দিয়ে সন্তানদের পড়ালেখা চালিয়ে নিচ্ছেন। তার তিন ছেলে ও এক মেয়ে। বড় ছেলে শাহিন আহমদ চীনে লেখাপড়া করছেন। নার্গিস কলেজে পড়েন। এমন পরিবারের মেয়ের ওপর হামলার ঘটনায় ক্ষুব্ধ এলাকার লোকজন। মোগলগাঁও ইউপির সদস্য তাজিজুল ইসলাম জয়নাল জানান, এলাকার সবচেয়ে ভালো পরিবার মাসুক মিয়ার পরিবার। এ পরিবারের অধিকাংশ সদস্য শিক্ষিত। আর নার্গিসের মতো একটি মেয়ে আমাদের এলাকায় পাওয়া খুব দুষ্কর। এমন মেয়েকে যে কুপিয়েছে তার শাস্তি দিতে হবে।
দেশে ফিরেছেন বাবা-ভাই

এদিকে, ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলমের চাপাতির কোপে মৃত্যুপথযাত্রী একমাত্র মেয়েকে দেখতে সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরেছেন খাদিজার বাবা মাসুক মিয়া।

বৃহস্পতিবার সকাল ৬টার দিকে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নেমেই সরাসরি হাসপাতালে চলে আসেন তিনি। বর্তমানে তিনি মেয়ের পাশেই আছেন। তকে মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত থাকায় তার বাবার সাথে কোন কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এদিকে, বোনকে দেখতে চীনে মেডিকেল সায়েন্সে অধ্যয়নরত খাদিজার বড় ভাই শাহীন আহমদও দেশে ফিরেছেন। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে তিনি শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান। সেখান থেকে সরাসরি হাসপাতালের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়েছেন শাহীন।

খাদিজার চাচা আব্দুল কুদ্দুস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গত সোমবার বিকেলে এমসি কলেজ ক্যাম্পাসে সরকারি মহিলা কলেজের ডিগ্রী ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী নার্গিস বেগম খাদিজার (২৩) উপর হামলা চালায় শাহাজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের শেষবর্ষের ছাত্র ও শাবি ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক বদরুল ইসলাম। এসময় চাপাতি দিয়ে উপর্যুপুরি কুপিয়ে খাদিজাকে গুরুতর আহত করেন।

পরে হামলাকারী ছাত্রলীগ নেতা বদরুলকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেন স্থানীয় জনতা। এ ঘটনায় বদরুলকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ওই মামলায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার পর বুধবার তাকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাকে সাময়িকভাবে বহিস্কার করেছে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now