শীর্ষ শিরোনাম
Home » প্রবাস » ’ঐক্যের প্রতীক’ খতীব উবায়দুল হক আজ তোমাকে বড়ই প্রয়োজন !

’ঐক্যের প্রতীক’ খতীব উবায়দুল হক আজ তোমাকে বড়ই প্রয়োজন !

katib-ubai-sylhetreportমুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী : জাতির ক্রান্তিকালে দেখিয়েছেন পথের দিশা। তিনি ছিলেন স্পষ্টবাদী। সাচ্ছা দিল মুমিন বান্দা। জাতীয়, সামাজিক, ধর্মীয় ইস্যুতেও তিনি ছিলেন সোচ্চার। এজন্য অনেক সময় শাসক গোষ্ঠীর হয়রানিরও শিকার হয়েছিলেন তিনি। ২০০১ সালের শেষ দিকে জাতীয় ঈদগাহে খুৎবাকে কেন্দ্র করে তাকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করা হয়। অপপ্রচার চালিয়ে ও তাঁর প্রতিবাদী কন্ঠকে স্থদ্ধ করা যায়নি। অকুতোভয় নির্ভীক এই সৈনিক স্পষ্ট ভাষায় ঘোষণা করেছিলেন-খুৎবার ওপর ক্ষমতার ছড়ি ঘুরানো চলবেনা। তিনি সেদিন বলেছিলেন-রাষ্ট্রীয় কুটনৈতিক পলিসি যাইহোক, যতদিন মুসলিম বিশ্বে অত্যাচার, অবিচার চালানো হবে আমি তার বিরুদ্ধে বলবোই। তার সাথে সরকারী নীতির সম্পর্ক নেই। নতুবা ঠিক করে দিক খতীব ইমামগণ কি ৭’শ বছর আগের ইবনে বতুতার আমলের গৎ বাধা খুৎবা পাঠ করবেন না কি বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে দিক নির্দেশনামূলক খুৎবা পাঠ করবেন।’
১৯৯৭/৯৮ সালে খতীব এর পদ থেকে তাকে সরানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। কিন্তু সাড়া দেশের আলেম-উলামাদের তীব্র প্রতিবাদের মুখে সরকার ঐ সিদ্ধান্ত পরিবর্তনে বাধ্য হয়। বয়সের অজুহাত দেখিয়ে তাঁকে অব্যাহতি দেয়ার জন্য ২০০১ সালে ২২ এপ্রিল তাকে ৭৩ বছর বয়স হওয়ার কারণে খতীব পদ থেকে অব্যাহতি দেয়ার চিঠি দেয়া হয়। পরে হাইকোর্ট এ সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করেন। বিচারপতি এম,এ, আজিজ ও বিচারপতি শামসুল হুদার সমন্বয়ে গঠিত ডিভিশন ব্যাঞ্চ এ রায় দেন।
জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের মরহুম খতীব মাওলানা উবায়দুল হক ছিলেন বিনয়ী ও উদার চিত্তের অধিকারী। অপর দিকে অন্যায়ের বিরুদ্ধে ছিলেন বলিষ্ট এক প্রতিবাদী কন্ঠ। একজন সাদা মনের মানুষ । তাঁর তুলনা তিনি নিজেই। তাঁর মধ্যে কোন কুটিলতা ছিল না। সৎ সাহসী জিন্দাদীল মর্দে মুজাহিদের ভূমিকা পালন করে গেছেন। তিনি সত্য কথা স্পষ্ট ভাবে উচ্চারণ করতে কখনো ভীতু ছিলেন না। ইসলাম বিরোধী চক্রান্তের মুখোশ উন্মোচন করে মুসলিম জনসাধারণের মধ্যে ইসলামী দর্শন বাস্তবায়নে সর্বদা সচেষ্ট ছিলেন খতিব মাওলানা উবায়দুল হক। বক্তব্য বিবৃতি, লিখনীর মাধ্যমে তিনি সমকালীন সকল প্রকার অপশক্তির দাঁতভাঙ্গা জবাব দিয়েছেন। পাপাত্মা জালিমের সম্মুখে হক কথা বলিষ্ঠ কন্ঠে উচ্চারণ করাই যেন ছিল তার স্বভাব। জাতীয় একটি দৈনিকের জনৈক সাংবাদিক প্রশ্ন করেছিলেন, হুজুর অভিযোগ আছে জুমার খুৎবায় আপনি সরকার বিরোধী বক্তব্য রাখেন, উত্তরে খতীব বলেছিলেন, কোন দিন সরকার বিরোধী বক্তব্য দেইনি। তবে শরীয়তের মাসয়ালা নিয়ে কথা বলেছি। তা যদি কারো বিরুদ্ধে যায় তাহলে আমার কি করার আছে? যেমন শেখ মুজিবের ছবির প্রতি সম্মান প্রদর্শনের বিষয়ে শরীয়তের মাসয়ালা অনুযায়ী বলেছি। এটা ইসলাম পরিপন্থী।
বাংলাদেশে ইসলামী শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার জন্য মরহুম খতীব সাহেবের আন্তরিক প্রচেষ্টার কমতি ছিল না। তিনি সকল ইসলামী দলের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনে বিশ্বাসী ছিলেন। বিভিন্ন দলে গ্র“পে বিভক্ত আলেম সমাজকে একই প্লাটফরমে নিয়ে আসতে তিনি অনেক চেষ্টা করেছেন। দেওবন্দী-কওমী সিলসিলার সকলকে রাজনৈতিক ভাবে একত্রিত করতে ইসলামী নেতাদের সাথে অনেকবার বসেছেন। ইসলামী ঐক্যজোটকে ভাঙ্গনের কবল থেকে মুক্ত করতে তিনি যে অবদান রেখেছিলেন তা ইতিহাসে চিরদিন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি জাতীয় মসজিদের খতীব হওয়া সত্ত্বেও বিভিন্ন সময়ে জাতীয় কল্যাণে দাওয়াত দিতে ছুটে গেছেন রাজনৈতিক নেতাদের দুয়ারে। তিনি আদর্শের দিক দিয়ে মনে প্রাণে দেওবন্দী সিলসিলার হলেও সকল শ্রেণীর আস্তাভাজন ছিলেন।
তিনি ৭৯ বছরের জীবনে রেখে গেছেন এক বিশাল কর্মময় জীবনের সোনালী ইতিহাস। সত্যের সংগ্রামে তিনি বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন। আজ এসব কিছুই শুধু স্মৃতি আর স্মৃতি। আজকের সময়ে মরহুম খতীবের বড়ই প্রয়োজন ছিলো।
রাষ্ট্রদ্রোহীতার মামলা !
১৯৯৪ সালের আগষ্ট মাসে জনৈক আব্দুল্লাহ হিল কাইয়ূম বাদী হয়ে ঢাকার সিএমএম আদালতে একটি নালিশী মামলা দায়ের করেন। তার অভিযোগ ছিল ১৯৯৪ সালের ২৯ জুলাই মানিকমিয়া এভিনিউ-এ অনুষ্ঠিত সম্মিলিত সংগ্রাম পরিষদের মহাসমাবেশে মাওলানা উবায়দুল হক তার বক্তব্যে নাকি বলেন, “পাশ্চাত্য শিক্ষায় শিক্ষিত একদল লোক গাদ্দারী করে পাকিস্তান ভেঙ্গেছিল। এখন আবার তারা গাদ্দারী শুরু করেছে দেশকে ভারতের হাতে তুলে দেয়ার জন্য”। এ বক্তব্যে দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বের প্রতি কটাক্ষ করা হয়েছে। গত ৬ মার্চ ১৯৯৭ইং উভয়পক্ষের অভিযোগ শুনানি শেষে ঢাকার প্রথম শ্রেণীর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মোঃ আব্দুল মজিদ এ অব্যাহতির আদেশ প্রদান করেন। আদালতে মাওলানা উবায়দুল হকের পক্ষ থেকে তাকে অব্যাহতি প্রদানের আবেদন জানানো হয়। এ আবেদন শুনানিকালে তার আইনজীবী আব্দুর রেজ্জাক খান বলেন মহা সমাবেশের ভাষণটি কতিপয় পত্রিকায় বিকৃত করে ছাপা হয়েছে। পরবর্তীতে মাওলানা উবায়দুল হক নিজে এবং কিছু সংগঠন মামলা দায়েরের পূর্বেই বিবৃতি দিয়েছেন যা জাতীয় দৈনিক পত্রিকাগুলোতে প্রকাশিত হয়।  শুনানিকালে আদালতে উপস্থিত ছিলেন, সম্মিলিত সংগ্রাম পরিষদের অন্যতম নেতা, বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান, সাবেক পিপি এডভোকেট নুরুল ইসলাম খানসহ বিপুল সংখ্যক আইনজীবী এবং ইসলামী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
এদিকে, ২০০১ সালের প্রথম দিন (১লা জানুয়ারী) সোমবার বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগ এক রায়ে সব ধরণের ফতোয়াকে অবৈধ ঘোষণা করে।
বিচারপতি মোহাম্মদ গোলাম রব্বানী ও বিচারপতি নাজমুল আরা সুলতানার সমন্বয়ে গঠিত সুপ্রীম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের ডিভিশন শীতকালীন ছুটির মধ্যেও বিশেষ ব্যবস্থায় এই রায় প্রদান করে। হাইকোর্টের বিভাগ প্রদত্ত রায়ে আলেম-উলামা সহ দেশের আপামর জনতার মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে ফতোয়া সম্পর্কিত হাইকোর্টের এই রায় ঘোষণার পর প্রচন্ড ক্ষুদ্ধ ধর্মপ্রাণ মুসলমানগণের মধ্যে তখন চরম উত্তেজনা বিরাজ করে। সাধারণ মুসল্লিদের অনেকেই গত ৫ জানুয়ারী ২০০১ ইং শুক্রবার জুমার নামায পড়তে বায়তুল মোকাররমে জড়ো হয়েছিলেন। উদ্দেশ্য ছিল সুপ্রীম কোর্টের রায়ের সূত্র ধরে জাতীয় মসজিদের খতিব মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে কি বলেন। কিন্তু সেদিনের জুমার নামায খতিব উবায়দুল হক পড়াননি। পরবর্তী জুমায় অর্থাৎ ১২ জানুয়ারী  জুমার খুৎবায় বায়তুল মোকাররমের খতিব অকুতোভয় মর্দে মুমিন মাওলানা উবায়দুল হক প্রায় ১ ঘন্টা সমবেত মুসল্লিদের উপস্থিতিতে হাইকোর্টের সাম্প্রতিক ফতোয়া বিরোধী রায় প্রসঙ্গে ইসলাম ধর্মে ফতোয়ার গুরুত্ব মুসলিম পারিবারিক আইন ইত্যাদি বিষয়ে বক্তব্য দেন। জাতীয় মসজিদের মিম্বরে বসে তিনি সেদিন বলেছিলেন ফতোয়া অবৈধ ঘোষণা করা মানে ইসলামের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা। কারণ, ফতোয়া মানে ইসলাম সম্পর্কে নির্দেশনা দেয়া। আল্লাহ পবিত্র কোরআনের মাধ্যমেই ফতোয়া প্রদানের অধিকার দিয়েছেন। যতো দিন ইসলাম থাকবে; ততোদিন ফতোয়া থাকবে। ফতোয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা ঘোষণা করার অধিকার কারো নেই। খতীবের ভাষায়, আল্লাহর ওপর ফতোয়া দেয়া চলে না। তিনি বলেন হাইকোর্টের যে দু’বিচারপতি ফতোয়া অবৈধ ঘোষণা করে রায় দিয়েছে, তারা কোরআন হাদীস সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান রাখে না। তাই তারা এই গর্হিত, নিকৃষ্ট ভয়ঙ্কর রায় দিতে পেরেছে। যারা ইসলামী বিধিবিধান সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান রাখে না, তারা তার গুরুত্বও বুঝতে পারে না। কোরআন শরীফের বাংলা অনুবাদ পড়ে তার মর্ম বুঝা যায় না। এর জন্য গভীর ধ্যান তপস্যা প্রয়োজন। খতীব উবায়দুল হক দু’বিচারপতিকে নিজেদের ঘোষণাকৃত রায় পুনর্বিবেচনা করে তা প্রত্যাহার করে তওবা করার জন্য অনুরোধ করেন।

বেফাক সম্মেলনে খতীব:
১৯৭৮ সালে জমিয়তের সম্মেলনে মাওলানা রিজাউল করিম ইসলামাবাদী (রঃ) কে আহবায়ক করে বেফাক প্রতিষ্ঠা লাভ করে। ২৩, ২৪ ও ২৫ শে এপ্রিল ঢাকা লাল বাগের শায়েস্তাখান হলে ‘মাদ্রাসা শিক্ষার অতীত বর্তমান ও ভবিষ্যত’ শীর্ষক এক ঐতিহাসিক জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। তিনদিন ব্যাপী উক্ত সম্মেলনে উদ্বোধনী বক্তব্য পেশ করেন মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান। এবং খুৎবায়ে ইস্তেক বালিয়া পেশ করেন সম্মেলনের আহ্বায়ক মাওলানা রিজাউল করিম ইসলামাবাদী। তিনদিন ব্যাপী ঐতিহাসিক এ সম্মেলনে বিভিন্ন অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন আলহাজ্ব মাওলানা মুহাম্মদ ইউনুস (র.)। শায়খুল মাশাইখ আল্লামা আব্দুল করিম শায়খে কৌড়িয়া (র.) খতীবে আজম মাওলানা ছিদ্দিক আহমদ (র.), মাওলানা উবায়দুল হক জালালাবাদী (র.) এবং মাওলানা আজিজুল হক (র.), মাওলানা উবায়দুল হক (র.) সেদিন বেফাকের প্রতিষ্ঠার এবং প্রেক্ষাপট নিয়ে ঐতিহাসিক বক্তব্য রেখেছিলেন।

সংক্ষিপ্ত বৃত্তান্ত: সিলৈট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলাধীন বারোঠাকুরি গ্রামে ১৯২৮ সালের ২ মে শুক্রবার দিনে জন্ম গ্রহণ করেন। দ্বীনোন্নত পরিবারের জন্ম গ্রহণ করে প্রাথমিক শিক্ষা শেষে উচ্চ শিক্ষার জন্য চলে যান উপমহাদেশের বিখ্যাত দ্বীনি বিদ্যাপিঠ দারুল উলুম দেওবন্দে। হাদীস,ফিক্বাহ, তাফসীরসহ জ্ঞানের সর্বশাখায় পাণ্ডিত্য অর্জন ফিরে আসেন স্বদেশে। বড়কাটরা মাদরাসার মুহতামিম হযরত মাওলানা আবদুল ওহাব পীরজি হুযুর (রাহঃ)র আগ্রহ ও দেওবন্দের শিক্ষকবৃন্দের পরামর্শে শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। এখানে তিন বছর শিক্ষকতা করেন। তারপর হযরত মাওলানা হুসাইন আহমদ মাদানী ও মাওলানা এজাজ আলীসহ দেওবন্দের অন্যান্য শিক্ষকদের সাথে দেখা করতে যান। সেখান থেকে তাঁর উস্তাদ এজাজ আলী (রহঃ) পাঠিয়ে দেন উত্তর প্রদেশের শাহজাহানপুরে। কিছুদিন সেখানে শিক্ষকতা করার পর এজাজ আলী সাহেব করাচিতে শিক্ষক হিসেবে পাঠিয়ে দেন। মুফতী শফী (রহঃ) ছিলেন তখন মুহতামিম। সেখান থেকে মুফতী সাহেবের অনুমতিক্রমে ঢাকায় এসে রচনা ও প্রকাশনার কাজে যোগদান করেন। এ সময় ঢাকা মাদরাসায়ে আলীয়া একটি পদ শূন্য থাকায় ১৯৫৪ সালে মাদানী সাহেবের ইজাজত নিয়ে ঢাকা আলীয়া শিক্ষকতা শুরু করেন। ১৯৫৪-১৯৬৪ সাধারণ শিক্ষক, ১৯৬৪-১৯৭১ হাদিস লেকচারার, ১৯৭১-১৯৭৩ তাফসীর বিভাগের সহকারী শিক্ষক, ১৯৭৩-১৯৮০ এ্যাডিশনাল হেড এবং ১৯৮০-১৯৮৫ পর্যন্ত হেড মাওলানার দায়িত্ব নিষ্ঠার সাথে পালন করেন। ১৯৮৫ সালের ২মে অবসর গ্রহণ করেন। হেড থাকাকালীন সময়মই ১৯৮৪ সালে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররামের খতীব নিযুক্ত হোন। আমৃত্যু নির্ভিকচিত্তে খেতাবতী পালন করেন।
১৯৮৫ থেকে বেশকয়েক বৎসর ফরিদাবাদ এমদাদুল উলূমে,১৯৮৬-‘৮৭ সালে পটিয়া মাদরাসায় এবং ১৯৮৭ সাল থেকে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সিলেটের কাসিমুল উলূম দরগাহ মাদরাসায় শায়খুল হাদীসের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও অসংখ্যা মাদরাসার শায়খুল হাদীস মুহতামিম ইত্যাদি পদে নিযুক্ত ছিলেন। তিনি অনেক গ্রন্থ লিপিবদ্ধ করেন। তন্মধ্যে তারিখে ইসলাম(২খণ্ডে), সীরাতে মোস্তফা, তাহসীলুল কাফিয়া উল্লেখযোগ্য।  ২০০৭ সালের ৬ অক্টোবর জাতির এই দরদী অভিভাবক ইন্তেকাল করেন। এসম্পর্কে ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান লিখেন :….. জনৈক ভক্তের দাওয়াত রক্ষা করতে গেছেন । কিন্তু সেখান থেকেই তাকেঁ হাসপাতালে নিয়ে যেতে হয়েছে একটি প্রাইভেট হাসপাতালে । অত:পর রাত এগারটার মধ্যে সব শেষ!”

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now