শীর্ষ শিরোনাম
Home » বিজ্ঞান-প্রযুক্তি » কওমী স্বীকৃতি প্রসঙ্গে মাওলানা মামুনুল হক ও হাসান জামিল যা বললেন

কওমী স্বীকৃতি প্রসঙ্গে মাওলানা মামুনুল হক ও হাসান জামিল যা বললেন

mamunolhak-hasanjamil-sylhetreport
সিলেট রিপোর্ট: কওমী সনদের স্বীকৃতি নিযে অনলাইনে আলোচনার ঝড়বইছে। অনেকেই মতমত দিচ্ছেন-পক্ষে -বিপক্ষে। সম্প্রতি আল্লামা শাহ আহমদ শফী,বেফাক এবং মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসউদকে নিযে ও চলছে নানা কথাবার্তা। এবিষয়ে মাওলানা মামুনুল হক এবং মাওলানা হাসান জামিল ফেসবুকে তাদের মতামত ব্যক্ত করেছেন। তাদের ফেসবুক মন্তব্য গুলো সিলেট রিপোর্ট এর পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো:

শুভংকরের ফাঁক
যেন না থাকে !!
মুহাম্মাদ মামুনুল হক
————————-

আগে একটি গল্প বলি-
এক পাল মেষ থাকে একটি সংরক্ষিত দূর্গে ৷ দূর্গের ফটক বন্ধ ৷ বাইরে থেকে কড়া নাড়ল কেউ ৷ মেষগুলো ভেতর থেকে জানতে চাইল, কে?
জবাব এল, আমি নেকড়ে!
কী চান?
ভেতরে ঢুকব!
নেকড়ে ঢুকবে বলে মেষগুলো আতংকিত হয়ে পড়ল ৷ বাইরে থেকে নেকড়ে তাদেরকে আশ্বস্ত করল, দরজা খোলো ৷ আমি তোমাদের কোনো ক্ষতি করব না ৷ বিশ্বাস না হলে তোমরা শর্ত দাও ৷ মেষগুলো শর্ত দিল- আমাদের উপর হামলা করবেন না ৷ আমাদের স্বাধীনতা হরণ করবেন না ৷
নেকড়ে বলল, সব শর্ত মঞ্জুর!
মেষগুলো দ্বিধা-বিভক্ত হয়ে গেল ৷ কেউ বলে শর্ত যেহেতু মঞ্জুর হয়েছে তাহলে দরজা খুলতে সমস্যা কোথায় ৷ আরেক দল বলল, নেকড়ে আমাদের জন্য যত কল্যাণ করতে চায় বাইরে থেকে করুক ৷ ভেতরে আসার কী দরকার ৷ দন্দ্ব-বিরোধে জয়ী হল প্রথম পক্ষ ৷ দরজা দিল খুলে ৷
অতপর …………………………

মুহতারাম,
কওমী আমাদের দূর্গ ৷ এই দূর্গের ভেতর আমরা যতই মতপার্থক্য করি আমাদের অস্তিত্ব ধংস হবে না ৷ কিন্তু মাদরাসার ভেতরে যদি সরকারকে ঢুকতে দেয়া হয় তা হবে আত্মঘাতি ৷ আমাদের পক্ষ থেকে অনেক শর্তের কথা বলা হচ্ছে ঠিক ৷ কিন্তু দরজা বন্ধ রাখার শর্ত কই?
সুতরাং স্বীকৃতি হবে ৷ আল্লামা আহমদ শফী বা আল্লামা ফরিদ মসউদ যে কেউ চেযারম্যান/মেম্বার হোন তাতে আপত্তি নেই ৷ কিন্তু কোনো সরকার যেন ঢুকতে না পারে দেড়শ বছরের দূর্ভেদ্য এই দূর্গে সেই দেয়াল আগে দিন ৷ নইলে নির্ঘাত আত্মঘাতি হবে ৷ নেকড়ে যতটা ক্ষতিকর মেষপালের জন্য,আল্লাহর কসম সরকারের হাতে নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষমতা কওমীর জন্য তার চেয়ে হাজারগুণ ক্ষতিকর !!

দারুল উলুম দেওবন্দের স্বীকৃতি আছে, কিন্তু দেওবন্দের মুহতামিম কে হবে সেটা ঠিক করে মজলিসে শূরা ৷ পাকিস্তান বেফাকের স্বীকৃতি আছে তবে বেফাকের চেয়ারম্যান মহাসচিব ঠিক করে মজলিসে শূরা ৷ আর আমরা হলাম অপদার্থের দল, আমাদের চেয়ারম্যান আল্লামা আহমদ শফী, বলে দিল সরকার ৷ কো-চেয়ার ম্যান, ফরিদ মসউদ সাহেব, বলে দিল সরকার ৷ মহা সচিব, রূহুল আমীন সাহেব, বলে দিল সরকার ৷ আহ্বায়ক কে হবে? বলে দিল সরকার ৷ সদস্য সচিব কে হবে? বলে দিল সরকার ৷ এই দরজা খুলে দিলে হাজার শর্ত দিয়েও অস্তিত্ব রক্ষা হবে না ৷
তাই আসুন, আওয়াজ তুলি লাখো কণ্ঠে “কওমীর চেয়ারম্যান, মহাসচিব, কমিটি নির্বাচনের ক্ষমতা থাকবে কওমীর হাতে -এই শর্ত দিয়ে যে স্বীকৃতি এনে দিবে আমরা কওমী জনতা থাকব তার সাথে ৷ কী বলেন ভাই!! মতামত দিন নিম্নোক্ত জরিপে-

“যারা মনে করেন কওমীর নেতৃত্ব নির্বচনের দায়িত্ব কওমীর হাতে না থেকে সরকারের হাতে থাকলে ( উসূলে হাশতেগানার আলোকে) স্বকীয়তা রক্ষা পাবে না তারা আমার সাথে সহমত পোষন করুন ৷ আর যারা মনে করেন সরকারের হাতে থাকলেও স্বকীয়তা রক্ষা পাবে তারা দ্বিমত পোষন করুন ৷
সহমত পোষনের জন্য ১ লিখুন আর দ্বিমত পোষনের জন্য ৪ লিখুন”

বিঃদ্রঃ
দয়া করা কেউ অন্য কোনো কমেন্ট করবেন না বা একাধিকবার মত দিবেন না ৷
যারা ইতিপূর্বে মতামত দিয়েছেন তারা আর মত দিবেন না ৷ শেয়ার করুন ৷

আরজ গুজার
মুহাম্মাদ মামুনুল হক
জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া ।

প্লিজ বটবৃক্ষটি কাটবেন না!

Hasan Muhammad Zamil

বিবেকের দাবী এ বিষয়ে চুপ থাকি, কিন্তু অস্থির মনকে সামলাতে পারছি না!
বিষয় সেই পুরনোই; স্বীকৃতি-বেফাক!
আমরা কতো বিভক্ত হতে পারি তা আবারো প্রমাণ করলাম!
ঐক্যের মঞ্চ আমাদের জন্যে নয়, বিরুধিতাই আমাদের স্বভাব!
তারপরও একটা জায়গায় জড়ো হতাম প্রায় সবাই; যেনো এটাই আমাদের ঐক্যের প্রতিক! দুর্যোগে-দুর্দিনে, আন্দোলনে-সংগ্রামে একমাত্র জায়গা, যাঁর আহবানে যাঁর নির্দেশে ঝাপিয়ে পড়তাম আমরা সবাই; আলেম-তালাবা, শ্রমিক-মজদুর, ইমাম-খতীব……….
সব, সব শ্রেণির তাওহিদী জনতা!
তিনি আর কেউ নন, যমানার মাদানী,বীর সংগ্রামী,আস্থার বটবৃক্ষ,
মুজাহিদে মিল্লাত, শাইখুল ইসলাম আল্লামা আহমদ শফী হাফি.!
সব দুর্দিনে যিনি কাণ্ডারির ভূমিকায়, ক্বওমীর স্বীকৃতি বিষয়ের এহেন নাজুক পরিস্থিতিতে তিনিই হবেন অগ্রসৈনিক, এটাই তো স্বাভাবিক।
তিনি এসেছেনও এগিয়ে, কিন্তু একি দেখলাম?! তাঁর ডাকে সেই আগের মতো পঙ্গপালের ন্যায় ঝাপিয়ে পড়ার দৃশ্য নেই! নানা অজুহাতে এড়িয়ে গেছেন অনেকেই!
সে দৃশ্যেই আহত হয়েছি, কিছু লিখতে বাধ্য হয়েছি!

পোস্টমর্টেম নয়, কাউকে উলঙ্গ করাও নয়, কিছু বাস্তবতার চিত্রায়ন করতে চাই!
বড়দের বিষয়ে আমি সবসময়ই সতর্ক। আমার কোনো ইঙ্গিতবহ কথা অন্যের আক্রমণের সুযোগ করে দেবে; সে সুযোগ আমি দিতে পারি না!
যে অনাকাঙ্ক্ষিত দৃশ্যের কথা বলছিলাম, তার কারণ কি কেউ খতিয়ে দেখেছি?
আমার কাছে এর অন্যতম কারণ মনে হয়েছে বেফাক আর হেফাজতকে গুলিয়ে ফেলা!
প্রোগ্রাম হচ্ছে বেফাকের, পরিচালনায় হেফাজত নেতৃবৃন্দ! সমস্যটা পুুরোপুরি এখানেই সীমাবদ্ধ নয়, হেফাজত নেতৃবৃন্দ থাকলেই বা সমস্যা কি? তারা তো ভিন্ন গ্রহের কেউ নন, আমাদেরই সম্মানিত মুরুব্বিগণ। হেফাজত ক্বওমী আলেমদের আন্দোলন, বেফাকও ক্বওমী প্রতিষ্ঠান, নেতৃত্বে একই মুখ আসতেই পারে!
আসলে সমস্যাটা তা নয়।
সমস্যা হচ্ছে ৫ই মে’র কালোরাতের বিতর্কিত মানুষগুলো!
তাদের পোস্টমর্টেমে আমি যাবো না। তারা দোষী না নির্দোষ সে আলোচনা আমি করবো না, কথা বাড়বে, তিক্ততা হবে-আমি এটাকে চরম ঘৃণা করি! তারা বিতর্কিত, এটাই শেষ কথা; বিতর্ক নির্দোষকে নিয়েও হতে পারে!
অনেকের আপত্তি রাজনৈতিক নেতৃত্ব নিয়ে, বিশেষত জমিয়তকে নিয়ে। তাদের প্রত্যাশা স্বীকৃতি বিষয়ে অরাজনৈতিক ব্যাক্তিত্বরা ভূমিকা রাখুক; আমি এর ঘোর বিরুধী। কারণ রাজনৈতিক সরকারের মারপ্যাঁচ সহজসরল অরাজনৈতিক নেতৃত্বের বোঝা কঠিন হতে পারে, রাজনীতির প্যাঁচ বলে কথা। তাছাড়া সরকার ঘোষিত কমিশন প্রধানও অরাজনৈতিক ব্যাক্তি নন, তিনিও একটি রাজনৈতিক দলের প্রধান!
যোগ্যরা আসবেন, ভূমিকা রাখবেন, তিনি রাজনৈতিক না অরাজনৈতিক সেটা দেখার বিষয় নয়; আসবে না কেবল বিতর্কিতরা!
আমরা জানি হাটহাজারীর হযরত বয়োবৃদ্ধ বুযুর্গ। যৌক্তিক কারণেই নিজ থেকে কোনো সিদ্ধান্ত নেবার মতো শারিরিক সুস্থ্যতা তাঁর নেই। তাহলে সিদ্ধান্ত আসে কোত্থেকে?! এখানেই সকলের আপত্তির জায়গা! কারণ আমি লক্ষ করছি হযরতের আশেপাশে সেই তারাও অবস্থান করে!
এটা কি কোনো ভাষণের জায়গা যে মাঠের বক্তাদের বহুত জরুরত?!
নাকি টিবির পর্দা যে সুন্দর গুছিয়ে প্রতিপক্ষকে কুপোকাত করার লোকের জরুরত!?
এটা রাজনীতির মাঠও নয় যে কুশিলভদের ছাড়া চলা কঠিন!
তাদের ইলমী যোগ্যতা নিয়ে আমি প্রশ্ন করবো না, (আগেই বলেছি- কারো পোস্টমর্টেমে যাবো না) কিন্তু ইলমের ময়দানে অবদান নিয়ে তো প্রশ্ন করতে পারি?!
বেফাকে তাদের অবদান নিয়ে যদি প্রশ্ন রাখি তাহলে সদুত্তর আসবে কি?! তারা বেফাকের কে যে বেফাক চেয়ারম্যান আহুত প্রোগ্রামে বেফাকের খরচে তারা অংশগ্রহণ করবে?!
আমি আবারো বলছি, তারা দোষী বলে এসব বলছি না, তারা বিতর্কিত এবং বেফাকের গুরুত্বপূর্ণ কেউ নন, অথবা একেবারেই সংশ্লিষ্ট কেউ নন!
আমি ছোট মানুষ, আমার ভুল হওয়াটাই স্বাভাবিক। তারপরও একটা সত্য উচ্চারণ করতে চাই; আল্লামা আহমদ শফী হাফি.গোটা দেশের অভিবাবক, তিনি বেফাকের চেয়ারম্যান না হয়ে প্রধান অভিবাবক হলেই বরং ভালো হতো। কারণ তিনি সকলের, অথচ বেফাক বড় অংশের প্রতিনিধিত্ব করলেও সকলের করে না। আজকে বেফাক চেয়ারম্যান হিসেবে ডাকায় সবাই সাড়া দেয় নি, চেয়ারম্যান না হয়ে যদি ডাকতেন তাহলে সাড়া না দেবার কোন কারণ থাকতো?!
আমি বেফাকের নীতিনির্ধারক কেউ নই, যাঁরা আছেন তাঁরা ভাববেন।
ফিরে যাই মূল কথায়; আমি বেফাকের সার্টিফিকেটধারী, তাই কষ্ট বেশি লাগাটাই স্বাভাবিক! এ বোর্ডে যোগ্য লোকের অভাব নেই যে ময়দানের বক্তাদেরকে সামনে রাখতে হবে! বেফাকের উপর আমার পূর্ণ আস্থা আছে, আছে জনাব আব্দুল জব্বার সাহেবের নিষ্ঠার উপরও। অভিযোগ নেই কারো উপর, নেই কোনো সিদ্ধান্তে; কেবল পদক্ষেপ একটু সন্তর্পণে নিলেই হলো।
বেফাক কর্তৃপক্ষের কোনো ভুল পদক্ষেপে আমাদের সকলের আস্থার জায়গাটা যেনো বিতর্কিত না হয়; তাঁকে দেখতে চাই সর্বোচ্চ সম্মানের জায়গায়। তিনি সকলের অভিবাবক। তিনি ডাকবেন, আমরা ঝাপিয়ে পড়বো; আন্দোলনে সংগ্রামে! ইতিহাসের সবচেয়ে ভয়ংকর মুহূর্তে এই বটবৃক্ষটির আমাদের খুব প্রয়োজন;
প্লিজ এ বটবৃক্ষটি কাটবেন না!

বি. দ্র.
বিশিষ্ট পলিটিশিয়ান জনাব আব্দুর রব ইউসুফী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মঈনুদ্দীন রূহী, খতীবে বাঙাল জুনায়েদ আল হাবীব আমাকে ক্ষমা করবেন। ক্বওমীর ক্রান্তিকালে আপনাদের সহযোগিতা একান্ত কাম্য!

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now