শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » স্কুলছাত্রী ধর্ষণ মামলায ২ বখাটের ১০ বছরের কারাদণ্ড

স্কুলছাত্রী ধর্ষণ মামলায ২ বখাটের ১০ বছরের কারাদণ্ড

%e2%80%a1%e2%80%a1%e2%80%a1%e2%80%a1-copy-jpgj
সিলেট রিপোর্ট: সিলেটের কানাঘাটে স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করে ধর্ষণের দায়েরকৃত মামলায় ২ বখাটের ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড এবং প্রত্যেককে ২ লাখ টাকা করে অর্থদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (০৭ অক্টোবর) নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের (সিনিয়র জেলাজজ) বিচারক বিমল চন্দ্র সিকদার এ রায় ঘোষণা করেন।

দÐপ্রাপ্ত আসামিরা হচ্ছে-সিলেটের কানাইঘাট থানার পূর্ব কুত্তরের মাটি গ্রামের মৃত জমিরুল হোসেনের পুত্র মিছবাহ উদ্দিন (৩৫) ও জকিগঞ্জ থানার চারিগ্রামের রইছ আলী পুত্র মখলিছুর রহমান (৪৫)।

গতকাল রায় ঘোষণার সময় দÐপ্রাপ্ত আসামিরা আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলেন। অপর আসামি মিছবাহ উদ্দিনের ভাই আব্দুল ওদুধ ও জইন উদ্দিনকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত।

আদালত সূত্রে জানা যায়- কানাইঘাট থানার পূর্ব কুত্তরের মাটির মৃত তছির আলী কন্যা রীনা বেগম স্থানীয় সড়কের বাজার হাইস্কুলে ৯ম শ্রেণিতে পড়ালেখা করা সময় প্রতিদিন স্কুলে আসার পথে মিছবাহ উদ্দিন তাকে উত্যক্ত করতো। বাধ্য হয়ে একদিন বিষয়টি তার পরিবারকে জানায় রীনা। এক পর্যায়ে তার পরিবার রীনা বেগমের পড়ালেখা বন্ধ করে দেন।

১৯৯৯ সালের ৯ জুন  রাত ৮টার দিকে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিয়ে রীনা বেগম ঘর থেকে বাইরে বের হন। ওইদিন পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা মিছবাহ উদ্দিনসহ তার লোকজন রীনা বেগমকে কাপড় দিয়ে মুখ বেঁধে অপহরণ করে জকিগঞ্জ চারিগ্রামের মখলিছুর রহমানের বাড়িতে নিয়ে যায়।

সেখানে রীনা বেগমকে ৪ দিনে রেখে তারা পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় রীনা বেগম বাদি হয়ে ৪ জনকে আসামি করে সিলেট আদালতে একটি নালিশী দরখাস্ত মামলা নং-২০৭ (১৫.৬.১৯৯৯) দায়ের করেন। আদালত  মামলাটি পর্যালোচনা করে ২০০০ সনের ১০ জানুয়ারি থেকে মিছবাহ উদ্দিন, তার ভাই আব্দুল ওদুধ মখলিছুর রহমান ও জইন উদ্দিনকে অভিযুক্ত করে এ মামলার বিচারকার্য্য শুরু হয়।

দীর্ঘ শুনানী ও ৫ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত আসামি মিছবাহ উদ্দিন ও মখলিছুর রহমানকে নারী ও শিশু নির্যাতন (বিশেষ বিধান) আইন, ১৯৯৫ এর ৯ (গ) ১৪ ধারায় দোষী সাব্যস্ত করে তাদেরকে উল্লেখিত দণ্ডদেশ এবং  আব্দুল ওদুধ ও জইন উদ্দিনকে বেকসুর খালাস প্রদান করেন। রাষ্ট্রপক্ষে বিশেষ পিপি অ্যাডভোকেট মো. আব্দুল মালেক ও আসামীপক্ষে অ্যাডভোকেট মো. হুমায়ুন কবির মামলাটি পরিচালনা করেন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now