শীর্ষ শিরোনাম
Home » মসজিদ-মাদরাসার খবর » আঙ্গুরা মোহাম্মদপুরে মুহিউদ্দীন খান স্মরণে সেমিনার সম্পন্ন

আঙ্গুরা মোহাম্মদপুরে মুহিউদ্দীন খান স্মরণে সেমিনার সম্পন্ন

agura7-10-16আব্দুল্লাহ আল ইমরান চৌধুরী, ক্যাম্পাস প্রতিনিধি-সিলেট রিপোর্ট: বিশ্ব বরেণ্য আলেমে দ্বীন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহসভাপতি মাসিক মদীনার সম্পাদক ফখরে মিল্লাত মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ( রাহ.)  এর জীবন ও কর্ম  শীর্ষক সেমিনার (৭ অক্টোবর )
শুক্রবার বাদ জুম্মা জামিয়া মাদানীয়া আঙ্গুরা মোহাম্মদপুর( বিয়ানীবাজার,সিলেট )এর দ্বারে জদিদের হল রুমে অনুষ্টিত হয় ।  আল হিলাল ছাত্র সংসদের সভাপতি মাওলানা আব্দুল হাফিজ শমশের নগরীর সভাপতিত্বে এবং  মাওলানা যফির উদ্দীন ও মাওলানা ফরহাদ আহমদের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সেমিনারে মুল প্রবন্ধ পাঠ করেন মাওলানা বিলাল আহমদ ইমরান । প্রধান অথিতি ছিলেন  জামেয়ার পরিচালক মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দীন।  প্রধান আলোচকরা ছিলেন দৈনিক ইনকিলাবের সহকারী সম্পাদক, বিশিষ্ট গবেষক মাওলানা ড. উবায়দুর রহমান খাঁন নদভী। অন্যান্যদের মধ্যে আলোচনা পেশ করেন, মাসিক মদীনার বর্তমান সম্পাদক আলহাজ্ব মাওলানা আহমদ বদরুদ্দীন খাঁন, ইসলামী ফাউন্ডেশন সিলেট বিভাগের  সহকারী পরিচালক মাওলানা শাহ নজরুল ইসলাম, ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুফতি নাছির উদ্দীন খান ।
প্রবন্ধের উপর পর্যালোচনা মূলক বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা ফয়যুল হাসান খাদিমানী, মাওলানা সাজিদুর রহমান সাজিদ, মাওলানা আব্দুল আজিজ ফারুকী, বিয়ানীবাজার উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্রান মুফতি শিব্বির আহমদ, মাওলানা আবুল বশর, মাওলানা সাইফুর রহমান, সিলেট রিপোর্ট এর সম্পাদক মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী, মাওলানা সদরুল আমীন, ছাত্র নেতা আব্দুল হামিদ খান প্রমুখ।
এসমিনারে বক্তারা মাওলানা ুহিউদ্দীন খানকে মুসলিম উম্মাহর একজন দরদী অভিভাবক উল্লেখ করে বলেন, তিনি উপমহাদেশের একজন শ্রেষ্ঠ হক্কানি্আলেম ছিলেন। লিখনীর মাধ্যমে তিনি যে অবদান রেখেগেছেন তা যুগযুগ ধরে মানুষ স্মর করবে। পবিত্র তাফসীরে মারিফুল কোরআন এর অনুবাদ তার জীবনের সবচাইতে উত্তম কাজ।
অনুষ্টানে প্রধান আলোচকরা মুহিউদ্দীন খান  ( রা.) এর জীবনের ভিভিন্ন দিক নিয়ে  আলোচনা করেন । মরহুমের সাহেবজাদা আহমদ বদরুদ্দীন খাঁন বলেন,  আমার বাবা বিশেষ করে সিরাতে রাসূল সা. কে বেশি গুরুত্ব দিতেন।  তিনি আরো বলেন , জানিনা লোকেরা আমার বাবাকে কিভাবে মূল্যায়ন করেন। তবে আমি আমার বাবা সম্পর্কে কি বলব !   আমি উনাকে চিনি আমার বাবা বলে। তিনি বলেন আমার বাবাকে যখন সৌদি সরকার বলেছিল যে,  তাফসিরে মারিফুল কুরআন কে তিন মাসের মধ্যে সংক্ষেপ করে দিতে ।  তখন আমার আব্বাজান ( র.) বলেন আমি কি ভাবে এমন মহান কাজ এত কম সময়ে সমাপ্ত করব ।  এরপর যখন তিনি কোরআনের তাফসির কে সংক্ষেপ করার জন্য সৌদি আবরে যান , সেখানে তিনি প্রতিদিন সকাল বিকাল রাসূল  ( সা.)  এর রাওজা জিয়ারত করতেন ।  এবং জিয়ারত শেষ করে  তাফসিরের অনুবাদ কাজ শুরু করেন। মাত্র ২ মাস ১৭ দিনে কোরআনের  তাফসিরে সমাপ্ত করেন। এবং সৌদি সরকার বিনা মূল্যে ৫০ লক্ষ কপি তাফসিরে মারিফুল কোরআন ছাপিয়ে দেন ।  পরিশেষে সভাপতির বক্তব্য ও অনুরুধে উবায়দুর রহমান খান নদভীর দোয়ার মাধ্যমে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now