শীর্ষ শিরোনাম
Home » মসজিদ-মাদরাসার খবর » স্বীকৃতি : সিলেটের ওলামায়ে কেরামও আল্লামা শফী’র যে কোন সিদ্ধান্তে একমত

স্বীকৃতি : সিলেটের ওলামায়ে কেরামও আল্লামা শফী’র যে কোন সিদ্ধান্তে একমত

allamashafi-sylhetreportসিলেট রিপোর্ট: বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ কওমী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক খলিফায়ে মাদানী শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর যে কোন সিদ্ধান্তের সাথে একমত পোষন করে বিবৃতি প্রদান করেছেন বৃহত্তর সিলেট বিভাগের প্রায় তিনশত কওমী মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।  শনিবার মাওলানা রেজওয়ান আহমদ স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, সিলেট বিভাগের তিনশতাধিক মাদরাসার প্রায় পাচঁশত আলেম উলামা ও মাদরাসার শিক্ষাথী স্বীকৃতি প্রশ্নে দেশের র্শীর্ষ আলেম সর্বজন মান্য ব্যক্তিত্ব আল্লামা শাহ আহমদ শফীর সিদ্দান্তের সাথে একমত। তারা বলেন, এদেশের হক্কানী উলামায়ে কেরাম কারো পাতানো ফাদেঁ পা দিবেনা।
বিবৃতিতে স্বাক্ষর কারী মাদরাসার সমুহের মধ্যে অধিকাংশই আজাদ দ্বীনী এদারার শিক্ষক-শিক্ষার্থী বলে জানাগেছে। তাদের মতে, ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষানীতি বহাল করে স্কুল কলেজসহ সাধারণ শিক্ষাব্যবস্থায় ধর্মহীনতা ও নাস্তিক্যবাদি ধ্যানধারণার শিক্ষা কায়েম করার পর কার্যতঃ এখন ইসলামী শিক্ষার প্রাণকেন্দ্র কওমি মাদ্রাসার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। দেখা যাচ্ছে, স্বাভাবিকভাবে কওমি মাদ্রাসায় লেখাপড়া করা শিক্ষিত তরুণ আলেমদের প্রাপ্ত সনদের সরকারী মান থাকার একটা ন্যায্য অধিকারকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে কওমি আলেমদেরকে আদর্শচ্যুত করা, মাদ্রাসাসমূহের স্বাধীন শিক্ষাক্রম পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় নিয়ন্ত্রণ আরোপ এবং নানা বিভ্রান্তিকর প্ররোচণার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানসমূহের আভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা বিনষ্ট ও আলেমদের মধ্যে বিভক্তি আনার নানা তৎপরতা চলছে। আলেম সমাজ ও তৌহিদী জনতাকে যে কোন অপতৎপরতা সম্পর্কে সজাগ থাকতে হবে।
তারা বলেন, কওমী মাদ্রাসা সরকারী অর্থে চলে না। আর্থিক ও নৈতিক সহযোগিতার পাশাপাশি নিজেদের সন্তানদেরকে এসব মাদ্রাসার পড়াশোনা করানোর মাধ্যমে প্রত্যক্ষভাবে জনগণই এসব মাদ্রাসা চালায়। যে কারণে এসব মাদ্রাসার নাম হয়েছে কওমি মাদ্রাসা। আর স্বাধীনভাবে ধর্মীয় শিক্ষা অর্জন করতে পারা, এটা মৌলিক নাগরিক অধিকার। সরকারের দায়িত্ব হচ্ছে, নাগরিক ও মৌলিক অধিকার রক্ষাসহ জনগণকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে সাহায্য করা। অথচ দেখা যাচ্ছে, বাংলাদেশের জনগণকে নানাভাবে বিভক্তিকরণের কাজই চলছে। তারা বলেন, কওমী থেকে দাওরায়ে হাদীস পাস মাওলানা দের যেকোন মসজিদের ইমামতি, কাজী পদে নিয়োগ এবং প্রাইমারী স্কুলে মৌলভী (ধর্মীয়) শিক্ষক পদে নিয়োগের বিষযে সনদের সমমান ঘোষণা দিলেই চলবে। এর চেয়ে বেশী কিছু আদায়ের নামে আমরা স্বকীয়তা হারাতে চায়না!  বিবৃতি দাতারা হলেন, শায়খুল হাদীস মাওলানা আবুল কালাম, মাওলানা রশিদ আহমদ, মুফতি নাছির আহমদ, মাওলানা সালিম আহমদ, মাওলানা আব্দুল মালিক, মাওলানা রশিদ আহমদ মহল্লী প্রমুখ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now