শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » সাংবাদিক নেতার প্রশ্ন- নিরব কেনো স্যার !

সাংবাদিক নেতার প্রশ্ন- নিরব কেনো স্যার !

ikramul_kabir ইকরামুল কবির : শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং ছাত্রলীগ নেতা বদরুল আলম চাপাতি দিয়ে নৃশংসভাবে খাদিজাকে হত্যা করার জন্য কুপিয়েছে। শংকটাপন্ন অবস্থায় খাদিজা না ফেরার দেশের কাছাকাছি চলে গিয়েছিলো। এখনও তার সংকট কাটলেও শঙ্কা কাটেনি।
এ প্রসঙ্গে আমার এক ফেইসবুক বন্ধু জানতে চেয়েছেন, খাদিজা ইস্যুতে দেশ-বিদেশে যখন আন্দোলন আর প্রতিবাদে তোলপাড়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দেশের ১৬ কোটি মানুষ যখন খাদিজা এবং তার পরিবারের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। খাদিজার চিকিৎসার ব্যয়ভার বহনে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় জাতি যখন আশ্বস্ত, তখন নিরব কেনো স্যার ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল।
বন্ধু’র কথা, দেশের সকল স্তরের শিক্ষার্থীদের মডেল ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল। দেশের শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে শিক্ষাব্যবস্থা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পৌঁছে দিতে শিক্ষানীতির অন্যতম প্রণেতার কাজ অত্যন্ত সাহসিকতার সঙ্গে করেছেন তিনি। কোন শিক্ষার্থী হামলার শিকার হলে কিংবা বিপদগ্রস্ত হলে স্যার সবার আগে কলম ধরেছেন। প্রতিবাদ জানিয়েছেন। স্যারের প্রতিবাদি ও দিকনির্দেশনামূলক লেখায় কষ্ট প্রশমিত হয়েছে অনেকের। অন্তরের রক্তক্ষরণ অন্তরেই জমাট বেঁধেছে।
কিন্তু, খাদিজা বেগম নার্গিস ইস্যুতে নিরব কেনো স্যার।
উচ্চতর শিক্ষা গ্রহণের জন্য একটি মেয়ে শহর থেকে ১৫/১৬ কিলোমিটার দূর থেকে এসে ক্লাস করছেন, পরীক্ষা দিচ্ছেন। নারীশিক্ষার উন্নয়নে সরকার যখন নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করছে, তখন স্নাতক পড়ুয়া শিক্ষিত এক নারীকে চাপাতির কোপে স্তব্ধ করে দেওয়া হলো। কেঁপে উঠলো সবার অন্তর। কিন্তু স্যারের অন্তর কাঁপেনি কেনো? এমন প্রশ্ন বন্ধুর।
দুর্বৃত্ত বদরুল আলম শাবিপ্রবি’র শিক্ষার্থী, ছাত্রলীগ শাবি শাখার সহ-সম্পাদক। কিন্তু খাদিজা? সেও শিক্ষার্থী। আপনার প্রিয় শিক্ষার্থী। তার পাশে এসে দাঁড়ালে কিংবা তার জন্য কলম হাতে নিলে কেউ কী মনে কষ্ট পাবে? এমন প্রশ্ন বন্ধুটির।

ফেইসবুক থেকে নেয়া

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now