শীর্ষ শিরোনাম
Home » বিজ্ঞান-প্রযুক্তি » সিম ক্লোন করে হুমকি : ফের আলোচনায় আবদুল হক ও ফায়জুর

সিম ক্লোন করে হুমকি : ফের আলোচনায় আবদুল হক ও ফায়জুর

fayjur-a-hak-sylhetreportসিলেট রিপোর্ট: ফের অভিযুক্ত হলেন হতভাগা যুবক ফায়জুর রাহমান। এবার ড. জাফর ইকবাল দম্পতিকে হত্যার হুমকি’র বিষয়ে  এক সময় কওমী মাদ্রাসায় পড়ুয়া এবং বর্তমানে একটি বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে আইনের ছাত্র ফায়জুর।  স্থানীয় একটি পত্রিকার সাহিত্য বিভাগে কর্মরত-চিন্তায়, কর্মে যথেষ্ঠ মডারেট এই যুবক ইতিপূর্বে  দুই দফায় এক বছর জেল খেটেছেন। জানা যায়, ফায়যুর রাহমানের বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার গাংপার নোয়াকোট গ্রামে। অভিযোগ- তার মোবাইল থেকে বেশ ক’জন বিশিষ্ঠ ব্যক্তিকে হুমকি দেয়া হয়েছে। ফায়জুর আদালতে প্রমাণ করেছেন তিনি এ কাজ করেননি। তার মোবাইল নম্বর ক্লোনিং করে অন্য কেউ করে তাকে ফাঁসিয়েছে। অনুসন্ধান শুরু করে ডিবি পুলিশ। এক পর্যায়ে আসল অপরাধী সাইবার এক্সপার্ট জকিগঞ্জের শাহবাগ মাদরাসার সেই মাষ্টার আব্দুল হককে পাকড়াও করে। আব্দুল হকও স্বীকার করে ব্যাক্তিগত বিরোধের জেরে ফায়জুরকে ফাঁসানোর জন্যই সে বার বার এ কাজ করেছে। আদালতের নির্দেশে ফায়জুরকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়, আসামী করা হয় আব্দুল হককে। গল্প এখানেই শেষ হলে ভালো ছিলো। কিন্তু না, সম্প্রতি আবারো আলোচনায় ফায়জুর। অভিযোগ একই।  অধ্যাপক জাফর ইকবাল দম্পতি ও আনু মোহাম্মদকে হুমকি দেয়া হয়েছে ফায়জুরের মোবাইল নম্বর থেকে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ০১৬২৯৯৬৭৫৫১ মোবাইল ফোন নম্বরটি সেই ফায়যুর রাহমানের ! এব্যাপারে সিলেট রিপোর্টকে ফায়জুর বলেন, অতীতের মতই তাকে ফাঁসানোর জন্য কেউ এটি করেছে।’
ফায়জুরের বক্তব্য :  গতকাল ( ১৪ অক্টোবর) শুক্রবার পত্রিকার একটি সংবাদে হঠাৎ আমার চোখ আটকে যায়। তাতে লেখা হয়েছে খ্যাতিমান অধ্যাপক আনু মুহম্মদ স্যারকে মোবাইল ফোনের খুদে বার্তায় হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। পুরো সংবাদটি পড়ে আতঙ্কে আমার শরীর হিম হয়ে আসে। কারণ অভিযুক্ত নম্বরটির ব্যবহারকারী আমি। তাহলে কি আবারও আমি ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে দুর্ভোগে পড়তে যাচ্ছি! এর আগেও দুই দুইবার আমি এসএমএস সন্ত্রাসের শিকার হয়েছি। বিনা অপরাধে জেল খেটেছি।
মাননীয় অর্থমন্ত্রী ও আইনমন্ত্রী মহোদয়কে হুমকি প্রদানের অভিযোগে আমাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। আদালত আমার কললিস্ট (সিডিআর) পরীক্ষা করে আমার সংশ্লিষ্টতা না দেখে জামিন দিয়েছেন। পরে পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে এসেছে আমি নির্দোষ।
অন্য একজন আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে আমার মোবাইল নাম্বার স্পুফিং (ক্লোন) করে এই জঘন্য কাজ করেছে। সেটি প্রমাণিত হলে আমাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। আর যে আমাকে ফাঁসিয়েছিল, পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে এবং আমাকে মামলার একজন সাক্ষী করা হয়। সেই মামলা যখন মাননীয় সাইবার ট্রাইব্যুনালে বিচারের জন্য উঠতে যাচ্ছে আর আমি সাক্ষী দিতে যাবো, তখনই অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ স্যারকে হুমকি দেওয়ার ঘটনা ঘটল।
আপনাদের মনে পড়বে, গত বছরের ২৪ নভেম্বর দেশের ১৫৩ জন বিশিষ্ট নাগরিককে হত্যার হুমকি প্রদানের অপরাধে রাজধানীর তেজগাঁও এলাকা থেকে আবদুল হক নামের এক সাইবার অপরাধিকে গ্রেপ্তার করে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। পরদিন ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের সামনে তাকে হাজির করে মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার জনাব মনিরুল ইসলাম জানান, অর্থমন্ত্রী, কৃষিমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী, শিক্ষাবিদ, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবীসহ ১৫৩ জনকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার অভিযোগে আবদুল হককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সে শত্রুতার জেরে সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার এক মাদরাসা শিক্ষক সাদ উদ্দিন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফায়যুর রাহমান ও সালেহ ফুয়াদকে ফাঁসাতে তাঁদের মোবাইল ফোনে আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে স্পুফিং করে গত দেড় বছর ধরে বিভিন্ন বিশিষ্ট ব্যক্তিকে আইএস-আনসারুল্লা বাংলা টিমের নামে এসএমএসে হুমকি দিয়ে আসছে। এই তালিকায় ছিলেন ইমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল ও মুনতাসীর মামুন, সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির, রাজনীতিবিদ ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্বসহ মোট ১৫৩ জন ব্যক্তি।
আবদুল হকের বিরুদ্ধে ঢাকা ও সিলেটে দুটি মামলা হয়। এরপর গত প্রায় এক বছর এসএমএসের মাধ্যমে হুমকির ঘটনা আর শোনা যায়নি। কিন্তু যখনই তার বিরুদ্ধে মামলা দুটি মাননীয় সাইবার ট্রাইবুনালে বিচারের জন্য উঠবে, ঠিক সেই সময় স্পুফিং এর মাধ্যমে আমার (মামলার স্বাক্ষী) নম্বর ব্যবহার করে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ প্রফেসর আনু মুহম্মদসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মোবাইলে হুমকি দিয়ে এসএমএস পাঠানো শুরু হলো!
আমি দৃঢ়ভাবে বলছি, আমার নাম্বার থেকে কোথাও কোন ম্যাসেজ (খুদে বার্তা) যায়নি। পূর্বের মত প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। আমার কললিস্ট তুললেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তার প্রমাণ পেয়ে যাবেন।
আনু মুহাম্মদ স্যারকে হুমকি দেওয়ার পর আমি নিজে কললিস্ট তুলতে এয়ারটেলের রিজিওনাল অফিসে গিয়েছিলাম। তারা আমাকে জানিয়েছেন, ‘কললিস্ট দেওয়ার কোন নিয়ম নেই। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকেই খুঁজে বের করতে হবে কে বা কারা এই কাজ করেছে।’গতকাল অধ্যাপক আনু মুহম্মদ স্যার সিলেটে এসেছিলেন। আমি সরাসরি দেখা করে বিষয়টি তাঁকে খুলে বলতে চেয়েছিলাম, কিন্তু তিনি ব্যস্ত থাকায় আমাকে সাক্ষাৎ দেননি। পরে তাঁর সঙ্গে সিলেটে আসা তেল-গ্যাস ও খনিজ সম্পদ রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য প্রকৌশলী কল্লোল মোস্তফার সাথে কথা বলেছি। তিনি আমাকে পরামর্শ দিয়েছেন পুলিশ প্রশাসনকে অবহিত করার। আমি পুলিশ প্রশাসনকে অবহিত করেছি। সিলেটের মাননীয় পুলিশ কমিশনারের কাছে সাহায্য চেয়ে লিখিত আবেদন করেছি। এখন কি হবে জানিনা। আমি খুবই উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্যে রয়েছি। নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছি। বারবার হেনস্তাকারীরা আমার বড় ধরণের কোন ক্ষতি করে বসে কিনা।
পূর্বে আমিসহ যারা এ রকম হেনস্তার শিকার হয়েছিলাম, তখন আমরা আবদুল হককে দায়ী করেছিলাম। আমাদের অভিযোগ আমলে নিয়ে পুলিশ যখন আবদুল হককে গ্রেপ্তার করলো, তখন তাঁর স্বীকারুক্তির মাধ্যমে দেখা গেল আবদুল হক একা নয়, তাঁর সাথে আরো ব্যক্তি জড়িত। আবদুল হকের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতেই তার সহযোগী আমিনুর ধরা পড়ে তখন। এবারও আবদুল হকের সহযোগীরা এটা করছে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। প্রকৌশলী কল্লোল মোস্তফা আমাকে বলেছেন, তিনি জানতে পেরেছেন আনু মুহম্মদের ম্যাসেজটি ছাতকের একটি এলাকা থেকে এসেছে। তাঁর কথা সত্যি হলে আমি মনে করি আবদুল হকের ভাই এনামুল হক ওরফে অনুপম হক এটা করেছে। কেননা তাদের বাড়ি ছাতকে। আর অনুপমও তার ভাই আবদুল হকের মত প্রযুক্তি ব্যবহারে পারদর্শি। এটা এলাকার অনেকেই জানেন। তাছাড়া কারা আবদুল হকের সাথে কারাগারে দেখা করে, সেই খোঁজ নিলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সহজেই বের করতে পারবেন আবদুল হকের সহযোগী কারা।
আমি সুনামগঞ্জের প্রত্যন্ত অঞ্চলের অতিসাধারণ গেরস্ত পরিবার থেকে এসেছি। আমার পরিবারের আর্থিক সামর্থ খুব বেশি নয়। কিন্তু উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হওয়ার তীব্র আকাঙ্খার কারণে আমি টিউশনি করে, পার্টটাইম চাকুরীসহ নানা কাজ করে অতি কষ্টে আমার শিক্ষা ব্যয় বহন করে চলেছি। কিন্তু বারবার এরকম অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতিতে পড়ার কারণে আমার পড়াশোনা বিঘিœত হচ্ছে। পরীক্ষার সময় কারাবাস, মামলার দৌড়াদৌড়ির কারণে আমার সেমিস্টার ড্রপ হচ্ছে বারবার। ফলে পড়াশোনার পাশাপাশি আর্থিক ক্ষতিও আমাকে প্রচন্ডভাবে ভোগাচ্ছে। আমার জন্য পড়ালেখা চালিয়ে যাওয়া কঠিন থেকে কঠিনতর হয়ে দাড়িয়েছে। আমি এ থেকে মুক্তি চাই। দেশের আর দশজন সাধারণ মানুষের মত আমি বাঁচতে চাই। প্রতিহিংসার কারণে বারবার এই দুর্ভোগ আর লাঞ্জনার ঘটনা থেকে মুক্তি চাই। এ ধরণের ঘটনা আমাকে বারবার সামাজিকভাবে হেয় করছে। আমি এ থেকে পরিত্রাণ চাই।
আমি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সাংবাদিক-বুদ্ধিজীবী মহল ও সমাজের বিবেকবান মানুষের কাছে মিনতি জানাই আমাকে এই দুর্ভোগ থেকে মুক্তির ব্যবস্থা করার জন্য।’
প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালে একবার, ২০১৪ সালে একবার দুইবার গ্রেপ্তার হয়ে ৬ মাস জেলে ছিলেন ফায়যুর রহমান। ২০১৩ সালে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল তিনি তার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বর থেকে অর্থমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রীসহ ছয়জন সাংসদকে হত্যার হুমকি দিয়ে এসএমএস পাঠিয়েছেন। ২০১৪ সালের ৩০ জুন একইভাবে আইনমন্ত্রীকে হুমকি দিয়েছেন। পরে সাইবার ট্রাইব্যুনাল আদালতে প্রমাণ হয় তার নম্বর থেকে এসব বার্তা যায়নি। তার মোবাইল নম্বর ক্লোন করে আব্দুল হক নামের একজন এসব বার্তা পাঠান। মামলা থেকে অব্যাহতি পান তিনি। রাজধানীর তেজগাঁও থেকে গ্রেপ্তার করা হয় আব্দুল হককে। যিনি ফয়যুজের পূর্ব পরিচিত এবং তার দাবি অনুযায়ী তাদের মধ্যে পূর্ব শত্রুতা রয়েছে। মন্ত্রী-এমপিসহ দেশের ১৫৩ জন বিশিষ্ট ব্যক্তিকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগে গত বছর গ্রেপ্তার করা হয়েছিলো আব্দুল হক নামের ওই মাদ্রাসা শিক্ষককে। আদালতে তিনি অন্যের সিম ক্লোন করে হুমকি প্রদানের কথা স্বীকারও করেন। আব্দুল হক বর্তমানে সিলেট কারাগারে আছেন, হকের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলাটিও বিচারাধীন। ওই মামলায় এখন প্রধান সাক্ষী ফয়যুর রহমান।

সিলেট রিপোট/-১৬-১০-২০১৬

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now