শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » সুনামগঞ্জের সীমান্তজুড়ে তক্ষক পাচারকারী সিন্ডিকেট সক্রিয়

সুনামগঞ্জের সীমান্তজুড়ে তক্ষক পাচারকারী সিন্ডিকেট সক্রিয়

tokey-geckok-sylhetreportসিলেট রিপোর্ট:  সুনামগঞ্জের সীমান্ত এলাকায় সক্রিয় হয়ে উঠেছে তক্ষক পাচারকারী সিন্ডিকেট। তক্ষক পেলেই ‘কোটি টাকা’ এই হিসেবে পাচারকারী সিন্ডিকেট সীমান্ত এলাকা চষে বেড়াচ্ছে। কেউ কেউ সিন্ডিকেটের ফাঁদে পড়ে সর্বশান্ত হচ্ছেন।

গত এক বছরে সুনামগঞ্জের সীমান্ত এলাকায় বিরল বন্য প্রজাতির প্রাণি তক্ষক পাচারকারী সিন্ডিকেটের বেশ কয়েকজন গ্রেফতার হয়েছেন। আটক হয়েছে কোটি কোটি টাকা মূল্যের তক্ষক। তবে তক্ষক সিন্ডিকেটের গডফাদার ও স্থানীয় এজেন্টরা এখনো রয়ে গেছে ধরা-ছোঁয়ার বাইরে।

জানা গেছে- সিন্ডিকেটের অধিকাংশই সুনামগঞ্জ জেলার বাইরের। স্থানীয় এজেন্টদের মাধ্যমে এরা তক্ষক সংগ্রহের কাজ করে। তবে বর্তমানে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতার কারণে অনেকটা কোণঠাসা এই সিন্ডিকেটটি।

জানা যায়- বিপন্ন প্রজাতির এই প্রাণীটির বাসস্থান বাংলাদেশসহ আশেপাশের অঞ্চলে। বাংলায় এটি অঞ্চলভেদে গিরগিটি, তক্ষক, রক্তচোষা, আনজিলা এবং শান্ডা নামে পরিচিত। পার্বত্য অঞ্চলের আদিবাসীরা বলে টক-টেন। ইংরেজিতে একে বলা হয়- Tokey Gecko।

টিকটিকি জাতীয় এই প্রাণিটি টেকে টোকে অথবা গেককো-গেককো শব্দে ডাকে বলে এই ডাক থেকেই এর নামকরণ হয়েছে।

দেশের সব জায়গায় এটির বিচরণ, বিশেষ করে পুরান বট গাছে। এর ডাক শুনেছে গ্রাম-বাংলার হাজারো মানুষ কিন্তু চোখে দেখেছে খুব কমই কারণ দিনের বেলা এদের দেখা মেলা ভার।

গত ১১ অক্টোবর বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার মাছিমপুর সীমান্ত থেকে আড়াই কোটি টাকা মূল্যের একটি তক্ষকসহ দুই জনকে আটক করে বিজিবি ২৮।

জানা যায়- মাছিমপুর বিওপি’র নায়েক সুবেদার মো. আব্দুল হাকিমের নেতৃত্বে একটি টহল দল মাছিমপুর সীমান্তে ঢাকার মুগদা এলাকার মনু মিয়ার ছেলে আরিফ মিয়া (৩০) ও হবিগঞ্জের আজমিরিগঞ্জ উপজেলার শিবপাচা গ্রামের আব্দুল শহীদ মিয়ার পুত্র মো. শামছুল আলমকে তক্ষকসহ আটক করে। পরে আটককৃত দুই জনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করা হলে, আদালত তাদের বণ্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইন ২০১২ এর ২৬ ধারা মোতাবেক ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন।

বিজিবি জানায়- এই দু’জন তক্ষক পাচারকারী সিন্ডিকেটের অন্যতম সদস্য। দেশ জুড়ে এদের নেটওয়ার্ক বিস্থিত।

এর আগে, চলতি বছরের ২৯ আগস্ট বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার মাছিমপুর বিওপির একটি টহল দল নায়েব সুবেদার মো. হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বে সীমান্তের ২শ’ গজ বাংলাদেশ অভ্যন্তরে সোনাতলা নামক এলাকা দিয়ে ভারতে পাচারকালে একটি তক্ষক আটক করে। আটককৃত তক্ষকটির মূল্য ছিল প্রায় ১ কোটি ২০ লাখ টাকা। ২১ মার্চ প্রায় ১ কোটি টাকা মূল্যের তক্ষক উদ্ধার ও একজনকে আটক করে পুলিশ।

২৯ সেপ্টেম্বর বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার গামারিতলা নামক স্থান হতে ১টি ভারতীয় তক্ষক আটক করে বিজিবি ২৮ বর্ডার গার্ড। যার আনুমানিক মূল্য ২ কোটি টাকা।

বিজিবি ২৮-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল নাসির উদ্দিন আহমদ পিএসসি বলেন, বিভিন্ন সময়ে অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েকটি তক্ষক আটক করেছে বিজিবি। ইতোমধ্যে তক্ষক সিন্ডিকেটের ২ জনকে আটক করা হয়েছে। বিজিবি সীমান্ত এলাকায় পাচার প্রতিরোধে সব সময় সতর্ক আছে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now