শীর্ষ শিরোনাম
Home » জাতীয় » দেশে ফিরেছেন শেখ হাসিনা

দেশে ফিরেছেন শেখ হাসিনা

images
ডেস্ক রিপোর্ট:  ব্রিকস-বিমসটেক আউটরিচ সম্মেলন শেষে দেশে ফিরেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার (১৭ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১০টার দিকে তাকে বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইট হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

এরআগে প্রধানমন্ত্রী ভারতের পর্যটন নগরী গোয়া থেকে স্থানীয় সময় সকাল ৭টা ১০ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হন। খবর বাসস।

গোয়ায় ভারতীয় নৌ বাহিনীর বিমান ঘাঁটিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিদায় জানান ভারতের কেন্দ্রীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এমজে আকবর, গোয়া রাজ্য সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়কমন্ত্রী এলিনা সালদানহা, গোয়া রাজ্য সরকারের (সমন্বয়ক) সচিব পদ্মা জয়সাল। এ সময় ঢাকায় ভারতের হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা, দিল্লিতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোজাম্মেল আলী, মুম্বাইয়ে বাংলাদেশের ডেপুটি হাইকমিশনার সামিনা নাজও উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বিমান ঘাঁটিতে পৌঁছানোর পর স্থানীয় শিল্পীদের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হয় কালচারাল ডিসপ্লে।

ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর একটি চৌকস দল প্রধানমন্ত্রীকে সশস্ত্র সালাম জানায়। এরপর লাল গালিচায় হেঁটে বিমানে ওঠেন তিনি।

সম্মেলনে যোগ দিতে দু’দিনের সফরে গতকাল শনিবার গোয়া যান প্রধানমন্ত্রী। সম্মেলনের পর সবশেষ কর্মসূচি হিসেবে রাতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে তিনি দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন।

সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অর্থনৈতিক ও কারিগরি সহায়তা জোট ব্রিকস ও বিমসটেকের সদস্য দেশগুলোর মেলবন্ধনে তিনটি প্রস্তাব দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর এই ৩ পরামর্শ হচ্ছে: (১) মানসম্পন্ন ও টেকসই অবকাঠামো উন্নয়নে গুরুত্ব দেয়া (২) প্রযুক্তির জন্য বৃহত্তর সহযোগিতা কর্মসূচি চালু এবং (৩) স্থিতিশীল অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যে সংলাপের প্রক্রিয়া শুরু করা।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘বৈশ্বিক সম্প্রদায়ের দায়িত্বশীল সদস্য হিসেবে বাংলা‡দশ সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস উগ্রবাদের যে কোন কর্মকাণ্ডে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করে। এই সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস উগ্রবাদ দমনেও আমাদের হাত মেলাতে হবে।’

এর আগে বিমসটেক নেতাদের রিট্রিটে অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিমসটেকভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে বাণিজ্য বাড়াতে মুক্তবাণিজ্য অঞ্চল (এফটিএ) গঠনের ওপর জোর দেন। এদিকে, অষ্টম ব্রিকস সম্মেলনে বিশ্বজুড়ে সন্ত্রাস রুখতে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার শপথ নিয়েছেন সদস্য দেশগুলোর নেতারা। পাশাপাশি তারা অর্থনৈতিক সহযোগিতা বাড়ানোর মাধ্যমে উন্নয়ন নিশ্চিত করার কথাও বলেন।

২০০১ সালে ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত ও চীনকে নিয়ে গঠিত হয় ‘ব্রিক’। ২০১১ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা যোগ দিলে এই জোট ব্রিকস হয়। ব্রিকসের আগে ১৯৯৭ সালের জুনে গঠিত হয় বাংলাদেশ, ভারত, শ্রীলংকা ও থাইল্যান্ডের অর্থনৈতিক জোট ‘বিসটেক’। পরে ওই বছরই মিয়ানমার যোগ দিলে জোটের নতুন নামকরণ হয় বিমসটেক। ২০০৪ সালে নেপাল ও ভুটান এর পূর্ণ সদস্য হয়। এই দুই জোটের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপনের উপায় খুঁজতেই গোয়ায় অনুষ্ঠিত হয় আউটরিচ সম্মেলন।

এর আগে, রোববার সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বাংলাদেশ বিমানের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে শেখ হাসিনা সফরসঙ্গীদের নিয়ে ভারতের উদ্দেশে রওনা হন। বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিদায় জানান মন্ত্রীপরিষদের সদস্য, সংসদ সদস্য ও ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তারা। ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবর, গোয়ার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিমন্ত্রী আলিনা সালদানহা, নয়াদিল্লীতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী ও মুম্বাইয়ে বাংলাদেশের ডেপুটি হাইকমিশনার সামিনা নাজ গোয়া নৌবাহিনীর বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান। সেখানে তাকে লালগালিচা সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now