শীর্ষ শিরোনাম
Home » জাতীয় » বেফাক সম্মেলনে আল্লামা শফীর নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থাকার আশাবাদ ব্যক্তকরলেন কওমী আলেমগন

বেফাক সম্মেলনে আল্লামা শফীর নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থাকার আশাবাদ ব্যক্তকরলেন কওমী আলেমগন

14642082_1594054457565181_5386757496094826410_n
শাহিদ হাতিমী/আহমাদুল হক-আরজাবাদ ঢাকা থেকে,সিলেট রিপোর্ট: বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড (বেফাক)আহুত জাতীয় ওলামা-মাশায়েখ সম্মেলনে অভিন্ন সুরে দেশ বরেন্য উলামায়ে কেরাম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থাকার আশাবাদ পুর্নব্যক্ত করেছেন।  আজ (১৭ অক্টোবর) সম্পন্ন হয়েছে। রাজধানীর মিরপুরস্থ জামিয়া হোসাইনিয়া ইসলামিয়া আরজাবাদ এর বিস্তুত মাঠে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সকাল ১০ টার আগেই কানায় কানায় ভরে উঠে সম্মেলন স্থল। বেফাক সভাপতি আল্লামা আহমদ শফীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে দেশের অর্ধশত আলেম উলামা,পীর মাশায়েখ বক্তব্য রাখেন।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন বোর্ডের সহ সভাপতি আরজাবাদের প্রিন্সিপাল বীরমুক্তিযোদ্ধা মাওলানা মোস্তফা আজাদ। উপস্থাপনায় ছিলেন শায়খুল হাদীস পুত্র মাওলানা মামুনুল হক ও মাওলানা মনজুরুল ইসলাম আফেন্দি। বেফাক আয়োজিত ঐতিহাসিক ওলামা সম্মেলনে শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেছেন,  আমি আল্লাহর কাছে দোয়া করি আল্লাহ্‌ জেনো আমাদের কওমি মাদরাসা শিক্ষক শিক্ষার্থীদের গোমরাহ না করেন।
তিনি নসিহত করে বলেন, আপনার (কওমি শিক্ষক-শিক্ষার্থী) এক থাকবেন, তাহলে নেক থাকতে পারবেন। তিনি আল্লাহর কাছে দোয়া করে বলেন, আল্লাহ্‌ তুমি দেওবন্দি মাদরাসাগুলোকে ধ্বংস করো না। আলেম ওলামাদের ধ্বংস করো না। যারা এই সম্মেলনে উপস্থিত হয়েছে তাদের তুমি রক্ষা করো।
শাইখুল ইসলাম বলেন, মুসলমানরা কখনো মিথ্যা বলতে পারে না। প্রতিদিন কিছু লোক আমার নামে মিথ্যা কথা বলছে। আমি তাদের জন্য দোয়া করছি আল্লাহ্‌ জেনো তাদের হেদায়েত দেন।  এর আগে বেফাকের ওলামা সম্মেলনে শাইখুল ইসলাম আল্লামা শফীর লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন  করেন প্রেস সচিব ও মাসিক মঈনুল ইসলামের নির্বাহী সম্পাদক মাওলানা মুনির আহমদ। লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, কওমি মাদ্রাসায় ইসলামের সঠিক শিক্ষা দেওয়া হয়। এসব মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষকদের পার্থিব ভোগ-বিলাসিতার কোন লক্ষ্য ও চাওয়া-পাওয়া থাকে না। তাদের একমাত্র উদ্দেশ্য থাকে আল্লাহর সন্তুষ্টির লক্ষ্যে রাসূল (সা.)এর নির্দেশনা মতে পবিত্র কুরআন-হাদীস ও ইসলামী শিক্ষার প্রচার-প্রসারের মাধ্যমে আদর্শ ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ ও দেশ গঠনে ভূমিকা রাখা।
লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয়, সাংবিধানিকভাবে ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণের স্বাধীনতা সকল নাগরিকের রয়েছে। এখানে অযাচিত হস্তক্ষেপ করতে কাউকে সুযোগ দেওয়া হবে না। আমাদের সামনে বৃহৎ প্রতিবেশী হিন্দু অধ্যুষিত ভারতের কওমি মাদ্রাসা পরিচালনা পদ্ধতির নজির রয়েছে।
এর আগে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, জামিয়া হোসাইনিয়া আরজাবাদের প্রিন্সিপাল মাওলানা মোস্তাফা আজাদ। তিনি বলেন, সনদের স্বীকৃতির নাম করে কওমি মাদরাসাকে নিয়ন্ত্রণ করার পায়তারা চলছে। আমরা কওমি মাদরাসাসমুহে সরকারের কর্তৃত্ব চাইনা।

বেফাকের ওলামা সম্মেলনে উপস্হিত আছেন ও বক্তব্য রাখেন তাদের মধ্যে রয়েছেন, শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী(সভাপতি বেফাক), আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী(শায়খে সানী হাটহাজারী মাদরাসা),আল্লামা আশরাফ আলী(মুহতামিম মালিবাগ মাদরাসা),আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবীগঞ্জী, আল্লামা নুর হোসাইন কাসেমী(মুহতামিম বারিধারা মাদরাসা), মুফতী ওয়াক্বাস(মুহতামিম মাদানীনগর মাদরাসা,যশোর),আল্লামা শাহ তৈয়ব(মুহতামিম জিরি মাদরাসা,চট্রগ্রাম),আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী(মুহতামিম বাবুনগর মাদরাসা),আল্লামা আনোয়ার শাহ( মুহতামিম জামিয়া ইমদাদিয়,কিশোরগঞ্জ),আল্লামা আবদুল কুদ্দুস(মুহতামিম ফরিদাবাদ মাদরাসা), আল্লামা মুস্তফা আযাদ(মুহতামিম আরজাবাদ মাদরাসা),আল্লামা আবদুল হামিদ পীর সাহেব মধুপুর, মাওলানা আবদুল জব্বার(মহাসচিব বেফাক),মাওলানা মাহফুজুল হক(মুহতামিম রাহমানিয়া মাদরাসা),মাওলানা সাজেদুর রহমান(শায়খুল হাদিস জামিয়া ইউনুসিয়া বি-বাড়িয়া), মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলীপুরী(মুহতামিম শায়েস্তাগঞ্জ মাদরাসা), মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলামা(মুহতামিম ইসলামবাগ মাদরাসা), মুফতী ফয়জুল্লাহ(লালবাগ মাদরাসা),মাওলানা মামুনুল হক(মুহতামিম আত-তারবিয়াত মাদরাসা,কেরান্রীগঞ্জ),মাওলানা আবদুর রব ইউসুফী(মুহতামিম রামপুরা যাকারিয়া মাদরাসা), মাওলানা সৈয়দ মজিবুর রহমান পেশওয়ারী(মির্জাপুর মাদরাসা, টাঙ্গাইল), মাওলানা জুনাঈদ আল হাবিব(মুহতামিম জামিয়া কাসেমিয়া, মিরপুর), মাওলানা মহিউদ্দিন ইকরাম(মুহতামিম রামপুরা মাদরাসা), মুফতী সাখাওয়াত হোসাইন, মাওলানা মুনীর আহমদ, মাওলানা মুসলেহ উদ্দীন রাজু  সহ দেশের শীর্ষ উলামা-মাশায়েখবৃন্দ।

ওলীপুরী:

মাওলানা নুরুল ইসলাম ওলীপুরী বলেছেন, স্বকীয়তা বজায় রেখে ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দের আদলে কওমি মাদরাসা সনদের স্বীকৃতি বা মান দেয়া হয়, তাহলে আমরা তা নিতে পারি।

কিন্তু স্বীকৃতির নামে যদি সরকার দ্বীনি মাদরাসাগুলোর ওপর অযাচিত হস্তক্ষেপ করার পায়তারা করে, তাহলে আমরা পরিষ্কার জানিয়ে দিতে চাই, বাংলাদেশে কওমি আলেম-ওলামারা শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বে সরকারের এই আকাঙ্ক্ষা ব্যর্থ করে দেবে ইনশা আল্লাহ্‌।

সব শেষে তিনি তাঁর নেতৃত্বাধীন হবিগঞ্জ কওমি মাদরাসা বোর্ডের পক্ষ থেকে বেফাক সভাপতি শাইখুল ইসলাম আল্লামা আহমদ শফীকে সর্বাত্মক সমর্থন জানিয়ে বলনে, আমাদের আধ্যাত্মিক রাহবার, আল্লামা শাহ আহমদ শফী যে সিদ্ধান্ত নেবেন আমি এবং আমার বোর্ড তাকে পরিপূর্ণ সমর্থন করে যাবো ইনশা আল্লাহ্‌।

ওলানা মামুনুল হক :

জামিয়া রহমানিয়ার মুহাদ্দিস, তরুণ আলেম, শাইখুল হাদিস সাহেবজাদা মাওলানা মামুনুল হক বলেছেন, কওমী মাদরাসা ব্রিটিশ ইংরেজদের আমলেও স্বাধীন ছিল, পাকিস্তান আমলেও স্বাধীন ছিল, দেশ স্বাধীন হবার পর শেখ মুজিবুর রহমান সরকার ও জিয়াউর রহমান সরকারের আমলেও স্বাধীন ছিল, এখনো স্বাধীন আছে ইনশা আল্লাহ্‌ আগামী দিনেও স্বাধীন থাকবে।
কওমি মাদরাসার স্বাধীনতা-স্বকীয়তা অতীতে কেউ কেড়ে নিতে পারেনি,ভবিষ্যতেও পারবে না ইনশা আল্লাহ্‌। তিনি বলেন, তরুণ প্রজন্মের পক্ষ থেকে বলছি, আমরা আলেম-ওলামাদের দ্বিধা-বিভক্ত দেখতে চাই না। আমরা তরুণরা আমাদের রাহবারদের এক মঞ্চে এবং এক মতের ওপর ঐক্যবদ্ধ দেখতে চাই। আমরা ঐক্যচাই৷ বিভক্ত মঞ্চ চাই না। তিনি বলেন, স্বীকৃতির নামে সরকারের সাথে দাপ্তরিক সম্পর্ক মেনে নেয়া যাবে না।
মাওলানা মামুনুল হক বলেন, কওমী মাদরাসা দেশের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল৷ সরকার ও জনগণের কাছে স্বচ্ছতা রক্ষায় জবাবদিহিতা করবে৷ কিন্তু কোনোভাবেই সরকারী কোনো নিবন্ধনের নামে খবরদারী বা নিয়ন্ত্রণ মানতে পারে না৷
বেফাকের বিষয় তিনি বলেন, বেফাক স্বকীয়-স্বাধীনভাবে মানের কথা বলে যাক৷ বিপরিত মতালম্বীদের সমালোচনা না করে নিজেদের পথে অটল থাকুন৷ সামনে অগ্রসর হোন৷ বর্তমান প্রজন্ম আপনাদের সাথে থাকবে৷
সাবেক ধর্মপ্রতিমন্ত্রী মুফতি মো: ওয়াক্কাস বলেন, আল্লামা আহমদ শফীর নেতৃত্বে এদেশের সকল হক্কানী উলামায়ে কেরাম ঐক্যবদ্ধ।
জুনাইদ বাবুনগরী বলেন, আলেম সমাজ এক থাকতে পারলে কোন ষড়যন্ত্রই সফলতার মুখ দেখবে না, উল্টা ষড়যন্ত্রকারীরাই উচ্ছেদ হয়ে যাবে ।

বেফাকের সম্মেলনে উত্থাপিত প্রস্তাব সমুহ:
# দারুল উলূম দেওবন্দের আদলে কওমি মাদরাসার দাওরায়ে হাদিসের সনদকে ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবী সাহিত্য এমএ এর সমমান দিতে হবে।
# প্রস্তাবিত কওমি মাদরাসা শিক্ষানীতি ২০১২ এবং এর আলোকে তৈরিকৃত কওমি মাদরাসা শিক্ষা কর্তৃপক্ষ আইন ২০১৩ এর খসড়া বাতিল করতে হবে।
# ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬’ প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে গঠিত ৯ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির সকল কার্যক্রম বাতিল করতে হবে।

# যুগোপযোগী করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করার নামে কওমি মাদরাসার স্বকীয়তা স্বাতন্ত্রতা বিলুপ্ত হয় এমন যেকোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ থেকে সরকারকে বিরত থাকতে হবে।
# দেশের ৯২ ভাগ মুসলমানের সন্তানদেরকে ইসলামের বুনিয়াদী শিক্ষা দেওয়া ফরযে আইন। আবহমানকাল থেকে এ ফরযে আইনের কাজটিই আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছে বিদ্যমান সকল নূরানি মক্তব, হাফেজিয়া ও কওমী মাদরাসা৷ সে কারণেই পুরাতন ও নতুন মক্তব, হাফেজিয়া ও কওমি মাদরাসা স্থাপন ও পরিচালনাকে সরকারী নিবন্ধনের আওতামুক্ত রাখতে হবে।
# জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ এবং তদালোকে প্রণীত শিক্ষা আইন ২০১৬ এর খসড়া অবিলম্বে বাতিল করতে হবে।
# প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্যপুস্তকে চক্রান্তমূলকভাবে বাদ দেওয়া ইসলামী ভাবধারার গল্প, রচনা কবিতাসমুহ পুনঃ অন্তর্ভুক্ত করতে হবে এবং হিন্দুত্ববাদী ইসলাম বিদ্বেষী কবিতা, গল্প ও রচনাবলী শিক্ষা সিলেবাস থেকে বাদ দিতে হবে।
# শিক্ষার সর্বস্তরে ইসলামী শিক্ষাকে প্রাধান্য দিতে হবে এবং ইসলামের বুনিয়াদী শিক্ষাকে (যা ফরযে আইন) বাধ্যতামূলক করতে হবে।
# পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন ও পর্যালোচনা কার্যক্রমে দক্ষ এবং বিজ্ঞ আলেমদের পরামর্শ নিতে হবে।
সিলেট রিপোর্ট/শা.আ/১৭-১০-২০১৬

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now