শীর্ষ শিরোনাম
Home » ধর্ম » সিলেট সরকারী মহিলা কলেজের শিক্ষক পরিষদের দুঃখ প্রকাশ:: সেই প্রবন্ধটি ..

সিলেট সরকারী মহিলা কলেজের শিক্ষক পরিষদের দুঃখ প্রকাশ:: সেই প্রবন্ধটি ..

সিলেট সরকারী মহিলা কলেজের ২০১৩ সনের বার্ষিকী ‘অনন্যা’তে ড. মোহাম্মদ শামীম খান এর লেখা ‘ইসলাম : মুক্তির একমাত্র পথ’ নামক প্রবন্ধে অসতর্কতা এবং অনিচ্ছাকৃত কিছু বক্তব্য নিয়ে হিন্দু, বৌদ্ধ ও ক্রিস্টান ধর্মাবলম্বীগণ মনে আঘাতপ্রাপ্ত হওয়ায় কলেজের শিক্ষক পরিষদ দুঃখ প্রকাশ করেছেন। গতকাল শনিবার কলেজের শিক্ষক পরিষদের সভায় এ দুঃখ প্রকাশ করা হয়। কলেজের অধ্যক্ষ ড. মোঃ নজরুল হক চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, গত ৭ সেপ্টেম্বর কলেজ কর্তৃপক্ষ বিষয়টি অবগত হওয়া মাত্র তাৎক্ষণিকভাবে লেখক ড. মোহাম্মদ শামীম খান এর দুঃখ প্রকাশ পত্রটি কলেজ অধ্যক্ষের দুঃখ প্রকাশসহ অগ্রায়নপত্রের মাধ্যমে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ এবং মহানগর পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নিকট প্রেরণ করা হয়েছে। এ ধরনের অনিচ্ছাকৃত ভুল ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখার জন্য সকল সম্প্রদায়ের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়েছে।

প্রিয় পাঠক ! অনণ্যা ম্যাগাজিনে প্রকাশিত সেই প্রবন্ধটি এখানে উপস্থাপন করাহলো:

ইসলাম : মুক্তির একমাত্র পথ
ড. মোহাম্মদ শামীম খান
১. ভূমিকা : সকল প্রসংশা জগতসমূহের প্রতিপালক মহান আল্লাহ্ তায়া’লার জন্য, আর সালাত ও সালাম প্রাণাধিক প্রিয় বিশ্বনবী হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর প্রতি, শান্তি বর্ষিত হোক তাঁর সকল সাহাবি রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু ও আওলাদের উপর। পাঠকগণের প্রতি অনুরোধÑ লেখাটি কমপক্ষে তিন বার পড়–ন এবং যাচাই করুন। যে কোন ধর্মের অনুসারী এটা মনে করে থাকেন যে, তিনি ঠিক ধর্মে আছেন, অন্য ধর্মের অনুসারীরা ঠিক পথে নেই। কিন্তু প্রত্যেকের দাবীই কী সত্য হওয়া সম্ভব? প্রত্যেকের দাবীই যদি সত্য হয় তাহলে এর অর্থ দাড়ায়- সৃষ্টিকর্তাই বিভিন্ন ধর্ম সৃষ্টি করেছেন। কিন্তু এটা কী করে সম্ভব হতে পারে যে বিশ্ব ভ্রহ্মাণ্ডের একজন মালিক ‘এক মানুষ জাতিকে’ সৃষ্টি করে তাদেরকে বিভিন্ন ধর্মে বিভক্ত করে ফেললেন। বিশ্ব মানব-সংসারে কোন পরিবারে সন্তান সংখ্যা যতই হোক না কেন বাবা একজনই হয়, এ রীতিই সুবিধাজনক। সন্তানের পিতা একাধিকজন হলে নানা সমস্যা ও বিশৃঙ্খলা যে সৃষ্টি হয় তা স্পষ্ট। আবার, কোন সন্তানকেই একাধিক মা ধারণ করতে পারেন না, সন্তানের মা একজনই হনÑ সমস্ত প্রাণীকুলে এই রীতি। কোন প্রতিষ্ঠান বা রাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট একজনই হন, একাধিকজন হলে  মতানৈক্যের ফলে নানা সমস্যা তৈরি হয়, এবং তার ফলে প্রতিষ্ঠানের শৃঙ্খলা ভেঙে গিয়ে প্রতিষ্ঠানই শেষ পর্যন্ত ভেঙে যায়। এই বিশ্বচরাচরের স্রষ্টা একাধিকজন হলে অবশ্যই তাতে বিপর্যয় সৃষ্টি হতো। এক স্রষ্টা বলতেন এখন দিন হবে, আরেকজন বলতেন রাত, একজন বলতেন রাত হবে ছয় মাস দীর্ঘ, আরেকজন বলতেন তিন মাস দীর্ঘ হবে। আর, দেব-দেবীদের যদি সত্যি কোন ক্ষমতা থাকত তাহলে দেখা যেতÑ এক ভক্ত পূজা-অর্চনা করে বৃষ্টির দেবতাকে খুশি করে ফেলেছে, বৃষ্টির দেবতা বৃষ্টি দিতে রাজি। এমন সময় বড় দেবতার হুকুম হলÑ বৃষ্টি হবে না। তখন ছোট দেবতারা হরতাল ডেকে বসতো। দেখা যেতÑ মানুষ বসে আছে সকালের প্রত্যাশায় কিন্তু সূর্য ওঠার কোন খবর নেই, কারণ সূর্য-দেবতা বয়কট করে বসে আছেন। এ অবস্থায় গোটা মহাবিশ্ব-ব্যবস্থা তছনছ হয়ে যেত। কাজেই সকল সৃষ্টিকুলের স্রষ্টা একজন হওয়াই স্বাভাবিক, একাধিকজন হওয়াটাই অস্বাভাবিক। আবার, এক পিতার দশ সন্তান হলে পিতা সেই দশ সন্তানকে একইরকম ভালবাসেন যদি না সন্তানরা বড় হয়ে বিরুদ্ধাচারণের দ্বারা পিতাকে এক্ষেত্রে বৈষম্য করতে বাধ্য করে। কোন মায়ের উদর থেকে যদি চারটি সন্তান ভূমিষ্ট হয় তাহলে তাদের পিতা কখনই এ কথা বলেন না যে, আমি এদেরকে জীবন পরিচালনার জন্য একেক ধরনের পরস্পর বিপরীতমুখী ব্যবস্থা প্রদান করে তাদের মধ্যে বিভেদ-বৈষম্য বাধিয়ে রাখব। একজন সাধারণ মানুষের জন্য যদি এটা বেমানান হয় তাহলে এই বিশ্ব-ভ্রম্মাণ্ডের যিনি মালিক তাঁর পক্ষে কী করে মানানসই হবে যে, তিনি এক মানুষ জাতিকে বিভিন্ন ধর্মের মাধ্যমে বিভেদ-বৈষম্যের মাঝে ঠেলে দেবেন। এক সৃষ্টিকর্তা পৃথিবীতে মানবকুল নামে একটি জাতিকে স্বয়ং তাঁর (আল্লাহর) প্রতিনিধি করে পাঠালেন, কিন্তু জীবন-বিধান দিলেন একেক দলকে একেক ধরনের এবং তাতে মানুষে-মানুষে বিভেদ-বৈষম্য সৃষ্টি হলÑ এ কথা কি যৌক্তিক বলে মনে হয়? একজন স্বল্প শিক্ষিত মানুষও যদি তার যুক্তি-বুদ্ধি ও বিবেককে কাজে লাগান তাহলে তার বিবেক এ কথারই স্বীকৃতি দিবে যে, সৃষ্টিকর্তা তাঁর সৃষ্ট মানবকুল নামের এক প্রজাতির জন্য একটি ধর্ম বা জীবন ব্যবস্থাই নির্ধারণ করে থাকবেনÑ এটাই স্বাভাবিক। এ পর্যন্ত যদি আপনি একমত হন, তাহলে আসুন আমরা সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত যুক্তি-বুদ্ধি আর জ্ঞান-প্রজ্ঞা খাটিয়ে সেই একটি সত্যধর্ম তথা জীবন-বিধানকে খুঁজে বের করি। যে কোন মানুষ নিজেকে মানুষ বলে দাবি করতে চাইলে তাকে এ অনুসন্ধানে নামতেই হবে। কেননা তার অনুসৃত পথ যদি ভ্রান্ত হয়, হতেই পারে, তাহলে মৃত্যুর পর চির-জাহান্নামী (চির-নরকী) হতে হবেÑ এ বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই। কারণ, আপনার অনুসৃত পথ যদি ভুল হয়, তাহলে এই ভুল পথে কী কখনও গন্তব্যে পৌঁছা যাবে? নিশ্চয় না। আপনি যদি আপনার বিবেককে সঠিকভাবে কাজে লাগান তাহলে স্রষ্টা নিশ্চয় আপনার সহায় হবেন, তিনিই আপনাকে এই সঠিক পথকে চিনিয়ে দেবেন। আপনাকে এজন্য প্রথমেই এই অনুসন্ধান কর্মের এমন একটি পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে যা হবে সবচেয়ে যুক্তিসঙ্গত। মাঠির তলদেশের অজানা সম্পদ আবিষ্কার করতে হলে যেমন বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির সাহায্য নেওয়া অপরিহার্য ঠিক তেমনি সত্যধর্মকে খুঁজে পেতেও আপনাকে যথাযথ পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে। পদ্ধতি যদি ভুল হয় তাহলে ফলাফল ভুল হতে বাধ্য। ভুল পদ্ধতিতে গোটা জীবন সাধনা করলেও সত্যের সন্ধান পাওয়া যাবে না।
২. সত্যধর্মের খুঁজে : পদ্ধতি নির্বাচন : সত্যধর্মের সন্ধান লাভ করার জন্য যেসব যুক্তিসঙ্গত পদ্ধতি অনুসরণ করা যেতে পারে তা হল: (১) স্বয়ং সত্যধর্মের সৃষ্টিকর্তা অর্থাৎ, স্বয়ং আল্লাহর কাছ থেকে তা জেনে নেওয়া; (২) সর্বাপেক্ষা নির্ভরযোগ্য মানুষের কাছ থেকে জেনে নেওয়া এবং (৩) বইপত্র পড়ে সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া। ২.১. আমরা সর্বপ্রথম প্রথম পদ্ধতি সম্পর্কে আলোকপাত করব। সত্যধর্মের যেহেতু একজন স্রষ্টা আছেন, কাজেই তাঁর কাছ থেকে জেনে নিতে পারলে আর কোন সমস্যাই থাকে না। কিন্তু আল্লাহর কাছ থেকে কী সরাসরি জেনে নেওয়া সম্ভব? এটা এক পদ্ধতিতে সম্ভব। আর তা হল, তিনি যে পদ্ধতিতে সত্যধর্মের সন্ধান দিয়েছেন সে পদ্ধতিতে জেনে নেওয়া। এই পদ্ধতি হলÑ সৃষ্টিকর্তার কোন নির্দেশনা থাকলে তা থেকে জেনে নেওয়া। কেউ যদি তার কোন প্রতিনিধিকে অন্য কোন দেশ বা স্থানে কোন কাজে পাঠায় তাহলে সেই প্রতিনিধি সেখানে গিয়ে কি কি দায়িত্ব পালন করবে সেসব অবশ্যই তাকে বলে দেওয়া হবে। একজন সাধারণ মানুষের পক্ষে যদি এর বিপরীত হওয়া অর্থাৎ, নির্দেশনা ব্যতিত প্রতিনিধি পাঠানো অবাস্তব হয়, তাহলে এই বিশ্ব-ভ্রম্মাণ্ড এবং সমুদয় সৃষ্টির যিনি মহান পবিত্র স্রষ্টা তাঁর পক্ষে কী করে সম্ভব যে, তিনি পৃথিবীতে মানুষকে কোন নির্দেশনা ছাড়াই ছেড়ে দিয়েছেন? কারণ, আলো-বাতাসে হারিয়ে যাওয়ার জন্য কী জগতসমূহের প্রতিপালক সমস্ত কিছু সৃষ্টি করেছেন? যে আল্লাহ্ খেলাচ্ছলে উদ্দেশ্যবিহীনভাবে কোন কিছু সৃষ্টি করেন তিনি আল্লাহ্ হতে পারেন না। কেননা আল্লাহর সত্ত্বা ও গুণই এমন যে তিনি নিরর্থক কিছু করেন না। সৃষ্টিকর্তার এই নির্দেশনার নাম হল- ওহী কিংবা ঐশী গ্রন্থ। পৃথিবীতে মানুষের সামগ্রিক জীবন-ব্যবস্থা কীভাবে পরিচালিত হবে তার জন্য সৃষ্টিকর্তার পক্ষ থেকে মানব জগতে এমন প্রধান চারটি ওহী কিংবা ঐশী গ্রন্থ প্রেরণ করা হয়েছে। সেগুলো হল: (১) যবুর যা পবিত্র নবী হযরত দাউদ (আ:)- এর মাধ্যমে মানুষকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে; (২) তাওরাত যা পবিত্র নবী হযরত মুসা (আ:)- এর মাধ্যমে মানুষকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে; (৩) ইঞ্জিল যা পবিত্র নবী হযরত ঈসা (আ:)- এর মাধ্যমে মানুষকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং (৪) কোরআন শরীফ যা পবিত্র নবী সায়্যেদুল আম্বিয়া রাহ্মাতুল্লিল আ’লামিন হযরত মুহাম্মদ মুস্তাফা সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর মাধ্যমে মানুষকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ১০০ খানা ক্ষুদ্র ঐশী পুস্তিকা বা ছহিফার কথা জানা যায় যা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন নবীর (আ:) উপর অবতীর্ণ হয়েছিল। তাওরাত, যবুর এবং ইঞ্জিল- এই তিনটি ঐশী গ্রন্থকেই এগুলোর অনুসারীরা বিকৃত করে ফেলেছেন। যে কোন মানুষ মুক্ত মন নিয়ে এগুলো পাঠ করলে এই বিকৃতি তার কাছে ধরা পড়বে। পবীত্র কোরআন শরীফ-ই হচ্ছে একমাত্র সেই ঐশী গ্রন্থ যাতে কোন বিকৃতি ঘটেনি এবং কখনো ঘটবে না। এর কারণ কী? এর কারণ হল- অন্যান্য ঐশী গ্রন্থসমূহ সেটা ক্ষুদ্র বা বড় হোক, সেগুলো প্রেরিত হয়েছিল একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য, সেই নির্দিষ্ট সময় অতিবাহিত হওয়ার পর সময়ের প্রয়োজনে নির্দেশনার পরিবর্তন, পরিবর্ধন ও পরিমার্জন জরুরী ছিল। ফলে সেটি রদ করে দ্বিতীয় আরেকটি ঐশী গ্রন্থ প্রেরণ করা হয়। এ ধারা পবিত্র কোরআন শরীফ পর্যন্ত বহাল থাকল। কিন্তু বিশ্ব-ভ্রম্মাণ্ড ও এর সমুদয় সবকিছুর যেহেতু শেষ পরিণতি বা বিনাশ আছে কাজেই এই ধারা অনন্তকাল পর্যন্ত বহাল থাকার সুযোগ নেই। অর্থাৎ, একটি পর্যায়ে গিয়ে ঐশী গ্রন্থ ও নবী প্রেরণের ধারা বন্ধ করতেই হবে। তাই দেখা যায়, পবিত্র কোরআন শরীফ এবং বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর পর আর কোন ঐশী গ্রন্থ আসেনি এবং আর কোন নবীও আসেন নি এবং এর আর কোন সুযোগ নেই। যেহেতু এই ধারা এক পর্যায়ে শেষ করতে হবে তাই মহান স্রষ্টা পবিত্র কোরআন শরীফ এবং বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর মাধ্যমে এই ধারার পরিসমাপ্তি ঘোষণা করে দিয়েছেন। এখন কেয়ামত পর্যন্ত সর্বশেষ এই পবিত্র কোরআন শরীফ এবং বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর নির্দেশনাই বলবৎ থাকবে। কাজেই এটি স্পষ্ট বুঝা যায় যে, পূর্ববর্তী ঐশী গ্রন্থসমূহ যেহেতু একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য ছিল এবং সময়ের প্রয়োজনে আরেকটি ঐশী গ্রন্থ যেহেতু পূর্ববর্তীর স্থান দখল করেছে তাই স্রষ্টার পূর্ববর্তী গ্রন্থকে সংরক্ষণ করার কোন প্রয়োজনই ছিল না। অর্থাৎ, বাইবেল পর্যন্ত কোন ঐশী গ্রন্থেরই সংরক্ষণ প্রয়োজন ছিল না। কিন্তু পবিত্র কোরআন শরীফ সম্পর্কে এ কথা খাটে না। কারণ, কোরআন শরীফ যেহেতু কেয়ামত পর্যন্ত বলবৎ থাকবে কাজেই এটিকে সংরক্ষণ করার প্রয়োজন রয়েছে। সৃষ্টিকর্তা তা-ই করলেন অর্থাৎ, স্বয়ং তিনি নিজেই এর সংরক্ষণের দায়িত্ব গ্রহণ করলেন। সৃষ্টিকর্তা যেহেতু জানেন যে, মানুষের পক্ষে এই সংরক্ষণের কাজ অসম্ভব তাই তিনি নানা কৌশলে এই সংরক্ষণের কাজ করে যাচ্ছেন। এখানে সংরক্ষণ বলতে এর শব্দে ও মর্মে যে কোন প্রকার সংযোজন, বিয়োজন তথা বিকৃতি থেকে হেফাজতকে নির্দেশ করে। যেমন এই গ্রন্থেই সেকথা বলা হয়েছে: “আমি স্বয়ং এই উপদেশ গ্রন্থ (কোরআন) নাযিল করেছি এবং আমি নিজে এর হেফাজতকারী (সূরা: হিজর, আয়াত: ৯)।” লক্ষ্য করুন, বিশ্বে লক্ষ লক্ষ কোরআনে হাফেজ রয়েছেন যারা যুগ যুগ ধরে এই মহাগ্রন্থকে বুকে নিয়ে বেড়াচ্ছেন। এমন ঘটনা অন্য কোন গ্রন্থের ক্ষেত্রে নেই। ফলে দুনিয়ার মুদ্রিত সকল কোরআন শরিফ বিনষ্ট করে ফেললেও (নাউ’যুবিল্লাহ্) কোরআন শরিফকে দুনিয়া থেকে মুছে ফেলা সম্ভব নয়। আর যে কেউ এর একটি অক্ষরেও যোজন-বিয়োজন করলে কিংবা ভুল পড়লে হাফেজগণ সেটি চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেবেন। কোরআন মুখস্ত করার এই কাজ বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর সাহাবীগণের (সঙ্গী) (রা:) দ্বারা শুরু হয়েছিল। পৃথিবীতে এমন নমুনা দ্বিতীয়টি খুঁজে পাওয়া যায় না, এটি কোরআনের মু’যিজা (অলৌকিকত্ব) ছাড়া কিছু নয়। মহান আল্লাহ্ এভাবেই তাঁর গ্রন্থের হেফাজত করে যাচ্ছেন। ২.২. দ্বিতীয় পদ্ধতি হল কোন নির্ভরযোগ্য ব্যক্তির কাছ থেকে সত্যধর্মের কথা জেনে নেওয়া। আল্লাহর পর মানুষের মধ্যে একমাত্র নবীগনই হলেন একশভাগ সত্যবাদী। কারণ সাধারণ মানুষ কথা বলে নিজের জ্ঞান দ্বারা আর নবীগণ কথা বলেন স্বয়ং আল্লাহর পক্ষ থেকে। ফলে মানুষের কথা সর্বদা সঠিক হবে এমনটা মনে করার সুযোগ নেই। কিন্তু নবী বলতে স্রষ্টা নির্বাচিত এমন একজন মহাপুরুষকে বুঝায় যার সকল কথা ও কাজ স্বয়ং আল্লাহর পক্ষ থেকে হওয়ায় তাতে কোন ত্র“টি থাকার নূন্যতম সুযোগও নেই। যেহেতু একমাত্র হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম ছাড়া পূর্ববর্তী সকল নবীগণের বাণী এবং তাঁদের উপর নাজিলকৃত ঐশী গ্রন্থসমূহ অবিকৃতরূপে পাওয়া সম্ভব নয়, যেকথা পূর্বেই উল্লিখিত হয়েছে, কাজেই মানুষের মধ্যে একমাত্র হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামই হলেন সেই ব্যক্তি যার কাছ থেকে সত্যধর্মের কথা জেনে নেওয়া সবচেয়ে যৌক্তিক। কিন্তু স্মর্তব্য যে, অন্য যে কোন নবীর অবিকৃত কথাও যদি পাওয়া যায় তাহলে নবী হওয়ার কারনে তাঁর সে কথা নির্দ্বিধায় গ্রহণযোগ্য। ২.৩. তৃতীয় পদ্ধতি হল বইপত্র পড়ে এই সত্য জানা। এক্ষেত্রেও এমন কারো উপরই কেবল নির্ভর করা চলে যিনি সর্বদা সকল ভুল-ত্র“টির ঊর্ধ্বে। কিন্তু যেহেতু মানুষের পক্ষে এমনটি হওয়া সম্ভব নয় তাই মনুষ্য রচিত গ্রন্থের উপর নির্ভর করা সর্বদা আশঙ্কামুক্ত নয়। একমাত্র সৃষ্টিকর্তাই যেহেতু সর্বদা সকল ভুল-ত্র“টির ঊর্ধ্বে এবং যেহেতু তাঁর রচিত গ্রন্থ অবিকৃতরূপে আমাদের সম্মুখে বিদ্যমান রয়েছে কাজেই এক্ষেত্রে এই ঐশী গ্রন্থই হবে সেই মাধ্যম যেখান থেকে সত্যধর্মের কথা জেনে নেওয়া উচিত। দ্বিতীয়ত, নবীগনের (আ:) সকল কথা ও কাজ স্বয়ং আল্লাহর পক্ষ থেকে হওয়ায় যেহেতু তাতে কোন ত্র“টি থাকার নূন্যতম সুযোগও নেই, তাই নবীগণের (আ:) সংরক্ষিত অবিকৃত বাণীর মাধ্যমেও সত্য ধর্মের কথা জেনে নেওয়া যেতে পারে। কিন্তু যেহেতু একমাত্র হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম ছাড়া পূর্ববর্তী কোন নবীর (আ:) বাণী অবিকৃতরূপে সংরক্ষিত নেই, যেকথা পূর্বেই উল্লিখিত হয়েছে, ফলে দ্বিতীয়ত একমাত্র হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর বাণী সম্বলিত সংরক্ষিত গ্রন্থ (হাদিস) থেকেও সত্যধর্মের কথা জেনে নেওয়া যাবে।
৩. যদি এমন প্রশ্ন মনে উদয় হয় : এখন যে প্রশ্নগুলো দেখা দিতে পারে তা হল: (১) কোরআন যে মনুষ্য রচিত নয় এবং এটি যে আল্লাহর বাণী তার প্রমাণ কি? (২) কোরআন যে অবিকৃতরূপেই বর্তমান আছে তার প্রমাণ কি? (৩) হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম যে আল্লাহর প্রেরিত নবী তার প্রমাণ কি? (৪) হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর নামে যেসব বাণী প্রচারিত হয়ে আসছে তার সত্যতা কি?  ৩.১. আপনি যদি সকল প্রকার পূর্বসংস্কার পরিত্যাগ করে, নিরেপেক্ষ মন নিয়ে অনুসন্ধান করেন তাহলে অবশ্যই এসব হাজারও প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন। কোরআনুল কারিম আজ থেকে প্রায় পনের শত বৎসর আগে নাজিল হয়। মানুষের জীবনে যা কিছু প্রয়োজন- ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ, রাষ্ট্র, আন্তর্জাতিক, এবং সেটি কেয়ামত পর্যন্ত, তার সবকিছুই এতে সন্নিবেশিত হয়েছে। শুধু তাই নয়, বিজ্ঞানের এমন অনেক বিষয়ের উল্লেখ কোরআনে রয়েছে যা একশ বছর আগেও মানুষ কল্পনা করতে পারত না। কোরআনে রয়েছে জীববিদ্যা, পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন শাস্ত্র, জ্যোতির্বিদ্যা, চিকিৎসা বিজ্ঞান প্রভৃতি সম্পর্কীয় আলোচনা। মাতৃগর্ভে মানব সৃষ্টির পর্যায় তথা ভ্রƒনতত্ত্ব, বায়ু তত্ত্ব, পানি তত্ত্ব, সৌরজগত, গ্রহ-নক্ষত্রের আবর্তন, উদ্ভিদ ও কীটপতঙ্গ, আকাশের স্তর ও মহাশূন্য, সময় ও দিন-রাত্রির আবর্তন প্রভৃতি অসংখ্য বিষয়ের সূক্ষèাতিসূক্ষè নির্ভুল বৈজ্ঞানিক আলোচনা রয়েছে কোরআনে। একশ বছর আগেও এসমস্ত বিষয় সম্পর্কে মানুষের জ্ঞান ছিল সব ভুল ও ধাঁধায় ভরপুর। আর অনেক বিষয়ে মানুষের কোন জ্ঞানই ছিল না। তাহলে দেড় হাজার বছর পূর্বে কোন মানুষ এসবের নির্ভুল ধারণা কীভাবে দিতে পারে? একমাত্র ঐশী গ্রন্থ না হলে এ সম্ভব নয়। এজন্যই কোরআনের শুরুতেই বলে দেওয়া হয়েছে: “এ সেই কিতাব যাতে কোন সন্দেহ নেই।” (সূরা বাকারা, আয়াত: ২) অন্যত্র মহান ও পবিত্র আল্লাহ বলেন: “কোন মিথ্যা এতে অনুপ্রবেশ করবে নাÑ সম্মুখ থেকেও নয়, পেছন থেকেও নয়।” (সুরা: হা-মীম সিজদাহ্:৪২।) অন্যদিকে হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম নিরক্ষর ছিলেন, তিনি দুনিয়াবী কোন প্রতিষ্ঠানে নূন্যতম লেখাপড়াও শেখেন নি। একজন বিজ্ঞানীর পক্ষেও যেখানে এক/দু’শ বছর আগেও এসমস্ত বিষয় সম্পর্কে কিছু বলা সম্ভব ছিল না সেখানে একজন মানুষের পক্ষে তাও নিরক্ষর হওয়া সত্ত্বেও কী করে দেড় হাজার বছর পূর্বে এমন বৈজ্ঞানিক সত্য কথা বলে দেওয়া সম্ভব হয়। কাজেই ঐশী গ্রন্থ ছাড়া এমনটি সম্ভব হতে পারে না। কোরআন মানুষকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলছে, তারপরও এতে যদি কারো সন্দেহ থাকে তাহলে সে যেন কোরআনের কোন সূরার মতো একটি সূরা, অন্তত এর চোট্ট একটি সূরার মতো একটি সূরা রচনা করে দেখায়। কোরআনই এর জবাব দিয়ে বলছেÑ এ কষ্মিনকালেও সম্ভব নয়। যেমন:“এ (কোরআন) সম্পর্কে যদি তোমাদের কোন সন্দেহ থাকে, যা আমি আমার বান্দার (হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম) প্রতি অবতীর্ণ করেছি, তাহলে এর মতো একটি সূরা রচনা করে নিয়ে আস। তোমাদের সেসব সাহায্যকারীদেরকেও সঙ্গে নাওÑ এক আল্লাহকে ছাড়া, যদি তোমরা সত্যবাদী হয়ে থাক। আর যদি তা না পারÑ অবশ্য তোমরা তা কখনও পারবে নাÑ তাহলে সে দোযখের আগুন থেকে রক্ষা পাওয়ার চেষ্টা কর, যার জ্বালানি হবে মানুষ ও পাথর। তা প্রস্তুত করা হয়েছে কাফেরদের জন্য।” (সূরা: বাকারা, আয়াত: ২৩-২৪)
কোরআনকে ফেরেশতা জিবরাঈল (আ:) মারফত দীর্ঘ তেইশ বৎসরে নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। কোরআনের যখন যা অবতীর্ন হত সঙ্গে সঙ্গে তা মুখস্ত এবং প্রচলিত পদ্ধতিতে লিখে রাখা হত। ঐশী দূত জিবরাঈল (আ:)- এর কাছ থেকে নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর কোরআন মুখস্ত করার প্রচণ্ড তৎপরতা দেখে আল্লাহ তাঁকে কোরআন মুছে না যাওয়ার নিশ্চয়তা দিয়ে জানালেন: “তাড়াতাড়ি শিখে নেওয়ার জন্য আপনি দ্রুত কোরআন আবৃতি করবেন না। [আপনার অন্তরে] এর সংরক্ষণ ও [আপনাকে দিয়ে] পাঠ করানো আমারই দায়িত্ব।” (সূরা: কিয়ামাহ, আয়াত: ১৬-১৭) একই সূরার ২০ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে: “অতঃপর [মানুষের সম্মুখে আপনার মুখ দিয়ে] কোরআনের বিশদ বর্ণনাও আমারই দায়িত্ব।” অর্থাৎ, আপনাকে মুখস্ত করানো, আপনার অন্তরে তা যথাযথরূপে সংরক্ষিত রাখা এবং প্রয়োজনের সময় তা অবিকল পাঠ ও এর ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ করিয়ে দেওয়াÑ এসব আমার দায়িত্ব। (মাওলানা মহিউদ্দিন খান অনূদিত তফসীরে মা’আরেফুল-কোরআন, অষ্টম খণ্ড, পৃ. ৬৩৯।) ঐশী প্রদত্ত এই ক্ষমতাবলে নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর কোরআন মুখস্ত করা ও স্মরণ রাখার এমন এক অতিমানবীয় ক্ষমতা অর্জিত হয় যে এর ফলে তাঁর অন্তর কোরআন সংরক্ষণের এক ঐশী দুর্গে পরিণত হয়। এর ফলে কোরআনের একটি অক্ষরেরও এদিক-সেদিক হলে তিনি তা সঙ্গে সঙ্গে শুধরে দিতেন। ফলে কোরআনের কোনরূপ বিকৃতি সাধনের পথ বন্ধ হয়ে যায়। অন্যদিকে কোরআনের যখন যা অবতীর্ন হত সঙ্গে সঙ্গে সেটুকু দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্দিষ্ট একাধিক সাহাবীদেরকে (রা:) দিয়ে মুখস্ত করিয়ে ও প্রচলিত পদ্ধতিতে লিখিয়ে রাখা হত। (প্রাগুক্ত।) আবার প্রত্যেক রমজান মাসে নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম ঐশী দূত জিবরাঈল (আ:)-কে সে সময় পর্যন্ত নাজিলকৃত কোরআন আবৃতি করে শুনাতেন এবং জিবরাঈল (আ:) নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামকে আবৃতি করে শুনাতেন। মৃত্যুর পূর্বে নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম ঐশী দূত জিবরাঈল (আ:)-কে গোটা কোরআন শরিফ দু’বার আবৃতি করে শুনিয়েছেন এবং জিবরাঈল (আ:)- এর কাছ থেকে দু’বার আবৃতি শুনেছেন। অতএব দেখা যায়, কোরআন নাযিলের শুরু থেকে এর সংরক্ষণের জন্য স্বয়ং আল্লাহ এবং নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম কর্তৃক এমন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় যার ফলে কোরআনের যে কোন প্রকার বিকৃত হওয়ার সকল রাস্তা বন্ধ হয়ে যায়। ফরাসি বিজ্ঞানী ড. মরিস বুকাইলি কোরআন নিয়ে প্রায় দশ বৎসর গবেষণা করেছেন এবং ঞযব ইরনবষ, ঃযব ছঁৎধহ ধহফ ঃযব ঝপরবহপব নামে একটি গ্রন্থ লিখেছেন। সে গ্রন্থে তিনি লিখেছেন যে পৃথিবীতে যদি কোন ধর্মীয় গ্রন্থ অনুসরণ করতে হয় যা অবশ্যই ঐশী গ্রন্থ এবং যাতে কোন বিকৃতি সাধন ঘটেনি তাহলে সেটি অবশ্যই পবিত্র কোরআন শরিফ। তিনি তাঁর গ্রন্থে প্রমাণ করে দেখিয়েছেন যে একমাত্র কোরআন ছাড়া আর সকল ধর্মীয় গ্রন্থেই বিকৃতি সাধন ঘটেছে। কিন্তু কোরআনে একটি শব্দও ভুল নেই, এর একটি কথাও কেউ ভুল প্রমাণ করতে পারবে না, কোরআনে যেসব বৈজ্ঞানিক বক্তব্য রয়েছে তা সম্পূর্ণ নির্ভুল। (দেখুন: ড. মরিস বুকাইলি। বাইবেল, কোরআন ও বিজ্ঞান। অনু. আখ্তার-উল্-আলম। ২০০৩। ঢাকা : জ্ঞানকোষ প্রকাশনী।) ৩.২. হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম যে আল্লাহ প্রেরিত নবী তার প্রমাণ কি? হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম যদি আল্লাহ প্রেরিত নবী না হবেন তাহলে কোরআন নাযিল হল কার উপর? একমাত্র মক্কার হাসেমী বংশের কোরাইশ গোত্রের আবদুল মোত্তালিবের পুত্র আবদুল্লাহ, তাঁর পুত্র হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম ছাড়া কি দ্বিতীয় কোন ব্যক্তি আজ পর্যন্ত প্রমাণসহ দাবি করেছে যে কোরআন আমার উপর নাযিল হয়েছে? তারপরও বলছি, হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম যে আল্লাহর রাসুল সে কথা কোরআন শরিফ ছাড়া অন্যান্য ধর্মগ্রন্থেও উল্লিখিত হয়েছে। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহর রাসুল এবং তাঁর পর যে আর কোন নবী আসবেন না সে কথা কোরআনে বলে দেওয়া হয়েছে। যেমন: “মুহাম্মদ তোমাদের মধ্যে কোন পুরুষের পিতা নন বরং তিনি আল্লাহর রাসুল এবং সর্বশেষ নবী। আল্লাহ্ সর্ববিষয়ে সর্বজ্ঞ।” (সূরা: আহ্যাব, আয়াত: ৪০) আর বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম নিজেও বলেছেন : “আমিই সর্বশেষ নবী। আমার পর আর কোন নবী আসবেন না।” (মাওলানা আজিজুল হক অনূদিত বোখারী শরীফ,  ৫ম খণ্ড, হাদিস নং- ১৮১০) কোরআন শরিফে মোট চার বার ‘মুহাম্মদ’ শব্দ উল্লিখিত হয়েছে। ‘মুহাম্মদ’ নামে একটি সূরাই নাযিল হয়েছে। সূরা ফাতহ্- এর ২৯ নম্বর আয়াতে পূর্বের মতো খোলাসা করে বলে দেওয়া হয়েছে: “মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ (মুহাম্মদ আল্লাহ্ প্রেরিত রাসুল)…..।” হযরত ঈসা (আ:)- এর একটি বক্তব্য কোরআন শরিফে উল্লিখিত হয়েছে: “স্মরণ কর, মরিয়ম তনয় ঈসা বলেছিল, হে বনী-ইস্রাঈল, আমি তোমাদের নিকট আল্লাহ কর্তৃক প্রেরিত রাসুল, আমি পূর্ববর্তী তাওরাতের সত্যায়নকারী এবং আমি এমন একজন রাসুলের সুসংবাদদাতা যিনি আমার পরে আসবেন, তাঁর নাম হবে আহমদ……..।” (সূরা: সাফ্ফ, আয়াত: ৬) আর একথা তো সুবিধিত যে ‘আহমদ’ হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর আরেক নাম। নবীর যুগের তাওরাত ও ইঞ্জিলধারীদের সম্পর্কে কোরআনে বলা হয়েছে : “এই কিতাবধারীরা (ইহুদি ও খ্রিস্টানরা) নবীকে (হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম) চেনে, যেমন নিজেদের পুত্রকে তারা চেনে।” (সূরা: আনআম, আয়াত: ২০) কিন্তু ইহুদি ও খৃস্টানরা তাদের ধর্মীয় গ্রন্থ- তাওরাত ও ইঞ্জিলে হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর যেসব বর্ণনা ছিল তা কৌশলে মুছে ফেলেছে। তাই বর্তমান তাওরাত ও ইঞ্জিলে হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর কথা খুঁজে পাওয়া যায় না। প্রিয় বন্ধুগণ, হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর জীবন ও কর্ম বিশ্ববাসীর সম্মুখে আকাশের মতই উন্মুক্ত রয়েছে, কিছুই গোপনীয় নেই। তাঁর জীবনের প্রতিটি বিন্দু-বিসর্গ সংরক্ষিত আছে। তাঁর জীবনচরিতের মতো উজ্জ্বল ও সংরক্ষিত দ্বিতীয় কোন জীবনচরিত পৃথিবীতে নেই। চল্লিশ বৎসর বয়সে তিনি নবুয়তপ্রাপ্ত হন। তাঁকে অনেকে অস্বীকার করেছে, কিন্তু তাঁর চরিত্রে কোন ত্র“টি ছিল এমনটি কেউ, কোন ইতিহাসপণ্ডিতও অদ্যাবধি বলতে পারেন নি। তাঁর নিষ্কলঙ্ক চরিত্রে বিমোহিত হয়ে তাঁর বিরুদ্ধবাদীরাই তাঁকে আল্-আমিন (বিশ্বাসী) উপাধী দিয়েছিল। তাঁর শহরের লোকেরা তাঁর সত্যবাদিতার কসম করতো। যারা তাঁর উপর ঈমান আনেনি, তারাই আবার তাদের টাকা-পয়সা তাঁর কাছে গচ্ছিত রাখত। তাঁর চরিত্র সম্পর্কে কোরআনে স্বয়ং আল্লাহ্ বলছেন: “নিঃসন্দেহে আপনি সর্বোত্তম চরিত্রের অধিকারী।” (সূরা: ক্বালাম, আয়াত: ৪।) একটু ভেবে দেখুন, চল্লিশ বৎসর বয়স পর্যন্ত এমন নিষ্কলঙ্ক চরিত্র যাঁর, জীবনে একটিও মিথ্যে কথা বলেন নি, আর এখন নবুয়তী পেয়ে নবী হয়ে কি তিনি মিথ্যেবাদী হয়ে গেলেন? যে লোক জীবনে জাগতিক কোন বিষয়ে একটিও মিথ্যে কথা বলেন নি, সেই তিনিই আল্লাহ্ ও ধর্ম সম্পর্কে মিথ্যে কথা বলবেনÑ এটি কী গ্রহণযোগ্য? তাঁর বিরুদ্ধবাদীরা তাঁকে অর্থ-বিত্ত, নেতৃত্ব, সুন্দরী নারী- ইত্যাদি দেবে বলেছিল যদি তিনি তাঁর ধর্ম প্রচার থেকে বিরত থাকেন। জবাবে মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম জানালেনÑ এসব কেন, আমার এক হাতে সূর্য আরেক হাতে চন্দ্র এনে দিলেও আমাকে কেউ ইসলাম প্রচার থেকে বিরত রাখতে পারবে না। অদ্ভূদ যে, তাঁর বিরুদ্ধে আর কোন অভিযোগ নেই, অভিযোগ কেবল একটি, তা হলÑ তিনি বলেন, আল্লাহ্ ছাড়া কোন মাবুদ নেই। অথচ এতো কোন অভিনব কথা নয়, এতো পূর্ববর্তী সকল নবীগণই (আ:) বলে গেছেন। আসলে, এই বাক্য মেনে নিলে সম্মান, নেতৃত্ব, আর্থিক বিত্ত-বৈভব চলে যাবে বলে যারা আশংকা করতো, তারাই মূলত মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর উপর ঈমান আনে নি। ফলে এই বিরোধীতা কোন নতুন বিষয় ছিল না, এটি পূর্ববর্তী নবীগণের (আ:) ক্ষেত্রেও ঘটেছিল। কিন্তু মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর মাধ্যমে পৃথিবীতে ইসলামের যে বিপ্লব সাধিত হয়েছে তার গতি কেউ ঠেকিয়ে রাখতে পারে নি, কখনও পারবেও না। একটু চিন্তা করুন, জাগতিক কিছুই চান না, তাহলে কীসের জন্যে তিনি গোটা জীবন উৎসর্গ করে গেলেন? যার বিরুদ্ধে কোন নেতিবাচক অভিযোগ প্রমাণ করা যায় না, কোন দিন সম্ভবও নয়, তাঁকে মেনে না নেওয়ার পক্ষে আর কি যুক্তি থাকতে পারে?
হিন্দু ধর্মীয় গ্রন্থ বেদ, উপনিষদ ও পুরাণে শেষ নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর উল্লেখ রয়েছে। গীতা ও মহাভারত রচয়িতা মহর্ষি ব্যাসদেব ভবিষ্যপুরাণে উল্লেখ করেন: “একজন ম্লেচ্ছ ধর্মীয় শিক্ষক তাঁর সঙ্গীদের নিয়ে আবির্ভূত হবেন। তাঁর নাম হবে মহম্মদ।” [ভবিষ্যপুরাণ: প্রতি সর্গ পর্ব: ৩:৩, ৩, ৫-৮, উদ্ধৃত, এ. এইচ. বিদ্যার্থী ও ইউ. আলী। সোমমৌলি অধিকারী ও সিদ্ধার্থ মজুমদার অনুদিত, পারসি, হিন্দু ও বৌদ্ধ ধর্মগ্রন্থে হযরত মুহাম্মদ (সঃ)। কলকাতা: মল্লিক ব্রাদার্স। পৃ. ২৭।] ব্যাস ম্লেচ্ছ শব্দের যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন তা হল: “যে ব্যক্তি সৎকর্ম করে, প্রখর বুদ্ধি আছে, ধর্মপ্রাণ এবং ভগবানে শ্রদ্ধা প্রদর্শন করে সেই ব্যক্তিই জ্ঞানী ’ম্লেচ্ছ’।” মহর্ষি ব্যাস আরো উল্লেখ করেছেন: এই মহামানবের নাম হবে মহম্মদ। তিনি আরবের লোক হবেন। তিনি সমস্ত ত্র“টি হতে মুক্ত হবেন এবং ঐশ্বরিক হবেন। ভারতের রাজা তাঁকে শ্রদ্ধা দেখাবেন। তিনি মানবজাতির গর্ব হবেন। মহর্ষি তাঁর পদতলে আশ্রয় চেয়েছে…………..। (প্রাগুক্ত। পৃ. ২৭-২৮।) ভবিষ্যপুরাণে উল্লেখ রয়েছে: এই মহামানবের অনুসারীদের লিঙ্গাগ্র ছেদিত হবে, টিকি থাকবে না, দাড়ি রাখবে, বিপ্লব ঘটাবে, আযান দেবে এবং শুয়োরের মাংস ছাড়া বৈধ সবকিছুই খাবে। তারা যুদ্ধের মাধ্যমে নিজেদের শুদ্ধ করে তুলবে। অধার্মিক দেশগুলির সঙ্গে যুদ্ধের জন্য তারা মুসলমান নামে পরিচিত হবে…….। (প্রাগুক্ত। পৃ. ২৯-৩০।) প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, এখানে যুদ্ধের যে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে তার সবগুলো ছিল আত্মরক্ষার জন্য, যুদ্ধ ছাড়া যখন আত্মরক্ষার আর কোন গতি ছিল না তখনই কেবল যুদ্ধ করা হয়েছে, আর একথা সর্বদা মনে রাখতে হবে যে, নবীগণের কোন কাজ সেটা যুদ্ধই হোক বা অন্য কিছুই হোক তা আল্লাহর নির্দেশ ছাড়া হয় না। যেমন আল্লাহ এমন নির্দেশ দিয়ে বলছেন: “হে নবী, কাফির ও মুনাফিকদের বিরুদ্ধে জিহাদ করুন।” (৯:৭৩।) অথর্ব বেদের কুন্তপসুক্তের দ্বিতীয় মন্ত্রে আছে: “উষ্ট্রা যস্য প্রবাহিনো বধূমলেতা দ্বির্দর্শ। বর্ষা রহস্য নি জিহীষত্তে দিব ঈষমাণ উপস্পৃশ্য।” গ্রিফিথ, পণ্ডিত রাজারাম এর যে অনুবাদ করেছেন তা হল: “বিশটি উট তাঁর রথ টানে, তাঁর পাশে তাঁর স্ত্রীরাও থাকেন। রথের চূড়া যেন আকাশ ছুঁয়ে যায়।” এ. এইচ. বিদ্যার্থী ও ইউ. আলী তাঁদের পারসি, হিন্দু ও বৌদ্ধ ধর্মগ্রন্থে হযরত মুহাম্মদ (সঃ) গ্রন্থে লেখেন: “এখান থেকেই পরিষ্কার, যে ঋষি আবির্ভূত হবেন তিনি হবেন আরবের লোক। একজন ভারতীয় ঋষি উটে চাপতে পারেন না। ‘ধর্ম শাস্ত্রের’ অনুশাসন অনুযায়ী ভারতীয় ঋষি উটের দুগ্ধ বা মাংস খেতে পারেন না। এবং সেজন্য তিনি উটে চাপতেও পারেন না। ব্রাহ্মণদেরও উটে চাপা নিষেধ।”(প্রাগুক্ত। পৃ. ৩৭-৩৮।) কুন্তপসুক্তের তৃতীয় মন্ত্রে আছে: “এষ ইষায় মামহে শতং নিষ্কান্ দশ স্রজঃ। স্ত্রীনি শতান্যর্বতাং সহস্রা দশ গোনাম্।”(শ্রীবিজনবিহারী গোস্বামী (অনু. ও সম্পা.)। অথর্ববেদ-সংহিতা। ২০০০। কলকাতা : হরফ প্রকাশনী। পৃ. ৪৭৩।) এ. এইচ. বিদ্যার্থী ও ইউ. আলী তাঁদের উপরিউক্ত গ্রন্থে লেখেন: “এই মন্ত্রে ঋষির নামকরণ করা হয়েছে মমহ্। ভারতে বা বিশ্বের অন্য কোন ঋষি বা পয়গম্বরের এই নাম ছিল না। এই শব্দটির উৎপত্তি ‘মহ’ শব্দ থেকে, যার অর্থ শ্রদ্ধেয়, পূজনীয়, মহৎ ইত্যাদি (মনিয়ের উইলিয়ামস কৃত সংস্কৃত-ইংরেজি শব্দকোষ)।” এই লেখকদ্বয়ের মতে, এই মমহ  বলতে মুহাম্মদ  বুঝায়। গজনীর সুলতান মাহমুদ যেভাবে মামুদ  হয়ে যায় ঠিক তেমনি মুহম্মদ বা মুহাম্মদ  হয়েছে ‘মমহ’। (প্রাগুক্ত। পৃ. ৩৯-৪০।) অথর্ববেদীয় উপনিষদে আছে: “অস্য ইল্ললে মিত্রাবরুণো রাজা। তম্মাৎ তানি দিব্যানি পুনস্পং দুস্যু। হবয়ামি মিলং কবর ইল্ললং। অল্লো রসুল মহমদকং। বরস্য অল্লো অল্লাম ইল্লোল্লেতি ইল্লাল্লা ॥৯॥” ভবিষ্যপুরাণে আছে: “এতস্মিন্নন্তরে ম্লেচ্ছ আচার্যেন সমন্বিত। মহামদ ইতি খ্যাতঃ শিষ্যশাখা সমন্বিতঃ ॥৫॥ নৃপশ্চৈব্য মহাদেবং মরুস্থল নিবাসিনম্। গঙ্গাজলৈশ্চ সংস্নাপ্য পঞ্চগব্য সমন্বিতৈঃ। চন্দনাদিভিরভ্যর্চ তুষ্টাব মনসা হরম ॥৬॥ নমস্তে গিরিজানাথ মরুস্থল নিবাসিনে। ত্রিপুরাসুরনাশায়া বহুমায়া প্রবর্তিনে ॥৭॥” অল্লোপনিষদে আছে: হোতারমিন্দ্রো হোতারমিন্দ্রো মহাসুরিন্দ্রাঃ। অল্লো জ্যেষ্ঠং শ্রেষ্ঠং পরমং পূর্ণং ব্রহ্মাণ অল্লাম। অল্লোরসুল মহমদকং বরস্য অল্লো অল্লাম। আদল্লাহ্বুকমে ককম অল্লাবুক নিখাতকম ॥৩॥” (মাওলানা মোহাম্মদ হেমায়েত উদ্দীন। ২০১০। ইসলামী আকীদা ও ভ্রান্ত মতবাদ। ঢাকা: থানভী লাইব্রেরী। পৃ. ১০৬।) উপরিউক্ত মন্ত্রে আল্লাহ, মুহাম্মদ, মুহাম্মদ আল্লাহর রাসুল এবং মুহাম্মদ মরুদেশের লোক হবেনÑ তা স্পষ্টভাবে উল্লিখিত হয়েছে। তারপরও কী কোন সন্দেহ থাকেত পারে? ভারতের এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর বেদ প্রকাশ তাঁর এক গবেষণায় উল্লেখ করেন: হিন্দু ধর্মগ্রন্থ বেদে ‘কলির অবতার’ বলে যার উল্লেখ রয়েছে, যিনি শেষ যুগে আবির্ভূত হবেন এবং হিন্দুরা যাকে পূজা দেবে বলে প্রতিক্ষায় আছে, তিনি আর কেউ নন, তিনি হলেনÑ সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ নবী আরবের মুহাম্মদ ইব্নে আবদুল্লা। প্রফেসর বেদ প্রকাশ ধর্মগ্রন্থ বেদ থেকে ৯টি যুক্তি তুলে ধরেছেন। যেমন: হিন্দু ধর্মের বাণী অনুযায়ী ‘কলির অবতার’ জন্ম নেবেন একটি দ্বীপদেশে। ‘কলির অবতার’- এর পিতার নাম হবে ‘বিষ্ণু ভাগত’ এবং মায়ের নাম হবে ‘সোমানির’। এই ‘দ্বীপদেশ’ হল সেই আরব ভূখণ্ড যা ‘জাযীরাতুল আরব’ বলে পরিচিত। কাজেই এটা মুহাম্মদ- এর ব্যাপারেই প্রযোজ্য। সংস্কৃতে ‘বিষ্ণু’- এর অর্থ হল আল্লাহ এবং ‘ভাগত’- এর অর্থ হল দাস। সুতরাং আরবিতে এর অর্থ দাড়ায়- আবদুল্লাহ বা আল্লাহর দাস। আর ‘সোমানির’ অর্থ হল শান্তি; আরবিতে আমিনা অর্থ শান্তি। অতএব এসবের প্রেক্ষিতে ‘কলির অবতার’ মুহাম্মদ ছাড়া আর কেউ নন, কারণ তাঁর পিতার নাম আবদুল্লাহ আর মায়ের নাম আমেনা। পণ্ডিত বেদ প্রকাশ এভাবে নয়টি প্রমাণ পেশ করেছেন যে, হিন্দু ধর্মে যে কলির অবতার- এর কথা উল্লেখ আছে, তিনি নিঃসন্দেহে ইসলামের নবী মুহাম্মদ।” (প্রাগুক্ত। পৃ. ১০৭) উল্লেখ্য যে, সত্যধর্মের কথা ফাঁস হয়ে যাওয়ার ভয়ে হিন্দু ধর্ম গ্রন্থসমূহের এই অংশগুলো অত্যন্ত গোপন রাখার চেষ্টা করা হয়। ফরিদপুর নিবাসী ব্রাহ্মণ আবুল হোসেন ভট্টাচার্য্য তাঁর আমি কেন ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করলাম গ্রন্থে লিখেছেন: ব্রাহ্মণ হিসেবে দীক্ষা নেওয়ার পর এক সময় এ বিষয়টি আমার কাছে ধরা পড়তে শুরু করে। ঠাকুর দাদাকে জিজ্ঞেস করলে গোলমেলে উত্তর পাই। ফলে আমার ঔৎসুক্য আরো বৃদ্ধি পায়। অনেক অনুসন্ধান করে দেখি গোপন অংশগুলোতে ইসলাম, শেষ নবী মুহাম্মদ ও তাঁর আগমন, একত্ববাদ ইত্যাদির কথা উল্লেখ রয়েছে। এসমস্ত বিষয় সাধারণ্যে জানাজানি হলে হিন্দু ধর্মের জারিজুরি ফাঁস হয়ে যাবে বলে এই গোপণীয়তা। এরপর আমি মুসলমান হয়ে যাই (প্রাগুক্ত। পৃ. ১০৭-১০৮)। বৌদ্ধদিগের প্রামাণ্য গ্রন্থ দিঘা নিকায়ায়  আছে: “মানুষ যখন গৌতম বুদ্ধের ধর্ম ভুলে যাবে, তখন আর একজন বুদ্ধ আসবেন, তাঁর নাম হবে ‘মৈত্তেয়’ (সংস্কৃতে মৈত্রেয়) অর্থাৎ, শান্তি ও করুণার বুদ্ধ।” সিংহলী সূত্রে পাওয়া যায়: আনন্দ বুদ্ধকে জিজ্ঞেস করলেন, আপনার মৃত্যুর পর কে আমাদিগকে উপদেশ দিবে? জবাবে বুদ্ধ বললেনÑ আমিই একমাত্র বুদ্ধ বা শেষ বুদ্ধ নই। যথাসময়ে আরো একজন বুদ্ধ আসবেন, তিনি আমার চেয়েও পবিত্র ও আলোকপ্রাপ্ত … তিনি একটি পূর্ণাঙ্গ ধর্মমত প্রচার করবেন। আনন্দ জিজ্ঞেস করলেন, তাঁকে আমরা চিনব কি করে? বুদ্ধ বললেন, তিনি মৈত্রেয় নামে পরিচিত হবেন। (প্রাগুক্ত। পৃ. ১০৮; এ. এইচ. বিদ্যার্থী ও ইউ. আলী। প্রাগুক্ত। পৃ. ৮৬-৮৭।) এই মৈত্রেয় যে হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম তাতে কোন সন্দেহ নেই। কারণ, সকল নবীই শান্তি ও করুণার বাহক হলেও একমাত্র মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম ছাড়া আর কারো ‘শান্তি ও করুণার নবী’- এই উপাধি ছিল না, ‘শান্তি ও করুণার নবী’ বলে একমাত্র মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামকে বিশেষভাবে চিহ্নিত করে দেওয়া হয়েছে। হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামই হচ্ছেন একমাত্র নবী যাকে পবিত্র কোরআন শরিফে ‘রাহ্মাতুল্লিল আলামিন’- অর্থাৎ, সমগ্র জাহানের জন্য রহমত তথা শান্তি ও করুণার নবী হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। কোরআনে সে কথাই বলা হয়েছে: “আমি আপনাকে জগতসমূহের জন্য রহমতস্বরূপ প্রেরণ করেছি।” (সূরা: আম্বিয়া, আয়াত: ১০৭) পার্শী ধর্মগ্রন্থের নাম হল জিন্দাবেস্তা ও দসাতির। জিন্দাবেস্তায় আছে: “আমি ঘোষণা করছি, হে স্তিতাম জরথুষ্ট্র, পবিত্র আহমদ নিশ্চয়ই আসবেন, যাঁর নিকট হতে তোমরা সৎ চিন্তা, সৎ বাক্য, সৎ কার্য এবং বিশুদ্ধ ধর্ম লাভ করবে।” দসাতিরে আছে: “যখন পার্শীরা নিজেদের ধর্ম ভুলে গিয়ে নৈতিক অধঃপতনের চরম সীমায় উপনীত হবে, তখন আরব দেশে এক মহাপুরুষ জন্ম গ্রহণ করবেন, যাঁর শিষ্যরা পারস্যদেশ এবং দুর্ধর্ষ পারশিক জাতিকে পরাজিত করবে। নিজেদের মন্দিরে অগ্নিপূজা না করে তারা ইব্রাহিমের কাবা-ঘরের দিকে মুখ করে প্রার্থনা করবে; সেই কাবা প্রতিমামুক্ত হবে। সেই মহাপুরুষের শিষ্যরা বিশ্ববাসীর পক্ষে আশীর্বাদ স্বরূপ হবে।” (মাওলানা মোহাম্মদ হেমায়েত উদ্দীন। প্রাগুক্ত। পৃ. ১০৬।) এখানে প্রশ্ন হতে পারে যে, হিন্দু, বৌদ্ধ, পার্শী ইত্যাদি ভ্রান্ত-ধর্মীয় গ্রন্থসমূহে হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম সম্পর্কে ভবিষ্যদ্বাণী এল কীভাবে? এটি অসম্ভব নয়। কারণ, ঐসব গ্রন্থের লেখকগণের পক্ষে পূর্ববর্তী এবং সমকালীন ঐশী গ্রন্থ থেকে এ বিষয়ে জ্ঞান লাভ করা অসম্ভব ছিল না।  ৩.৩. হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর নামে যেসব বাণী প্রচারিত হয়ে আসছে তার সত্যতা কি? আমরা পূর্বেই উল্লেখ করেছি যে, আল্লাহ্ বলেন: “আমি স্বয়ং এই উপদেশ গ্রন্থ (কোরআন) নাযিল করেছি এবং আমি নিজে এর হেফাজতকারী (সূরা: হিজর, আয়াত: ৯)।” এখানে আমাদেরকে বুঝতে হবে যে, কোরআন বলতে কি বুঝায়। শুধু কোরআনের শব্দাবলির নাম কোরআন নয় এবং শুধু কোরআনের অর্থসম্ভারের নামও কোরআন নয়। বরং, ‘কোরআনের শব্দাবলি এবং অর্থসম্ভার’- এই উভয়ের সমষ্টিকে কোরআন বলা হয়। সুতরাং কোরআনের সংরক্ষণ বলতে এর শব্দাবলি এবং অর্থসম্ভার- উভয়ের সংরক্ষণকে বুঝায়। কোরআনের অর্থসম্ভার তা-ই যা শিক্ষা দেওয়ার জন্য হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম প্রেরিত হয়েছেন। কোরআনে বলা হয়েছে: “আপনাকে এজন্য প্রেরণ করা হয়েছে, যাতে আপনি লোকদেরকে কোরআনের মর্ম বলে দেন, যা তাদের জন্য নাযিল করা হয়েছে।” এ কারণেই হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম নিজেও বলেছেন, “আমি মানব জাতির প্রতি শিক্ষকরূপে প্রেরিত হয়েছি।” হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামকে যখন কোরআনের অর্থ বর্ণনা করা ও শিক্ষা দেওয়ার জন্য প্রেরণ করা হয়েছে, তখন তিনি উম্মতকে যেসব বক্তব্য ও কর্মের মাধ্যমে শিক্ষা দিয়েছেন, সেসব বক্তব্য ও কর্মের নামই হাদিস। (তফসীরে মা’আরেফুল-কোরআন, ৫ম খণ্ড, পৃ. ২৭২।) এখন হাদিস প্রকৃতপক্ষে যেহেতু কোরআনের ব্যাখ্যা ও এর ব্যবহার, কাজেই হাদিসের সংরক্ষণও স্বয়ং আল্লাহর দায়িত্বে হবে, যেহেতু আল্লাহ বলছেনÑ আমি স্বয়ং এই উপদেশ গ্রন্থ (কোরআন) নাযিল করেছি এবং আমি নিজে এর হেফাজতকারী। কারণ, আল্লাহ কেবলমাত্র কোরআনের শব্দাবলির সংরক্ষণ করবেন আর যার মাধ্যমে এর ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ ও প্রয়োগ করা হয়েছে তা সংরক্ষণ করা হবে নাÑ এটা গ্রহণযোগ্য নয়। রাসুল সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম একদিন বিদায় নিবেন, কিন্তু তাঁর পবিত্র বাণী যদি সংরক্ষণ করা না হয় তাহলে ভবিষ্যতে মানুষ কোরআন বুঝতে মারাত্মক সমস্যায় নিপতিত হবে। তাই সাহাবীগণ (রা:) হাদিস সংরক্ষণে যথাযথ তৎপর হলেন। সাহাবায়ে আজমাইনগণ (রা:) নবী কারিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর প্রতিটি কথা ও কাজকে নিজের জীবনের চাইতে বেশি গুরুত্ব দিতেনÑ তাঁদের চরিত্রকে আল্লাহ এভাবেই তৈরি করে দিয়েছিলেন। যদিও হাদিসের নামে মিথ্যা কথার প্রচার হয়ে যাওয়া অসম্ভব নয় কিন্তু সেটি বিশেষজ্ঞদের দৃষ্টি এড়াতে পারে না। কেননা হাদিস কখনো কোরআনের বিপক্ষে যাবে না। ছিহাছিত্তা বা ছয় হাদিস গ্রন্থের হাদিসসমূহ এমন চুলছেড়া বিচার-বিশ্লেষণের মাধ্যমে সংকলন করা হয়েছে যে ফলে এসব হাদিসের ব্যাপারে কোন অভিযোগ উত্থাপনের সুযোগ নেই। কেউ যদি নবী কারিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর বিশুদ্ধ বাণী পেতে চায় তাহলে তার জন্য এই ছয় গ্রন্থই যথেষ্ট হবে।
৪. ইসলামই একমাত্র সত্যধর্ম : প্রমাণ : ইতোমধ্যে যে আলোচনা করা হয়েছে তাতে পবিত্র কোরআন, কোরআন যাঁর উপর নাযিল হয়েছে সেই প্রতিক্ষিত মহাপুরুষ সর্বশেষ নবী হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম এবং হাদিস সম্পর্কে একটি মোটামুটি ধারণা আমরা পেয়েছি। এখন একমাত্র গ্রহণযোগ্য পদ্ধতি হিসেবে পবিত্র কোরআন এবং হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আলোচ্য বিষয় সম্পর্কে কী বলেন তা আমরা লক্ষ্য করব। ৪.১. পবিত্র কোরআন- এর বক্তব্য : পবিত্র কোরআন শরিফে স্পষ্টভাবে বলে দেওয়া হয়েছে: “নিঃসন্দেহে আল্লাহর নিকট গ্রহণযোগ্য ধর্ম একমাত্র ইসলাম। এবং যাদের প্রতি কিতাব দেওয়া হয়েছে, তাদের কাছে প্রকৃত জ্ঞান আসার পরও কেবলমাত্র পরস্পর বিদ্বেষের বশবর্তী হয়ে তারা মতবিরোধে লিপ্ত রয়েছে। যারা আল্লাহর নিদর্শনসমূহের প্রতি কুফরী করে তাদের জানা উচিত ছিল যে, নিশ্চিতরূপে আল্লাহ হিসাব গ্রহণে অত্যন্ত দ্রুত।” (সূরা: আল-ইমরান, আয়াত: ১৯।) একই সূরার ৮৫ নং আয়াতে বলা হয়েছে: “যে ইসলাম ছাড়া অন্য কোন ধর্ম অবলম্বন করে, তার সে ধর্ম কস্মিনকালেও গ্রহণ করা হবে না এবং পরকালে সে হবে ক্ষতিগ্রস্থ।” ৪.২. হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর বাণী (হাদিস) : বিদায় হজ্জের ভাষণে প্রাণাধিক-প্রিয় নবী হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন: আল্লাহ্ ঘোষণা করে দিয়েছেন, “আজ আমি (আল্লাহ্) তোমাদের জন্য তোমাদের দ্বীন (ধর্ম) ইসলামকে পূর্ণাঙ্গ করে দিলাম, তোমাদের প্রতি আমার অনুগ্রহ সম্পূর্ণ করে দিলাম এবং ইসলামকে তোমাদের জন্য দ্বীন (ধর্ম) হিসেবে মনোনীত করলাম।” (সূরা: মায়েদা, আয়াত: ৩।) সুতরাং কোন রকম পরিবর্তন, সংযোজন ও সংশোধন ব্যতিরেকে তোমরা একমাত্র এই ইসলামের অনুসরণ করবে। একই ভাষণে নবী কারিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, আমি সর্বশেষ নবী, আমার পরে আর কোন নবী আসবেন না। আমার পরে ওহী (ঐশী বাণী/ঐশী গ্রন্থ) আসা চিরতরে বন্ধ।
৫. ইসলামই যদি একমাত্র সত্যধর্ম হয়, তাহলে পূর্ববর্তী নবীগণের (আ:) ধর্ম কি ছিল : এখানে প্রশ্ন হতে পারে যে, ইসলামই যদি একমাত্র সত্যধর্ম হয়, তাহলে পূর্ববর্তী নবীগণের (আ:) ধর্ম কি ছিল। এ কথা শুরুতেই বলা হয়েছিল যে বিশ্ব ভ্রহ্মাণ্ডের একজন মালিক ‘এক মানুষ জাতিকে’ সৃষ্টি করে তাদের জন্য নানা ধর্ম সৃষ্টি করে তাদেরকে সেসব নানা ধর্মের নানা মত ও পথের দ্বারা বিভেদ-বৈষম্যের মাঝে ঠেলে দিতে পারেন না। ইসলাম অর্থ হচ্ছে এক আল্লাহর প্রতি সম্পূর্ণরূপে নিজেকে সমর্পন করে দেওয়া যার মৌখিক স্বীকৃতি হচ্ছেÑ লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ্, অর্থÑ আল্লাহ ছাড়া কোন উপাস্য নেই। সকল নবী (আ:) ইসলামের এই একই মূল বক্তব্যÑ আল্লাহ ছাড়া কোন উপাস্য নেই- এর দাওয়াত দিয়েছেন, পার্থক্য হয়েছে কেবল এই বক্তব্যের উপর আমল সংক্রান্ত বিধি-বিধানের, বিধি-বিধানের এই পার্থক্য হয়েছে যুগ ও সময়ের চাহিদাজনিত কারণে। কাজেই স্বাভাবিকভাবে আল্লাহ মানুষের জন্য একটি ধর্মই সৃষ্টি করেছেন যার নাম ইসলাম, ফলে সব মানুষ এক উম্মত তথা ধর্মাবলম্বী ছিল। কিন্তু পরবর্তীতে তারা শয়তনের ধোঁকায় পড়ে নানা মনগড়া পথে বিভক্ত হয়ে পড়ে। কোরআনে সে কথাই বলা হয়েছে: “আর সমস্ত মানুষ একই উম্মতভূক্ত (একই ধর্মভূক্ত) ছিল, পরে (কুফর ও শিরকের দ্বারা) পৃথক হয়ে গেছে।” (সূরা: ইউনুস, আয়াত: ১৯) মানব জাতির আদি পিতা হযরত আদম (আ:) থেকে শুরু করে শেষ নবী হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- সকলেই সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত সেই ইসলাম ধর্ম প্রচার করে গেছেন। যেমন কোরআনে বলা হয়েছে: “আমি তোমাদের জন্য ঐ দ্বীনই (ধর্ম) জারি করেছি যার নির্দেশ ইতোপূর্বে দিয়েছিলাম নূহ্কে, যা আমি প্রত্যাদেশ করেছি তোমাকে, যার নির্দেশ দিয়েছিলাম ইব্রাহিম, মূসা ও ঈসাকে- এই বলে যে, তোমরা ধর্মকে প্রতিষ্ঠিত কর এবং ওতে মতভেদ করো না।” (সূরা: শূরা, আয়াত: ১৩।) তাহলে আসুন শুনি, হযরত নূহ্ (আ:) কি বলেন। হযরত নূহ্ (আ:) বলেছিলেন: “আমি মুসলিম হওয়ার জন্য আদিষ্ট হয়েছি।” (সূরা: ইউনুস, আয়াত: ৭২।) হযরত ইব্রাহিম (আ:) বলেছিলেন: “হে আমাদের প্রতিপালক, আমাদের উভয়কে মুসলিম তথা তোমার অনুগত বানাও এবং আমাদের বংশধর হতেও এক উম্মতে মুসলিমা অর্থাৎ তোমার এক অনুগত উম্মত বানাও।” (সূরা: বাকারা, আয়াত: ১২৮।) হযরত ইব্রাহিম (আ:) তাঁর বংশধরদেরকে বলেছিলেন: “তোমরা মুসলিম না হয়ে মৃত্যুবরণ করো না।” (সূরা: বাকারা, আয়াত: ১৩২।) হযরত ঈসা (আ:) বলেছিলেন:“স্বাক্ষী থাকুন যে, আমরা মুসলিম।” (সূরা: আল-ইমরান, আয়াত: ৫২।) কাজেই প্রত্যেক যুগে প্রেরিত নবী (আ:) ও ঐশী গ্রন্থের উপর ঈমান আনা না আনার উপর যেমন সংশ্লিষ্ট যুগের মানবমণ্ডলীর মুক্তি অর্জন নির্ভর করেছিল, তেমনি দুনিয়াতে পবিত্র কোরআন শরিফ আসার পর থেকে কিয়ামত পর্যন্ত এই গ্রন্থ এবং যার উপর এই গ্রন্থ নাযিল হয়েছে সেই প্রতিক্ষিত সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর উপর ঈমান আনা না আনার উপর বিশ্ব-মানবমণ্ডলীর পরকালিন মুক্তি নির্ভর করবে। উদাহরণস্বরূপ, কোন দেশের পার্লামেন্ট ও সংবিধান আছে, এই সংবিধান মানা সকল নাগরিকের জন্য বাধ্যতামূলক। আবার, যখন যিনি প্রধানমন্ত্রী হন তিনি তখন নতুন নতুন আইন প্রনয়ণ করেন এবং সংশ্লিষ্ট পূর্বের আইন বাতিল করেন, তখন নাগরিকদের জন্য নতুন আইন মানা বাধ্যতামূলক হয়। এখন কেউ যদি বলে যে, আমি পূর্বের প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক বলবৎকৃত আইন মানব বর্তমান প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক বলবৎকৃত আইন মানব না, নতুন প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক আরোপিত ট্যাক্স দেব না তাহলে সে অবশ্যই রাষ্ট্রবিরোধী বলে সাব্যস্থ হবে। ঠিক তেমনি, কোরআন নামক আইন (বিধান) চলে আসার পর পূর্ববর্তী সকল ধর্মীয় আইন বাতিল হয়ে গিয়েছে, এখন এই নতুন বিধান তথা হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লা কর্তৃক প্রচারিত ইসলাম নামক বিধান না মানলে আল্লাহর আইনে সেও রাষ্ট্রবিরোধী এবং ভ্রষ্ট বলে বিবেচিত হবে।
৬. আরো কিছু প্রশ্ন : আরেকটি প্রশ্ন দেখা দিতে পারে যে, সময়ের প্রয়োজনে যদি নতুন ঐশী গ্রন্থের প্রয়োজন হয়, তাহলে কোরআনের পর কেন আরো ঐশী গ্রন্থ আসবে না এবং কোরআন কীভাবে কিয়ামত পর্যন্ত সময়ের চাহিদা মেটাবে? অন্যদিকে কোরআনই যদি কিয়ামত পর্যন্ত সময়ের সকল চাহিদা মেটাবে, তাহলে সর্বশেষে এটি নাযিল না করে প্রথম থেকেই তা বলবৎ করে দিলেইবা কী অসুবিধা ছিল? যেহেতু কোরআনী ব্যবস্থাই হল ইসলামের পরিপূর্ণ রূপ কাজেই এর জন্য মানুষ ও পরিবেশকে প্রস্তুত করার প্রয়োজন ছিল। একজন মানুষের যদি লক্ষ্য হয় সে এম.এ. ক্লাস পর্যন্ত শিক্ষা লাভ করবে তাহলে তাকে অবশ্যই ১ম শ্রেণি থেকে শুরু করতে হয়, অবশেষে এম.এ. ক্লাসে গিয়ে সে পরিপূর্ণতা লাভ করে। ১ম শ্রেণি থেকে এম.এ. ক্লাস পর্যন্ত গোটা ব্যবস্থাই শিক্ষা। কিন্তু তাকে যদি ১ম শ্রেণিতেই এম.এ. ক্লাসের পড়া দিয়ে দেওয়া হয় তাহলে শিক্ষার্থী সে ভার বইতে না পেরে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে পড়বে। শিক্ষার্থী যখন যে ক্লাসে পড়ে, তার মূল্যায়ন সেই ক্লাসের পাঠ্যক্রম অনুযায়ীই হয়। পৃথিবীতে মানব জীবনের শুরু থেকে কিয়ামত পর্যন্ত যে ঐশী শিক্ষায় মানুষ পরিচালিত হবে তার নাম ইসলাম। এর ১ম শ্রেণি শুরু হয়েছে সর্বপ্রথম শিক্ষক নবী হযরত আদম (আ:) ও সেই সময়ের ঐশী গ্রন্থের মাধ্যমে, আর এম.এ. বা পিএইচডি দিয়ে শেষ হবে সর্বশেষ শিক্ষক নবী হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম ও এই সময়ে প্রেরিত ঐশী গ্রন্থ কোরআন শরিফের মাধ্যমে। হযরত আদম (আ:) থেকে শুরু করে হযরত ঈসা (আ:) পর্যন্ত মানুষকে তাদের উপযোগী ঐশী গ্রন্থই দেওয়া হয়েছে, আর কোরআনকে এর উপযোগী সময়েই প্রেরণ করা হয়েছে। কোন বিষয়ের পরিপূর্ণতা যেমন একদিনে অর্জিত হয় না তেমনি ইসলামের পরিপূর্ণতাও একদিনে অর্জিত হতে পারে না। আল্লাহ্ দীর্ঘ সময়ের এই নিয়মে তাঁর ইসলাম নামক সিস্টেমকে সাজিয়েছেন। কোরআনে ইসলামের যে সর্বশেষ পরিপূর্ণতা বা পরিণতি লাভ হয়েছে তা এর নাযিলকৃত সময়ের পূর্বেই পঠিয়ে দিলে মানুষ তা বুঝতে ও বহন করতে সক্ষম হত না। অন্যদিকে সময় যত যাবে, কোরআন বুঝা মানুষের পক্ষে কঠিন নয় বরং সহজ থেকে সহজতর হয়ে ওঠবে। আর আল্লাহ্ কোরআনকে এমনভাবে সাজিয়েছেন ফলে কিয়ামত পর্যন্ত মানুষের সকল চাহিদা এটি মেটাতে সক্ষম হবে। চিকিৎসক রোগীকে কিছু ঔষধ দিয়ে বলে থাকেন যে, ১, ২ ও ৩ নং ঔষধ পনের দিন পর্যন্ত চলবে, তার পরের পনের দিন চলবে ৪, ৫ ও ৬ নং ঔষধ। পনের দিন পর রোগীর শরীরের অবস্থা কী হবে তা চিকিৎসক এখনই জানেন বিধায় তার পক্ষে পনের দিন পরের চিকিৎসা-ব্যবস্থা পনের দিন পূর্বেই গ্রহণ করে রাখা সম্ভব হচ্ছে। তাহলে যিনি সকল সৃষ্টির স্রষ্টা, তিনি কী জানেন না যে কিয়ামত পর্যন্ত এই বিশ্বে কি কি ঘটবে আর কি কি ঘটবে না? তিনি সেগুলো পুঙ্খানুপুঙ্খরূপে জানেন। তাই তিনি কোরআনে কিয়ামত পর্যন্ত সময়ের সকল প্রয়োজনসমূহের সব ব্যবস্থা দিয়ে রেখেছেন।
৭. মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর বিয়ে সম্পর্কিত অভিযোগ ও জবাব
মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম একাধিক বিয়ে করেছিলেন যাকে এক শ্রেণির লোক ভাল চোখে দেখেন না। ইহুদী ও খ্রিস্টানরা অসংখ্য নারীর সঙ্গে বিবাহহীনভাবে হরহামেশা মেলামেশা করলেও তাদেরকেই আবার মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর একাধিক বিয়ে সম্পর্কে  অভিযোগ করতে বেশি দেখা যায়। এ বিষয়ে কিছু বলা নিজের ঈমানী দায়িত্ব মনে করছি। তবে এ বিষয়ের আলোচনায় যাওয়ার পূর্বে আমাদেরকে বুঝতে হবে যে, নবী (আ:) বলতে কী বুঝায়। নবী (আ:) স্বয়ং আল্লাহ্ কর্তৃক নির্বাচিত এমন একজন মহাপুরুষ যাঁর জীবনের প্রতিটি কর্ম, ক্ষুদ্রই হোক আর বৃহৎই হোক, স্বয়ং আল্লাহর বিশেষ পরিকল্পনা অনুযায়ী হেকমতপ্রসূতরূপে পরিচালিত হয়। ফলে একজন নবীর (আ:) জীবনপঞ্জী আর একজন সাধারণ মানুষের জীবনপঞ্জীর অর্থ ও তাৎপর্য কখনই এক নয়। সাধারণ মানুষের জন্য যে কর্ম বৈধ নয়, নবীর (আ:) জন্য সে কর্ম আল্লাহর নির্দেশে বৈধ হতে পারে। যেমন, নবীর (আ:) স্ত্রীকে অন্য কারো বিয়ে করা সম্পূর্ণরূপে অবৈধ, অথচ সাধারণ মানুষের বেলায় সেটি অবৈধ নয়। মানব জাতির আদি পিতা হযরত আদম (আ:)- এর জন্ম হয়েছিল পিতা-মাতা ছাড়া, হযরত ঈসা (আ:)- এর জন্ম হয়েছিল পিতা ছাড়া, হযরত সুলায়মান (আ:)- এর সাত শত স্ত্রী ছিলেনÑ এতে কি আমরা বলব যে, তাঁরা নবী ছিলেন না (না’উযুবিল্লাহ্)। নবীগণ (আ:) ইহকাল ও পরকালে সবচাইতে সম্মাণিত ব্যক্তি ফলে স্রষ্টা তাঁদের জন্য যদি বিশেষ ব্যবস্থা অনুমোদন করে থাকেন, তাহলে সেখানে আমাদের বলার কিছু থাকতে পারে না। শ্রীকৃষ্ণ নবী ছিলেন এমন কোন প্রমাণ নেই, তাঁর ১৬,১০৮ জন স্ত্রী ছিলেনÑ এর যুক্তি কী? আল্লাহর মিশনকে সফল করার জন্যে আল্লাহরই নির্দেশে একজন নবীকে (আ:) একাধিক বিয়ে করতে হতে পারে, অথচ সাধারণ মানুষের জন্য এক্ষেত্রে অন্য নিয়ম মানতে হয়। আবার একজন নবীকে (আ:) অবিবাহিতও থাকতে হতে পারে। এখন তাই বলে সাধারণ মানুষ আর নবীর (আ:) অবিবাহিত থাকার মধ্যে এই বাহ্যিক সাদৃশ্য দেখেই কী বলব যে, ঘটনা দু’টির তাৎপর্য এক? তা মোটেও নয়। কাজেই আমাদের বুঝতে হবে, আল্লাহর মিশন বাস্তবায়নের প্রয়োজনে নবীগণের (আ:) জীবনব্যবস্থা স্বয়ং আল্লাহর বিশেষ ইচ্ছা-অনিচ্ছায় আবর্তিত হয়ে থাকেÑ এখানে আমাদের যুক্তি-তর্ক অর্থহীন, এখানে আমাদের বলার কিছু নেই। তাছাড়া এসমস্ত বিষয়ের নেতিবাচক বিতর্কের মধ্যে মানুষের কোন কল্যাণ নেইÑ সেটা না ইহজাগতিক না পরকালিন। আর এতে আল্লাহ্, মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম, ইসলামের ও মুসলমানদের কিছুই যায় আসে না। এ বিষয়ে তাই কিছু বলার প্রয়োজন আছে, এমনটি আমার কখনও মনে হয় না। কিন্তু অভিযোগকারীরা যাতে মনে না করেন যে, মুসলমানদের এ বিষয়ে বলার কিছু নেই- সে কারণে, এবং তাদের অভিযোগগুলো যে মোটেও যুক্তিসিদ্ধ নয়Ñ তা বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য এ বিষয়ে কিছু বলার প্রয়াস পেয়েছি, যদিও এসব অজ্ঞতাসূচক অভিযোগের জবাব পৃথিবীর বহু পণ্ডিত ইতোমধ্যে দিয়েছেন। (দেখুন: ড. মোহাম্মদ হোসাইন হায়কল। মহানবীর (সা:) জীবনচরিত। মাওলানা আবদুল আউয়াল অনু. ২০১০। ঢাকা : ইসলামিক ফাউণ্ডেশন।)
মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম জীবনে ১১ টি বিয়ে করেছিলেন। তিনি পঁচিশ বৎসর বয়সে চল্লিশ বৎসর বয়সী প্রায় বৃদ্ধা হযরত খাদিজাতুল খোবরা (রা:)- কে বিয়ে করেছিলেন, যাঁর এর আগে আরো দু’টি বিয়ে হয়েছিল এবং পূর্বপক্ষের সন্তানও ছিল। নারী বা বিবাহ আসক্তিই যদি কারণ হতো (না’উযুবিল্লাহ্), তাহলে সবচাইতে খান্দানি বংশের পঁচিশ বৎসর বয়সের একজন টগবগে যুবকের তো কোন কুমারীকেই বিয়ে করার কথা, বুদ্ধি-বিবেক তো এটাই বলে। অতঃপর, এই মহিলার সঙ্গেই তিনি জীবনের প্রায় অর্ধেক সময়, পঞ্চান্ন বৎসর পর্যন্ত কাটিয়ে দিলেন এবং এ সময়ের মধ্যে দ্বিতীয় কোন বিয়েও করলেন না। আবার, একমাত্র হযরত আয়েশা (রা:) ছাড়া আর যাদেরকে তিনি বিয়ে করেছিলেন, তাঁদের সবাই ছিলেন হয় বিধবা না হয় পরিত্যক্তা এবং অনেকের পূর্বপক্ষের সন্তানও ছিল। প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুর পর তিনি আরেকজন বিধবা ও প্রায় বৃদ্ধাকে (হযরত সওদা বিনতে জামআ রা:) বিয়ে করেন। এভাবে জীবন কাটানোর পর তিনি যখন বার্ধক্যে উপনীত, তখন কি তাঁর যৌনশক্তি এতো বেড়ে গিয়েছিল যে তাঁকে আরো বিয়ে করতে হয়েছিল (না’উযুবিল্লাহ্)? নবী জীবনের এই দু’টি অধ্যায়ের প্রতি দৃষ্টিপ্রাত করলেই কাণ্ডজ্ঞানসম্পন্ন কোন লোক অমন ধারণা পোষণ কররে পারে না।
হযরত আয়েশা (রা:) এবং হযরত হাফসা (রা:)- এর সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার মাধ্যমে মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম হযরত আবু বকর (রা:) ও হযরত ওমর (রা:)- এর সঙ্গে সম্পর্ক ঘনিষ্ট করার প্রয়াস পেয়েছিলেন। যেমনটি তিনি তাঁর মেয়েদেরকে হযরত ওসমান (রা:) ও হযরত আলী (রা:)- এর নিকট বিয়ে দিয়ে তাঁদেরকে নবী পরিবারের সঙ্গে বিশেষরূপে সম্পর্কযুক্ত করেছিলেন। মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম এবং ইসলামের জন্য এই চার সাহাবীর (রা:) ত্যাগ-তিতিক্ষা অপরিসীম। ফলশ্র“তিতে নবীর শ্বশুর এবং জামাতা হওয়ার মধ্য দিয়ে বিশেষ এই চার সাহাবীকে (রা:) যে সম্মান দেওয়া হয়েছিল তা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ ছিল।
হযরত যয়নব বিনতে জাহাশ (রা:)- এর সঙ্গে মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর বিয়ে ছিল আরো তাৎপর্যপূর্ণ। হযরত যয়নব (রা:) নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর পালক পুত্র হযরত যায়েদ ইবনে হারেছা (রা:)- এর স্ত্রী ছিলেন। নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম নিজে তাঁর ফুফাত বোন হযরত যয়নব (রা:)- এর সঙ্গে হযরত যায়েদ (রা:)- এর বিয়ে দিয়েছিলেন। হযরত যায়েদ (রা:) ছিলেন মুক্তিপ্রাপ্ত ক্রীতদাস আর হযরত যয়নব (রা:) ছিলেন বিখ্যাত হাসেমী বংশের মেয়ে। ফলে এ বিয়েতে হযরত যয়নব (রা:) এবং তাঁর অভিভাবকরা রাজি ছিলেন না। কারণ একজন মুক্তিপ্রাপ্ত ক্রীতদাসের সঙ্গে একজন উচ্চ-বংশীয় নারীর বিয়ে গোটা আরবের অভিজাত শ্রেণির জন্য লজ্জাজনক হবে। কিন্তু মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর এটি পছন্দ হল না। কারণ তাঁর মতে, আরব হওয়াটাই প্রতি অনারবের উপর শ্রেষ্ঠত্বের নিশ্চয়তা বিধায়ক হতে পারে না। অন্যদিকে দাসপ্রথা কখনই কোন ভাল বিষয় নয়, এটি নিঃসন্দেহে মানবতার এক চরম অবমাননা। তাই ক্রিতদাস ছিলÑ এ কারণেও কেউ অপাঙ্ক্তেয় হতে পারে না। যেমন: কোরআনে বলা হয়েছে: “তোমাদের মধ্যে সে ব্যক্তিই আল্লাহর নিকট অধিক মর্যাদাবান, যে অধিক মুত্তাকী।” (সূরা: হুজুরাত, আয়াত: ১৩) কাজেই মানবতার কল্যাণে এসকল দৃষ্টিভঙ্গির মূলোৎপাটন হওয়া একান্ত প্রয়োজন ছিল। মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম এসকল দৃষ্টিভঙ্গি নির্মূল করার অভিযান নিজ বংশ থেকেই শুরু করার মনস্ত করেন। কারণ, নিজ বংশ ছাড়া এ ধরনের বৈপ্লবিক পদক্ষেপ সে যুগ ও পরিবেশে অন্য কোথাও নেওয়া সম্ভব ছিল না। মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর অনুরোধে হযরত যয়নব (রা:) এবং তাঁর অভিভাবকরা এ বিয়েতে সম্মতি প্রদান করেন। তাঁদের এই সম্মতি প্রদানের প্রশংসায় পবিত্র কোরআনের আয়াত নাযিল হয়: “আল্লাহ্ ও তাঁর রাসুল কোন বিষয়ে নির্দেশ দিলে কোন মুমিন পুরুষ কিংবা নারীর সে বিষয়ে ভিন্ন সিদ্ধান্তের অধিকার থাকবে না। কেউ আল্লাহ্ ও তাঁর রাসুলকে অমান্য করলে সে তো স্পষ্টই পথভ্রষ্ট হবে।” (সূরা: আহযাব, আয়াত: ৩৬) কিন্তু এ বিয়ে বেশি দিন স্থায়ী হয় নি। ড. মোহাম্মদ হোসাইন হায়কল উল্লেখ করেন, হযরত যয়নব (রা:) প্রায়ই হযরত যায়েদকে (রা:) লক্ষ করে বলতেন, “আমি মুক্তিপ্রাপ্ত নই।” (ড. মোহাম্মদ হোসাইন হায়কল। মহানবীর (সা:) জীবনচরিত। মাওলানা আবদুল আউয়াল অনু. ২০১০। ঢাকা : ইসলামিক ফাউণ্ডেশন। পৃ. ৪১২।) এ অবস্থায় স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বনিবনা না হওয়ায় হযরত যায়েদ (রা:) নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামকে বিষয়টি অবহিত করেন এবং হযরত যয়নব (রা:)- কে তালাক দেওয়ার মনস্ত করেন। কিন্তু নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁকে এ কাজে বাঁধা প্রদান করে বলেন: “তুমি তোমার স্ত্রীকে তালাক দিও না এবং আল্লাহকে ভয় কর।” অবস্থার কোন উন্নতি না হওয়ায় কিছুদিন পর হযরত যায়েদ (রা:) আবার নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামকে বিষয়টি অবহিত করেন এবং তালাক দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। নবী করিম সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম আবারও তাঁকে এ কাজ থেকে বিরত রাখেন। কিন্তু অবস্থার কোনই উন্নতি না হলে হযরত যায়েদ (রা:) শেষ পর্যন্ত হযরত যয়নব (রা:)- কে তালাক দিয়ে পৃথক হয়ে যান। অন্যদিকে, অজ্ঞতার যুগে আরব দেশে পুষ্য সন্তানকে ঔরসজাত সন্তান ও অন্যান্য উত্তরাধিকারীদের সমতুল্য গণ্য করা হত। তারা অন্যান্য উত্তরাধিকারীদের মতো ঔরসজাত সন্তানকেও মৃতের সম্পদের অংশ প্রদান করত। পোষ্যদের অবাধে ঘরে প্রবেশ, বংশমর্যাদা অন্যান্য উত্তরাধিকারীদের সমতুল্য গণ্য করা হত এবং কোন ব্যক্তির জন্য তার পুষ্যপুত্রের তালাকপ্রাপ্তা স্ত্রীকে বিয়ে করা নিষিদ্ধ ছিল। কিন্তু পুষ্য সন্তান, ঔরসজাত সন্তান আর অন্যান্য উত্তরাধিকারী তো কখনই এক নয়। এই সরল সত্যের অপলাপের ফলে অনেক ঝামেলা যে হতো তা অনুমান করা যায়। মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম এই সরল সত্যটাকেই প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছিলেন। আসলে এসকল রীতি-নীতি ছিল জাহেলী যুগের মানুষের মনগড়া প্রথা, আর মনগড়া রীতি-নীতি আপাতদৃষ্টিতে চিত্তাকর্ষক মনে হলেও পরিণামে তা নানা সমস্যার জন্ম দেয়। কাজেই সত্যধর্ম ইসলামে মনগড়া এসব রীতি-নীতির কোন মূল্য থাকতে পারে না। একজন নবীর (আ:) এ ধরনের মনগড়া রীতি-নীতি, যা অনেক সমস্যার জন্ম দেয়, পছন্দ হতে পারে না। মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামও এর ব্যতিক্রম ছিলেন না। লক্ষ্য করুন, অবশেষে এ বিষয়ে কোরআনের আয়াতও নাযিল হল: “পোষ্য পুত্র, যাদের তোমরা পুত্র বল, আল্লাহ্ তাদের পুত্র করেন নি, এসব তোমাদের মুখের কথা। সত্য কথা আল্লাহই বলেন এবং তিনিই সকল পথ নির্দেশ করেন।” (সূরা: আহযাব, আয়াত: ৪) এই কুপ্রথা যে দূর করা প্রয়োজন, কোরআনের এই আয়াত সেই নির্দেশনাই দিচ্ছে। কোরআনের আয়াত নাযিলের মাধ্যমে এটি পরিষ্কার হয়ে যায় যে, কারো জন্য পুষ্যপুত্রের তালাকপ্রাপ্তা স্ত্রীকে বিয়ে না করার মনগড়া রীতির মধ্যে কোন বিশেষ কল্যাণ নেই, বরং অনেক সমস্যা লুকায়িত আছে। এই প্রথা দূর করার উত্তম উপায় ছিল কোন ব্যক্তির সঙ্গে তার পুষ্যপুত্রের তালাকপ্রাপ্তা স্ত্রীর বিয়ের ব্যবস্থা করা। কারণ একমাত্র এই উপায়েই পুষ্যপুত্র সংক্রান্ত মনগড়া সবক’টি রীতির সংশোধন সম্ভব। আর সংস্কারককেই এক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা নিতে হবে। কারণ, শত বছরের এই মনগড়া কুসংস্কার দূর করা মোটেও সহজ ছিল না। কোন নবীর (আ:) মতো দৃঢ় সংকল্প ও ঐশী প্রজ্ঞার অধিকারী মহান ব্যক্তিত্ব ছাড়া কারো পক্ষে অমন কূপ্রথার বিরুদ্ধে রূখে দাড়ানো ছিল সম্পূর্ণ কল্পনাতীত ব্যাপার। মনে হয় যেন, মানবকল্যাণের স্বার্থে সর্বজ্ঞ আল্লাহ্ হযরত যয়নব (রা:)- এর মাধ্যমে মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর সম্মুখে এর সব ব্যবস্থা পূর্ব থেকে সাজিয়ে দিলেন। আল্লাহর প্রজ্ঞা ও কৌশলের গভীর উপলব্ধি মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামকে মানবকল্যাণের নিমিত্তে হযরত যয়নব (রা:)- কে বিয়ের মাধ্যমে এ বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করে। আল্লাহর বিধান প্রবর্তনের লক্ষে মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর পুষ্যপুত্রের তালাকপ্রাপ্তা স্ত্রী হযরত যয়নব (রা:)- কে বিয়ে করেন। কিন্তু মানুষ হিসেবে তাঁর মনে এই অনুভূতিও জাগে যে, দেশের এতো পুরনো একটি প্রথা ভাঙলে মানুষ তাঁকে কি বলবে। মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর মনের এই গোপন অনুভূতির প্রশ্নে সর্বজ্ঞ আল্লাহ্ আয়াত নাযিল করে জানিয়ে দিলেন: “আল্লাহ অনুগ্রহ করেছেন এবং তুমিও যার প্রতি অনুগ্রহ করেছ, তুমি তাকে বলেছিলে, ‘তুমি তোমার স্ত্রীকে তালক দিও না এবং আল্লাহকে ভয় কর।’ তুমি তোমার অন্তরে যা গোপন করছিলে আল্লাহ্ তা প্রকাশ করে দিয়েছেন; তুমি লোকভয় করলে অথচ আল্লাহকেই ভয় করা তোমার পক্ষে অধিকতর সঙ্গত। অতপর যায়েদ যখন যয়নবের সাথে বিবাহ সম্পর্ক ছিন্ন করল, তখন আমি তাকে তোমার সাথে পরিণয়সূত্রে আবদ্ধ করলাম, যাতে মুমিনদের পোষ্যপূত্রগণ নিজ স্ত্রীর সাথে বিবাহ সম্পর্ক ছিন্ন করলে সেসব নারীকে বিবাহ করায় মুমিনদের কোন বিঘœ না হয়। আল্লাহর আদেশ কার্যকর হয়েই থাকে।” (সূরা: আহযাব, আয়াত: ৩৭)
আরবের সাধারণ নিয়ম ছিল, তারা আত্মীয়তার সম্পর্ককে খুব গুরুত্ব দিয়ে থাকে। জামাতা-সম্পর্ক আরবে বিভিন্ন গোত্রের মধ্যে সম্পর্ক সুদৃঢ় করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। জামাতার সঙ্গে ঝগড়া-বিবাদ করাকে তারা লজ্জাজনক মনে করে। এ কারণে, মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম একাধিক বিয়ের মাধ্যমে বিভিন্ন গোত্রের ইসলামের প্রতি বিদ্বেষের মানসিকতাকে লাঘব করার প্রয়াস পেয়েছিলেন। যেমন, হযরত উম্মে সালমা (রা:) ছিলেন মাখযুম গোত্রের অধিবাসী আর বড় বীরযুদ্ধা খালেদ ইবনে ওলীদ এই গোত্রেরই লোক ছিলেন, উপরন্তু হযরত মায়মুনা (রা:) ছিলেন বীরযুদ্ধা খালেদ ইবনে ওলীদ- এর খালা। ফলে এই দু’জনকে স্ত্রীর মর্যাদা দেওয়ার ফলে ইসলামের প্রতি খালেদ ইবনে ওলীদ- এর শত্র“তা হ্রাস পায় এবং কিছুকাল পরই তিনি মুসলমান হয়ে যান, মুসলমানগণ হযরত খালেদ ইবনে ওলীদ (রা:)- এর মত বিরাট এই বীরকে ইসলামের ছায়াতলে লাভ করেন। মক্কার প্রভাবশালী নেতা আবু সুফিয়ান ইসলামের ঘোরতর শত্র“ ছিলেন। মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম আবু সুফিয়ান- এর বিধবা মেয়ে হযরত উম্মে হাবিবা (রা:)-কে বিয়ে করার ফলে আবু সুফিয়ান অনেকটা নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়েন। মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর মতো একজন সম্ভ্রান্ত ব্যক্তি তাঁর শত্র“র বিধবা মেয়েকে স্ত্রীর মর্যাদা দেবেন, এটা তিনি ভাবতেও পারেন নি। মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম যে একজন অনুপম মহানুভব চরিত্রের লোক, এটা তাঁর কাছে প্রতিভাত হতে শুরু করে এবং একসময় তিনি মুসলমান হয়ে যান। হযরত জাওয়ায়েরা (রা:)-কে বিয়ে করার ফলে ইসলামের প্রতি বনি-মুস্তালিক গোত্রের নেতিবাচক মনোভাব পরিবর্তিত হয়ে গিয়েছিল। এই তিনটি বিয়ে মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর মক্কা বিজয়ে দারুণ সহায় হয়েছিল যা মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর অভূতপূর্ব দূরদর্শিতার পরিচয় বহন করে। সম্মান দিয়ে, প্রেম দিয়ে কোন জ্ঞানী দুশমনকে, জনপদের পর জনপদকে এভাবে জয় করার দৃষ্টান্ত আর কোথাও দেখি না। মনুষ্যত্বের কত বড় আদর্শ এখানে। সর্বশ্রেষ্ট কোন লক্ষ্য প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য না থাকলে অমন বিয়ে যে কেউ করে না, তা সহজেই বুঝা যায়।
অন্যদিকে, বিরাট সংখ্যক নারী সমাজের মধ্যে ইসলামের প্রসারের জন্য প্রয়োজন ছিল একদল প্রশিক্ষিত মুসলমান নারীর। নবী পতœীগণ (রা:) এই দায়িত্ব সূচারুরূপে পালন করেছিলেন। মানব সমাজ পারিবারিক জীবন সম্পর্কিত ইসলামের অনুপম রীতি-রীতি প্রধানত তাঁদের মাধ্যমেই লাভ করেছিল। হযরত আয়েশা (রা:)- এর মতো মহিয়সী নারী তো এক্ষেত্রে এক অভূতপূর্ব মাইলফলক হয়ে আছেন। কেবল হযরত আয়েশা (রা:) থেকেই ২২১০ টি হাদিস এবং হযরত উম্মে হাবিবা (রা:) থেকে ৩৬৮ টি হাদিস বিশুদ্ধ সনদে সংকলিত হয়েছে। নবী পতœী (রা:) না হলে বিশ্ব মানব-সমাজ এই কল্যাণ লাভ করা থেকে বঞ্চিত হত।
মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম যদি মানবীয় প্রয়োজন পূরণের জন্য একাধিক বিয়ে করতেন তাহলে তা যৌবন বয়সেই তো করার কথা ছিল। অন্যদিকে তিনি যদি সম্পদের মোহে হযরত খাদিজাতুল খোবরা (রা:)- কে বিয়ে করতেন, তাহলে ইসলামের জন্যে তিনি সেই সম্পদকে অকাতরে বিলিয়ে দিলেন কেন? অন্যদিকে, হযরত যয়নব (রা:)- কেই যদি মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর বিয়ে করার ইচ্ছে থাকত, তাহলে তা তো তিনি পূর্বেই করতে পারতেন, কিন্তু তিনি তা না করে এক মহৎ উদ্দেশ্যে তাঁকে হযরত যায়েদ (রা:)- এর সঙ্গে বিয়ের জন্য মধ্যস্থতা করলেন এবং তাঁদের সম্পর্ক অটুট রাখার জন্য তিনি প্রানান্ত চেষ্টাও করেন। এখন কেউ যদি বিশেষ প্রয়োজনে একাধিক বিয়ে করেন তাহলে সকল স্ত্রীর সঙ্গে কীভাবে ভারসাম্যপূর্ণ জীবন যাপন করতে হবে তার আল্লাহ কর্তৃক মনোনীত বিস্তারিত রীতি-নীতি কার কাছ থেকে শিখবেন? এই আদর্শ একজন নবী (আ:) ছাড়া কেউ হতে পারে না। কুমারী, বিধবা, স্বামী পরিত্যাক্তা, অমুসলিমÑ প্রভৃতি বিভিন্ন ঘরানার নারীদের আবেগ-অনুভূতি, আশা-আকাক্সক্ষা ও চাহিদা কখনই এক ধরনের নয়, স্বামী হিসেবে এদের কার সঙ্গে কী ধরনের মানবীয় আচরণ করতে হবে তার আল্লাহ কর্তৃক পছন্দকৃত একটি নমুনা চোখের সম্মুখে থাকা একান্ত প্রয়োজন, আর এই নমুনা একজন নবী (আ:) ছাড়া অন্য কারো হওয়ার সুযোগ নেই। একজন নবীই (আ:) যেহেতু আল্লাহর একমাত্র মনোনীত বান্দা আর এই নবীই (আ:) যেহেতু মানবসমাজের সামগ্রিক বিষয়াবলির আল্লাহ্ কর্তৃক মনোনীত শিক্ষক তাই নবীকেই (আ:) এসবের নমুনা হতে হবেÑ এটাই মানবতার দাবী। অধিকন্তু মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লা যেহেতু সারা জাহানের সকল মানুষের জন্য প্রেরিত এবং যেহেতু তাঁর শিক্ষা বলবৎ থাকবে কিয়ামত পর্যন্ত, কাজেই তাঁর ক্ষেত্রে তো এ দাবী সবচেয়ে বেশি প্রযোজ্য। মহান আল্লাহ্ মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লা- এর মাধ্যমে এই বিভিন্নমুখী প্রয়োজনের নমুনা ঠিক করে দিয়েছেন। কাজেই এটা প্রমাণিত হল যে, ব্যক্তিগত মানবীয় প্রয়োজনে তিনি একাধিক বিয়ে করেন নি। নবী (আ:) হওয়ার কারণে, আল্লাহর মিশনকে বাস্তবায়নের প্রয়োজনে, সর্বজ্ঞ আল্লাহরই ইচ্ছায় তাঁকে একাধিক বিয়ে করতে হয়েছিল। এর পরও যদি কোন মানুষ এ বিষয়ে সমালোচনায় লিপ্ত হয়, তাহলে এটা তার নির্বুদ্ধিতা ও দুর্ভাগ্যেরই পরিচায়ক হবে।
৮. শিরক্ : সবচেয়ে বড় পাপ : কোন মানুষ, দেবতা, মূর্তি এক কথায় যে কোন ব্যক্তি বা বস্তুকে আল্লাহর ক্ষমতা ও গুণাবলির সমান ক্ষমতাসম্পন্ন বা অংশীদার মনে করাকে শিরক্ বলে। যারা শিরক্ করে তাদের দাবি যদি সত্য হতো তাহলে কোন কথা ছিল না, কিন্তু যারা শিরক্ করে তারা সবচেয়ে বড় মিথ্যাবাদী। এরা মানুষ, দেবতা বা কোন মূর্তির কাছে যাই কামনা করে না কেন, এটা তো সত্য যে এদের ভাল-মন্দ করার কোন ক্ষমতা নেই। কাজেই জন্ম, মৃত্যু, রিজিক, সন্তান দেওয়া- প্রভৃতি সব কিছুর একমাত্র মালিক আল্লাহ্। তাই এক আল্লাহ্ ছাড়া আর কারো সামনে মাতা নত করার অর্থ হল সর্বশক্তিমান আল্লাহর ক্ষমতাকে অপূর্ণ মনে করা (নাউযুবিল্লাহ)। আপনি আপনার স্ত্রীর ভরণপোষন তথা যাবতীয় চাহিদা পূরণ করা সত্ত্বেও যদি আপনার স্ত্রী আপনার সঙ্গে আরো স্বামী শরিক রাখেন তাহলে আপনি কী করবেন? হয় তাকে ত্যাগ করবেন, অথবা হত্যা করবেন, অথবা হয়তো নিজেই আত্মহত্যা করে বসবেন। এখন একটু বিবেক খাটিয়ে চিন্তা করে দেখুন, আপনার স্ত্রীর প্রতি আপনার যে অনুগ্রহ, আল্লাহর অনুগ্রহ আপনার প্রতি তার চেয়ে কোটি কোটি গুণ বেশি যার কোন মূল্য পরিশোধ করা যাবে না। আপনি আপনার স্ত্রীর ভরণপোষনের জন্য যত বস্তুগত কিংবা অবন্তুগত বিষয় নিয়োজিত করেন তার কোন কিছুরই স্রষ্টা আপনি নন, সবই আল্লাহর সৃষ্টি থেকে নিয়েছেন, অথচ এ সত্ত্বেও আপনার পক্ষে স্ত্রীর আচরণ সহ্য করা অসম্ভব। তাহলে যিনি আপনি এবং বিশ্বচরাচরের বস্তুগত-অবন্তুগত সবকিছুর স্রষ্টা ও মালিক তাঁর সঙ্গে অন্য কাউকে শরিক করলে তিনি তা কীভাবে মেনে নেবেন। মানুষ, দেবতা, মূর্তি এক কথায় আল্লাহ ছাড়া যে কোন ব্যক্তি বা বস্তু- সবকিছুই আল্লাহর গোলাম। তাহলে নিজে আল্লাহর এক গোলাম বা দাস হয়ে আরেক গোলাম বা দাসের কাছে মাতা নত করা কী চরম নির্বুদ্ধিতা নয়? যে নিজেই আল্লাহর দাস, নিজেই অন্যের মুখাপেক্ষি, নিজে নিজেরই সমস্যার সমাধান করতে পারেনাÑ সে কীভাবে আরেক দাসের সমস্যার সমাধান করবে? এজন্যই আল্লাহ কোরআন শরিফে বলেন:“আল্লাহকে ছেড়ে তোমরা যাদের পূজা করছো তারা সকলে মিলে একটি মাছিও সৃষ্টি করতে পারবে না। সৃষ্টি করা তো দূরের কথা, মাছি যদি তাদের সামন থেকে কোন কিছু ছিনিয়ে নেয় তাহলে তারা তা ফিরিয়ে আনতেও সক্ষম নয়। মাবুদ ও পূজারী উভয়ে দুর্বল। এরা আল্লাহর যথাযথ কদর করেনিÑ যিনি পরাক্রমশালী।” (সূরা: হজ্জ, আয়াত: ৭৩-৭৪) চিন্তা করে দেখুন, মূর্তিরই পূজারিকে পূজা করার কথা, যেহেতু পূজারি মূর্তিকে তৈরি করেছে, তাছাড়া মূর্তির চেয়ে তো পূজারির শক্তি-ক্ষমতা অনেক বেশি। অথচ, ঘটছে এর উল্টো! মনে রাখুন, শিরক্ সবচেয়ে বড় পাপ যার পরিণাম জাহান্নাম (নরক) ছাড়া কিছু নয় যদি না এ থেকে ফিরে আসা হয়। কাজেই, আর কিছু না পারলেও অন্তত শিরক থেকে অবশ্যই বেঁচে থাকুন।
৭. শেষ কথা : ইসলাম ছাড়া মুক্তি নেই : প্রিয় পাঠক, আপনি সত্যধর্ম পালন করুন বা নাই করুনÑ আল্লাহর তাতে কিছুই যায় আসে না। কিন্তু আপনার যায় আসে। আমরা পূর্বেই বলেছি যে, আপনার অনুসৃত পথ যদি ভ্রান্ত হয়, হতেই পারে, তাহলে মৃত্যুর পর চির-জাহান্নামী হতে হবেÑ এ বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই। ধর্মে বিশ্বাসী যে কোন বুদ্ধিমান মানুষের তাই উচিত হবে এ বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে অনুসন্ধান করা। রাষ্ট্রে বসবাস করে যদি রাষ্ট্রের আইন না মানা হয় তাহলে সেটা রাষ্ট্রদোহীতাই বটে, তেমনি আল্লাহর পৃথিবীতে বাস করে, তাঁর সকল নিয়ামত ভোগ করে কেউ যদি আল্লাহর বিধান না মানে তাহলে এটাও সুস্পষ্ট আল্লাহদ্রোহীতা। এমন লোকের এ দুনিয়াতে অবস্থান করার কোন অধিকার থাকে না। তাই আমাদের উচিত আল্লাহর এই বিধানকে খুঁজে নিয়ে সে মোতাবেক জীবন পরিচালনা করা। এই বিধান হল ‘ইসলাম’। জীবন পরিচালনার সর্বাঙ্গিন রীতি-নীতি আপনি ইসলাম ছাড়া আর কোন তন্ত্র-মন্ত্রে পাবেন না। যত যুক্তিতর্কই দেখান না কেন, ইসলাম ছাড়া কোন মুক্তি নেই। ইসলাম ও ইসলামের নবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম সম্পর্কে প্রতিটি ধর্মগ্রন্থে এতো স্পষ্ট উল্লেখ থাকার পরও যদি কেউ ভ্রান্ত পথে জীবন পার করে দেন তাহলে সেটি খুবই দুর্ভাগ্যজনক। নিজের সর্ববৃহৎ স্বার্থে এ বিষয়ে তাই সবচেয়ে যতœবান হওয়া একান্ত প্রয়োজন। অন্তর কখনো মিথ্যের উপর স্থায়ী হয় না, সেটা সত্যের মধ্যেই স্থায়ীত্ব লাভ করে। আপনি যদি কোরআন-হাদিস পড়েন, ইসলাম সম্পর্কে জানেন, তাতে আপনার কোন ক্ষতি হওয়ার নূন্যতম সম্ভাবনাও নেই। কেননা পবিত্র কোরআন এবং মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লামকে কেবল মুসলমানদের জন্য পাঠানো হয় নি, পাঠানো হয়েছে সকল দেশের সকল মানুষের জন্য। পবিত্র কোরআন এবং মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর হাদীসেই পাবেন এ কথা। পবিত্র কোরআন এবং মহানবী সাল্লাল্লাহু আ’লাইহি ওয়াসাল্লাম- এর আদর্শ আপনার দরজায় দণ্ডায়মানÑ শুধুমাত্র একটু জানার চেষ্টা করুন। মহান ও পবিত্র স্রষ্টা আমাদের সকলকে সত্য বুঝার ক্ষমতা দান করুন, আমীন (কবুল করুন)।
লেখক : সহকারী অধ্যাপক, সমাজকর্ম বিভাগ
সিলেট সরকারী মহিলা কলেজ, সিলেট।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now