শীর্ষ শিরোনাম
Home » আর্ন্তজাতিক » আমি ‘গভীরভাবে ব্যথিত’: সুজাতা সিং

আমি ‘গভীরভাবে ব্যথিত’: সুজাতা সিং

ভারতের পররাষ্ট্র সচিবের পদ থেকে আকস্মিকভাবে বরখাস্ত হয়ে ‘গভীরভাবে ব্যথিত’ সুজাতা সিং। দীর্ঘ ৩৯ বছর প্রশাসনিক দায়িত্ব পালনের পর এভাবে তাকে বিদায় নিতে হবে, তা ভাবতে পারেননি তিনি। তার সুনাম ক্ষুণœ করতে বিভিন্ন গণমাধ্যম বানোয়াট খবর প্রচার করছে বলে অভিযোগ এনেছেন তিনি। গতকাল তিনি বলেন, গত দুই দিনে আমি যেসব মন্তব্য দেখেছি, তা আমাকে গভীরভাবে ব্যথিত করেছে। আমি মনে করি, নিচে নামা ও নোংরামি করার কোন প্রয়োজন ছিল না। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা পিটিআই। তিনি পদত্যাগের কাগজপত্র জমা দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, কোন অনুষ্ঠানিকতা ছাড়া এবং বাড়াবাড়ি না করেই তিনি দায়িত্ব ছাড়তে চেয়েছিলেন। তিনি বলেন, কিন্তু, দুর্ভাগ্যজনকভাবে তেমনটা ঘটেনি এবং আমি মনে করি আমার সুনাম ক্ষুণœ করা হয়েছে। আগামী আগস্ট মাসে পররাষ্ট্রসচিব হিসেবে তার মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু, অপ্রত্যাশিতভাবে ২ বছর পূর্ণ হওয়ার ৭ মাস আগেই সুজাতাকে বরখাস্ত করা হয়। গত বুধবার দুপুর ২টার দিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ তাকে টেলিফোন করেছিলেন। ফোনে সুষমা তাকে বলেন, খুব ভালো কোন খবর তার কাছে নেই। সুষমা সুজাতাকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্করকে নতুন পররাষ্ট্র সচিব হিসেবে নিয়োগ দিতে চান। সুজাতা সিং বলেন, তিনি তার পদত্যাগ পত্র তৈরিই করে রেখেছিলেন। কিন্তু, তাকে বলা হয় তেমনটা করলে তিনি অবসরের সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হবেন। সেই কারণে সন্ধ্যা ৭টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শনামতো ‘অগ্রিম অবসর’ চাওয়ার জন্য আবেদনপত্র পাঠান। এর কয়েক ঘণ্টা পর সরকারি ওয়েবসাইটে আনুষ্ঠানিকভাবে দেয়া ঘোষণায় বলা হয়, পররাষ্ট্র সচিবের মেয়াদ কমানো হয়েছে এবং সত্বর তা কার্যকর হবে। এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার ভারত সফর সফলভাবে সমাপ্ত হওয়ার পরই সুজাতা সিংকে বরখাস্ত করা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে। এ ব্যাপারে সুজাতা সিং বলেন, সিদ্ধান্তটি আগেই নেয়া হয়েছিল এবং আমি এমন কিছুই করতে পারতাম না, যা এ সিদ্ধান্তকে পরিবর্তন করতে পারতো। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পারফরম্যান্স নিয়ে ঘনঘন নেতিবাচক মন্তব্য করার প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন তিনি। সুজাতা সিং বলেন, এগুলো ‘ব্যক্তিগত পর্যায়ে’ না নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছিল তাকে এবং বলা হয়েছিল, অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গেও এমনটা ঘটে। তিনি আরও বলেন, বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে সৎ থাকাটা ছিল গুরুত্বপূর্ণ। এক পর্যায়ে সুজাতা বলেন, সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বেসামরিক পরমাণু চুক্তির বিষয়ে যে বোঝাপড়ায় উপনীত হয়েছে ভারত, তার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলো নিয়ে কাজ করার কৃতিত্ব দাবি করে কি আমি আমার যুক্তি খ-ানো শুরু করবো? দায়-দায়িত্ব এবং প্রশাসনিক বিষয়গুলো নিয়ে? বিশ্বাস করুন, যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনায়, সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে, কি করতে হবে এবং কি করা যাবে না, সেসব বিষয়ে দিক-প্রদর্শনে আমি পুরোপুরি সম্পৃক্ত ছিলাম। সুজাতা বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কে আমি খুব ঘনিষ্ঠভাবে সহযোগিতা করেছি। মোদি সরকারের গত ৮ মাস পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যাবে, এ সময়ে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং উচ্চ পর্যায়ের কূটনৈতিক সাফল্য এসেছে। সুজাতা সিং বলেন, প্রধানমন্ত্রী (নরেন্দ্র মোদি) বা পররাষ্ট্রমন্ত্রী (সুষমা স্বরাজ) পৃথকভাবে যার যার দায়িত্ব পালন করলে, এর কিছুই ঘটতো না।

——মানবজমিন

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now