শীর্ষ শিরোনাম
Home » আর্ন্তজাতিক » ভারতে ক্ষমা চাইলো বাংলাদেশ হাইকমিশন

ভারতে ক্ষমা চাইলো বাংলাদেশ হাইকমিশন

ডেস্করিপোর্ট: কলকাতা বইমেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নের সামনে বিক্ষোভ করেছে বিজেপি। কাশ্মীরকে বাদ দিয়ে ওই প্যাভিলিয়নে ভারতের মানচিত্র বিক্রি হচ্ছিল। বিজেপি বলছে, এর মাধ্যমে ভারতের সার্বভৌমত্বকে অমর্যাদা করা হয়েছে। এর প্রতিবাদে শনিবার বিজেপি নেতাকর্মীরা বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নের সামনে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। এ অবস্থায় বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশন প্যাভিলিয়ন বন্ধ করে দেয়। হাই-কমিশনের তরফে ভুল মানচিত্র বিক্রির জন্য ক্ষমা চাওয়া হয়েছে। বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে সব মানচিত্র। বইমেলায় বাংলাদেশের সরকারি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পর্যটন বিভাগের স্টলে ওই মানচিত্র বিক্রি হচ্ছিল। উদ্ভূত পরিস্থিতির উত্তাপ বাংলাদেশেও পৌঁছেছে। সরকার গঠন করেছে ৭ সদস্যের তদন্ত কমিটি। গতকাল বিবিসিকে এ কথা বলেছেন বাংলাদেশের পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। বিবিসি বলেছে, ভারত ও পাকিস্তানশাসিত কাশ্মীরের মধ্য দিয়ে যে নিয়ন্ত্রণরেখা চলে গেছে, সেটাকেই সারা বিশ্ব দুই দেশের মধ্যে ডিফ্যাক্টো সীমান্তের মর্যাদা দেয়। আন্তর্জাতিক স্তরের সব মানচিত্রেও তারই প্রতিফলন থাকে। কিন্তু জম্মু ও কাশ্মীরের পুরোটাই যেহেতু ভারত তাদের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ বলে দাবি করে থাকে, তাই ভারতে সরকারি ও বেসরকারি সব মানচিত্রে কিন্তু তার গোটাটাই ভারতের অংশ হিসেবে দেখানো হয়। এমনকি চীনের নিয়ন্ত্রণে থাকা আক্সাইচিনও তার মধ্যেই পড়ে। কিন্তু এবারের কলকাতা বইমেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নে তাদের পর্যটন বিভাগ যে ট্যুরিজম ব্রশিউর বিলি করছিল, তার ম্যাপে ভারতের সেই অবস্থান মর্যাদা পায় নি বলে অভিযোগ করা হয়েছে। শনিবার সেই ইস্যুতে স্টলের সামনে বিক্ষোভ দেখান বিজেপির কর্মীরা। তার পরই এ মানচিত্র বিভ্রাট নিয়ে গতকাল তদন্তের নির্দেশ দেন বাংলাদেশের পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। তিনি বলেন, আমি যে ম্যাপটা দেখেছি, ম্যাপে এ জিনিসটা অস্পষ্ট। খুব স্পষ্ট কিছু নেই আর কি। তবুও আমি মনে করি এ ধরনের ভুল, এ ধরনের কোন ধারণা যদি সৃষ্টি হয়, সেটা ঠিক না। সে কারণে ইতিমধ্যে তদন্ত কমিটি করেছি। তারা বিষয়টা খতিয়ে দেখবেন, কেন এটা হলো, কিভাবে এটা হলো। তিনি জানিয়েছেন, এ তদন্ত কমিটি হবে সাত সদস্যের। তবে তিনি যেটাকে মানচিত্র নিয়ে অস্পষ্টতা বলে মনে করছেন, বিজেপি কিন্তু বলছে এটা পরিষ্কার ভারতের সার্বভৌমত্বের অমর্যাদা। বইমেলার শুরুতেই তারা কলকাতায় বাংলাদেশ উপ-দূতাবাসে এ ব্যাপারে প্রতিবাদপত্র পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু তাতে কাজ হয়নি বলেই বিজেপির যুব মোর্চার সদস্যরা বইমেলায় বাংলাদেশ প্যাভিলিয়নের সামনে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন। রাজ্যের এ সংগঠনের শীর্ষ নেতা সায়ন্তন বসু বলেন, একটা বিকৃত মানচিত্র, সেটা কি করে কলকাতা বুক ফেয়ারের মতো একটা ইন্টারন্যাশনাল ফেমাস বুক ফেয়ারে এভাবে খোলাখুলি বিক্রি হচ্ছে। এমনকি আমেরিকার পক্ষ থেকেও যদি কোন সংস্থা এ ধরনের ম্যাপ প্রকাশ করে কোথাও টানায়, তাহলে আমরা তার প্রতিবাদ করি, ভারত সরকার অফিসিয়ালি প্রতিবাদ করে। সেটা যেই ক্ষমতায় থাকুক। বিজেপি থাকুক, কংগ্রেস থাকুক, সে সরকারের পক্ষ থেকেই প্রতিবাদ করা হয়, বিদেশেও যদি কেউ এ ধরনের ম্যাপ কোথাও প্লেস করে। কিন্তু কলকাতার বুকে এ ধরনের ম্যাপ শুধু প্লেস হচ্ছে না, এক্সিবিশন হচ্ছে, বিক্রি হচ্ছে। বিজেপির এ বিক্ষোভের মুখে বইমেলায় বাংলাদেশের ওই স্টলটি তড়িঘড়ি বন্ধ করে দেয়া হয়। মেলার আয়োজক পাবলিসার্স অ্যান্ড বুকসেলার্স গিল্ডের পক্ষ থেকে কলকাতায় বাংলাদেশ মিশনে যোগাযোগ করা হলে, কর্মকর্তারাও তাদের জানান, মানচিত্র নিয়ে এ ভুল সম্পূর্ণরূপে অনিচ্ছাকৃত এবং ওই ব্রশিউরগুলো অবিলম্বে প্রত্যাহার করে নেয়া হচ্ছে। পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, সরকারি কাজকর্মে বাংলাদেশ ভারতের যে ম্যাপ ব্যবহার করে থাকে সেটা এটা নয়। সম্ভবত এর দায় গ্রাফোসম্যান নামে মানচিত্র প্রস্তুতকারী একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের। তিনি বলেন, আমি যেটা দেখলাম আর কি, গ্রাফোসম্যান, যারা অথোরাইজড ম্যাপ প্রিন্টার আর কি, তাদের ওখান থেকে ম্যাপটা এসেছে। এখন এটা যখন প্রিন্টিং করেছে, যে কমিটি ছিল, তাদের এটা ভালভাবে দেখা উচিত ছিল। তারা হয়তো দেখে দেয় নি। সেজন্য আমি তদন্ত কমিটি করেছি, যে ম্যাপ আমরা ইউজ করি, সে ম্যাপের সঙ্গে এর ডিফারেন্সটা কি এবং এ ধরনের কোন ভুল থাকলে সেটার জন্য দায়ী কে, সেটা জানার জন্য আমরা ইতিমধ্যে তদন্ত কমিটি করেছি। তদন্তে কাদের দিকে আঙুল উঠবে তা পরের কথা। কিন্তু পর্যবেক্ষকরা একটা ব্যাপারে নিশ্চিত, কাশ্মীরের ম্যাপ নিয়ে বিতর্ক যাতে বড় কোন কূটনৈতিক সংঘাতে না গড়ায় সেজন্যই বাংলাদেশ সরকার এত দ্রুত পদক্ষেপ নিয়েছে।
মা.জ/২-২-১৫

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now