শীর্ষ শিরোনাম
Home » ধর্ম » বাল্যবিবার নিরোধের নামে কোরআন হাদীস বিরুধী প্রস্তাবিত আইন বাতিল করতে হবে — সিলেটের ইমাম ও খতীবগণ

বাল্যবিবার নিরোধের নামে কোরআন হাদীস বিরুধী প্রস্তাবিত আইন বাতিল করতে হবে — সিলেটের ইমাম ও খতীবগণ

সিলেটের বিভিন্ন মসজিদের ইমাম ও খতীব গন এক বিবৃতিতে বাল্যবিবাহের নামে কোরআন হাদীস বিরুধী প্রস্তাবিত আইন বাতিল করার দাবী জানিয়েছেন। শুক্রবার দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদ কে সামনে নিয়ে বিভিন্ন মসজিদের ইমামগণ জুমার খুৎবায় বয়ান রেখে বলেছেন, সরকার বাল্য বিয়ে বন্ধের নামে দেশে অবাধ যৌনাচারকে বৈধকরার চেষ্টাচালাচ্ছে।
শাখারীকুনা মসজিদের ইমাম ও খতীব হাফিজ মাওলানা শাহেদ আহমদ, গালমশাহর জামে মসজিদের ইমাম ও খতীব মাওলানা হোসাইন সৌরভী, বিশ্বনাথ আলিপাড়া জামে মসজিদের ইমাম ও খতীব মাওলানা বিলাল আহমদ প্রমুখ উলামায়ে কেরাম মনেকরেন, বাল্যবিবাহের নামে কোরআন হাদীস বিরুধী কোন আইন এই দেশের ধর্মপ্রাণ জনগণ মেনেনিবেনা। বাল্যবিয়ে নিরোধে প্রস্তাবিত আইনটি নিয়ে দেশের র্শীষ আলেম সমাজের মতামত নেওয়ার ও দাবী জানিয়ে তারা বলেন, বির্তকিত এই আইন বাতিল না করলে সর্বস্থরের জনতাকে সাথে নিয়ে জোরদার আন্দোলন গড়ে তোলা  হবে। উলামায়ে কেরাম বলেন, একজন ছেলে-মেয়ে  প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার শরীয়তের মাপকাটি হলো সে বালেগ হওয়া, এতে ১৮ বা ২১ বছর ধর্তব্য নয়। বালেগ হওয়ার পরে ছেলে-মেয়ের বিয়ে দেওয়া সেখানে ইসলামে বৈধতা দিয়েছে, সেখানে কোন মুসলমানের সন্তানকে বাধাদেওয়ার এখতিয়ার সরকারের নেই। এই আইনটি যদি  জোরকরে চাপিয়ে দেওয়া হয় তাহলে দেশে অবাধ যৌনাচার বা যিনার মতো কর্মকান্ড বৃুদ্ধিপাবে আর  এতে করে আমাদের মুসলিম সমাজব্যবস্থা ভেঙ্গে যাবে।
উল্লেখ্য, প্রস্তাবিত বাল্যবিয়ে নিরোধ আইন অনুসারে ২১ বছরের বেশি কোনো পুরুষ কিংবা ১৮ বছরের বেশি বয়সী কোনো নারী কোনো শিশুকে বিয়ে করলে তা বাল্যবিয়ে বলে গণ্য হবে। বাল্যবিয়ের অপরাধ প্রমাণিত হলে ২ বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত করা হবে। বাল্যবিয়ে রোধে কার্যকর ভূমিকা না রাখলে বাবা-মাকে উল্লিখিত দন্ডে দন্ডিত করা হবে; বাতিল করা হবে সংশ্লিষ্ট ম্যারিজ রেজিস্ট্রারের লাইসেন্স।
মন্ত্রিসভার বিবেচনার জন্য প্রস্তুত করা আইনের খসড়ায় বলা হয়েছে, বিয়ের সময় মেয়ে ও ছেলের বয়স প্রমাণের জন্য সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, ইউনিয়ন পরিষদের দেয়া জন্মসনদ অথবা জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসপোর্ট, এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার সনদ দেখাতে হবে। তবে বয়স প্রমাণে এফিডেভিট কোনো অবস্থায় গ্রহণযোগ্য নয়। বয়স প্রমাণে জালিয়াতির আশ্রয় নিলে সনদ প্রদানকারীকে ২ বছর বিনাশ্রম কারাদন্ড, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা কিংবা উভয় দন্ডে দন্ডিত করা হবে। নাবালক মেয়ে-ছেলেদের বিয়ে রেজিস্ট্রি করলে ম্যারিজ রেজিস্ট্রারের লাইসেন্স বাতিল এবং ২ বছরের জেল ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত করা হবে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now

Leave a Reply

Your email address will not be published.