শীর্ষ শিরোনাম
Home » রাজনীতি » পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারের নতুন ফর্মূলা !

পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারের নতুন ফর্মূলা !

আবু তাহসীনুল আমীন: চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকার নানা কৌশল গ্রহণ করেছে। তন্মধ্যে বিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের (ডিসিসি- উত্তর ও দক্ষিণ) নির্বাচন্একটি বলেসেংশ্লিষ্টরা মনে করছেন। বিরোধী দলকে অবরোধ-হরতাল থেকে নিবাৃচন মুখি করতেই সরকারের এই নতুন ফর্মূলা।
জানাগেছে,  সোমবার সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ডিসিসি- উত্তর ও দক্ষিণ নির্বাচনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ।
বৈঠক সুত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্থানীয় সরকার ও সমবায় মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামকে বলেন, আর কত দিন সিটি করপোরেশন নির্বাচন ঝুলিয়ে রাখবেন। দ্রুততম সময়ে বিভক্ত দুই ডিসিসির নির্বাচনের কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। এসময় সৈয়দ আশরাফ চুপ ছিলেন।

আইনি জটিলতায় প্রায় সাত বছর আটকে আছে ডিসিসি নির্বাচন। প্রশাসক নিয়োগ করে রুটিন কাজ করা হচ্ছে। তবে গত বছরের ৮ ডিসেম্বর মন্ত্রিসভা বৈঠকে প্রশাসকদের মেয়াদ বাড়ানোর প্রস্তাব অনুমোদন না করে কিভাবে ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন করা যায়, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব দিতে বলেন প্রধানমন্ত্রী।

গত ৪ ফেব্রুয়ারি প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ঢাকা সিটি করপোরেশন (ডিসিসি) নির্বাচনের জন্য নির্বাচন কমিশন (ইসি) প্রস্তুত রয়েছে।

এদিকে চলতি অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটেও এই দুই সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের ব্যয়ও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এর জন্য বাজেটে অতিরিক্ত ৪৫ কোটি টাকা সংস্থান রাখার জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়কে চিঠি দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

২০১১ সালের ২৯ নভেম্বর জাতীয় সংসদে আইন পাসের মাধ্যমে ঢাকা সিটি করপোরেশনকে দুই ভাগ করা হয়। অভিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের সর্বশেষ নির্বাচন হয় ২০০২ সালের এপ্রিলে। এরপর টানা প্রায় ১০ বছর মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা। প্রশাসক থাকা অবস্থায় ২০১২ সালের ২৯ এপ্রিল ডিসিসি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এতে ২৪ মে নির্বাচনের দিন ধার্য করা হয়। কিন্তু  ভোটার তালিকা ও সীমানা নির্ধারণ সংক্রান্ত জটিলতা থাকায় নির্বাচনের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে আদালত। এরপর ২০১৩ সালের ১৩ মে আদালত নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়। আবার ওই বছরের অক্টোবর- নভেম্বরের মধ্যে নির্বাচনের ঘোষণা দেয় কমিশন। কিন্তু ঢাকার সুলতানগঞ্জ ইউনিয়ন ঢাকা সিটি করপোরেশনের অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় আবারো দেখা দেয় জটিলতা। এরপর নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়- দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর ডিসিসি নির্বাচন দেয়া হবে। কিন্তু এক বছর পেরিয়ে গেলোও এখন পর্যন্ত তার কোনো উদ্যোগ নেই। সাম্প্রতিক অবরোধ ও হরতাল কর্মসূচিকে ফ্লপ করার পদক্ষেপ হিসেবেই সরকার ডিসিসি নির্বাচন আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নতুন ঘোষণায় আশা কিছুটা হলেও জেগে উঠেছে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now