শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » সিলেটরিপোর্ট-এর সাথে একান্ত আলাপচারিতায় আল্লামা তাফাজ্জুল হক : ’আমি ব্যর্থ সংলাপের পক্ষে নই’

সিলেটরিপোর্ট-এর সাথে একান্ত আলাপচারিতায় আল্লামা তাফাজ্জুল হক : ’আমি ব্যর্থ সংলাপের পক্ষে নই’

সংক্ষিপ্ত পরিচয়: শায়খুল হাদীস হযরত মাওলানা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী এই সময়ের একজন বরেণ্য হাদীস বিশারদ, দেশেরর্শীষ অন্যতম আলেমেদ্বীন। তিনি ১৯৩৮ সালে হবিগঞ্জ জেলার সদর থানার কাটাখালি গ্রামে একসম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মাওলানা নুরুজ্জামান ওরফে আব্দুর নূর পেশায় একন স্বনামধন্য শিক্ষক ছিলেন। রায়ধরে মাওলানা মুখলিসুর রহমান ও মাওলানা মুছিহুর রহমান সাদী তাঁর মামা ছিলেন। রায়ধর মাদ্রাসায় কিছু দিন লেখাপড়ার পর চলে যান দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসায় । ১৯৬০ সালে হাটহাজারী থেকে দাওরায়ে হাদীস পাশ করেন। এর পর হাদীসের উচ্চতর ডিগ্রী অর্জনের জন্য চলে যান লাহোর। জামেয়া আশরাফিয়া লাহোরে গিয়ে আল্লামা ইদ্রিস ও আল্লামা আব্দুল্লাহ দরখাস্তি (র) এর সান্নিধ্য লাভে ধন্যহন। ১৯৬১ সালে হাদীস পড়ার পাশাপাশী মাত্র ৬ মাসে পবিত্র কোরআন শরীফ হিফজ সম্পন্ন করেন। এসময় জামিয়া ইসলাময়িা নিউটন করাচি থেকে তাখাচ্চুসের সনদ হাসিল করেন।  এর পর চলে যান বিশ্ববিখ্যাত ইসলামী বিদ্যাপীঠ দারুল উলুম দেওবন্দে। ১৯৬২ সালে শায়খুল হাদীস আল্লামা জাকারিয়া , ফখরুদ্দীন মুরাদাবাদী ও আল্লামা ইব্রাহিম বলিয়াবী (র) এর সান্নিধ্য গ্রহণ করে খুসুসী সনদ লাভ  করেন।
১৯৬৩ সালে জামেয়া ছাদিয়া রায়ধর থেকে অবৈতনিক ভাবে শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবনের সুচনা করেন।   এরপর কুমিল্লায় ৩ বছর শিক্সকতার পর ময়মনসিংহ জেলার ঔতিহ্যবাহী জামিয়া আশরাফুল উলুম বালিয়া মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস পদে নিযুক্ত হন। একই সময় ময়মনসিংহের তারাকান্দায় একটি মসজিদ,ঈদগাহ ও মদীনাতুল উলুম তারাকান্দা মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাকরেন। ১৯৬৮ সালে সেহড়া মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস নিযুক্ত হন। ২০০৩ সালে হবিগঞ্জ শহরে স্বীয় বাসা সংলগ্ন নুরুল হেরা মসজিদ কম্পেলক্্র নির্মান করেন।
১৯৬৭ সালে পরিনয় সূত্রে আবদ্ধ হন। ময়মনসিংহের ঐতিহ্যবাহী খান্দানী পরিবার মাইজবাড়ীর মাওলানা আরিফ রব্বানীর ৪র্থ কন্যা তাঁর সহধর্মীনী। ৫ ছেলে ৪ মেয়ের জনক। খলিফায়ে মাদানী হযরত মাওলানা বদরুল আলম শায়খে রেঙ্গা (র) কর্তক ১৯৭৯ সালে তিনি খেলাফত প্রাপ্তহন। তিনি বর্তমানে জামেয়া উমেদ নগর হবিগঞ্জ মাদ্রাসার মহাপরিচালক ও শায়খুল হাদীসের দায়িত্ব পালন করছেন। রাজনৈতিক ময়দানে তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম হবিগঞ্জ জেলার সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সহসভাপতি।

কথোপকথন:

গত শনিবার ১৪ ফেব্র“য়ারী সিলেট শহরতলীর মেজরটিলাস্থ জামিয়া দারুল কোরআন মাদ্রাসায় অনুষ্ঠিত এক সম্মেলনে তিনি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে গুরুত্বপর্ন বক্তব্য রাখেন। এসময় সিলেট রিপোর্টএর সম্পাদক মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরীর সাথে দেশের চলমান অচলাস্থানিয়ে কথা হয়। মাওলানা তাফাজ্জুল হক সরকারের বিভিন্ন ইসলাম বিরুধী কর্মকান্ডের নিন্দাজানান। বিশেষ করে সমাজ কল্যান মন্ত্রী সৈয়দ মুহসিন আলীর জন্য দু:খ প্রকাশ করে বলেন, আমার বুঝে আসেনা মুসলমানের ঘরে জন্ম নিয়ে তিনি কি ভাবে পর্দার (বোরকার) বিরুদ্ধে কথা বলেন। সরকার ও বিরোধী দলের অনড় অবস্থানের কারণে প্রতিদিনেই মানুষ মারাযাচ্ছে,গাড়ী পুড়ছে,দেশের ব্যপাক ক্ষয়ক্ষতি হচ্ছে এ থেকে উত্তরনের পথ কী , এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এসব আমাদের কর্মের ফসল। তিনি কোরআন হাদীসের দলীল পেশ করে বলেন, যে সমাজের বা দলের প্রধান নারী সে দেশের জনগণের উপর আল্লাহর গজব অনির্বায। আমরাতো সেই অবস্থানেই আছি। উত্তরণের জন্য একমাত্র পথ হলো আল্লাহর নিকট খাটি তাওবা করা।  উলামায়ে কেরামের করনীয় সম্পর্কে তিনি বলেন, দেশের রাজনীতি এখন দুই মেরুতে । তাই তুলনা মুলক মন্দের ভালটার সাথে থেকেই আমাদেরকে উত্তরণের পথ খুঝতে হবে, জনগণকে বুঝাতে হবে। উলামায়ে কেরামকে রাজনৈতিক ময়দানে আরো সক্রিয় হতে হবে।  এসময় শাপলা চত্বরের প্রসঙ্গ তুলে তিনি বলেন, হাটহাজারীর হযরত (আল্লামা শাহ আহমদ শফী) আমাদের জন্য রহমত। তিনি এই যুগের মুজাদ্দেদের ভমিকা পালন করেছেন। তিনি যদি শাহবাগী নাস্তিকদের মোকাবেলায় এগিয়ে না আসতেন তাহলে এতোদিনে ওরা দেশের পরিবেশটাই পাল্টিয়ে দিতো। শাপলা চত্বরে ইসলামী জনতার রক্তদান বৃথা যাবেনা, উল্লেখ করে তিনি বলেন, উলামায়ে কেরামকে জেল জুলুমের ভয় দিখেয়ে লাভ নেই। আমরা মহানবীর আদর্শের সৈনিক, বদর-ওহুদ, কারবালা,বালাকোটের ন্যায় শাপলা চত্বরে আমরা ত্যাগ স্বীকার করেছি। এজন্য আল্লাহর কাছে পরওনা আছে….। উলামাযে দেওবন্দকে সত্যিকারের আশিকে নবী উল্লেখ করে আল্লামা হবিগঞ্জী বলেন, রাসুলের শানে বেয়াদবীর শাস্তির দাবীতে দেওবন্দিরাই আহমদ শফীর নেতৃত্বে গর্জে উঠেছিলো। তাই সত্যিকারের নায়বে নবী দেওবন্দিরাই।
দেশেরÍাজনৈতিক অস্তিরতা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সবাই সংলাপ সংলাপ বকছেন, ’আমি ব্যর্থ সংলাপের পক্ষে নই’। সংলাপ একটা হলেও তা ব্যর্থ হওয়ার সম্ভাবনাই বেশী। কারণ সরকার যদি দেশ ও জনগেনের কল্যানের কথা বিবেচনা না করে  লোক দেখানো কোন সংলাপে যায়, তাহলে এমন সংলাপ হাস্যকর বলে মনে করি। কোন ব্যর্থ সংলাপ করে লাভ নেই।  বরং সংলাপের আগে প্রয়োজন হলো ৫ ম সংশোধনী বাতিল করা। আওয়ামীলীগ সংবিধানের দোহাই দিয়ে অনেক কিছুই করছে। তাই তারা যেহেতু সংসদে আছেন –তারা আন্তরিক হলে আগে সংবিধান সংশোধন করুক। জনগনের কথা বিবেচনায় এনে দেশের কল্যানের কথা ভেবে শেখ হাসিনার উচিত হলো একটি সুষ্ট নির্বাচনের ঘোষণা দেওয়া। আর এই নির্বাচনের ঘোষণা ও কার্যকরের মাধ্যমেই দেশ স্বাভাবিক হতে পারে বলে আমি মনেকরছি। একজন নাগরিক হিসেবে আমি মনে করি বর্তমান প্রধানমন্ত্রীকেই এব্যাপারে উদ্যোগী হতে হবে।’

সিলেটেরিপোর্টএর সাথে একান্ত আলাপচারিতায় আল্লামা তাফাজ্জুল হক হবিগঞ্জী দেশের চলমান রাজনৈতিক অস্তিরতা নিরসনকল্পে সংলাপে সমাধান নয় বলেছেন। তিনি ৫ম সংশোধনী বাতিলের দাবী জানিয়েছেন। এবিষয়ে বিস্তারিত জানতে নজর রাখুন সিলেটরিপোর্ট- www.sylhetreport.com  এ

 

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now

Leave a Reply

Your email address will not be published.