শীর্ষ শিরোনাম
Home » সিলেট » চিনে ফেলায় খুন করা হয় স্কুল ছাত্র সাঈদকে, গেদার জবানবন্দি

চিনে ফেলায় খুন করা হয় স্কুল ছাত্র সাঈদকে, গেদার জবানবন্দি

জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের খাশিলা গ্রামের সন্তান ‘সিলেট শহরে বসবাসকারী হযরত শাহ মীর (রহ.) সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্র আবু সাঈদকে অপহরণ করা হয়েছিল মুক্তিপণের জন্য। অপহরণের পর দেখা যায় সাঈদ পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমানের পূর্বপরিচিত। সাঈদ চিনে ফেলে এবাদুরকে। তাই খুন করা ছাড়া অন্য কোন উপায় ছিল না।’
শিশু আবু সাঈদ খুনের ঘটনায় গ্রেফতারকৃত র‌্যাবের ‘সোর্স’ পরিচয়দানকারী আতাউর রহমান গেদা রবিবার সিলেট মহানগর হাকিম ১ম আদালতের বিচারক সাহেদুল করিমের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এমন তথ্য জানিয়েছে।
জবানবন্দির বরাত দিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালী থানার এসআই শাহ ফজলে আজিম পাঠোয়ারী জানান- অপহরণের পর সাঈদকে নিয়ে আসা হয় বিমানবন্দর থানার কনস্টেবল এবাদুরের কুমারপাড়া ঝর্ণারপাড়েরর বাসায়। বাসায় আনার পর কনস্টেবল এবাদুর জানায় সাঈদ তার পূর্বপরিচিত। সাঈদও চিনে ফেলে এবাদুরকে। এ অবস্থায় সাঈদকে ছেড়ে দিলে নিজেরা ফেঁসে যাবে এমন আশঙ্কায় খুন করা হয় তাকে। খুন করার সময় গেদা নিজে সাঈদের গলা চেপে ধরে।এসআই পাঠোয়ারী আরও জানান, সাঈদকে খুনের পর মুক্তিপণ আদায় ও লাশ গুমের চেষ্টা চালানো হয়। কিন্তু এর আগেই পুলিশের হাতে ধরা পড়ে যায় সে এবং তার সহযোগী পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর ও জেলা ওলামালীগের সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম রাকিব ওরফে আবদুর রাকিব।
কোতোয়ালী থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই ফায়াজ আহমদ জানান, আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে গেদা অপহরণ ও হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত তার ৫ সহযোগীর নাম উল্লেখ করেছে। এর মধ্যে পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান ও জেলা ওলামালীগের সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম রাকিব গ্রেফতার হওয়ার পর আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। বাকিদের একজন হচ্ছেন জেলা ওলামা লীগের প্রচার সম্পাদক মুহিবুর রহমান মাছুম। অন্য দুইজনের নাম পরিচয় তদন্তের স্বার্থে উল্লেখ করেননি তিনি।প্রসঙ্গত, গত ১১ মার্চ রায়নগর থেকে অপহৃত হয় স্কুলছাত্র আবু সাঈদ। এরপর তার পরিবারের কাছে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। ১৪ মার্চ নগরীর ঝর্ণারপাড়স্থ পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমানের বাসা থেকে সাঈদের বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করা হয়। ওইদিন কনস্টেবল এবাদুর, জেলা ওলামালীগের সাধারণ সম্পাদক নূরুল ইসলাম রাকিব ও র‌্যাবের সোর্স পরিচয়দানকারী আতাউর রহমান গেদাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now