শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » রবীন্দ্র-সঙ্গীত শিল্পী বন্যা হয়তো তা জানেন না

রবীন্দ্র-সঙ্গীত শিল্পী বন্যা হয়তো তা জানেন না

সৈয়দ মবনু :  ‘মাদরাসায় পড়ে মুক্ত মনের মানুষ হওয়া সম্ভব নয়।’ একথা নাকি বলেছেন রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা। সাথে সাথে তিনি নাকি কবি গুরুর মর্মবাণী আত্মসম্মান ও আত্মনির্ভরতার আদর্শ শিক্ষা গ্রহণের আহবান জানিয়েছেন। সেই সাথে তিনি প্রবাসিদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘আপনারা মাদরাসায় সাহায্য না করে যেসব প্রতিষ্ঠান মুক্তবুদ্ধি ও মুক্তচিন্তা চর্চা শেখায় সেখানে দান করলে সমাজে উদার নৈতিক মানুষ সৃষ্টি হবে।’
রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা একথাগুলো নাকি ২৩ মার্চ ২০১৫ লন্ডনের একটি হোটেলে গান গাইতে গিয়ে বলেছেন। সেখানে নাকি বিচারপতি শামসুদ্দিন আহমদ মানিকও ছিলেন। একথাগুলো প্রচার করেছে একটি অনলাইন মিডিয়া ।
রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যাকে আমরা জানি রবীন্দ্র-সঙ্গীত শিল্পী হিসেবে। কিন্তু তাঁর এই বক্তব্য প্রমাণ করছে তিনি রবীন্দ্রনাথের গান গাইলেও রবীন্দ্রনাথের জীবন, পরিবার এবং আদর্শ সম্পর্কে সম্পূর্ণ অজ্ঞ। বাংলার বিশিষ্ট্য দার্শনিক আবুল মনসুর আহমদের একটি কথা আজ আবারও সত্য বলে প্রমাণ হলো। তিনি বলেছিলেন-যাদের গলায় শক্তি থাকে বেশি তাদের মনের শক্তি কম। শ্রদ্ধেয় বন্যার গলায় শক্তি আছে কিন্তু চিন্তাশক্তি যে এতকম তা আমার ধারণায়ও ছিল না। একজন মানুষ সারাজীবন রবীন্দ্রনাথের গান গেয়েও জানেন না রবীন্দ্রনাথের ধর্ম-দর্শন-চিন্তা এবং পরিবার সম্পর্কে তা ভাবতেও কষ্ট লাগে। কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একজন ‘ব্রাহ্মচারী’ কবি ছিলেন। বংশগতভাবে তিনি ‘ব্রাহ্মণ’ হলেও তাঁর পরিবার তাঁর দাদারযুগ থেকে রাজা রামমোহন রায়ের চিন্তা-চেতনার বিশ্বাসী হয়ে উঠেন। রবীন্দ্রনাথের দাদা দ্বারকানাথ ঠাকুরের জীবনী পড়লে বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে যাবে। রাজা রামমোহন রায় পাঠনা মাদরাসা থেকে টাইটেল পাশ করে প্রথমেই হিন্দু ধর্মে অসংখ্য মুর্তি পূঁজোর বিরুদ্ধে নিরাকার ঈশ্বরের দাওয়াত দিতে শুরু করেন। রামমোহন রায়ের এই দাওয়াত থেকেই বাংলায় গদ্য-সাহিত্যের সূচনা। ভারতবর্ষে মুক্তচিন্তার আন্দোলন মূলত রাজা রামমোহন রায় থেকেই গড়ে উঠেছে। তিনি এই আন্দোলনের জন্যই ‘ব্রাহ্ম সমাজ’ গঠন করেছিলেন, যার মূল প্রচারক ছিলেন রবীন্দ্রনাথের দাদা দ্বারকানাথ ঠাকুর। স্বয়ং দ্বারকানাথ ঠাকুরও মাদরাসায় পড়ে ভাল আরবী-ফার্সীর জ্ঞানী লোক ছিলেন। শুধু রবীন্দ্রনাথের পরিবার নয়, আমরা বাঙালীরা আজ যাদেরকে নিয়ে মুক্তচিন্তার জন্য গর্ব করি তাদের সবাই রাজা রামমোহন রায়ের চিন্তা থেকে গড়ে উঠা। রাজা রামমোহন রায়ের মাধ্যমে বাঙলায় প্রথম মুক্তচিন্তার জন্ম হয়েছে। শুধু রবীন্দ্রনাথের পরিবার আমাদের ‘ব্রাহ্ম’ চিন্তার নয়- উনবিংশ শতাব্দীতে বাংলায় যে রেনেসাঁসের কথা আমাদের গবেষকরা বলে থাকেন, এতেও এই ব্রাহ্মসমাজের ভূমিকা ছিলো উল্লেখযোগ্য। দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৮১৭-১৯০৫), কেশবচন্দ্র সেন (১৮৩৩-১৮৮৪), শিবনাথ শাস্ত্রী (১৮৪৭-১৯১৯), কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (১৮৬১-১৯৪১), জগদিশ চন্দ্র বসু ( ১৮৫৮¬-১৯৩৭), প্রফুল্লচন্দ্র রায় (১৮৬১-১৯৪৪), দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশ ( ১৮৭০-১৯২৫), যতীন্দ্রমোহন সেনগুপ্ত (১৮৮৫-১৯৩৭), বিপিনচন্দ্র পাল (১৮৫৮-১৯৩২) প্রমূখ বাংলার উজ্জ্বল জ্যোতিষ্করা ছিলেন ব্রাহ্মসমাজ বা ব্রাহ্মধর্মের বিশ্বাসী।

অনেকের ভুল ধারণা, কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ধর্ম বিশ্বাসে হিন্দু। না, তিনি হিন্দু ছিলেন না। তিনি এবং তাঁর সমস্ত পরিবার ছিলেন ব্রাহ্ম ধর্মের বিশ্বাসী। তাঁরা দেব-দেবির পূঁজা করতেন না। তাঁরা ছিলেন রাজা রামমোহনের চিন্তার বিশ্বাসে একেশ্বরবাদি। রবীঠাকুরের কবিতা আর রামমোহনের চিন্তাকে পাশাপাশি রেখে একজন পাঠক অতি সহজে কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতার মর্ম বুঝতে পারেন। কারণ কবির উপর রামমোহনের চিন্তার প্রচণ্ড প্রভাব ছিলো। এই প্রভাবের কথা স্বয়ং কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর স্বীকার করেছেন তাঁর এক কবিতায়-

‘হে রামমোহন আজি শতকের বৎসর করি পার
মিলিল তোমার নামে দেশের সকল নমস্কার।
মৃত্যু অন্তরাল ভেদি দাও অন্তহীন দান
যাহা কিছু জরাজীর্ণ তাহাতে জাগাও নব প্রাণ।
যাহা কিছু মূঢ় তাহা চিত্তের পরশমণি তব
এনে দিক উদ্বোধন, এনে দিক শক্তি অভিনব।’

আমাদের বাঙলা অঞ্চলের যে নারী প্রথম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিগ্রীধারী, তিনি হলেন সিলেটের লীলানাগ, লীলানাগের পরিবারও রাজা রামমোহন রায়ের চিন্তার প্রচারক ছিলেন। আমাদের ইতিহাস থেকে স্মরণ রাখতে হবে- রাজা রামমোহন রায়ের মনে মুক্তবুদ্ধি ও মুক্তচিন্তা চর্চার পথ উম্মুক্ত করে দিয়েছিলো পাটনা মাদরাসা। রামমোহনের জীবনীকারকরা লিখেছেন-‘ ইসলামিক শিক্ষা কিশোর রামমোহনের চিন্তাজগতে এক বিরাট বিপ্লব ঘটিয়ে দিয়ে ছিলো। কোরাণই তাঁর ধর্মবিশ্বাসে সর্বপ্রথম এনে দিয়েছিল একটা বিরাট পরিবর্তন। এই ধর্মগ্রন্থ থেকে সবচেয়ে বড় জিনিস যা তিনি লাভ করেছিলেন তা সম্ভবত বিশ্বব্রহ্মান্ডের অধীশ্বরের মহিমা সম্বন্ধে তাঁর ধারণা। মোটকথা, ইসলাম ধর্মের উদারতা তাঁর কৈশোর জীবনেই গভীর ছায়াপাত করেছিলো।’(জীবনী, রামমোহন রচনাবলী, সম্পাদক ডক্টর অজিতকুমার ঘোষ, ১৪ প্রপ্রিল ১৯৭৩ খ্রিস্টাব্দ, হরফ প্রকাশনী, পৃ. ৫৮৩ )।

শ্রদ্ধেয় রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা যদি এ সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে আগ্রহী হন তবে ‘লন্ডন থেকে ওয়ালী মাহমুদের সম্পাদনায় প্রকাশিত ‘লোকন’ লিটলম্যাগে রাজা রামমোহনকে নিয়ে আমার একটি দীর্ঘ গবেষণা রয়েছে, তা সংগ্রহ করে পড়তে পারেন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now