শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » আঙ্গুরা মুহাম্মদপুরে ছাত্র জমিযতের প্রশিক্ষণ কর্মশালায় উবায়দুল্লাহ ফারুক : আ’লীগ গণতন্ত্র হরণ কারী # গণতান্ত্রীক পদ্ধতিতে আমরা পার্লামেন্টে যেতে চাই

আঙ্গুরা মুহাম্মদপুরে ছাত্র জমিযতের প্রশিক্ষণ কর্মশালায় উবায়দুল্লাহ ফারুক : আ’লীগ গণতন্ত্র হরণ কারী # গণতান্ত্রীক পদ্ধতিতে আমরা পার্লামেন্টে যেতে চাই

সিলেট রিপোর্ট: জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জামেয়া মাদানীয়া বারিধারা, ঢাকার শায়খুল হাদীস মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেছেন, ‘ইসলাম ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা আজ নিরাপদ নয়। ইসলাম ও সাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য হক্কানী উলামায়ে কেরামের নেতৃত্বে কাজ করা সময়ের দাবী। তিনি বলেন, বাংলাদেশে এখন গণতন্ত্র বলতে কিছুই অবশিষ্ট নেই। প্রকৃত পক্ষে গণতন্ত্র পুর্ণরুদ্ধার কল্পে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতৃত্বে গণ আন্দোলন গড়ে তোলতে হবে। তিনি আওয়ামীলীগ মহাজোটকে গণতন্ত্র হরণ কারীদল হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, আমরাই প্রকৃত দেশ প্রেমিক। যারা এদেশের জনগনের জানমালের নিরাপত্তা দিতে পারেনা, তাদের ক্ষমতায় থাকার অধিকার নেই। মানবাধিকার ও জনগনের ভোটাধিকার সংরক্ষনের জন্য আওয়ামীলীগকে যে কোন মুল্যে ক্ষমতা থেকে সরাতে হবে। দেশের কাংখিত নেতৃত্ব গ্রহনের জন্য ছাত্র জমিয়ত কর্মীদের যোগ্যতা অর্জনের বিকল্প নেই। সুশাসন কায়েমের জন্য পার্লামেন্টে যেতে হবে। তাই গণতান্ত্রীক পদ্ধতিতে আমরা পার্লামেন্টে যেতে চাই। জমিয়ত একটি নিবন্ধিত সংগঠন,তাই মাঠ পর্যায়ে দলকে সুসংহত করতে সর্বস্থরের উলামায়ে কেরাম,ছাত্র-যুবকসহ আমজনতাকে জমিয়তের পতাকাতলে সমবেত করতে হতে হবে।
তিনি গতকাল বিকেলে বিয়ানীবাজার উপজেলাধীন জামিয়া মাদানিয়া আঙ্গুরা মুহাম্মদপুর মাদরাসায় ছাত্র জমিয়তের এক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান প্রশিক্ষকের বক্তব্যে এসব কথা বলেন। জামিয়ায় অবস্থানরত কানাইঘাটের অধিবাসী ছাত্র জমিয়ত কর্মীদের উদ্যোগে আয়োজিত কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ সিলেট জেলা সভাপতি মাওলানা শায়খ জিয়া উদ্দীন। জামিয়ার সিনিয়র মুহাদিস মাওলানা শায়খ মাহমুদুর রহমান তালবাড়ির সভাপতিত্বে এবং হাফিজ জামাল উদ্দীন, মাসুম আহমদ ও হাফিজ আব্দুর রহমান নািদমের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্টিত কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, সিলেট জেলা জমিয়তের সহসাধারণ সম্পাদক মাওলানা জয়নুল আবেদীন, জকিগঞ্জ উপজেলা জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা বিলাল আহমদ ইমরান, জমিয়ত নেতা মাওলানা আব্দুল হাফিজ শমসের নগরী, সিলেট জেলা যুব জমিয়তের সাবেক প্রচার সম্পাদক মাওলানা রুহুল আমনি নগরী, কানাইঘাট উপজেলা যুব জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক, সিলেট জেলা যুব জমিয়তের প্রচার সম্পাদক মাওলানা সালেহ আহমদ শাহবাগী, বিয়ানবিাজার উপজেলা ছাত্র জমিয়তের সহসভাপতি হাফিজ ফরহাদ আহমদ, কানাইঘাট উপজেলা ছাত্র জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক হাফিজ ফয়েজ উদ্দীন, জমিয়ত নেতা মাওলানা নজরুল ইসলাম আকুনী, কানাইঘাট উপজেলা ছাত্র জমিয়তের অর্থ সম্পাদক নোমান সিদ্দিক। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক মন্ডল, তাওহিদুল ইসলাম, শিহাবুদ্দিন, আবু হুরাযরা, মাওলানা শাহেদ আহমদ, মারুফ আহমদ মারুফ, হাফিজ কামরুল ইসলাম, হাফিজ দেলওয়ার হোসাইন, মো: রুহুল আমীন প্রমুখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা সভাপতি মাওলানা শায়খ জিয়াউদ্দীন বলেন, মানূষকে ধোঁকা দিতে ইসলামের নামে বিভিন্ন ফেরকা আমাদের সামনে আসছে। বিভিন্ন নামে বিভিন্ন রুপে । কেউ আসছে পীরালী তরিকা নিয়ে, আবার কেউ আসছে নিজেদের আহলে হাদীস দাবী করে প্রকৃত পক্ষে এরা বৃটিশ সরকারের দরবারী আলেমদের মতো। তিনি বলেন, যাদের কেউ কেউ নিজেদের দেওবন্দি দাবীকরে সিলেটের সহজ সরল মানুষদের ধোকা দিচ্ছে। এসব ধোঁকাবাজ তথাকথিত পীরদের খপ্পর থেকে নিজেদের হেফাজত করতে হবে। বরিশালের একজন পীরের প্রতি ইঙ্গিত করে মায়খ জিয়া উদ্দীন বলেন, যারা আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বকে মানতে পারেনা, যারা উলামায়ে দেওবন্দের সিয়াসতকে সর্মথন করেনা তারা কখনো দেওবন্দি দাবি করতে পারেনা। যেই পীরের সনদ নেই তিনি স্বঘোষিত পীর, সত্যিকারের পীর হতেহলে সনদ প্রযোজন। তাই সিলেটবাসীকে সত্যিকারের পীর চিনে বয়াত হওয়ার আহবান জানান। অনুষ্ঠানে আয়োজকদের পক্ষ থেকে মাওলানা শায়খ জিয়াউদ্দীন,মাওলানা শায়খ উবায়দুল্লাহ ফারুক ও মাওলানা জয়নুল আবেদীনকে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়।

 

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now