শীর্ষ শিরোনাম
Home » রাজনীতি » ঢাকায় ৪৭ মেয়র প্রার্থী কাউন্সিলর ১৪১৪

ঢাকায় ৪৭ মেয়র প্রার্থী কাউন্সিলর ১৪১৪

সিলেট রিপোর্ট: ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে মেয়র পদে ৪৭ ও কাউন্সিলর পদে ১৪১৪ প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। মনোনয়নপত্র কিনলেও তাতে স্বাক্ষর করতে না পারায় জমা দিতে পারেননি নাগরিক ঐক্যের মাহমুদুর রহমান মান্না। মেয়র পদে ঢাকা উত্তরে ২১ ও দক্ষিণে ২৬ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। উত্তরে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৯৪ ও সংরক্ষিত পদে ১৩৫ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। ঢাকা দক্ষিণে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৬৩২ এবং সংরক্ষিত পদে ১৫৩ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। গতকাল মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষদিনে সর্বাধিকসংখ্যক প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র জমা দেন। এদিন সরকার সমর্থিত দুই প্রার্থী ব্যাপক শোডাউন করে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যান। সরকারি দল সমর্থিত প্রার্থীরা নেতাকর্মীসহ রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন।
অন্যদিকে প্রধান বিরোধী জোট বিএনপি ও ২০ দল সমর্থিত প্রার্থীদের বেশির ভাগই প্রতিনিধি পাঠিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন।
উত্তরে মেয়র প্রার্থী ২১, কাউন্সিলর ৬২৯
ঢাকা সিটি করপোরেশন উত্তরে মেয়র পদে নির্বাচনের জন্য ৩০ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও শেষ পর্যন্ত জমা দেন ২১ জন। অন্যদিকে গতকাল শেষদিন পর্যন্ত সাধারণ কাউন্সিলর পদের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দেন মোট ৪৯৪ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদের জন্য ১৩৫ জন প্রার্থী। আগারগাঁওয়ে জাতীয় স্থানীয় সরকার ইনস্টিটিউটে অবস্থিত উত্তর সিটি করপোরেশনের অস্থায়ী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে দিনব্যাপী উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র জমা দেন। মনোনয়নপত্র  জমার শেষ দিন গতকাল বেলা আড়াইটার দিকে উত্তরের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে বাবার মনোনয়নপত্র জমা দেন বিএনপি সমর্থিত আবদুল  আউয়াল মিন্টুর মেজো ছেলে তাফসির এম আউয়াল। এ সময় তাফসিরের ছোট ভাই তাজওয়ার এম আউয়ালও উপস্থিত ছিলেন। এর কয়েক ঘণ্টা আগে একই কার্যালয় থেকে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন মিন্টুর বড় ছেলে তাবিথ এম আউয়াল। বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ওই কার্যালয় থেকে তাবিথের পক্ষে মনোনয়নপত্র তোলেন তার আইনজীবী সাজ্জাদুল ইসলাম। ফরম পূরণের পর বিকাল সোয়া ৪টার দিকে তাবিথের মনোনয়নপত্র জমা দেয়া হয়। এদিকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আনিসুল হক রোববার বিকাল ৩টায় মানোনয়নপত্র দাখিল করেন। ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক এই সভাপতির সঙ্গে এ সময় সংগঠনের সাবেক সভাপতি একে আজাদ, বিজেএমইএ’র সভাপতি আতিকুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর কবির নানক, ফারুক খান ও আবদুর রাজ্জাক উপস্থিত ছিলেন। আনিসুল হক মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার পর উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাকে সমর্থন দিয়েছেন। স্বপ্নের ঢাকা গড়তে আমি কাজ করবো। অরাজনৈতিক নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী তার নাম ঘোষণা করে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন করেছেন কিনা? এমন প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, সিটি নির্বাচন রাজনৈতিক না হলেও সব রাজনৈতিক দলই এ নির্বাচনে প্রার্থী ঘোষণা করেন। এটাই আমাদের ট্র্যাডিশন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে আমার নাম ঘোষণা করেছেন। তিনি এতে কোন আচরণবিধি লঙ্ঘন করেননি। এদিকে উত্তরের দুই হেভিওয়েট প্রার্থী আবদুল আউয়াল মিন্টু এবং আনিসুল হক ছাড়াও গতকাল ঘোড়ার গাড়ি নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে এসে উপস্থিত সবার নজর কাড়েন স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নাঈম হাসান। মনোনয়নপত্র জমা দিতে এদিন তিনি নিজের ছবিযুক্ত রঙিন ব্যানার দিয়ে সাজানো ঘোড়ার গাড়িতে চড়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসেন। এর জন্য তাকে ২০ হাজার টাকা অনাদায়ে এক মাসের কারাদণ্ড  দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। আগাম প্রচারণার অভিযোগে তাকে এ জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম। আগারগাঁওয়ে জাতীয় স্থানীয় সরকার ইনস্টিটিউটে অবস্থিত ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অস্থায়ী রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে রোববার দুপুরে এ জরিমানা করা হয়। সারোয়ার আলম জানান, নাঈম হাসান মনোনয়নপত্র জমা দিতে তার ছবি সংবলিত ব্যানারসহ ঘোড়ার গাড়ি নিয়ে আসেন। এটা আচরণবিধি লঙ্ঘনের মধ্যে পড়ে। এজন্য তাকে ২০ হাজার টাকা অনাদায়ে এক মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এদিকে এমন জরিমানার পরও বেশ হাস্যোজ্জ্বল ছিলেন নাঈম হাসান। তিনি বলেন, আমি ভুল করেছি। তাই জরিমানা হয়েছে। এতে আমার কোন আপত্তি নেই। কেন তিনি ঘোড়ার গাড়ি নিয়ে এলেন? এমন প্রশ্নের জবাবে নাঈম হাসান বলেন, আমি মনে করি ঢাকার ঐতিহ্য ঘোড়ার গাড়ি। আমি মেয়র পদে নির্বাচিত হলে ঢাকা উত্তরে এই ঐতিহ্যবাহী ঘোড়ার গাড়ির প্রচলন শুরু করবো। সেই ভাবনা থেকেই ঘোড়ার গাড়ি নিয়ে আজ এসেছি। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন মেয়র পদে মনোনয়নপত্র আরও জমা দিয়েছেন শামছুল আলম চৌধুরী, চৌধুরী ইরাদ আহমদ সিদ্দিকী, আবদুল্লাহ আল ক্বাফী, ববি হাজ্জাজ, এ ওয়াই এম কামরুল ইসলাম, বাহাউদ্দিন আহমেদ, নাদের চৌধুরী, কাজী মো. শহীদুল্লাহ, মোয়াজ্জেম হোসেন খান মজলিশ, সারাহ বেগম কবরী, মো. আনিসুজ্জামান খোকন, মো. জামান ভূঞা, শেখ শহিদুজ্জামান, মো. জোনায়েদ আবদুর রহিম সাকী, মাহী বদরুদ্দোজা চৌধুরী, শেখ মো. ফজলে বারী মাসউদ ও মোস্তফা আজাদী।
ঢাকা উত্তরের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. শাহ আলম জানান, মেয়র পদের জন্য মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেও গতকাল শেষদিন পর্যন্ত জমা দেননি মাহমুদুর রহমান মান্না, হেলেনা জাহাঙ্গীর, আতিকুর রহমান নাজিম, মো. একলাস উদ্দিন মোল্লা, মো. তাইফুল সিরাজ, মো. আবু তাহের, ফকির শেখ মুসলিম উদ্দিন আহমদ, মাহবুবুর রহমান ও আমিনুল ইসলাম বুবু।
দক্ষিণে মেয়র ২৬, কাউন্সিলর ৭৮৫
ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে ২৬ জন, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৬৩২ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদের জন্য ১৫৩ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। গতকাল রাজধানীর গুলিস্তান এলাকার মহানগর নাট্য মঞ্চের আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাছে তারা মনোনয়ন ফরম জমা দেন। মেয়র পদে ৩০ জন মনোনয়ন ফরম গ্রহণ করলেও ৪ জন ফরম জমা দেননি। এর মধ্যে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ঢাকা-৭ আসনের সতন্ত্র সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিম ও বিএনপিপন্থি শিক্ষক কর্মচারী ঐক্যজোটের অহ্বায়ক অধ্যক্ষ সেলিম ভূঁইয়া রয়েছেন। দক্ষিণে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী সাঈদ খোকন সশরীরে উপস্থিত হয়ে মনোনয়ন ফরম জমা দিলেও বিএনপির সমর্থন প্রত্যাশী ড. আসাদুজ্জামান রিপন ছাড়া উল্লেখযোগ্যদের কেউই  ফরম জমা দিতে আসেননি। বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাস, আবদুস সালাম, নাসিরউদ্দিন পিন্টু তাদের স্ত্রী ও প্রতিনিধির মাধ্যমে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন। গতকাল ফরম জমা দেয়ার শেষ দিন হওয়ায় মহানগর নাট্য মঞ্চের আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসে ঢাকা দক্ষিণের মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের ছিল উপচেপড়া ভীর। তবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কড়া নজরদারিতে প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকদের নাট্যমঞ্চের মূল ফটকের বাইরেই অবস্থান করতে হয়। এর মধ্যে অনেক সমর্থক ভেতরে ঢুকতে না পেরে আইনশৃঙ্খরা বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে বাদানুবাদ ও ধাক্কাধাক্কিতে জড়িয়ে পড়েন। তবে এত কড়াকড়ির মধ্যেও সরকার সমর্থক অনেক প্রার্থীই মনোনয়ন ফরম জমা দিতে এসে নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন করেছেন বলে অভিযোগ ওঠে। ৫ জনের অধিক সমর্থক নিয়ে কার্যালয়ে ঢোকার বিধিনিষেধ থাকলেও কেউ কেউ অগণিত সমর্থক নিয়ে ফরম জমা দিতে আসেন। এর মধ্যে কোন কোন প্রার্থী নিরাপত্তা বাহিনীর চোখের সামনেই ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে কার্যালয়ে ঢুকে পড়েন। এ বিষয়ে রিটার্নিং অফিসার মিহির সারোয়ার মোর্শেদ সাংবাদিকদের বলেন, যদি প্রার্থী নির্বাচনী আচরণবিধির লঙ্ঘন করে থাকেন তবে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। সকালে মনোনয়ন ফরম জমা দিতে আসা প্রার্থীদের সংখ্যা কম হলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের আনাগোনায় মুখর হয়ে ওঠে নাট্য মঞ্চের আশপাশ। দুপুর সোয়া বারোটায় দক্ষিণে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী সাইদ খোকন মনোনয়ন ফরম জমা দেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এমএ আজিজ, সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস, সাবেক এমপি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ড. আবদুর রাজ্জাক। পরে সাঈদ খোকন সাংবাদিকদের বলেন, আল্লাহ যদি সহায় থাকেন তাহলে আমি জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী। তিনি বলেন, বিএনপি সিটি নির্বাচনে আসবে বলে শুনেছি। সেক্ষেত্রে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীই হবে আমার প্রতিদ্বন্দ্বী। বিপুল নেতাকর্মী পরিবেষ্টিত হয়ে ও গাড়ি নিয়ে মনোনয়ন ফরম জমা দিতে আসার বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, নামের তালিকা ঠিক করেই আমি এসেছি। আর একজন নেতার পায়ে সমস্যা। তাই গাড়ি নিয়ে ভেতরে ঢুকতে হলো। এর কিছুক্ষণ পরেই পুলিশের চোখের সামনে দিয়ে সংরক্ষিত নারী আসনের প্রার্থী হেলেনা খাতুন ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে মনোনয়ন ফরম জমা দিতে আসেন। বেলা পৌনে তিনটায় কারাবন্দি বিএনপির সহসাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য নাসিরউদ্দিন আহমেদ পিন্টুর স্ত্রী নাসিমা আক্তার কল্পনা পিন্টুর পক্ষে মনোনয়ন ফরম জমা দেন। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপির অনেকের সঙ্গেই কথা হয়েছে। আশা করি বিএনপি পিন্টুকে সমর্থন দেবে। তবে দল যে সিদ্ধান্তই নিক না কেন পিন্টু তা মেনে নেবে বলে জানিয়েছে। বিকাল পৌনে চারটায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের পক্ষে তার দুই আইনজীবী আবদুস সালাম ও এ কে এম শাহজাহান মনোনয়ন ফরম জমা দিতে আসেন। রিটার্নিং অফিসার মেহের সারোয়ার মোর্শেদের কাছে ফরম জমা দিয়ে আবদুস সালাম সাংবাদিকদের বলেন, মির্জা আব্বাস আসেননি। ওনার আসাটা বাধ্যতামূলক ছিল না। তাই ওনার হয়ে আমরা ফরম জমা দিয়েছি। তিনি বলেন, মির্জা আব্বাসের নামে অনেক মামলা রয়েছে। সরকার যদি আন্তরিক হয় তাহলেই তিনি নির্বাচন করার সুযোগ পাবেন। আর যদি ৫ই জানুয়ারির মতো নির্বাচন হয় তাহলে বিএনপির পক্ষে নির্বাচন করা সম্ভব হবে না। বিকালে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসেন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন। নির্বাচন ও বিএনপির আন্দোলন এক সঙ্গে চলবে জানিয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, বড় দল হিসেবে বিএনপির একাধিক প্রার্থী থাকবে এটাই স্বাভাবিক। দলের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছি। দল যদি সমর্থন দেয় তাহলেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবো। বিএনপির অর্থ বিষয়ক সম্পাদক আবদুস সালামের পক্ষে মনোনয়ন ফরম জমা দেন তার স্ত্রী ফাতেমা সালাম। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আশা করি নির্বাচন কমিশন একটি সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দেবে। আর জনগণের সমর্থন নিয়ে আমরা বিজয়ী হবো। বিকালে মনোনয়ন ফরম জমা দেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) সমর্থিত প্রার্থী বজলুর রশিদ ফিরোজ। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, যেখানে প্রধানমন্ত্রী দলীয় প্রার্থী ঘোষণা করেন সেখানে সিটি নির্বাচনকে নির্দলীয় নির্বাচন বলা এক ধরনের প্রহসন। তিনি বলেন, নির্বাচনের লেভেল প্লেইং ফিল্ড এখনও তৈরি হয়নি। নির্বাচনে যাতে সাধারণ মানুষ অংশ নিতে না পারে সেজন্য নানা শর্ত দেয়া হচ্ছে। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই প্রার্থীরা কোটি কোটি টাকা খরচ করছে। অনেকেই নির্বাচনী আচরণ বিধির লঙ্ঘন করছেন। আমরা ইতিমধ্যে নির্বাচন কমশিনকে বলেছি সিটি করপোরেশন নির্বাচনে যাতে একটি সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় থাকে। দক্ষিণে জাতীয় পার্টির সমর্থিত প্রার্থী সাইফউদ্দিন আহমেদ মিলন গতকাল মনোনয়ন ফরম জমা দেন। এ সময় তার সঙ্গে সংসদ সদস্য আবু হোসেন বাবলা ছিলেন। পরে মিলন সাংবাদিকদের বলেন, শেষ পর্যন্ত তিনি মেয়র প্রার্থী হিসেবে থাকবেন। সরে যাবেন না। আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম মাওলা রনির হয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসা শফিকুল ইসলাম লিটন বলেন, ওনি একটা মিটিংয়ে ব্যস্ত তাই আসতে পারেননি। প্রার্থীদের মনোনয়ন ফরম জমাদান শেষে উপস্থিত সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ঢাকা দক্ষিণের রিটার্নিং অফিসার মিহির সারোয়ার মোর্শেদ বলেন, প্রার্থীরা মনোনয়ন ফরম জমা দিয়ে নির্বাচন কমিশনের ফাইলবন্দি হয়ে গেলেন। মেয়র প্রার্থীদের অনেকেই আজকে শোডাউন অবস্থায় ছিল। আমরা বিষয়টির খোঁজ নিচ্ছি। যদি কেউ নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করে বলে আমাদের কাছে প্রতীয়মান হয় তাহলে অবশ্যই সেই প্রার্থীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now