শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » বরেণ্য ৪ আলেমের ঐতিহাসিক লংমার্চ : প্রসঙ্গ ৬ এপ্রিলের মহাজাগরণ !

বরেণ্য ৪ আলেমের ঐতিহাসিক লংমার্চ : প্রসঙ্গ ৬ এপ্রিলের মহাজাগরণ !

sapla মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী:  লং মার্চ- দুটো ইংরেজি শব্দমালার নাম। Lang অর্থ: দীর্ঘ, লম্বা। March অর্থ: কুচকাওয়াজ-সহকারে বা দৃঢ়পদে ও দুর্বারভাবে অগ্রসর হওয়া। শব্দটি সাধারণভাবে সামরিক পরিভাষা হিসেবেই ব্যবহৃত হয়ে থাকে।
অত্যয়কালে বিশেষ কষ্টসহকারে দলবদ্ধভাবে সেনাবাহিনীর গমন বা বিশেষ ব্যক্তি-ব্যক্তিবর্গের প্রতি সম্মানপ্রদর্শনার্থে তাদের সম্মুখ দিয়ে কুচকাওয়াজসহকারে গমনই হচ্ছে মার্চ। প্রাথমিকভাবে ‘পদযাত্রা’ হচ্ছে এর একমাত্র অর্থ। অর্থাৎ মার্চ বলতে বোঝায় ‘পদব্রজে ভ্রমণ করা’। অবশ্য যদি ভ্রমণ দীর্ঘ ও লম্বা হয় তবে তার জন্য প্রয়োজনীয় বাহন ব্যবহারে কোনো অসুবিধা নেই। সে-কারণে লংমার্চ বলতে শুধু ‘পদযাত্রা’ বা ‘পায়ে হেঁটে ভ্রমণ’ বোঝায় তা নয়।
longবেসামরিকভাবে শুধু ‘মার্চ’ শব্দটি ব্যবহার হয় না। ‘লংমার্চ’-রূপে এই শব্দমালা মূলত দাবি-দাওয়া পেশ ও আদায়ে সরকারের প্রতি চাপ সৃষ্টির প্রক্রিয়াবিশেষের নাম। গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামের কর্মসূচি হিসেবে যদিও এটি সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ তবে বেশ ব্যয়বহুল, খুব কঠিন এবং বড়োসড়ো ধরনের একটি কর্মসূচি এটি। আন্দোলনের শান্তিপূর্ণ এই প্রক্রিয়ার জন্ম এশিয়ায়। বাংলাদেশে এটি একটি বহুলপ্রিয় কর্মসূচি। বাংলাদেশে এ-পর্যন্ত যেসব লংমার্চ কর্মসূচি বিশেষ তাৎপর্যসহকারে ইতিহাসে স্থান করে নিয়েছে তার সবই আলেমসমাজের আহ্বানে এবং তাঁদের নেতৃত্বেই সংঘটিত হয়েছে। বাংলাদেশে লংমার্চের মতো কর্মসূচির শুরুটাই হয়েছিল একজন বর্ষীয়ান আলেম রাজনীতিকের আহ্বানে। এখানে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক কয়েকটি লংমার্চ কর্মসূচি ও সেসবের প্রেক্ষাপটের সংক্ষিপ্ত তথ্য নিচে তুলে ধরা হলো:
১. মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী: জলজল্লাদের বিরুদ্ধে জলনেতার যুদ্ধের ডাক।
মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী (১৮৮০-১৯৭৬ খ্রি.): ব্রিটিশবিরোধী অসযোগ ও খেলাফত আন্দোলনের নেতা, মুসলিম পাকিস্তান রাষ্ট্রের অন্যতম সংগঠক। তিনি ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে প্রবাসী সরকারের উপদেষ্টা। বাংলাদেশের সকল রাজনীতিক নেতাদের গুরু এবং দেশের অভিভাবক ছিলেন তিনি। মওলানা ভাসানী ছিলেন একাধারে বর্ষীয়ান রাজনীতিক নেতা, আলেমে দীন এবং একজন পীরে তরিকত। শিক্ষাজীবনে তিনি দারুল উলুম দেওবন্দের ছাত্র ছিলেন বলে জানা যায়। সেই সূত্রে তিনি একজন কওমী ধারার আলেম এবং ওলামায়ে দেওবন্দি মসলকের অনুসারী ছিলেন।
বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল এবং দক্ষিণ-মধ্যভাগের প্রধান নদী গঙ্গা বা পদ্মা। এ-অঞ্চলে বসবাসকারী দেশের এক তৃতীয়াংশ জনগোষ্ঠী সরাসরি গঙ্গা-পদ্মার ওপর নির্ভরশীল। পানির সার্বিক চাহিদা মেটানো, কৃষি-সেচ, নৌ-যোগাযোগ, মৎস্য সরবরাহ, প্রতিরোধ, ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিয়ন্ত্রণ, আবহাওয়া ও জলবায়ু রক্ষাসহ এই অঞ্চলের সার্বিক পরিবেশ ও ইকো সিস্টেম রক্ষায় গঙ্গা-পদ্মা ও এর শাখা-প্রশাখাসমূহের রুরুত্ব অপরিসীম।
১৬ মে ১৯৭৬ সালের কথা। ৩৭ বছর আগে মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর নেতৃত্বে ‘মরণ ফাঁদ ফারাক্কা বাঁধ’ অভিমুখে হাজার হাজার জনতার লংমার্চ হয়। ভারতীয় পানি আগ্রাসনের প্রতিবাদে বাংলার সর্বস্তরের মানুষের বজ্রকণ্ঠ ভারতের শাসকমহলেও কাঁপন ধরিয়ে দিয়েছিল। যার রেশ উপমহাদেশ ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও পৌঁছে যায়। ১৯৭৬ সালের আয়োজিত লংমার্চের মূল লক্ষ ছিল ফারাক্কা বাঁধ। আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করে ভারত একতরফাভাবে গঙ্গায় যে অবৈধ বাঁধ নির্মাণ করে সেই বাঁধ বাংলাদেশের কোটি কোটি মানুষের জন্য আজ মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে।
বাংলাদেশের জনগণের কাছে গঙ্গা-পদ্মা নদীর এত গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা থাকা সত্ত্বেও ভারত ১৯৭৫ সালের ২১ এপ্রিলে আন্তর্জাতিক এই নদীতে বাঁধ নির্মাণ করে বাংলাদেশের জনগণকে গঙ্গার পানির ন্যায্য হিস্সাপ্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত করে।
জাতির দুর্দিনে ৯৬ বছর বয়সেও মওলানা ভাসানী বার্ধক্যের জ্বরাজীর্ণতাকে উপেক্ষা করে আগ্রাসী শক্তির চক্রান্ত থেকে দেশকে রক্ষার জন্য সংগ্রামে অবতীর্ণ হয়েছিলেন। ১৯৭৬ সালের ১৬ ও ১৭ মে গঙ্গা নদীর পানির ন্যায্য হিস্সার দাবিতে মহান জাতীয় নেতা মওলানা ভাসানী রাজশাহী শহরের সরকারি আলিয়া মাদরাসা ময়দান থেকেথেকে ফারাক্কা বাঁধ অভিমুখে হাজার হাজার মানুষের এক মহামিছিলের লংমার্চে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। মাওলানা ভাসানীর ডাকে সে দিন দলমত নির্বিশেষে সকলেই এ মহামিছিলে অংশগ্রহণ করে ছিলেন। এর ফলে ফারাক্কা সমস্যা জাতিসংঘে উত্থাপিত হয়েছিল।
১৯৭৬ সালের ১৬ মে রোববার রাজশাহী থেকে শুরু হয় জনতার পদযাত্রা। দুপুরে হাজার হাজার মানুষের স্রোত গোদাগাড়ির প্রেমতলী গ্রামে পৌঁছায়। সেখানে মধ্যাহ্ন বিরতির পর আবার যাত্রা শুরু হয়। সন্ধ্যায় লংমার্চ চাঁপাইনবাবগঞ্জে গিয়ে রাতে অবস্থান করে। পরদিন ১৭ মে সোমবার সকালে আবার লংমার্চের যাত্রা শুরু হয় শিবগঞ্জের কানসাট অভিমুখে। শিবগঞ্জে পৌঁছানোর আগে মহানন্দা নদী পার হতে হয়। নৌকা দিয়ে কৃত্রিম সেতু তৈরি করে মহানন্দা নদী পার হয় মিছিল। হাজার হাজার মানুষ স্বতঃস্ফুর্তভাবে যোগ দেয় এই লংমার্চে। কানসাট হাই স্কুল মাঠে পৌঁছানোর পর সমবেত জনতার উদ্দেশ্যে মজলুম জননেতা মাওলানা ভাসানী ভারতের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘তাদের জানা উচিত বাংলার মানুষ এক আল্লাহকে ছাড়া আর কাউকে ভয় পায় না। কারও হুমকিকে পরোয়া করে না।’ মওলানা ভাসানী কানসাটেই লংমার্চের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

২. শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক: মসজিদরক্ষার জিহাদি ডাক।
শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক (১৩৩৭Ñ১৪৩৩ হি. ১৯১৯Ñ২০১২ খ্রি.): শায়খুল হাদিস, ভারতীয় উপমহাদেশের বরেণ্য হাদিসবিশারদ, লাখো আলেম-ওলামা ও পীর মাশায়েখের উস্তায। হাদিসের খাদেম, বাংলায় সহিহ আল-বুখারি প্রথম ব্যাখ্যাকার। বর্ষীয়ান রাজনীতিক, খেলাফত আন্দোলনের নায়েবে আমির, ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা, খেলাফত মজলিসের প্রতিষ্ঠাতা আমির, ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান, চারদলীয় জোটের শীর্ষ নেতা। তিনি একজন বিখ্যাত হাদিসবিশারদ, জ্ঞানতাপস, বিশিষ্ট অনুবাদক, বিদগ্ধ আরবি ও বাংলা সাহিত্যিক, প্রখ্যাত বক্তা, তাসাওফে উঁচুস্তরের সাধক ছিলেন।
৬ ডিসেম্বর ১৯৯২ সালের কথা। ভারতীয় উগ্র হিন্দুত্ববাদীরা পাঁচ শত বছরের পুরোনো মুসলিম ঐতিহ্য বাবরি মসজিদ ধ্বংস করে দেয়। সারা বিশ্বে প্রতিবাদ ছড়িয়ে পড়ে, বিভিন্ন দেশের লাখ লাখ মানুষ বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। ৮ ডিসেম্বর’৯২ পাকিস্তানে সরকারিভাবে জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন রাষ্ট্রপ্রধান এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানায়, অমুসলিম দেশ ব্রিটেন, যুক্তরাষ্ট্র প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দেয়, ওআইসিভুক্ত দেশগুলো মুসলমানদের ধর্মীয় স্থাপনা ধ্বংস এবং তাদের জান-মালের নিরাপত্তায় ব্যাঘাত ঘটানোর দায়ে ভারতের প্রতি কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে।
এরই মাঝে ভারতের অযোধ্যা অভিমুখে লংমার্চের বড়সড়ো কর্মসূচির হিম্মত ও সাহসিকতা নিয়ে সামনে এসেছিলেন বাংলার মুসলমানের এই ইমাম শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক। তিনি ভারতীয় উগ্র হিন্দুত্ববাদীদের হাতে ঐতিহ্যবাহী বাবরি মসজিদ ধ্বংস এবং ভারতে ভয়াবহ মুসলিন গণহত্যার প্রতিবাদে ২ জানুয়ারি ১৯৯৩ ঢাকা থেকে ভারতের অযোধ্যা অভিমুখে ঐতিহাসিক লংমার্চ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।
২ জানুয়ারি ১৯৯৩ সাল। লংমার্চ শুরুস্থল জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুর্কারমের সামনে লাখ লাখ মানুষের ঢল নেমেছিল সেদিন। সমবেত জনতার উদ্দেশ্যে লংমার্চ নেতা শায়খুল হাদিস ঘোষণা দেন, ‘এ-লংমার্চ পাশবিক শক্তির বিরুদ্ধে মানবতার মহাযাত্রা। আমাদের এই লংমার্চ হবে অহিংস। সংখ্যালঘুদের অহেতুক ভয় পাওয়ার কিছু নেই। কেননা তাদের বিরুদ্ধে এ-আন্দোলন নয়।’ এরপরই দেশবরেণ্য আলেম-ওলামার নেতৃত্বে মহামুক্তির মিছিল শুরু হয়। তরঙ্গের পেছনে তরঙ্গ যেমন ধেয়ে আসে ঠিক সেভাবে আসতে থাকে মিছিলের পর মিছিল। ঢাকার মানুষ এমন মিছিল আর কখনো দেখেনি। পথে রাজবাড়ি, মাগুরা, ঝিনাইদহসহ বেশ কয়েকটি স্থানে পথসভা হয়।
পরদিন ৪ জানুয়ারি সকাল ১০টায় যশোর বাস টার্মিনালে শুরু হয় মহাসমাবেশ। সমাবেশ শেষ করে কাফেলা যাত্রা শুরু করে অযোধ্যার অভিমুখে। মিছিল শান্তিপূর্ণভাবে মুরুলি মোড় ঘুরে বেনাপোল সড়কের দিকে এগোতে থাকে। বেলা ১.১০ টার দিকে চাঁচড়া মোড়ে কাফেলা বাধার সম্মুখীন হয়। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি, প্রলঙ্করী তুফানের মতো কাফেলা সবকিছু তছনছ করে এগিয়ে যায়। কিছু দূরে ফুলের হাটে পুলিশ আরেকটি ব্যারিকেড সৃষ্টি করে। মূল কাফেলা আসার আগেই মিছিলের অগ্রবর্তী দল তা উপড়ে ফেলে। কাফেলা এগোতে থাকে। ধোপাখোলা থেকে সামনে আর এগোতে না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। সেখানে কয়েক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে অত্যন্ত মজবুত তিন স্তরের ব্যারিকেট দেওয়া হয় হয়। বাংকার খনন করা হয়। মিছিল যশোরের ধোপাখোলা মাঠে পৌঁছে যুহরের নামায আদায় করে। নামায শেষ হওয়ার সাথে সাথেই শুরু হয় পুলিশ ও বিডিআরের সম্মিলিত আক্রমণ। তুমুল সংঘর্ষের মধ্যে মিছিল কার্যত সেখানেই সমাপ্ত হয়ে যায়। কিন্তু অসীম সাহসী অপ্রতিরোধ্য একটি কাফেলা নিয়ে বাধার সব প্রাচীর ভেঙে বীর বিক্রমে এগিয়ে যায় শায়খুল হাদীস।
লাউজানির রেলগেটের আগে আরেক বাধা অতিক্রম করে কাফেলা। সেখানে আসরের নামায আদায় করে আরও ১২ কিলোমিটার পথ চলে মিছিল যশোরের ঝিকরগাছা ব্রিজ পর্যন্ত পৌঁছায়। ব্রিজে পুলিশ লম্বা লম্বা লরি এলোপাতাড়ি ফেলে ব্যারিকেড সৃষ্টি করে। কাফেলার একটা অংশ ঝিকরগাছা ব্রিজের ব্যারিকেড ভেঙে হাজের আলি বালুর মাঠে পৌঁছুলে মিছিলে পুলিশ প্রচণ্ড বাধা দেয়। একপর্যায়ে পুলিশ নিরস্ত্র মিছিলে নির্বিচারে গুলি চালিয়ে হারুন-কামরুলসহ অসংখ্য যুবক-জনতাকে হত্যা করে। এই পরিস্থিতিতে লংমার্চ নেতা যশোরের বেনাপোল সড়কে সমবেত কাফেলাকে শান্ত হওয়ার অনুরোধ জানান এবং এখানে মাগরিবের নামায আদায় করে লংমার্চের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।
৩. মাওলানা মুহিউদ্দনি খানের টিপাইমুখ অভিমুখি লংমার্চ্
ফারাক্কা মরণ বাঁধের পর টিপাইমুখ বাঁধ হচ্ছে বাংলাদেশকে মরুকরণের ভারতের দ্বিতীয় প্রকল্প। ভারতের মণিপুর রাজ্যের দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তে বরাক ও দুইবাই নদী দুটির সঙ্গমস্থল থেকে ৫০০ মিটার পশ্চিমে সুরমা-কুশিয়ারা-মেঘনা নদী প্রণালীর মূল উৎসধারা বরাক নদীর ওপর ভারত যে বাঁধ নির্মাণ করছে তাই হচ্ছে টিপাইমুখ বাঁধ। যা বাংলাদেশের সিলেট জেলার সীমান্ত থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার পূর্বে বরাক নদীর সংকীর্ণ গিরিখাতে অবিস্থত। মৃত্তিকা ও শিলা দ্বারা নির্মিত বাঁধটি সমুদ্র সমতল থেকে প্রায় ৫০০ ফুট বা ১৮০ মিটার উঁচু এবং ১৫০০ ফুট বা ৫০০ মিটার প্রশস্থ।
টিপাইমুখ বাঁধ নির্মিত হলে যে-রিজার্ভার বা জলধারা তৈরি হবে তার ধারণক্ষমতা প্রায় ১৬ বিলিয়ন ঘনমিটার। এই মাল্টিপারপাস বাঁধটি গড়ে ১৫০০ মেগওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে, যা আসাম, ত্রিপুরা, মণিপুর ও মিজোরাম রাজ্যে সরবরাহ করা হবে। এর ফলে যে-কৃত্রিম লেক তৈরি হবে তাতে ভারতের হাজার হাজার টন মৎস্য উৎপাদিত হবে। শুষ্ক মৌসুমে এসব রাজ্যে সেচ সুবিধা সম্প্রসারিত হবে, পর্যটনশিল্পের বিকাশ ঘটবে, যোগাযোগ ব্যবস্থার প্রভূত উন্নতি হবে এবং এই বাঁধের মাধ্যমে বর্ষা মৌসুমে এ-অঞ্চলের বন্যা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হবে।
বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নদীপ্রণালী সুরমা-কুশিয়ারা-মেঘনার উজানে বরাক নদীতে ভারত কর্তৃক টিপাইমুখ বাঁধ নির্মাণের ফলে ভাটির দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হবে। বরাকের পানি নিয়ন্ত্রণের ফলে বাংলাদেশের সুরমা-কুশিয়ারা-মেঘনা অববাহিকার প্রায় ৩ কোটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হবে। বিশেষজ্ঞদের মতে, বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সাম্প্রতিককালে মৌসুমি বর্ষার শেষ দিকে প্রচুর বৃষ্টিপাত হয়। এই ধরনের বৃষ্টিপাতের সময় ড্যামের স্পিলওয়ে গেইটগুলো খুলে দেওয়া হতে পারে, এতে সিলেট অঞ্চলে অস্বাভাবিক বন্যা হবে। বরাক-সুরমা-কুশিয়ারা-মেঘনা নদীপ্রবাহের বাংলাদেশ অংশের ৯৭৬ কিলোমিটার প্রবাহপথের ওপর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষবাবে নির্ভরশীল প্রায় ২০ জেলার কৃষিকাজ সার্বিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে। ব্যাহত হবে কৃষি-উৎপাদন, দেখা দেবে খাদ্য-সংকট। পানির অভাবে সিলেট অঞ্চলের হাওড়গুলোর অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে পড়বে। প্রচুর মৎস্য ও অন্যান্য সম্পদের আঁধার এই হাওড়গুলোর নির্ভরশীল বহু মানুষ জীবন-জীবিকা হারিয়ে কর্মহীন হয়ে পড়বে। পানির অভাবে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হবে সুনামগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোণা, হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া অঞ্চলের যুগ যুগ ধরে চলে আসা ঐতিহ্যবাহী নৌযোগাযোগ। টিপাইমুখ বাঁধের প্রভাবে বৃহত্তর সিলেটসহ ঢাকা বিভাগের মেঘনা নদীসংলগ্ন এলাকাগুলোতে ভূর্গস্থ পানির স্তর ব্যাপকভাবে নিচে নেমে যাবে। পলে এসব এলাকায় খাবার পানির সংকট, মেঘনার পাড়ে অবস্থিত সার, বিদ্যুৎসহ অন্যান্য শিল্প কল-কারখানাগুলোর উৎপাদন ব্যহত হবে এবং এই অঞ্চলে ভূমিকম্পের ঝুঁকি বৃদ্ধি করবে।
দেশের জন্য এই বিপদজনক পরিস্থিতিতে মওলানা ভাসানীর উত্তরসুরী হিসেবে মাসিক মদীনা সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন খান ভারতীয় নদি্আগ্রাসনের প্রতিবাদে টিপাইমুখে বাঁধ নির্মাণের প্রতিবাদে বৃহত্তর কর্মসূচি ঘোষণা করেন।
বাংলাদেশকে নতুন করে মরুকরণের কবল থেকে রক্ষায় মাওলানা মুহিউদ্দীন খানের নেতৃত্বে দেশ-বিদেশের অন্তত ৩০ টি রাজনৈতিক-সামাজিক সঙগঠন ২০০৫ সালের ৯ মার্চ রাজধানীর  মুক্তাঙ্গন থেকে বিশাল কাফেলা নিয়ে সিলেটের জকিগঞ্জ অভিমুখে রওয়া করেন।

দেশপ্রেম ইমানের অঙ্গ। এই জন্য দেশের সর্বস্তরের মানুষ ও রাজনীতিক নেতারা পীর সাহেব চরমোনাইয়ের লংমার্চের প্রতি সংহতি ও সমর্থন ব্যক্ত করে বক্তব্য রাখেন লংমার্চপূর্ব মুক্তাঙ্গনের মহাসমাবেশে। বিএনপি, বিজেপি, জাগপা, মুসলিম লীগ, এনপিপি, এনডিপি, খেলাফত মজলিস, নেজাম ইসলাম পার্টি, ইসলামী ঐক্য আন্দোলনসহ বিভিন্ন রাজনীতিক ও সামাজিক সংগঠন সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন এতে।
পর দিন ১০ মার্চ লাখো জনতাকে সাথে নিয়ে জকিগঞ্জের হাইস্কুল মাঠে  জাতীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাঙলাদেশের তৎকালীন সভাপতি মাওলানা শায়খ আশরাফ আলী বিশ্বনাথী (র)এর সভাপতিত্বে অনুষ্টিত এই সমাবেশে মাওলানা মুহিউদ্দীন খান জ্বালাময়ী ভাষণ দেন। এছাড়া মুফতি ফজলুল হক আমিনী, বুদ্ধিজীবী আনোয়ার জাহিদ, ইনকিলাব সম্পাদক বাহাউদ্দীনসহ আরো অনেকেই বক্তব্য রাখেন।

৪.  আল্লামা শাহ আহমদ শফী: আশেকে রাসুলের রাসুলের আবরু হিফাযতের ডাক।
শায়খুল ইসলাম খলিফায়ে মাদানী আল্লামা শাহ আহমদ শফী: দেশের র্শীষ আলেম,বিশ্ববরেণ্য বুযুর্গ ব্যক্তিত্ব ও খ্যাতনামা হাদিসবিশারদ, শায়খুল হাদিস, বক্তা। তাঁর সবচেয়ে বড় পরিচয়; তিনি বাংলাদেশের প্রথম ও প্রধান দেওবন্দি মসলকের মাদরাসা, যাকে সমগ্র কওমি মাদরাসাসমূহের মাতা-জননী বলা হয় সেই জামিয়া আহলিয়া দারুল উলুম মুইনুল ইসলাম হাটহাজারীর দীর্ঘ দিনের মহাপরিচালক ও শায়খুল হাদিস। শুধু তাই নয়, দ্বিতীয় স্তরের পূর্বসূরি দেওবন্দি ওলামা-মাশায়েখের সরাসরি সুহবতপ্রাপ্তদের মধ্যে তিনি একমাত্র জীবিত ব্যক্তি। তিনি ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের অগ্রসেনানী আওলাদে রাসুল শায়খুল ইসলাম আল্লামা সাইদেয় হুসাইন আহমদ মাদানির খলিফা। প্রবীণ, বুযুর্গ ও বরেণ্য ব্যক্তিত্ব হিসেবে বর্তমান সময়ে ভারত উপমহাদেশে তাঁর চেয়ে শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিত্ব দ্বিতীয়টি নেই।
বাংলাদেশের এমন কোনো জেলা-উপজেলা, ইউনিয়ন-ওয়ার্ড নেই যেখানে দু’একটি কওমি মাদরাসা নেই। উম্মুল মাদারিস দারুল উলুম হাটহাজারীর মুহতামিম হিসেবে তিনি সকল কওমি মাদরাসার অভিভাবক। কওমি মাদরাসা শেখড়হীন পরগাছা ধরনের কোনো কুড়েঘর নয়, দেশের কোটি কোটি মানুষের হৃদয়ের সাথে এর শেখড় প্রোথিত। সে-হিসেবে শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী এ-দেশে কোটি কোটি শান্তিকামী-মুক্তিপাগল মানুষের মধ্যমণিও বটে। এমন কোনো মাদরাসা-মসজিদ নেই, দেশে গ্রাম-গঞ্জ নেই যেখানে এই মহান বুযুর্গ ব্যক্তির দু’একজন শাগরিদ-ছাত্র, সুহবতপ্রাপ্ত বা এক-দু’মিনিটের জন্য তাঁর সান্নিধ্য পেয়ে নিজেকে ধন্য মনে করেন না এমন ব্যক্তি নেই।
আল্লামা শামসুদ্দিন কাসেমী,  শায়খুল হাদিস আল্লামা আজিজুল হক (রহ.) ও আল্লামা মুফতী ফজলুল হক আমিনী (রহ.)। যাঁদের হুঙ্কারে জালিমরা সবসময় তটস্ত থাকত, যাঁরা ডাক দিলে স্বৈরচারী শাসকদের তখতে কম্পন সৃষ্টি হতো, তাঁরা যে-পথে যেতেন শয়তানও বোধ হয় সে-পথে পা বাড়াতে ভয় পেত। তাঁদের ইন্তিকালে মনে করা হয়েছিল দেশে এখন রাম-রাজত্ব কায়েম হয়েছে, মগের মুল্লুক প্রবর্তিত হয়েছে। অনেকদিন থেকে অন্ধকার গর্তে লুকিয়ে থাকা শকূনের চা-পোনারা শাহবাগের এক চত্বরে সমবেত হয়ে রণহুঙ্কার দিয়ে বলতে শুরু করল, ‘ইসলামি রাজনীতি নিষিদ্ধ চাই।’ পরে বেরিয়ে এলো থলের বিড়াল। আন্দোলনের নায়করা অধিকাংশ চরম ধর্মবিদ্বেষী, স্বঘোষিত নাস্তিক উগ্র ধর্মদ্রোহী। কিন্তু না, যুগে যুগে ফেরউনের মুকাবালায় কোনো না কোনো মুসা না-এসে পারেই না। ভাসানীর মতো ৯২ বয়সী এক বৃদ্ধ বাংলাদেশের এক কোণা থেকে গর্জে ওঠলেন, ‘খামোশ! থাম, নাস্তিকরা।’ বাদশাহ আকবরের দীনে ইলাহির প্রতিরোধে চিঠি-জিহাদের ন্যায় নয়া জামানার মুজাদ্দিদ শায়খুল ইসলাম আল্লামা আহমদ শফী পরের পদক্ষেপ হিসেবে দেশবাসীর উদ্দেশ্যে একটি খোলা চিঠি পাঠালেন। এতেই কাম তামাম। পরের ঘটনা সবার জানা। শাহবাগিদের জন্য দুনিয়া সংকীর্ণ হয়ে এসেছে। রশদ-খাদ্য পুরিয়ে যেতে থাকে তাদের। প্রতিরোধ শুরু হয় দেশের সর্বত্র।
২০১৩ সালের ৬ এপ্রিল। এই মহানায়কের আহ্বানে সারাদেশ থেকে রাজধানী ঢাকা অভিমুখে সর্বাত্মক লংমার্চ পালিত হবে। এবারের লংমার্চ লংমার্চের ইতিহাসে একটি ব্যতিক্রমধর্মী নজিরের সৃষ্টি করবে। তার কয়েকটি কারণ আছে; প্রথমত শায়খুল ইসলাম আল্লামা আহমদ শফীর মতো ব্যক্তিত্ববর্গের কোনো রাজনীতিক বিলাস নেই, ব্যক্তিগতভাবে যদি শাহবাগীরা নাস্তিক না হতো তবে তাদের মূল দাবির সাথেও ওলামায়ে কেরামের কোনো মতপার্থক্য থাকার কথা ছিল না, বস্তুত লংমার্চ আন্দোলনেরও মূল দাবি কথিত শাহবাগি গণজাগরণ মঞ্চের বিরুদ্ধে নয়, বরং নাস্তিক্যবাদ, ধর্মদ্রোহিতা, ধর্মবিদ্বেষ, ইসলাম অবমাননা বিলোপে জাতীয় সংসদে আইন পাশ করা এবং আল্লাহ, রাসুল ও কুরআন-সুন্নাহর প্রতি কটূক্তিকারীদের শাস্তির ব্যবস্থা করা। অতএব এবারের লংমার্চ পার্থিব কোনো স্বার্থবিলাসী কর্মসূচি নয়, ধর্মীয় কর্মসূচি, ইমান-আকিদা রক্ষার কর্মসূচি। এবারের লংমার্চের প্রধান শাক্তি তাই আমাদের ইমান; আল্লাহর ওপর পরিপূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস এবং একমাত্র তাঁর শক্তির ওপরই ভরসা আর তাঁরই সন্তুষ্টি অর্জন।
দ্বিতীয়ত আমাদের অনেকের জানা আছে, আমাদের ইসলামি দলগুলো মধ্যে ছোটখাটো অনেক মতপার্থক্য আছে, আছে আমাদের মাদরাসাসমূহের মধ্যেও। দল বা মাদরাসা এ-উভয়ের নেতৃত্বে নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গিকেন্দ্রিক রয়েছে আলাদা গ্রুপও। এতসব সত্ত্বেও আল্লামা শফীর  লংমার্চে বৃহত্তর কওমি মাদরাসার সব শীর্ষ আলেমগণ সংহতি প্রকাশ করেছেন।
সকল ইসলামি জনতা, দলসমূহের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দ আল্লামা আহমদ শফীর আহ্বানে হাটহাজারীতে সমবেত হয়ে তাঁর সাথে একাত্বতা পোষণ করেছেন এবং সর্বাত্মক লংমার্চের কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন।
এই রংমার্চ ছিলো বিশ্বের ইতিহাসে নজির বিহীন লংমার্চ। জনতার এই মহাজাগরণেই ক্ষমতাসীন সরকারের রাজপ্রসাদে বিশাল ধাক্কা দেয়।

আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বাধীন হেফাজতে ইসলাম সারা দেশ থেকে ঢাকা অভিমুখে লং মার্চ করে এবং ঢাকার মতিঝিল শাপলা চত্ত্বরে তাদের প্রথম সমাবেশ করে। এই সমাবেশে প্রচুর লোকের সমাগম হয়। এসময় সরকারের বাধার কারণে অনেক কর্মী চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা যেতে ব্যর্থ হয়। প্রশাসনের বাধার কারণে সকল যানবাহন বন্ধ করে দেওয়ার ফলে তারা চট্টগ্রামের ওয়াসা মোড়ে সমাবেশ কর। এদিকে, সিলেটের তৌহিদী জনতা দক্ষিণ সুরমার হুমায়ুন চত্বর ও পরে কোর্টপয়েন্টে রাত ব্যাপী অবস্থান কর্মসুচি পালন করেন।
এদিন দেশের বিভিন্ন স্থানে সংগঠনের কর্মীদের সাথে আইনশৃঙ্খলারক্ষী বাহিনীর সংঘর্ষ ও হতা-হতের ঘটনা ঘটে।
এরই সুত্র ধরে পরবর্তীতে ৫ই মে, হেফাজতে ইসলাম ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি এবং ঢাকার মতিঝিলে তাদের দ্বিতীয় সমাবেশের আয়োজন করে। ৫ ও ৬ই মে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে এই সংগঠনের কর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষে বহু হেফাজতে ইসলামের কর্মী, পুলিশ, বিজিবি সদস্যসহ অন্তত ৪৭ জন নিহত এবং সাংবাদিকসহ আরও অনেকে আহত হয়।

৬ই মে, সংগঠনের মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরীকে, ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি চলাকালে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে ৫ই মে শাপলা চত্ত্বরে গভীর রাতে মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে হেফাজতের কর্মীদের উপর সরকারী আইন-শৃংখলা বাহিনী আক্রমণ পরিচালনা করে। পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির সদস্যরা এতে অংশগ্রহণ করে। এছাড়া এই অভিযান পরিচালনার পূর্বেই সরকার বিরোধী স্যাটেলাইট টেলিভিশন – দিগন্ত টিভি ও ইসলামিক টিভি বন্ধ করে দেওয়া হয়। হেফাজতে ইসলামের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয় ৫ই মে শাপলা চত্তরে গভীর রাতে সরকারি আইন-শৃংখলা বাহিনী হেফাজতে ইসলামের হাজার হাজার কর্মীকে হত্যা করে এবং তাদের লাশ গুম করে। এশীয় মানবাধিকার কমিশন থেকে বলা করা হয়, বিভিন্ন ইন্টারনেট রিপোর্ট থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে তারা ২৫০০ বা তারও বেশি হেফাজত কর্মী ওই হামলায় নিহত হতে পারে বলে ধারনা করছে এবং এজন্য তার তাদের রিপোর্টে একে গণহত্যা বলে অভিহিত করে।

অবশ্য ঢাকা পুলিশ কমিশনারের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলন করা হয় এবং হেফাজতে ইসলামের হাজার লোক গুমের এই দাবিকে সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বিশেষ উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে উল্লেখ করা হয়।
ফ্রান্সভিত্তিক বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয় ব্লাসফেমি আইন প্রণয়নের দাবিতে ঢাকায় জড়ো হওয়া মানুষদের হটিয়ে দিতে পুলিশ স্টান্ট গ্রেনেড, জলকামান, কাঁদানে গ্যাসের শেল ও রাবার বুলেট ব্যবহার করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] এই সহিংসতার কারণে মতিঝিল এলাকার ব্যাংক, বিমা ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের শত শত কর্মী রোববার নিজ নিজ অফিসে রাত কাটাতে বাধ্য হন।

তথ্যসুত্র:
বিভিন্ন পত্র-পত্রিকা
ওয়েব সাইট

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now