শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » শাপলা চত্ত্বরে ঈমানের ফুল ফুঁটে ছিলো

শাপলা চত্ত্বরে ঈমানের ফুল ফুঁটে ছিলো

লাবীব আব্দুল্লাহ: ৬ এপ্রিল ৷ ২০১৩ সাল৷ শনিবারে শাপলা চত্ত্বরে ঈমানের ফুল ফুঁটে ছিলো৷ দ্রোহের দাবানল ছড়িয়ে পড়ে ছিলো সারা দেশে৷ ইসলামপ্রেমী জনতা ইসলামের ভালোবাসায় সমবেত হয়ে ছিলেন মসজিদের নগরী মতিঝিলের শাপলায়৷ এই দেশ এই জাতিকে ভালোবাসে তাঁরা তাইতো জাতীয় ফুলের কাছেই সেই স্মরণীয় সমাবেশ৷ ঐতিহাসিক লংমার্চ৷ ঈমানী মার্চ৷ ভালোবাসার দীর্ঘ সফর৷
১৩ দফা দাবি বাস্তবায়নে ছিলো লংমার্চ৷ পৃথিবী দেখেনি এমন শান্তিপূর্ণ লংমার্চ৷ মাথায় টুপিপাগড়ি, সাদা ধবধবে সুন্নতি জামা, মুখে জিকির আল্লাহু আকবার বলে চলছে জনস্রোত শাপলায়৷ ওদের ভয় নেই ওরা দেশের ভালোবাসায় ঈমান আযাদীর লড়াইয়ে ছুটছে শাপলায়৷ শাহাদতের তামান্না ওদের দিলে৷ মৃত্যুকে মোলাকাত করবে কিন্তু তারা দুশমনকে পেলেও জুলুম করবে না৷ করেও নি সে দিন৷
সে দিন শুধু মাদরাসার নিরীহ ছাত্র শিক্ষক যাই নি শাপলার ঈমানী চত্ত্বরে৷ এ দেশের সব হালকার সকল দলের প্রতিনিধি গিয়েছে৷ পাড়ার ওই বখে যাওয়া বেনামাযীও নবীর ইযযত রক্ষায় বেকারার হয়ে শত বাধা উপেক্ষা করে বাসের ছাদে উঠে শাপলায় যেয়ে শরবত বিলিয়েছে৷
শত মাইল হেটে হেটে সত্তর বছরের বৃদ্ধও লাঠিতে ভর করে শাপলা যাওয়ার নিয়তে ঘর থেকে বের হয়েছেন৷
বাংলার হাজার হাজার দীনদার নারী সিয়াম পালন করেছেন সেই লংমার্চ সফল করার জন্য৷ রোযা রেখেছেন কলেজ ভার্সিটির মেয়েরাও নবীর ভালোবাসায়৷
মিডিয়াকর্মীরাও ঈমানের ভালোবাসায় একটু ভালো কভারেজ দেওয়ার আশায় ছুটেছেন স্পট থেকে স্পটে৷
সেই 6 ই এপ্রিল শনিবার ছিলো বাংলার জমিনে নবীপ্রেমীদের প্রেম প্রকাশের দিন৷
লাখো জনতাকে এক গ্লাস শরবত পান করানোর জন্য কতো নবীপ্রেমী দাঁড়িয়ে ছিলেন সারাবেলা৷ তুরমুজ বিক্রেতা ব্যবসা বাদ দিয়ে তার ভেন নিয়ে ছুটেছে শাপলায়৷ ফ্রি করে দিয়েছে তার তুরমুজের লাল ফালি৷ পকেট খালি তবুও তার মুখে কী হাসি! যার পকেটে যা ছিলো তাই খরচ করেছেন সে দিন যেনো মদীনার আনসার বনে গিয়ে ছিলো বাংলার জনতা৷
জুমাবারে 22 ঘণ্টার হরতাল, অবরোধ৷ সেই নবীপ্রেমীদের কে ফিরাবে? পুলিশরা তো সে দিন শরবত বিতরন করেছে৷ আইন শৃংখলায় নিয়োজিত আমাদের প্রিয় জোয়ানরাও চোখের ইশারায় বুঝিয়েছেন , আমারও আছি ঈমানের পক্ষে৷ তাদের মনেও ছিলো নবীর ভালোবাসা ৷ নীরবে বলেছেন, নবীর প্রেম আছে আমাদের বুকেও৷
আল্লামা আহমদ শফী সে দিন বিপ্লবের কন্ঠস্বর ছিলেন৷ একজন বুড়ো মানুষের ডাকে কী চেতনা! কী ঐক্য৷ দরসে হাদীসে যিনি জীবন বৃদ্ধ করেছেন সেই মনীষী তো এর আগে এভাবে ডাকেন নি৷ কেন ডেকে ছিলেন? এ ডাক ছিলো নবীর ভালোবাসার ডাক৷ ভালোবাসা কি বাধা মানে?
সে দিন কেউ বাধা মানে নি৷ বাংলার জনতা ঈমানের ডেউ তুলে সমবেত হয়েছিলেন শাপলার ঈমানী চত্ত্বরে৷
শুধু কি শাপলায়? সে দিন পুরো দেশই ঈমানী চেতনায় শাপলার মতো ধবধবে সাধা ও লাল হয়ে ওঠেছিলো৷
সাদা শাপলা সাফ দিলের প্রতিক৷
লাল শাপলা শাহাদতের খুনের প্রতিক৷
সে দিন শাপলা সাদা ছিলো৷ টুপির রাজধানী৷
5 মে সেই শাপলা শহীদী লহূতে ভাসছিলো৷ সেই শাপলা লাল বর্ণের শহীদী শাপলা৷
সাদা হোক বা লাল, শাপলার বিপ্লবীরা সফল৷
তাঁরা সফল ঘরে ফিরেও
বা জান্নাতের পাখি হয়েও৷
শাপলা, মতিঝিলের শাপলা, তোমার পাতায় তোমার কুড়িতে দেখি বসে আছে জান্নাতী পাখি!
উড়ছে কিছু পাখি দেশজুড়ে…
কী বলো পাখি?
আমরা আমাদের ইন্তেফাদায় কেমন আছি জানতে চাও?
আল্লামা জুনাইদ বাবু নগরীর কাছে যাও…
তিনি তো শেষ রাতে তোমাদের সাথেই ছিলেন৷
আজ কি তিনি ভুলে গিয়েছেন?
কেউ ভুলে নি পাখি! তবে সবাই বোবা হয়ে…
দু ফোঁটা পানি কি হবে পাখির ভালোবাসায় ?

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now