শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » এশিয়ার বৃহত্তম গ্রামে সর্ববৃহত জানাযা : অন্তিম শয়ানে শায়খে গুনই

এশিয়ার বৃহত্তম গ্রামে সর্ববৃহত জানাযা : অন্তিম শয়ানে শায়খে গুনই

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী বানিয়া চংগ থেকে : এশিয়ার বৃহত্তম গ্রাম হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গের গুনইয়ে গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে স্মরণ কালের সর্ববৃহত জানাযা অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রতক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, এটা ছিল বানিয়াচঙ্গের ইতিহাসে বৃহত জানাযা। বিকেল পৌনে পাচঁটায় গুনই মাঠে হাজার হাজার আলেম উলামার উস্তাদ শায়খুল ইসলাম হযরত হোসাইন আহমদ মাদানীর খলিফা হযরত মাওলানা আব্দুল মান্নান শায়খে গুনই’র জানাযা অনুষ্ঠিত হয়েছে। প্রায় অর্ধলক্ষ মুসল্লির উপস্থিতিতে বিভিন্ন মাদ্রাসা থেকে ছাত্র-শিক্ষকরা গাড়ীর বহর নিয়ে জানাযায় অংশ নেন। পরে অন্তিম শয়ানে সমাহিত করা হয়। জোহরের পর থেকেই গুনই অভিমুখে ধর্মপ্রাণ জনতার ঢল নামে। বৃহত্তর সিলেটসহ গোটা বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে শায়খের মুরিদ, মুহিব্বিন ও মুতাআল্লিকিনগণ জানাযায় অংশগ্রহণ করেন।

জানাযায় ইমামতি করেন তার বড় সাহেবজাদা, ফয়জে আম গুনই মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা শাহ খলিল। জানাযা পূর্ব জনসমুদ্রে বক্তব্য রাখেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফি, রেঙ্গা মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মুহিউল ইসলাম বুরহান, জামেয়া কাসিমুল উলুম দরগাহ সিলেটের মুফতি আবুল কালাম যাকারিয়া, সিলেট জেলা জমিয়তের সেক্রেটারী মাওলানা আতাউর রহমান, হবিগঞ্জ জেলা সেক্রেটারি হাজি ফরিদ উল্লাহ, বানিয়াচং আলিয়া মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আব্দাল হোসাইন, শায়খুল হাদিস মাওলানা মাকবুল হোসাইন, মাওলানা মুখলিছুর রহমান, মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা তৈয়্যিবুর রহমান চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান মুফতি আব্দুল হক, বানিয়াচং উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ বশির আহমদ, মাওলানা শায়খ আব্দুল মন্নান ও মরহুমের ২য় সাহেবজাদা মাওলানা শাহ সালেহ আহমদ প্রমুখ।
এছাড়া, মাওলানা আব্দুল বাসিত বরকতপুরী, মাওলানা আব্দুল বাসিত সুনামগঞ্জী, মাওলানা শাহ নজরুল ইসলাম, মাওলানা এমদাদউল্লাহ কাতিয়া,হাফিজ মাওলানা সৈয়দ ফখরুল ইসলাম, লন্ডন প্রবাসী হাফিজ মাওলানা সৈয়দ জুবের আহমদ প্রমুখ জানাযায় অংশ নেন। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম, যুব জমিয়ত ও ছাত্র জমিয়তের জেলা ও থানা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের উপস্থিত ছিল উল্লেখ যোগ্য । উল্লেখ্য যে, মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) সকাল ১০ ঘটিকার সময় নিজবাড়ীতে ইন্তেকাল করেছেন।  মৃত্যুর সময় তাঁর বয়স হয়েছিলো ৮৮ বছর। ৩ ছেলে, ৪ মেয়ে সহ অসংখ্য ভক্ত অনুক্ত রেখেগেছেন। তার ইন্তেকালে সিলেট বিভাগসহ দেশ-বিদেশে তার অসংখ্য মুরিদীন, মুতাআল্লিকিন ও মুহিব্বিনদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে।
তিনি জামেয়া ইসলামিয়া আরাবিয়া বানিয়াচং,গাছবাড়ী জামেউল উলুম মাদ্রাসায় লেখাপড়া করেন। দাওরায়ে হাদীস পাশ করেন কানাইঘাট দারুল উলুম থেকে। হযরত শায়খে গুণই ১৯২৭ সালে হবিগঞ্জ জেলার বানিযাচং থানার ঐতিহ্যবাহী গুনই ফকিরবাড়ীতে জন্ম গ্রহণ করেন।তাঁর পিতার নাম আলহাজ্ব শাহ শফিক আলী মহান দরবেশ হযরত শাহ জালাল (র)এর অন্যতম সাথী হযরত শাহ তাজউদ্দীন কুরাইশী এর বংশধর ছিলেন। শায়খুল ইসলাম সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী (র)এর ১৬৭ জন খলিফার মধ্যে বাংলাদেশী ৫০ জনের মধ্যে বর্তমানে ৩ জন জীবিত আছেন। তারা হলেন, হযরত শাহ আহমাদ শফী, হযরত মাওলানা আব্দুল মোমিন ও হযরত মাওলানা নোমান আহমদ (দা:বা)।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now