শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » মরমী মহারাজের গদ্যরীতি : একটি বিশ্লেষণ

মরমী মহারাজের গদ্যরীতি : একটি বিশ্লেষণ

কবির আহমদ খান: কবির ভাষায় শুরু করছি। “অমোঘ, অনিবার্য ও রহস্যময় এক অগ্নিশিখা যেনো। অজানা পুলকে রক্তে চাঞ্চল্য জাগায়। শরীরে ঢেউ লাগায়। হৃদয়কে দেয় নাচিয়ে। স্নায়ুকে করে আচ্ছন্ন। আর এটাই প্রেমের চরিত্র। প্রেম শব্দটিতে কত রঙ আর রশ্মিপাত! কতো অশ্র“ আর রক্তপাত! কতো শক্তি আর গভীরতা! কতো বেদনা আর আনন্দ।”
প্রাচীন গ্রিসে দার্শনিকেরা তিনটি ধারণা অনুসরণ করে প্রেমকে ব্যাখ্যা করতেন। এই ধারণার গ্রিক শব্দগুলো হচ্ছে- অগাপো (মরমী প্রেম) এরোস (শরিরী প্রেম) এবং ফিলিয়া (অনুরাগ)
অগাপো বা মরমী প্রেমের বিশালতা ও গভীরতা অতুল। প্রেম স্বত:স্ফূর্ত, স্বার্থহীন। পরমকে পেয়ে যাওয়া এ প্রেমের লক্ষ্য। এ প্রেমের প্রকাশ দেখি হুসাইন ইবনে মানসুর হাল্লাজের জীবনে। আল্লামা ইকবাল তাকে বলেছেন প্রাচ্যের রহস্যগুরু। ফরিদ উদ্দীন আত্তার (রহ.) তার শাহাদাতকে সুফিসাধনার সর্বোচ্চ শিখর বলে অভিহিত করেছেন। জীবিত অবস্থায় হাল্লাজ বলতেন- “পরমের সাথে আমার কিছু কথা আছে, যা ফাসি কাষ্টে না ঝুলে বলা যাবে না।” ইতিহাসে এমন দৃষ্টান্ত একেবারেই বিরল।
হাল্লাজকে নিয়ে প্রাচ্য-পাশ্চাত্যে বহু মিথ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে। তার আসল চরিত্র বহু গালগল্পের আড়ালে ঢাকা পড়ে গেছে। তিনি আসলেই কী দর্শন পৃথিবীকে দিলেন, সেটা অনেকের অজানা। অথচ তাকে না জেনে মরমী সাধনা ও প্রেমের উচ্চতর নার্ভ বুঝা যাবেনা। তার রচনা ও কবিতা জটিল ও দুর্বোধ্য। তার প্রতিটি কথা ছিলো রহস্যময়। যুগ যুগ ধরে তাকে নিয়ে চলছে বিতর্ক। তাকে আশ্রয় করে তৈরী হয়েছে চিন্তা-চেতনার শত শত স্রোত।
এমন এক মনীষার জীবন ও সাহিত্য নিয়ে বিশ্বসাহিত্যে প্রচুর চর্চা হচ্ছে স্বাভাবিকভাবেই। মরমী সাধনায় যাদের প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা নাই, তারা হাল্লাজকে বিচার করছেন একভাবে। যাদের এ অভিজ্ঞতা আছে, তারাও ব্যাখ্যা করছেন যার যার মতো। বাংলা সাহিত্যে হাল্লাজকে গভীরভাবে বিশ্লেষণের চেষ্টা তেমন আমরা দেখিনি। সম্প্রতি কবি মুসা আল হাফিজ হাল্লাজের জীবন ও কবিতার গভীরে ডুব দিয়ে তুলে এনেছেন মণি-মুক্তায় ভর্তি এক বই- মরমী মহারাজ। বইটি লিখিত হয় ২০১৪ সালের মাহে রমজানে। তখন আমরা আমাদের মুর্শিদ মহাগ্রন্থ আল-কুরআনের বিরল ভাষ্যকার হযরত শায়খে হবিগঞ্জী [দা.বা.] এর খানকায় এ’তেকাফরত ছিলাম। বইটি লেখা হয়েছে আমাদের চোখের সামনে। কিছু অংশ তিনি লিখে আমাদের শুনিয়েছেন। তখনই মনে হয়েছে অগাপো বা মরমী প্রেমের জন্যে যে ভাষা উপযুক্ত- মুসা আল হাফিজের ভাষা সেটাই। আব্দুল মান্নান সৈয়দ বলেছিলেন ‘বিষয়ের সঙ্গে একাত্মতাতেই ভাষার শক্তি নিহিত (বাংলা সাহিত্যে মুসলমান) মুসা আল হাফিজের ভাষা আধ্যাত্মিকতার একান্ত নিজস্ব প্রকাশ মাধ্যম। তিনি প্রেমের কথা শুধু লিখেন নি; সুন্দর করে লিখেছেন। মরমী মহারাজে এমনসব শব্দের খেলা জমে উঠেছে যা এক ধরণের যাদু। প্রকাশকের অবহেলা না থাকলে বইটি আরো সুন্দর হতে পারতো। একটি বইয়ের জন্য ভালোভাবে প্র“ফ দেখা অবশ্যই জরুরী। খুব যতœ সহকারে যে, প্র“ফ দেখা হয়নি সেটা বুঝাই যাচ্ছে। নতুবা বইটি পুরস্কার পেত। সুনির্বাচিত শব্দ আর পরিমার্জিত ভাষার ফলে মুসা আল হাফিজ বিদগ্ধ পাঠকের মনের লেখক। একজন ক্লাসিক্যাল লেখক হিসেবে তিনি বরাবরই সচেতন। ফলে তার বাক্য ও অনুচ্ছেদ গঠনের স্থাপত্যরীতি কাব্যময়। গভীর আন্তরিকতা আছে ছত্রে ছত্রে। পড়তে বসলে মনে হয় প্রতিটি লাইন বাদ্যযন্ত্রের সুরের মতো ‘কানের ভেতর দিয়ে মরমে পশিছে’।
মরমী মহারাজের কাব্যময় গদ্যের মিল পাওয়া যায় এয়াকুব আলী চৌধুরীর শান্তিধারার সাথে। যে বইকে বলা হয়েছিল- ‘মুসলিম বঙ্গসাহিত্যের শ্রেষ্ঠ নিদর্শন।’ (বঙ্গীয় মুসলমান সাহিত্য পত্রিকা- কার্তিক ১৩২৯) আব্দুল মান্নান সৈয়দের ভাষায়- ‘এয়াকুব আলী নিজে এক মনের সম্রাট’ (বাংলা সাহিত্যে মুসলমান) আব্দুল মান্নান সৈয়দ তার রচনার বৈশিষ্ট ব্যাখ্যা করে লিখেন- “এয়াকুব আলী চৌধুরীর ভাষা কবিত্বময়। এই কবিত্বের একটি কারণ তার রচনা উপমা উৎপ্রেক্ষাময়।” এইসব উপমায় দেখা যাবে উপমানগুলি সব সময় চয়িত হচ্ছে প্রকৃতি থেকে। এয়াকুব আলী চৌধুরীর গদ্যরচনা- যে কবিতাকীর্ণ বলা হয়ে থাকে, তা এই কারণেও। শান্তিধারা গ্রন্থভূক্ত রমজান প্রবন্ধটি শুরু হচ্ছে এভাবে: জ্যোৎস্নাময়ী সুপ্তা ধরণীর অর্ধম্লান মনোহর মূর্তি যে দেখিয়াছে, গভীর নিশীথে মুক্ত প্রান্তরে দাঁড়াইয়া ছায়াময় আলোময় বিরাট বিশ্ব-ছবি দেখিবার যাহার সৌভাগ্য হইয়াছে সেই জানে রমজান কেমন।’ এয়াকুব আলীর ধর্মবোধে অধ্যাত্মবোধ এইভাবে প্রকৃতি নিষিক্ত।
মুসা আল হাফিজ ঠিক এয়াকুব আলীর মত নন। তিনি বিচিত্র প্রকৃতির গদ্য রচনা করেছেন। দর্শন-ইতিহাস সাহিত্যালোচনা বা সমাজতত্ত ইত্যাদি বিষয়ক রচনায় তিনি যে ভাষা ব্যবহার করেন, তা মরমী মহারাজ বা মহাকাব্যের কোকিল এর মতো নয়। এ দুটি বই আধ্যাত্মিক। এতে তার ভাষাও আধ্যাত্মিক রহস্যের সংলাপের মতো হয়ে গেছে। মরমী অনুভূতির প্রকাশে কবিত্বময় গদ্যের ঢেউ সৃষ্টি হয়েছে। দৃষ্টান্ত দিচ্ছি মরমী মহারাজের শুরু থেকে: “ঝর্ণার স্ফটিকস্বচ্ছ পানির তলায় রঙিন পাথর চাঁদের আলোয় ঝিকমিকিয়ে উঠলো। বুকে আয়াতের নক্ষত্র জ্বালিয়ে আরেকবার জাগলো জন্মের গরিমাা। অনুভূতির অসংখ্য জানালায়। অজস্র দরজায় লক্ষ লক্ষ চোখ দিয়ে দেখলাম তোমার আলোর অমল বিস্তার।”
দেখা যাচ্ছে মুসা আল হাফিজের উপমাগুলিও আসছে প্রকৃতি থেকে। রচনার স্টাইল গভীরভাবে উপমা উৎপেক্ষাময়। এয়াকুব আলীর গদ্য সরল বর্ণনার মতো অগ্রসর হচ্ছে। কিন্তু মুসা আল হাফিজের শব্দে-বাক্যে ভীড় করছে তুমুল রহস্য। গভীর থেকে গভীরতর মর্মের দিকে চলে যাচ্ছে। আর এভাবেই তিনি তৈরী করছেন তার নিজস্ব ভাষার জগত। এয়াকুব আলীর গদ্যের প্রশংসা করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। তার শেষের কবিতা ছিলো কাব্যময় গদ্যের এক উজ্জ্বল নিদর্শন। মহাকাব্যের কোকিলের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট কবি কালাম আযাদ বলেছিলেন- রবীন্দ্রনাথের শেষের কবিতার পরে মহাকাব্যের কোকিলের মতো আর কোনো গ্রন্থ পড়িনি। বইটি আমাকে তিনটি রাত ঘুমাতে দেয়নি।”
বস্তুত মহাকাব্যের কোকিল ও মরমী মহারাজের গদ্যের মিল কোনো কোনো দিক থেকে রবীন্দ্রনাথের শেষের কবিতার সাথে রয়েছে। কোনো কোনো দিক থেকে এয়াকুব আলীর শান্তিধারার সাথে রয়েছে। কবি আব্দুশ শহীদ খান সহ কোনো কোনো গবেষক এই গদ্যরীতিকে বরকত উল্লাহ সাহেবের পারস্য প্রতিভার গদ্যের সাথে মেলাবার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু তা একদিক দিয়ে মিললেও অন্য দিক দিয়ে মিলেনা। কিছুটা অভিন্নতা দেখা গেলেও ভিন্নতা সহজেই ধরা দেয়। তিনি সুফিসাধনায় নিয়োজিত। ২০১১ সালে নয়াসড়কের মাদানী মসজিদে খেলাফত প্রাপ্ত হন আমাদের মুর্শিদের কাছ থেকে। নিজে কবি ও সাধক হবার কারণে তার রচনায় সুফিবাদের আত্মা উঠে এসেছে। বরকত উল্লাহ সাহেবের রচনায় এমনটি পাওয়া যায় না। আবার যুক্তি ও বিশ্লেষণের মধ্য দিয়ে তিনি এগিয়ে যান। কিন্তু এয়াকুব আলী সাহেবের রচনায় তা পাওয়া যায়না। যে কারণে কাজী আব্দুল ওদুদ সাহেব তাঁর গদ্য সম্পর্কে লিখেন- ‘যুক্তিতর্কের দিক দিয়ে এর অসম্পূর্ণতা খুবই চোখে পড়ে’ (বাংলা সাহিত্যে মুসলমান)
অনেকের চোখে মরমী মহারাজের গদ্যরীতি নতুন এক ধারা। ক্লাসিকাল গদ্যের স্বতন্ত্র এক ভঙ্গি। এর মধ্যে হৃদয় ও মগজ এক সাথে খোরাক খুজে পায়। আবেগ ও চিন্তাশীলতা এক সাথে এগিয়ে যায়। কবিতা ও গদ্যে এক সাথে পর্যটন করা যায়। দেখা যাক ভবিষ্যতের বাংলা সাহিত্য এই গদ্যরীতি সম্পর্কে কী ফয়সালা দেয়।
কবির আহমদ খান : সম্পাদক, সূর্যসকাল
যোগাযোগ : ০১৭২৫৩৪৮৩৮৬
লেখক: সম্পাদক সূর্য সকাল।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now