শীর্ষ শিরোনাম
Home » শীর্ষ সংবাদ » ছাত্রদলের নব ঘোষিত কমিটির নেতৃবৃন্দ অবরোদ্ধ! পদবঞ্চিত নেতারা ময়দানে সক্রিয়

ছাত্রদলের নব ঘোষিত কমিটির নেতৃবৃন্দ অবরোদ্ধ! পদবঞ্চিত নেতারা ময়দানে সক্রিয়

সিলেট রিপোর্ট: সম্প্রতি সিলেট জেলা ও মহানগরের নতুন কমিটি ঘোষণার পরই ছাত্রদলে এ নতুন মেরুকরণ ঘটে। সব গ্রুপিং-কোন্দল, ক্ষমতার দ্বন্দ্ব পেছনে ফেলে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করে। পদবঞ্চিত নেতারা ময়দানে সক্রিয়। বিভিন্ন দল উপদলে বিভক্ত নেতারা নতুন কমিটির বিরুদ্ধে এককাতারে সামিল হয়েছেন। বলা যায় ছাত্রদলের সকল গ্র“প এককাতারে ।
    জানাগেছে, সিলেট ছাত্রদলে ২০টি গ্রুপ-উপগ্রুপ রয়েছে। প্রভাবশালী গ্রুপগুলোর মধ্যে রয়েছে জামাল-মতি গ্রুপ, মিজান-জিল্লুর-সাফেক মাহবুব গ্রুপ, খালেদ-তারেক গ্রুপ, দিনার গ্রুপ, শাকিল মুর্শেদ গ্রুপ, ভিপি মাহবুব গ্রুপ, নাচন গ্রুপ, ফয়েজ-পান্না গ্রুপ, চমন-জাহেদ গ্রুপ, মিকসুদ গ্রুপ, জেহীন-জুনেদ গ্রুপ।
আজ রোববার হযরত শাহ জালাল (র)এর মাজার জিয়ারতের মাধ্যমে নতুন কমিটির নেতৃবৃন্দ সাংগঠনিক কার্যক্রম শুরুকরার কথা থাকলেও  রাত ৯ টায় রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নেতৃবৃন্দের মাজার জিয়ারত করা সম্ভব হয়নি। জানাগেছে, প্রতিপক্ষ গ্র“পের প্রতিরোধ-  হামলার আশংকায় নবগঠিত কমিটির নেতৃবৃন্দ কোথাও বের হননি। সবকিছু মিলিয়ে বলা যায় ছাত্রদলের নবঘোষিত কমিটির নেতৃবৃন্দ অবরোদ্ধ!

সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রদলের নবগঠিত কমিটিকে প্রত্যাখ্যান করেছে পদবঞ্চিত নেতারা। তারা নয়া কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে সিলেটে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে। এমনকি আগামী তিনদিনের মধ্যে কমিটি পুনর্গঠন না করা হলে গণপদত্যাগেরও হুমকি দিয়েছেন তারা।  শনিবার বিকেলে সিলেট প্রেসক্লাবে ছাত্রদল সিলেট জেলা ও মহানগরের ব্যানারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পদবঞ্চিত নেতারা  হুমকি দেন। সিলেট প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জেলা ছাত্রদলের সদ্য প্রাক্তণ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাফেক মাহবুব অভিযোগ করে বলেন, নতুন কমিটিতে দলের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাদের অবমূল্যায়ন করা হয়েছে। ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি বাণিজ্যিক লাভের জন্য কমিটি দিয়ে এ দুষ্কর্ম করেছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, আমরা এ কমিটি প্রত্যাখ্যান করছি এবং অবিলম্বে বিতর্কিত ও অবৈধ সরকারের এজেন্টদের দিয়ে গঠিত বর্তমান কমিটি বাতিলের জোর দাবি জানাচ্ছি। লিখিত বক্তব্যে সৈয়দ সাফেক মাহবুব নতুন কমিটি গঠনে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার সাবেক সহকারি প্রেস সচিব ও বিএনপি চেয়ারপার্সনের কূটনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য সচিব মুশফিকুল ফজল আনসারী কান্ডারির ভুমিকা পালন করেছেন বলে অভিযোগ করেছেন। সংবাদ সম্মেলনকারীদের ভাষায় এক সময়ে ছাত্র শিবিরের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত দলের কর্মচারী মুশফিকুল ফজল আনসারী কমিটি গঠন প্রক্রিয়ার সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন বলে তারা জানতে পেরেছেন। এছাড়া দলকে ধ্বংস করার ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে ছাত্রশিবিরের রাজনীতি থেকে আসা চারজনকে কমিটিতে স্থান দেয়া হয়েছে বলে মমত্মব্য করেন সৈয়দ সাফেক মাহবুব। অন্যদিকে লিখিত বক্তব্যে আরো অভিযোগ করা হয়, নতুন ঘোষিত জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সাঈদ আহমদ গত দুই বছর ধরে আইন পেশার সাথে সম্পৃক্ত। সরকার বিরোধী আন্দোলনে নিস্ক্রিয় ছিলেন তিনি। মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি নুরম্নল আলম সিদ্দিকী খালেদ বিগত দিনে দলের নেতৃত্বদানে চরমভাবে ব্যর্থ। অতীতে মহানগরের দায়িত্ব পালন করলেও একটি ইউনিট কমিটিও গঠন করতে পারেননি তিনি। লিখিত বক্তব্যে আরো উলেস্নখ করা হয়, মহানগরের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বপ্রাপ্ত আবু সালেহ মোহাম্মদ লোকমান ছাত্রশিবিরের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। ২০০২ সালে ছাত্রদলে যোগদানের পর ২০০৩ সালেই জেলা ছাত্রদলের সমাজসেবা সম্পাদক হিসেবে স্থান করে নেন। এরপর এবার মহানগরের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। বিগত আন্দোলনে তাকে রাজপথে দেখা যায়নি বলে অভিযোগ করা হয় লিখিত বক্তব্যে। লোকমানকে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দিয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি যে দুষ্কর্ম করেছেন তা ÿমার অযোগ্য বলে লিখিত বক্তব্যে মমত্মব্য করেন সৈয়দ সাফেক মাহবুব। অন্যদিকে জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রাহাত চৌধুরী মুন্না বিগত কমিটিতে পাঠাগার সম্পাদকের দায়িত্বে থাকলেও গত ৫/ ৬ বছর ধরে তিনি নিস্ক্রিয় রয়েছেন। এছাড়া বিভিন্ন উপজেলার নেতাকর্মীরা তাকে চেনেনা বলে অভিযোগ করা হয় লিখিত বক্তব্যে। বড় ধরনের টাকার লেনদেনের মাধ্যমে তড়িগড়ি করে কমিটি ঘোষণা করা হয় বলে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে পদবঞ্চিতদের মধ্যে জেলা ছাত্রদলের সদ্য প্রাক্তন সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুল হক চৌধুরী, ছাত্রদল নেতা রেজাউল করিম নাচন, শাকিল মোর্শেদ ও লোকমান আহমদ ছাড়াও নয়া কমিটির চার নেতা যথাক্রমে জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি আহমদ চৌধুরী ফয়েজ, মহানগর শাখার সহ-সভাপতি মাহফুজুল করিম জেহীন, জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক এখলাছ উদ্দিন মুন্না ও সহ-সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন পান্না উপস্থিত ছিলেন। তারা নতুন কমিটি প্রত্যাখ্যান করেন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now