শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » খলিফায়ে মাদানী হযরত শাহ আব্দুল মন্নান শায়খে গুনই (র.) এর সংক্ষিপ্ত জীবনী

খলিফায়ে মাদানী হযরত শাহ আব্দুল মন্নান শায়খে গুনই (র.) এর সংক্ষিপ্ত জীবনী

gunoy1মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী : উপমহাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম নেতা ও আধ্যাত্মিক রাহবার শায়খুল ইসলাম হযরত মাওলানা সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী (র.) এর বিশিষ্ট খলিফা বৃহত্তর সিলেটের সর্বজন শ্রদ্ধেয় বুযুর্গ মাওলানা শাহ আব্দুল মন্নান শায়খে গুনই আমাদের মাঝে আর নেই। তিনি গত ৭ এপ্রিল ২০১৫ ঈসায়ী মঙ্গলবার সকাল ১০ ঘটিকার সময় বানিয়াচঙ্গের নিজবাড়ীতে ইন্তেকাল করেন। ৩ ছেলে, ৬মেয়ে সহ অসংখ্য ভক্ত অনুরক্ত রেখেগেছেন। ঐদিন বাদ আছর লাখো মুসল্লির উপস্থিতিতে জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে বরেণ্য এই আলেমেদ্বীনকে অন্তিম শয়ানে সমাহিত করা হয়। বৃহত্তর সিলেটসহ গোটা বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে শায়খের বিপুল সংখ্যক ভক্ত-মুরিদ, মুহিব্বিন-মুতাআল্লিকিনগণ জানাযায় অংশগ্রহণ করেন। জানাযায় ইমামতি করেন তার বড় সাহেবজাদা, ফয়জে আম গুনই মাদরাসার নির্বাহী পরিচালক মাওলানা শাহ খলিলআহমদ।
জন্ম: মারিফাত জগতের উজ্জল তারকা হযরত মাওলানা শাহ আব্দুল মন্নান শায়খে গুনই ১৯২৭ ঈসায়ী মোতাবেক ১৩৩৩ বাংলার ১৩ আশ্বিন হবিগঞ্জ জেলার ঐতিহ্যবাহী বানিয়াচঙ্গ থানার গুনই ফকিরবাড়ীতে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তাঁর পিতা আলহাজ্ব শাহ শফিক আলী, মাতার নাম মোছা: মালিক জান বিবি। তাঁরা একই বংশের ছিলেন। সম্পর্কে চাচাতো ভাই-বোন। মাওলানা শাহ আব্দুল মন্নান শায়খে গুনই (র) এর পুর্বপুরুষগণ পবিত্র মক্কার কুরাইশ গোত্রীয় । পারিবারিক সুত্রে জানাযায়, মহান দরবেশ হযরত শাহ জালাল (র)এর অন্যতম সাথী হযরত শাহ তাজউদ্দীন কুরাইশী এর বংশধর ছিলেন। তাজ উদ্দীন কুরাইশী (র) সিলেট বিজয়ের পর তরফ অঞ্চলে নাসির উদ্দীন সিপাহসালারের সাথে আগমন করেন। পরে তরফ অঞ্চলে তিনি স্থায়ী ভাবে বসবাস করেন। তারই বংশে জন্মগ্রহণ করেন আমাদের আলোচ্য ব্যক্তিত্ব সদ্যপ্রয়াত মাওলানা শায়খ শাহ আব্দুল মন্নান(র.)।
বংশ তালিকা নিন্মরুপ: হযরত শাহ তাজ উদ্দীন কুরাইশীর ছেলে শাহ গদা হাছান, তার ছেলে শাহ গঞ্জুর, ছেলে শাহ ভেলওয়ার, ছেলে শাহ মো: মুছা, ছেলে শাহ বখতিয়ার, ছেলে শাহ সুনা মিয়া, ছেলে শাহ খাকাহ, ছেলে শাহ কিয়ামুদ্দিন, ছেলে শাহ শিহাবুদ্দিন, ছেলে শাহ ভেলা ও মেহের আলী, ছেলে শাহ খাতির মুহাম্মদ, ছেলে হাজি শাহ নাজিম আলী। হাজি শাহ নাজিম আলী চার ছেলে। তারা হলেন, শাহ নজিব আলী, শাহ খাজিম আলী, হাজী শাহ আইন আলী ও শাহ আব্দুল গণী। হাজী শাহ আইন আলীর ৩ ছেলের ২য় ছেলের নাম হলো হাজী শাহ শফিক আলী। আর এই হাজী শাহ শফিক আলীর ৩ ছেলের প্রথম সন্তান হলেন হযরত শায়খ শাহ আব্দুল মন্নান (র.)। শাহ আব্দুল মন্নানের অপর দুই ভাই হলেন, শাহ আব্দুস সবুর ও শাহ হিফজুর রহমান। শায়খে গুনই’ (র)এর বংশে বিপুল সংখ্যক আলেম-হাফিজে কোরআন জন্ম গ্রহণ করেছেন।
শিক্ষা-দীক্ষা: ছয় বছর বয়সে শিশু আব্দুল মন্নানকে গুনই প্রাইমারী স্কুলে ভর্তি করা হয়। ১১ বছর বয়সে প্রাথমিক শিক্ষার পাশাপাশি মক্তবে কালিমা কালাম ও আমপাড়া শিক্ষা সম্পন্ন করেন। ১২ বছর বয়সে এশিয়ার বৃহত্তম গ্রাম বানিয়াচঙ্গ এল,আর হাই স্কুলে ভর্তি হন। কয়েক বছর লেখাপড়ার পর স্নেহময়ী মাতার ইন্তিকালে তিনি অন্যমনস্ক হয়ে পরেন। ১৭/১৮ বছর বয়সে ধুলিয়া নিবাসী মাওলানা ইব্রাহিম (র) গুনই ফয়জে আম মাদ্রাসায় শিক্ষক হয়ে আসলে তাঁর সান্নিধ্যে থেকেই পবিত্র কোরআন শরীফ ও প্রাথমিক অন্যান্য কিতাবাদী অধ্যায়ন করেন। একই বছর বানিয়াচঙ্গ আলিয়া মাদ্রাসায় ছরফ জামাতে ভর্তি হন। বানিয়াচঙ্গ জামেয়া ইসলামিয়া আরাবিয়া আলিয়ায় ২ বছর, এর পরে কানাইঘাটের ঐতিহ্যবাহী গাছবাড়ী জামেউল উলুমে কাফিয়া জামাতে ভর্তি হন। শায়খুল হাদীস আল্লামা মুশাহিদ বায়মপুরী (র) এ বছরই শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। সেখান থেকেই বায়মপুরী (র)এর সাথে শায়খে গুনই’র ঘনিষ্টতা। গাছবাড়ী মাদ্রাসায় আলিয়া শেষ বর্ষে অধ্যয়ন কালীন কওমী-আলিয়া দ্বন্দের কারণে তিনি চলে আসেন কানাইঘাট দারুল উলুমে। সেখানে ২ বছর ধারাবাহিক লেখাপড়া শেষে কৃতিত্বের সাথে প্রথম বিভাগে দাওরায়ে হাদীস পাশ করেন । দারুল উলুম কানাইঘাট থেকে দাওরায়ে হাদীস পাশকরে বিশ্ববিখ্যাত বিদ্যাপীঠ দারুল উলুম দেওবন্দের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। দ্বিতীয় বারের মতো দাওরায়ে হাদীস পড়ার আবেদন নাকচ করে শায়খুল ইসলাম হযরত মাদানী (র) স্বীয় মাথার পাগড়ী উপহার দিয়ে বায়াত করেন। এভাবেই প্রবেশ করেন আধ্যাত্মিক জগতের ভূবনে। দারুল উলুম দেওবন্দ ও স্বীয় মুর্শিদ এর সান্নিধ্য থেকে ১৩৬৪ বাংলার ২৬ বৈশাখ দেশে ফিরে আসার পর দিনারপুর-বালিদাড়া মাদ্রাসায় শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরুকরেন। নবীগঞ্জের ইমামবাড়ী মাদ্রাসায় প্রায় ২ বছর অধ্যাপনা করেন।
সেখানে ২ বছর শিক্ষকতার পর পিতার হজ্বে যাওয়ার কারণে তিনি বাড়ীতে চলে আসেন। এর পরের বছর থেকে গুনই ফয়জে আম মাদ্রাসায় খেদমতে আত্মনিয়োগ করেন। আমৃত্যু গুনই ফয়জে আম মাদ্রাসার মুহতামিম ছিলেন।
পারিবারিক জীবন: মিশকাত শরীফে ভর্তি হওয়ার আগেই পিতার আব্দার রক্ষায় পরিনয় সুত্রে আবদ্ধ হন। পারিবারিক জীবনে তিনি দুটি বিয়ে করেন। প্রথমা স্ত্রী আপন চাচাত বোন (আলহাজ্ব শাহ রফিক আলীর দ্বিতীয় কন্যা) মোছা: আনছবা খাতুনের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। আনছবা খাতুর বানিয়াচঙ্গ আমির খানী লস্করবাড়ী এলাহী বখশের নাতনী। পরবর্তীতে করচা গ্রাম নিবাসী মো: মনাফ মিয়ার দ্বিতীয় কন্যা মোছা: ছুফিয়া খাতুনের সাথে পরিনয় সুত্রে আবদ্ধ হন। প্রথম স্ত্রীর তরফে এক ছেলে ও দুই মেয়ে জীবিত আছেন। ছেলের নাম মাওলানা শাহ খলিল আহমদ। তিনি বর্তমানে গুনই ফয়জে আম মাদ্রাসার মুহতামিম এর দায়িত্ব পালন করছেন। মাওলানা শাহ খলিল আহমদ এর শ্বশুর হলেন শায়খুল হাদীস মাওলানা মকবুল হুসাইন আসগরী। দ্বিতীয় তরফের ২ ছেলে, তারা হলেন যথাক্রমে হাফিজ মাওলানা শাহ সালেহ আহমদ ও শাহ নেসার আহমদ। শায়খের ৬ কন্যার সকলেই দ্বিনী শিক্ষায় শিক্ষিত । তৃতীয় কন্যা ছিদ্দিকা খাতুনকে বিয়েদেন ঢাকা মহানগর জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সভাপতি প্রখ্যাত পীর সদ্যপ্রয়াত মুফতি আব্দুল আউয়াল উয়াইসী (র)এর নিকট ।
আধ্যাত্মিকতা: শায়খুল ইসলাম সায়্যিদ হোসাইন আহমদ মাদানী (র)এর সর্বমোট ১৬৭ জন খলিফার মধ্যে বাংলাদেশী ৫০ জন। তন্মধ্যে বৃহত্তর সিলেটেই ৩০ জন। মাদানী (র.) এর বাংলাদেশী খলিফাদের মধ্যে বর্তমানে ৩ জন জীবিত আছেন। তারা হলেন, হযরত শাহ আহমাদ শফী, ছদরে জমিয়ত হযরত মাওলানা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী ও হযরত মাওলানা নোমান আহমদ চট্রগ্রামী। শায়খে গুনই কাছার জেলার বাশকান্দিতে মাদানী (র) এর সাথে এতেকাফ করেছেন একাধিকবার। নিয়মিত ভাবে কয়েকবার চিল্লা ও করেন। কোন এক রমজানের ২৮ তারিখ ৪২ জনকে আধ্যাত্মিক সাধনার ফল স্বরুপ ইজাজাত প্রদান করেন। এই তালিকায় তন্মধ্যে হবিগঞ্জ গুনই নিবাসী মাওলানা আব্দুল মন্নান এর নাম ও ছিলো। মাওলানা মুহিউদ্দীন খান অনূদিত ‘চেরাগে মুহাম্মদ’ নাম গ্রন্থে হয়রত হোসাইন আহমদ মাদানী (র)এর ইযাজত প্রাপ্ত খলিফাদের যে তালিকা উল্লেখ করা হয়েছে, সে তালিকায় ২২ নাম্বারে শায়খে গুনই এর নাম রয়েছে। সিলেটের বিয়ানীবাজার চুরখাই নিবাসী মাওলানা শায়খ ইসমাইল (র) শায়খে গুনইর ইযাজত প্রাপ্তির পরই বলেছিলেন, ’’আব্দুল মন্নান তাসাউফের রাস্তা ও জিকির শেষ হয় নাই। তাসাউফের আরো অনেক কিতাব অধ্যয়ন করতে হবে। জিকরে হাফছে দম করতে হবে।” এই হাফছে দম এর সঠিক তথ্য উদঘাটনের জন্য তিনি স্বীয় পীর ভাই ডা.শায়খ আলী আসগর নুরী (র)এর বাড়ীতে গিয়েছিলেন। দালাইলুল খাইরাত এর ইযাজত : শায়খে গুনই পবিত্র মক্কা-মদীনা জিয়ারতের জন্য একদা পেরেশান হয়ে যান, তখন স্বীয় প্রাথমিক উস্তাদ মাওলানা ইব্রাহিম (র)এর পরামর্শে নিয়মিত দালাইলুল খাইরাত তেলাওয়াত করতেন। কিছুদিন এই আমল করার পর কদুপুর নিবাসী মাওলানা ক্বারী মিসবাহুজ্জামান কর্তৃক মাত্র এক সপ্তাহের মধ্য দালাইলুল খাইরাত এর ইযাজত প্রাপ্ত হন। উল্লেখ্য যে, ক্বারী মিসবাহুজ্জামান রায়ধর নিবাসী মাওলানা আছ আদ উল্লাহ থেকে এবং তিনি মাওলানা শায়খ আব্দুল হক ইলাহবাদী থেকে ইযাজত প্রাপ্ত হন। দালাইলুল খাইরাত, হিজবুল বাহার সহ সুলূকের রাস্তায় অন্তত ২ শতাধিক ব্যক্তিকে ইযাজত প্রদান করেছেন।
উল্লেখ যোগ্য খলিফাদের কয়েকজন হলেন: মাওলানা ইব্রাহিম, ধুলিয়া-বানিয়াচঙ্গ (হযরতের উস্তাদ), মাওলানা হেলাল উদ্দিন ঢাকা দক্ষিণ, মাওলানা জাকির হুসাইন মুহাদ্দিস দরগাহপুর মাদরাসা, মাওলানা মুহিউদ্দীন কাসেমী, সুনাম্গন্জ, মাওলানা আহমদ আলী শায়খুল হাদিস রাজাগন্জ, মাওলানা ফজলুর রহমান বানিয়াচঙ্গ, গোলাম মোস্তফা তালাইমারি রাজ্শাহী, মাওলানা শফিকুল ইসলাম আফ্সারি বি-বাড়য়িা, মাওলানা শাহ খলিল আহমদ গুনই, মাওলানা আব্দুল গফুর, বালিদাড়া, নবীগঞ্জ, হেকিম মৌলভী আব্দুল মান্নান, দত্তগ্রাম, মুফতি মাওলানা তালিব উদ্দীন, সাতাইহাল, সৈয়দ নেসার আহমদ, ভাড়েরা, মাওলানা সিরাজুল হক, নেত্রকোণা, মাওলানা শাহ আব্দুল লতিফ বেগুনাই, মাষ্টার আব্দুস শহীদ, ময়মনসিংহ, মাওলানা আব্বাস আলী, কিশোরগঞ্জ, মাওলানা হুসাইন আহমদ দিগরবাগ, মাওলানা জয়নাল আবেদীন, জামালগঞ্জ, মাওলানা আব্দুল করিম শাখাইতি, মাওলানা ফজলুল হক, ফাজিল চিশত,সিলেট প্রমুখ।
৬ বারের ও অধিক পবিত্র হজ্ব পালন করেন। ১৩৮৩ বাংলায় প্রথম হজ্ব পালন করেন। রাজনৈতিক মযদানে তিনি স্বীয় মুর্শিদের স্মৃতি বিজড়িত জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের কর্মী ছিলেন। জমিয়তের সাথে নিজেকে আজীবন সম্পর্ক রাখেন। আমৃত্যু জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর পৃষ্টপোষক ছিলেন। স্বাধীন বাংলাদেশে জমিয়তের প্রথম সাধারণ সম্পাদক মুফতি আহরারুজ্জামান ছিলেন তাঁর আপন ফুফাত ভাই। শায়খে গুনই প্রচার বিমুখ একজন নীরব সাধক ছিলেন। উচ্চপযার্েেয়র আল্লাহ ওয়ালা বুযুর্গছিলেন। কুতবুল আলম মাদানী (র)এর সহবত প্রাপ্ত মহান এই সাধক পুরুষের সান্নিধ্যে ২ বার কিছু সময় অতিবাহিত করার সুযোগ হয়েছিলো আমার । ইন্তেকালের বছর দুয়েক আগে তিনি (মেযের জামাই) মুফতি অব্দুল আউয়াল উয়াইসী প্রতিষ্ঠিত জামিয়া মাদানীয়া মান্ডা,মনখার বাড়ী মাদ্রাসায় কয়েক দিন অবস্থান করেন। তখন উয়াইসী সাহেক আমাকে তাঁর মাদ্রাসায় দাওযাত দিয়েছিলেন । এই সফরেই হযরত শায়খে গুনই (র)এর সান্নিধ্যে কিছু সময় অতিবাহিত করার সুযোগ হয়েছিলো। সেদিনকার তাঁর চেহারা ও জিহবার বিশেষ অবস্থাই জানান দিচ্ছিলো যে, তিনি নি:সন্দেহে একজন ছাহেবে নিছবত আল্লাহ ওয়ালা, একজন পীরে কামেল রাহবারে তরিকাত। আমরা মহান আল্লাহর দরবারে তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করছি।
তথ্যসুত্র: চলমান জালালাবাদ-শায়খ তাজুল ইসলাম, শায়খ মুহসিন আহমদ রফু সম্পাদিত হযরত মাওলানা শায়খ শাহ আব্দুল মন্নান এর জীবন ও সাধনা, মরহুমের পারিবারিক সুত্র।

লেখক: সম্পাদক-সিলেটরিপোর্টডটকম, সদস্য-সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাব। ০১৭১৬৪৬৮৮০০।

তারিখ ২০-৪-২০১৫

 

 

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now