শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » বর্ষবরণ প্রসঙ্গে কিছু কথা

বর্ষবরণ প্রসঙ্গে কিছু কথা

borsoএম.এ আসাদ চৌধুরী: পহেলা বৈশাখ। আবহমান বাংলার এক অনন্য ঐতিহ্য। অনেকেই বলেন পহেলা বৈশাখ বিজাতীয় উৎসব। তবে বর্তমানে বাংলাদেশে পহেলা বৈশাখে যে সকল উৎসব পালন করা হয়  এবং যেভাবে পালন করা হয়, তা বিজাতীয় সংস্কৃতির নামন্তর। অবশ্য কিছু সুশীল লোকেরা বলেন যে, এটাই বাংলাদেশের ঐতিহ্য, আমি মনেকরি এমনটা ঠিক নয়। কেননা বাংলাদেশের সংখ্যাঘরিষ্ট লোক মুসলমান তথা ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী। আর ইসলাম এ ধরণের কোন উৎসব সমর্থন করে না। কেননা লক্ষ্য করলে দেখা যায় যে পহেলা বৈশাখে নববর্ষ উপলক্ষে বর্ষবরণ নামে যে সকল কার্য উদযাপন করা হয় তা নি:সন্দেহে বেহায়াপনা, নির্লজ্জতা ও অনৈসলামিক কোথাও নেই। ইসলামের কোন নীতিতেই এ ধরনের বেহায়াপনা নেই। নারীরা পর্দা ছাড়া বাহিরে এসে পুরুষের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লাল সাদা কাপড় পরে এখানে ওখানে ঘুরে বেড়ানো ইসলামের কোন জায়গায় নেই।
কেননা ইসলাম নারীকে সর্বোচ্চ সম্মান প্রদান করেছে। আসলে তারা নারী অধিকার নয় বরং নারীকে ইসলাম যে সম্মান দিয়েছে তা থেকে বঞ্চিত করার নানান ফন্দি এটেছে পশ্চিমাদের লালিত মহলগুলো। আর সেই ফন্দিতে পড়ে বাংলার অনেক মা বোন না বোঝে ঘরের বাইরে এসে অনায়েসেই হারাচ্ছে তাদের মূল্যবান সম্পদ ইজ্জত। আর যারা আজ নারী স্বাধীনতার কথা বলে তাদের এই কথা অনেকটা শিয়ালের মত। কারণ প্রত্যেক শিয়ালই মুরগির স্বাধীনতা চায়। এতে তার খাদ্যের অভাব দূর হয়। ঠিক তেমনি এই মহল নারী স্বাধীনতা চায় যাতে তারা অতি সহজেই নারীকে কাছে পেয়ে তাদের ইজ্জত হরণ করতে পারে। এজন্যই নারী নিয়ে তাদের মাথাব্যাথা। আর তাদের এই লালসার ষড়যন্ত্রে পতিত হয়ে নারীরা হচ্ছে লুন্ঠিত এবং  ইজ্জত  হারা। তার বাস্তব  প্রমাণ হচ্ছে চলিত বাংলা সন যা অনেকের জানা।
১৪২২ বাংলা নববর্ষের দিন বর্ষবরন নামের বেহায়াপনা উদযাপন করতে আসা কিছু নারীর ইজ্জত হারানোর ঘটনা। যা বাংলার ইতিহাসে এক জঘন্য কলঙ্ক। বাঙ্গালী জাতির জন্য যা নিতান্তই  অভিশাপ। অবশ্য এটাই ছিল সেই লুচ্ছা নারী স্বাধীনতা দাবীকারিদের মুখ্য উদ্দেশ্য। আর ইসলাম ছাড়া যদি বাংলার মানুষ চলে তাহলে এধরনের ঘটনা  শুধু পহেলা বৈশাখে নয় বরং প্রতিদিনই ঘটবে। প্রসঙ্গত ১৪২২ সনের পহেলা বৈশাখে বর্ষ বরন উদযাপনের আসা কিছু নারী ইজ্জত হারান। ঢাকা সোহরাওয়ার্দি উদ্যানে আসা অনেক মানুষের ভিড়ে কিছু বখাটে ছেলেরা হাজারো মানুষের ভিড়ে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নাকের ডগায় দাড়িয়ে কিশোরী থেকে নিয়ে যুবতী মধ্যবয়সী নারী পর্যন্ত কিছু মা বোনের ইজ্জতের উপর হামলা করে। তারা তাদের পরনের কাপড় নিয়ে টানাটানি করে। অনেকের আবার পরনের কাপড়ই রাখেনি। হিংস্র পশুর মত খামছা খামছি করে তাদেরকে একেবারেই উলঙ্গ করে দেয়। চারিদিকে শুধু বাঁচাও বাঁচাও ধ্বনি। কিন্তু, লক্ষ্য মানুষের ভিড়ে একজনও সৎ সাহসী পুরুষ ছিলনা তাদেরকে রক্ষা করার জন্য। তাদের আত্মীয় পুরুষ যারা সংঙ্গে ছিল বাঁধা দিলে তাদেরকেও ওরা মারধর করে। নির্যাতিত নারীদের আর্তনাদ শুনে ইজ্জত বাঁচানোর জন্য ছুটে আসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী। তাদের সাথে আরো দু’ চার জন এসে পুলিশকে ডাকলে এটা তাদের দায়িত্ব নয় বলে চলে যায়। শুধু তাই নয়, পুলিশ ৫ জন বখাটেকে ধরে শাহবাগ থানার এসআই-এর নিকট সোপর্দ করলে কিছুক্ষণ পর তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়। বখাটেদের এই আচরণ পশুত্ত্বকেও হার মানায়। এ যেন হায়নার থাবা। এমন ন্যাক্ষারজনক ঘটনার জন্য কারা দায়ী? নির্যাতিত নারী না বখাটের দল? নারী তুমি ঘরের শুভা, কি প্রয়োজন বাহিরে (উৎসবে) আসার? কেননা পুরুষের পুরুষত্ব আছে বলেইত সে পুরুষ। যদিও এটার অপব্যবহার জঘন্য অপরাধ। যদি কেউ এক তরফা পুরুষদের দোষ দেয় তাহলে সেটাও ঠিক হবে না। কেননা বিড়ালের নাকের ডগায় শুটকি ঝুলিয়ে বিড়ালকে সাবধান করা যেমন বোকামী তেমনি নারীকে সাজিয়ে পুরুষের সামনে চলতে দিয়ে পুরুষকে সাবধান করাও বোকামী নয় কি?
ইসলাম এমন এক অধ্যায় যার মধ্যে শুধু কল্যাণই নিহিত। যারাই ইসলাম মেনে চলবে, তারা অবশ্য কল্যাণ লাভ করবে। কিন্তু আফসোস! বাংলার মানুষ আজ আসল কল্যাণকে কল্যাণ মনে না করে অকল্যাণকেই কল্যাণ মনে করছে। ঠিক সেই কাবুলি ব্যক্তির মত। লোকটি বাংলাদেশে এসেছিল এমন এক সময় যখন কোন ফলের মৌসুম ছিল না। তখন শুধু বৈদেশিক ফল পাওয়া যেতো, দেশীয় কোন ফল পাওয়া যায় নি। সে জনৈক বাঙ্গালীকে জিজ্ঞাসা করল তোমাদের দেশে কি কোন ফল নাই। তখন বাঙ্গালী বলল অবশ্যই আছে, আমাদের দেশে অনেক ধরনের অনেক স্বাধের ফলমূল আছে। তৎক্ষনাত কাবুলি ব্যক্তি বলল তাহলে দু’ একটা ফলের নাম বল। বাঙ্গালী লোকটি তখন নারিকেল দেখিয়ে বলল এটা আমাদের দেশের খুব মজার ফল। কাবুলি ব্যক্তি উপযুক্ত দাম দিয়ে নারিকেল কিনল। কিন্তু কিভাবে খেতে হয় সেটা জানেনা। সে দাঁত দিয়ে কামড় দেয় কিন্তু কাটতে পারেনা। পরে লোকটি নারিকেলটা মাটিতে ছুড়ে ফেলে বারকয়েক। এরপর ছুলায় ফাটল ধরলে লোকটি নারিকেলের ছুলা কামড়িয়ে ছিড়ে ছিড়ে চিবাইতে লাগলো। কিন্তু কোন স্বাদ পাইলনা। এক পর্যায়ে সব ছুলা চিবানোর শেষে যখন নারিকেলের টালি বের হল তখন সে ব্যক্তি বললো এটাত নারিকেলের বীজ, তাই সে মূল নারিকেলটি ফেলে দিল। কাবুলি ক্ষুব্ধ হল যে, বাঙ্গালী আমার সাথে ধোকাবাজী করেছে।
তারপর সে ঐ বাঙ্গালীকে খুজে বের করলো এবং বললো তুমি আমার সাথে ধোকাবাজী করলে কেন? বাঙ্গালী বললো কীভাবে? কাবুলি বাঙ্গালীকে ঐ ছুলাগুলো দেখিয়ে বললো এই যে, আমি সারা ফল চিবিয়ে খেলাম কিন্তু স্বাদ পেলাম না। আর তুমিতো বললে এটা খুব স্বাদ। বাঙ্গালী লোকটি বললো ভিতরের টালিটা কই? তখন কাবুলি বললো এটাতো ফলের বীজ তাই ফেলে দিয়েছি। তখন বাঙ্গালী বললো, এখন বুঝতে পেরেছি তুমি কল্যাণকে অকল্যাণ আর অকল্যাণকে কল্যাণ মনে করছে। তারপর বাঙ্গালী ঐ টালি এনে তাকে এটা ফাটিয়ে পানি পান করাল। তখন কাবুলি বললো এটাত খুব ভাল শরবত। তারপর যখন টালি দুই টুকরো করে ভিতরের নারিকেল তাকে খেতে দিল তখন সে আরো খুশি হল এবং বলল, এখানে দেখি দুইটা রুটি, বাংলাদেশের এ ফলতো খুব ভালো। একটা ফলের মধ্যে শরবতও আছে আবার রুটিও আছে। বাংলাদেশের মানুষের অবস্থাও ঐ কাবুলি ব্যক্তির ন্যায় হয়ে গেছে। তারা আজ আসল কল্যাণকে অকল্যাণ আর অকল্যাণকে কল্যাণ মনে করছে। যদি বাংলাদেশের মানুষ ইসলামকে আকড়ে ধরতো যদি বাংলার নারীরা ইসলাম তাদেরকে যে সম্মান দিয়েছে তা পুররোরিভাবে মেনে নিয়ে পর্দা করে চলতো তাহলে আজ লাখ মানুষের ভিড়ে তাদের এই অশ্লিলতার নগ্ননৃত্য দেখতে হতো না। রাজধানী ঢাকার টিএসসিতে হায়নার কালো থাবায় পড়ে উলঙ্গ অবস্থায় বেইজ্জত হতে হতো না ঐ সকল মা বোনকে। বাস্তবে টি এসসিতে ঘটা ঐ ঘটনা জাতির জন্য অভিশাপ বৈ কিছুই নয়।
ইসলাম নারীকে যে সম্মান দিয়েছে সে সম্মান কোন যুগে কোন সুশীল সমাজ দেয়নি দিতে পারবেও না। আর নারী যদি সেই সম্মান ধরে রাখতে না পারে তাহলে অসম্মান আর বেইজ্জতীর জিন্দেগী স্বাভাবিক। যার বাস্তব প্রমাণ হল সদ্যগত পহেলা বৈশাখে ঘটে যাওয়া নির্লজ্জতার করুণ কাহিনী। আর যদি নারী জাতি ইসলাম ছেড়ে দেয় তাহলে এরকম ঘটনা শুধু একটা নয় হাজারটা হওয়াও অবাবস্তব কিছু নয়। রাজধানীর টিএসসি’র ঘটনাই হচ্ছে তেতুল তত্ত্বের বাস্তবতা। বাংলার মুসলিম মা বোনের প্রতি আকুল আবেদন, ইসলামের সুশীতল ছায়াতলে আসুন! নিজের প্রকৃত সম্মান রক্ষায় পর্দা পালন ও হিজাব ব্যবহার করুন। আল্লাহ আমাদের সঠিক বুঝ দান করুন। আমীন।

লেখক: এম. এ. আসাদ চৌধুরী, দর্জিবন্দ, রায়নগর, সিলেট। মোবা: ০১৭৫১-৪৮২২৬৪।


Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now