শীর্ষ শিরোনাম
Home » বিভিন্ন জেলা-উপজেলা » ‘গোলাপগঞ্জের ইতিহাস’ নামক বই বাজেয়াপ্তের দাবী

‘গোলাপগঞ্জের ইতিহাস’ নামক বই বাজেয়াপ্তের দাবী

সিলেট রিপোর্ট: ‘গোলাপগঞ্জের ইতিহাস’ নামক একটি বই প্রকাশের পর গোটা উপজেলায় তুমুল বির্তক শুরু হয়েছে।অনেকেই বইটি র্নিভুল না হয়যায় ক্ষোভ প্রকাশ করে তা বাজেয়াপ্তের দাবি জানিযেছেন। জানাগেছে, যুক্তরাজ্য প্রবাসী ফারুক আহমদ কর্তৃক ‘গোলাপগঞ্জের ইতিহাস’বইটি প্রকাশ করেছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন কলেজ শিক্ষক জানান, ইতিহাস রচনা করতে যেসব তথ্য উপাত্ত¡ প্রয়োজন তার ব্যাপারে লেখক কতটুকু সচেতন ছিলেন তা অনেকটাই প্রশ্নবিদ্ধ। গুণীজনেরা বলেন, ইতিহাস লেখা চাট্টিখানি কথা নয়, তার জন্য থাকতে হয় যোগ্যতা এবং দক্ষতা,ইতিহাস সম্পর্কে যথেষ্ট গভীরতা।
আলোচিত বই- গোলাগঞ্জ উপজেলা’র সাংবাদিকতা বিষয়ে লেখতে গিয়ে লেখক হয়তো
স্বজনপ্রীতি করেছেন আর না হয় অজ্ঞতার পরিচয় দিয়েছেন। দীর্ঘদিন ধরে সাংবাদিকতার সঙ্গে জড়িত অনেক পুরনো সংবাদকর্মীকে তিনি জেনে-বুঝে হোক কিংবা অজ্ঞতায় হোক অবমূল্যায়ন করেছেন, যা তার বইটি বিতর্কের উর্ধ্বে নয়।
বইটি’র ২৮২ থেকে ২৮৯ পৃষ্ঠা পর্যন্ত পড়লেই সচেতন পাঠক মহলে বিষয়টি পরিস্কার হয়ে যাবে। একই বইয়ে ৭নং লক্ষনাবন্দ ইউপির ইতিহাস ও বিকৃত করে ছাপা হয়েছে বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ । সিনিয়র সাংবাদিক জাকারিয়া তালুকদার সিলেট রিপোর্টকে জানান, লক্ষনাবন্দ হাফিজিয়া মাদ্রাসা, লক্ষনাবন্দ আদর্শ উচ্চবিদ্যালয , এলবি গ্রীণ ফ্লায়ার হাইস্কুল এর ইতিহাস ছাড়া কী ভাবে এই ইউনিয়নের ইতিহাস লেখলেন তা আমাদের বুঝে আসেনা। তিনি বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, শ্রম দিয়ে অর্থ ব্যয় করে ফারুক সাহেব বইটি প্রকাশ করলেও আমি মনে করি এই বই প্রকাশের ক্ষেত্রে লেখক অপরিপক্কতার পরিচয় দিয়েছেন। তাই অবিলম্বে বইটির প্রকাশনা বাজেয়াপ্তকরে সংশোধন করে বাজারজাত করার আহবান জানান।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now

One comment

  1. মি জাকারিয়া আহমদ আপনাকে এখানে একজন সিনিয়র সাংবাদিক হিসেবে উপস্থাপন করা হলো জেনে খুশি হলাম,সাংবাদিকতায় আপনার জ্যেষ্ঠতার বিষয়টি আরো স্পষ্ট করলে আমরা বুঝতে সুবিদা হতো আলোচ্য লেখকের চেয়ে কি পরিমান বয়োজ্যেষ্ঠ আপনি।তবে বলে রাখা ভালো এই গোলাপগঞ্জের সাংবাদিকতা ও সংবাদপত্র প্রকাশনার জগৎ জনাব ফারুক আহমদের মতো প্রাজ্ঞ সাংবাদিকদের হাতেই সমৃদ্ধ ও ধন্য হয়েছে।তিনির আলোচ্য বইটির ২৮২-২৮৯নং পৃষ্টার যে উদ্বৃতি আপনি/আপনারা দিয়েছেন এ বিষয়ে পুরো ব্যাখ্যা দিলে আপনাদের অন্তত জ্ঞানের বহর বুঝতে পারতাম। ইতিহাস লিখতে যে মাল মসলা ও দ্বিমান যোগ্যতা লাগে তা লেখকের আছে কি না তা বুঝার জন্য লেখকের ” History of Bengali migration in Britain”,”Bengali journals and journalism in Britain”,”Bengal politics in Britain ” বইগুলো আমাজোনে গিয়ে দেখতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.