শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » নাস্তিক বিরোধী আন্দোলনে সিলেটের প্রথম শহীদ হাফিজ আনোয়ার জাহিদ (র)

নাস্তিক বিরোধী আন্দোলনে সিলেটের প্রথম শহীদ হাফিজ আনোয়ার জাহিদ (র)

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী: সে এক বিরল দৃশ্য, হাজারো আলেম উলামা, হাফিজে কোরআন, সহপাঠি, উস্তাদ আর স্বজন অশ্রুসিক্ত নয়নে অন্তিম শয়ানে সমাহিত করলেন ‘শহীদ’ হাফিজ মো. আনোয়ার জাহিদকে। হরতালের কারণে যান চলাচল বন্ধ অপর দিকে মূষলধারায় বৃষ্টি উপেক্ষা করে ২০১৩ সালের ৮ মে বুধবার সকাল থেকেই মুসলিম জনতার স্রোত ছিল সিলেটের দক্ষিণ সুরমার দিকে। সকলের উদ্দেশ্য শহীদ আনোয়ার জাহিদকে এক নজর দেখা এবং জানাযায় শরীক হওয়া। আল্লাহ ও প্রিয় রাসূল (সা.)-এর ইজ্জত সমুন্নত রাখার জিহাদে প্রাণ বিলিয়ে দেয়া একজন শহীদের জানাযায় যোগ দিতে সিলেটের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে হরতাল এবং প্রতিকূল পরিস্থিতি উপেক্ষা করে ছুটে আসেন সর্বস্তরের তৌহিদী জনতা। পায়ে হেঁটে বিভিন্ন মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষক। ৭ মে মঙ্গলবার রাত ২.৩০ মিনিটে হাটহাজারি থেকে ট্রাকযোগে অভিভাবকরা হাফিজ জাহিদের লাশ বাড়িতে নিয়ে আসেন। বাড়ির আঙিনায় ঢুকতেই মর্মভেদি একদৃশ্যের অবতারণা হয়। মা-বাবা, ভাই-বোন, সহপাঠি ও স্বজনদের বুকফাটা কান্না আর আহাজারিতে ভারী হয়ে উঠে চারপাশ, শোকাচ্ছন্ন হয় প্রকৃতি। বারবার মূর্ছা যাওয়া জাহিদের মা-বাবাকে সান্তনা দেয়ার ভাষা ছিলনা কারও মুখে। এসময় সিলেট মহানগর হেফাজতে ইসলামের সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য এডভোকেট মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরীসহ আরো অনেকেই ছিলেন ‘অল্পশোকে কাতর অধিক শোকে পাথর‘র মতো। বুধবার বিকেল আড়াইটায় দক্ষিণ সুরমার পাঠানপাড়ার হাফিজ আনোয়ার জাহিদ (২৪)-এর নামাজে জানাযা শিববাড়িস্থ হিলসিটি মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। বিপুল সংখ্যক আলেম-উলামা, মাদ্রাসা ছাত্র-শিক্ষকসহ মুসল্লি হাফিজ আনোয়ার জাহিদের জানাযায় অংশ নেন। জানাযার নামাযে ইমামতি করেন দারুস সালাম মাদরাসার মুহতামিম এবং বন্দর বাজারজামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা ওলিউর রহমান। পরে তাকে পাঠানপাড়াস্থ তার পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। জানাযা পূর্ব এক সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় সিলেট জেলা হেফাজতে ইসলামের সভাপতি মাওলানা মুহিব্বুল হক গাছবাড়ী, জামেয়া তাওয়াক্কুলিয়া রেংগার মুহতামিম জমিয়ত নেতা মাওলানা মুহিউল ইসলাম বুরহান, ভার্থখলা মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা মজদুদ্দিনসহ উলামায়ে কেরাম বলেন, আনোয়ার জাহিদ আল্লাহ ও রাসূল (সা.)‘র ইজ্জত রক্ষার আন্দোলনে শাহাদাত বরণ করেছেন। তারা বলেন, এই শহীদের রক্ত আল্লাহর নিকট সর্বোচ্চ মর্যাদার দাবি রাখে। শহীদ জাহিদের বাবা আশ্রুসিক্ত নয়নে বলেন, আমার ছেলেকে যদি আল্লাহ ‘শহীদ’ হিসেবে কবুল করে নেন, তবেই পিতা হিসেবে আমার সার্থকতা। আমি আজ থেকে শহীদের পিতা।’ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে তিনি বলেন, আমার জাহিদকে যারা অন্যায়ভাবে হত্যা করেছে, আল্লাহর আদালতে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করলাম। কয়েক দিন আগে তারুণ্য দীপ্ত এই হাফিজে কোরআন যখন পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করতে ছিলেন, তখন মা-বাবা বলছিলেন, এই তো আমাদের পরকালের পুঁজি, হাশরের ময়দানে আল্লাহর দরবারে আমরা পেশ করবো কোরআনে হাফিজ ছেলেকে’ৃ..

উল্লেখ্য, ইসলাম অবমাননাকারী নাস্তিকদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা দাবি আদায়ে গত ৫ মে ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি চলাকালে শাপলা চত্বরে গভীর রাতের আঁধারে লাখো মুসল্লির উপর যৌথবাহিনীর নির্বিচারে গুলিবর্ষণের ঘটনায় ৬ মে হাটহাজারীতে অবরোধ সৃষ্টি করে তৌহিদী জনতা। ওই দিন দুপুরে হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমাদ শফীসহ শীর্ষ নেতারা গ্রেফতার হওয়ার খবরে হাটহাজারি এলাকায় আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে। দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটাহাজারির ছাত্র-শিক্ষক সহ শত শত তৌহিদী জনতা তখন রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ প্রর্দশন করেন। এসময় পুলিশের গুলিবর্ষণে তিনি শাহাদাত বরণ করেন। সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ২৭নং ওয়ার্ডের অন্তর্গত দক্ষিণ সুরমার পাঠানপাড়া নিবাসী হাজি আনোয়ার হোসেনের ছেলে হাফিজ আনোয়ার জাহিদ (২৪)। তিনি নগরীর ভার্থখলা মাদ্রাসায় হিফজ সম্পন্ন করে উচ্চতর ডিগ্রি নিতে হাটহাজারি মাদ্রাসায় বিগত ৫ বছর থেকে অধ্যয়নরত, এ বছর তিনি ফযিলত (ডিগ্রি সমমান) পড়ছিলেন।

প্রসঙ্গ ৬ মে : ৬ মে ঐতিহাসিক বালাকোট দিবস। ১৮৩১ সালের এই দিনে বালাকোটের যুদ্ধে শিখদের বিরুদ্ধে ইসলামী আদর্শ ও জীবনব্যবস্থা রক্ষায় হযরত শহীদ আহমদ বেরলভী (র) শাহাদত বরণ করেছিলেন। আর ২০১৩ সালের এই দিনে আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বে নাস্তিক ব্লগার বিরোধী আন্দোলনে জালেম শাসকশ্রেণির বুলেটে শহীদ হলেন বাংলার আধ্যাত্মিক রাজধানী সিলেটের কৃতিসন্তান হাফিজ আনোয়ার জাহিদ। আমরা মহান আল্লাহর দরবারে তার সর্বোচ্চ মাকাম কামনা করছি।
11215833_473239452840295_1468096417608167182_n
জাহিদের

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now