শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » দেশে এত যৌন নির্যাতন হচ্ছে কেন

দেশে এত যৌন নির্যাতন হচ্ছে কেন

মীর আব্দুল আলীম :দেশে ধর্ষণ, যৌন নির্যাতনের ঘটনা বেড়েছে। নিত্যই ব্যভিচার ও ধর্ষণকামিতার ঘটনা ঘটছে। রোধ হচ্ছে না। যৌন নির্যাতন করছে কলেজ শিক্ষক, বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, ডাক্তার, কর্মচারী, পুলিশ, আত্মীয়, চাচা-মামা-খালু, দুলাভাই, আমলা। কেউ বাদ যাচ্ছে না। ধর্ষিত হচ্ছে ছাত্রী, শিশু, যুবতী, আয়া, বুয়া, গৃহবধূ। রাস্তাঘাটে, চলন্ত বাসে, স্কুল-কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ে, গৃহে ঘটছে এই পৈশাচিক ঘটনা। কোথাও আজ নারীরা নিরাপদ নয়। এ ক্ষেত্রে থাকছে না বয়স, স্থান, কাল, পাত্রের ভেদ। রাত-বিরাতে নয় শুধু, দিনদুপুরে প্রকাশ্য যৌন নির্যাতনের ঘটনাও ঘটছে। রীতিমতো গণধর্ষণের ঘটনাও ঘটছে। অপসংস্কৃতি আর ভিনদেশী সংস্কৃতির আগ্রাসন আমাদের সমাজকে কতটা ক্ষতবিক্ষত করছে তা হালআমলের পরিসংখ্যান দেখলেই বেশ টের পাওয়া যায়। ‘যৌন হয়রানিতে চার বছরে ৯৯ নারীর আত্মহত্যা’ শীরোনামে ২০ মে জাতীয় দৈনিকে একটি সংবাদ ছাপা হয়েছে। রাজধানীর ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত এক সেমিনারে ১৯ মে মানবাধিকার সংগঠন ‘অধিকার’-এর পক্ষ থেকে এ তথ্য তুলে ধরে বলা হয়েছে, এ সময়ে যৌন হয়রানিতে বাধা দেওয়ায় লাঞ্ছিত হয়েছেন ২ হাজারেরও অধিক নারী ও ৪৮৯ জন পুরুষ। নারীর প্রতি সহিংসতা আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কর্মস্থল ও বাসাবাড়িতে কোথাও নিরাপদে নেই নারী-শিশু। গত ৪ মে মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুলের ১ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির চেষ্টা করে প্রতিষ্ঠানটির এক ক্যান্টিন বয়Ñএমন অভিযোগ অভিভাবকদের। এ সময় শিশুটির চিৎকার শুনে মেয়েটিকে উদ্ধার করে অন্যান্য সহপাঠীরা। এই ঘটনার একদিন পরেই ৫ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির চেষ্টা করে স্কুলের নিম্ন শ্রেণীর কয়েকজন কর্মচারী। এ ঘটনার এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে বরং নির্যাতিতদের স্কুল থেকে বের করে দেয়ার হুমকি দেয় কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনায় ১৬ মে বিক্ষোভের মুখে ভাইস প্রিন্সিপালসহ সব পুরুষ কর্মকর্তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। রাজধানীর পাশে সোনারগাঁ উপজেলার নোয়াগাঁও চরকামালদী এলাকায় যাত্রীবাহী বাসে ১১ মে রাতে এক গার্মেন্ট কর্মী গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। ভোররাতে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে আড়াইহাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জ উপজেলায় মাদরাসা ছাত্রী রাবিয়া খাতুন অনিতাকে (১৬) ডেকে নিয়ে ধর্ষণের পর হত্যা করেছে কথিত প্রেমিক। ১৬ মে সন্ধ্যার পর মাদারচর থেকে তার হাতবাঁধা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলায় এক স্কুল শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের পর গলা কেটে হত্যা করেছে দুই দুর্বৃত্ত। ১৫ মে দুপুরে তিস্তার চর তালপট্টির একটি বাঁশবাগান থেকে ওই স্কুল শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। একের পর এক ধর্ষণ, শ্ল¬ীলতাহানি ও এত হত্যাকা-ের ঘটনা ঘটলেও ধরা পড়ছে না অপরাধীরা। এক মাস অতিবাহিত হলেও পহেলা বৈশাখে বর্ষবরণের অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় নারীর শ্লীলতাহানির ঘটনায় এখনো কেউ গ্রেফতার হয়নি। যৌন হয়রানি শুধু নারীর বিরুদ্ধে নয়, মানবতার বিরুদ্ধে চরম অপরাধ। খুন, ধর্ষণ আজকাল এই আধুনিক পৃথিবীর নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা হলেও আমাদের দেশে এর মাত্রা যেন সব বিচিত্রতার সীমা ছাড়িয়ে যাচ্ছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, যৌন হয়রানির এই ব্যাপকতার পিছনের অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে, ধর্মীয় মূলবোধ মেনে না চলা এবং অপরাধীর শাস্তি না পাওয়া। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নির্লিপ্ততা ও তাদের তৎপরতাও দায়ী। নারী নির্যাতন প্রতিরোধে যথেষ্ট শক্তিশালী আইন থাকা সত্ত্বেও নির্যাতনকারীরা বিভিন্ন উপায়ে পার পেয়ে যায়। বাংলাদেশের আইন ভারতের চেয়েও শক্তিশালী। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধিত ২০০৩)-এর ৯(১) ধারায় বলা হয়েছে, যদি কোনো পুরুষ কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করে তবে সে যাবজ্জীবন কারাদ-ে দ-িত হবে। একই আইনের ৯(২) ধারায় আছে, ‘ধর্ষণ বা ধর্ষণ পরবর্তী কার্যকলাপের ফলে ধর্ষিত নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটলে ধর্ষকের মৃত্যুদ- বা যাবজ্জীবন কারাদ- হবে।’ একই সঙ্গে জরিমানার কথাও আছে। সর্বনিম্ন জরিমানা ১ লাখ টাকা। ৯(৩) ধারায় আছে, ‘যদি একাধিক ব্যক্তি দলবদ্ধভাবে কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করে এবং উক্ত ধর্ষণের ফলে কোনো নারী বা শিশু মারা যায় তাহলে প্রত্যেকের যাবজ্জীবন কারাদ- বা মৃত্যুদ-, কমপক্ষে ১ লাখ টাকা জরিমানা হবে’। ভারতে এক্ষেত্রে শুধু যাবজ্জীবনের কথা বলা আছে। মহিলা আইনজীবী সমিতির এক জরিপে জানা যায়, নানা কারণে ধর্ষণ মামলার ৯০ শতাংশ আসামি খালাস পেয়ে থাকে। অপরাধ বিশেষজ্ঞদের মতে, ‘প্রশাসনে দলীয় লোক থাকার কারণে এসব ঘটনার অপরাধীরা ধরা-ছোঁয়ার বাইরে থেকে যায়। রাজনৈতিক দলের ছত্রছায়ায় পার পেয়ে যাওয়ার আরেক কারণ। এছাড়া ফৌজদারি আইনের দুর্বলতার কারণে অপরাধীর উপযুক্ত শাস্তি হয় না। এ বিষয়ে ‘জনগণের প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। তাহলেই এরা শাস্তি পাবে।’ আমাদের প্রচলিত ব্যবস্থায় অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শান্তি প্রদান বেশ কঠিন। সবকিছুতেই আজ দলদালি চলে। আর তাতে কিছু মানুষ এ ধরনের অপরাধ করার সাহস পাচ্ছেন। যৌন নির্যাতনের সঙ্গে ক্ষমতার সম্পর্ক আছে। নারীর ওপর বল প্রয়োগের বহিঃপ্রকাশ হিসেবেও যৌন হয়রানির ঘটনা ঘটতে পারে। কখনও দেখা যায়, সামাজিকভাবে কোণঠাসা কোনো ব্যক্তি অন্য কোনো ব্যক্তির সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক গড়ার আশায় অলীক কল্পনা করতে থাকে। কিন্তু কাক্সিক্ষত সমাধান না পেয়ে, বলপ্রয়োগের পথ বেছে নেয়। যারা উচ্চবিত্ত, সমাজের ওপর তলার মানুষ, এ জাতীয় বিপদ তাদের ছুঁতে পারে কম। এদেশে যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছে নি¤œবিত্ত আর মধ্যবিত্তরাই বেশি। নির্যাতিত হয়েও ভয়ে চুপ থাকেন। ইজ্জত হারিয়েও মুখ খোলেন না। তারা জানেন আইন-আদালত করলে তাদের ভাগ্যে উল্টো বিপত্তি ঘটবে। অন্যায় করে অপরাধীরা এভাবে পার পেয়ে যাচ্ছে বলেই দেশে যৌন হয়রানি বেড়ে গেছে। বর্তমানে আমরা ঈমানী শক্তি হারিয়েছি। দেশপ্রেম, সততা, নৈতিক মূল্যবোধ, যৌন কামনা ইত্যাদি নেতিবাচক প্রেরণা আমাদের অন্ধ করে ফেলেছে। তাই সমাজ থেকে সুখ, শান্তি বা আনন্দ হারিয়ে যাচ্ছে। নিঃশর্ত ভালোবাসা বা ভক্তি কমে যাওয়ার কারণে আমাদের গঠনমূলক মনোভাব বা সৃষ্টিশীলতা নষ্ট হচ্ছে। এ কারণে বিপরীত লিঙ্গের প্রতি শ্রদ্ধার পরিবর্তে আমাদের ভোগের মনোভাব সৃষ্টি হচ্ছে। অন্যায়কারী এমন জঘন্য অন্যায় করার পরও প্রশাসন নীরব থাকে, সরকারের যেন কোনো মাথাব্যথা নেই। যৌন হয়রানি বৃদ্ধি পাওয়ার জন্য সরকার ও তার প্রশাসনের ব্যর্থতাও দায়ী। কারণ যারা এর শিকার হন তাদের বেশিরভাগই দরিদ্রসীমার নিচে বাস করে তাই আইনও এদের পাত্তা দেয় না। তবে এর শিকার যদি প্রশাসনের কোনো কর্মকর্তার মেয়ে বোন অথবা সংসদ সদস্য বা মন্ত্রীদের মেয়ে বোন হতো তাহলে আপরাধীরা শাস্তি পেত। তারা উচ্চ বর্গীয় তাই তাদের সন্তান, বোন আর স্ত্রীরা ধর্ষিত হওয়া আশঙ্কা কম। তবে মেয়েদের প্রতিপদেই বিপদের মোকাবিলা করতে হয় আজকের সমাজে, শ্রেণীবিভাগ ব্যতিরেকেই। উচ্চবর্গীয়রা নিরাপত্তার ঘেরাটোপে বাস করেন বলে ঘরের মধ্যে তাদের বিপদ কিছু কম হতে পারে তবে পার্টিতে অপরিচিত বা স্বল্পপরিচিতের হাতে, আর ঘরে নিকটাত্মীয় বা পরিচিতজনদের হাতে লাঞ্ছনা জোটার আশঙ্কাও উড়িয়ে দেয়া যায় না। আসল সমস্যাটা হলো কুরুচিপূর্ণ পুরুষদের দৃষ্টিভঙ্গিতে, সেটা কোনো শ্রেণীভাগ মানে বলে মনে হয় না। এমনকি শিক্ষাগত যোগ্যতাও এই মানসিকতা বদলাতে পারে না। তা না হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো স্থানে শিক্ষকের হাতে ছাত্রী, ডাক্তারের হাতে রোগী কিংবা ডাক্তারনী ধর্ষিত হয় কী করে? যৌন-ব্যভিচার সর্বযুগে, সর্বধর্মমতে নিন্দনীয় নিকৃষ্ট পাপাচার। অন্যায়ভাবে কাউকে হত্যা করা হলে এবং সাক্ষ্য-প্রমাণে নিশ্চিত হলে হত্যাকারীর শাস্তিও মৃত্যুদ-। কিন্তু আমাদের দেশে এ যাবৎ যতগুলো ধর্ষণ ও ধর্ষণজনিত হত্যাকা- সংঘটিত হয়েছে, তার যথাযথ বিচার সম্পন্ন হয়েছে এরূপ নজির কমই আছে। হয় চূড়ান্ত রিপোর্টে ঘাপলা নয়তো স্বাক্ষ্য-প্রমাণে প্রভাবিত করে অপরাধী পার পেয়ে যাচ্ছে ঠিকই। উপরন্তু এর বিচার চাইতে গিয়ে বিচারপ্রার্থীরা নির্বিচারে পাল্টা হত্যার হুমকি, কখনো কখনো হত্যার শিকার ও হয়রানির শিকার হন। এ অবস্থা থেকে আমাদের অবশ্যই বেরিয়ে আসতে হবে। নারীর যৌন হয়রানি রোধের উপায় কী? দেশে এত যৌন হয়রানির ঘটনা ঘটছে কেন? এ প্রশ্নের উত্তরে অনেকেই বলেন, ভালো মেয়েরা যৌন হয়রানির শিকার হয় না; পোশাকের সমস্যার কারণে অনেক মেয়ে যৌন হয়রানির শিকার হয়। অনেকে আবার বলেন, বেহায়াপনা করে স্বল্প কাপড়ে রাস্তায় ঘুরে বেড়ালে যৌন হয়রানি হবে না তো কী হবে? আর কোনো কোনো আলেম বলেন, ‘পর্দা প্রথায় ফিরে আসলে ধর্ষণ আর হবে না।’ আবার অনেকে বলেন, ‘কঠোর শাস্তি দিলে ধর্ষণ কমবে।’ আসলে যৌন নির্যাতন বন্ধে আগে মানসিকতা বদলাতে হবে। ধর্মে নারীকে পর্দা করতে বললেও পুরুষদেরও চোখ অবনত রাখতে বলা বয়েছে। তবে শুধু নারীর দোষ কেন? নারীর রূপ-যৌবন পুরুষকে মোহিত করবে সেটাই স্বাভাবিক। তাই বলে তার উপর পশুর মতো ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে কেন? যৌন হয়রানি কমাতে হলে আমাদের সচেতন হতে হবে। অবাধ মেলামেশার সুযোগ, লোভ-লালসা-নেশা, উচ্চাভিলাষ, পর্নো সংস্কৃতির নামে অশ্ল¬ীল নাচ-গান, যৌন সুড়সুড়িমূলক বই-ম্যাগাজিন, অশ্লীল নাটক-সিনেমা ইত্যাদি মানুষকে প্রবলভাবে ব্যভিচারে প্ররোচিত করেÑতা বর্জন করতে হবে। নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। সময়মতো বিয়ের ব্যবস্থা করতে হবে। ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। বাজে সঙ্গ ও নেশা বর্জন করতে হবে। পাশাপাশি নারীকেও শালীন হতে হবে। যৌন উত্তেজক পোশাক বর্জন করতে হবে। জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে যার যার পারিবারিক বলয়ে ধর্মানুশীলনে একনিষ্ঠতা, পোশাকের শালীনতা, অশ্ল¬ীল সংস্কৃতিচর্চার পরিবর্তে শিক্ষণীয় বিনোদনমূলক ও শালীন সংস্কৃতি চর্চার প্রচলন নিশ্চিতকরণ করা প্রয়োজন। সর্বোপরি কঠোর শাস্তির বিধান ও প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। নারীকে মর্যাদার আসনে বসাতে হবে। তবেই যৌন হয়রানি কমে আসবে বলে আমাদের বিশ্বাস। লেখক : সাংবাদিক ও কলামিস্ট হবংিংঃড়ৎব১৩@মসধরষ.পড়স

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now