শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » মুফতি শাহ আহরারুজ্জামান (র:): স্বাধীন বাংলার জমিয়তের প্রথম সেক্রেটারী

মুফতি শাহ আহরারুজ্জামান (র:): স্বাধীন বাংলার জমিয়তের প্রথম সেক্রেটারী

ahrarojjaman 1মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী: জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ উপমহাদেশের শতবর্ষের ঐতিহ্যবাহী একটি সংগঠন। ১৯১৯ সালে ভারত বর্ষের সেরা ইসলামী চিন্তাবীদগনের দীর্ঘ চিন্তা-চেতনার সমন্বিত ফসল এই জমিয়ত। উম্মতের রাহনুমায়ীর দায়িত্ব পালন করার ক্ষেত্রে যুগে যুগে দেশে দেশে জমিয়তের মৌলিক নীতি আর্দশে অটল থেকে সেসব ব্যক্তিত্ব সর্বস্ব বিলিয়ে দিয়েছেন, জমিয়তের পতাকাতলে সর্বশেণির জনতাকে সম্পৃক্তকরার জন্য দিন-রাত ফিকির করেছেন,জানমাল ব্যায়করেছেন, শহর থেকে গ্রামে গঞ্জে ছুটেগেছেন তাদেরই একজন
মুফতি শাহ আহরারুজ্জামান (র)। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভের পর জমিযতের প্রথম সেক্রেটারীজেনারেলের দায়িত্ব তিনিই পালন করেন। ১৯৩৩ ঈসায়ী মোতাবেক ১৩৩৬ বাংলার ৩০ শে পৌষ হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং থানার গুনই গ্রামে এক ঐতিহ্যবাহী “ শাহ ”পরিবারে তিনি জন্ম গ্রহন করেন। তারঁ পিতা ঊপমহাদেশ বিখ্যাত “ভিন্নুট বীর” আলেম মাওলানা শাহ মুহাম্মদ আমীর (র:)। তাদের পুর্বপুরুষ গন মহান দরবেশ হযরত শাহ তাজ ঊদ্দীন কুরাইশী আল ইয়ামনী (র:)এর বংশীয় ঊওর সুরী। মুফতি আহরারুজ্জামানের বাল্য নাম শাহ আকল মিয়া। তিনি স্বাধীন বাংলার জমিয়তের প্রথম সেক্রেটারী। বিশ্ববিখ্যাত বিদ্যাপীঠ ভারতের দারুল ঊলুম দেওবন্দ,পাকিস্তানের দারুল ঊরুম করাচি এবং জামেয়া ইসলামিয়া মদীনা মুনাওয়ারা থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রি প্রাপ্ত হয়ে জামেয়া ইসলামিয়া লন্ডনের অধ্যক্ষ পদে সমাসিন হন। ১৯৪৪ সালে আসাম প্রদেশের কাছাড় জেলার ভাংগা বদরপুর ইসলামিয়া মাদ্রাসায় ভর্তি হন। তখন ঊক্ত মাদ্রাসার মহা পরিচালক ছিলেন মরহুম খতিব উবায়দুল হকের পিতা মাওলানা জহুরুল হক (র:)। ১৯৪৭ সালে পিতার তত্বাবধানে নবীগঞ্জের জামেয়া ইসলামীয়া ইমামবাড়ী মাদ্রাসায় ভর্তি হয়ে চার বছর লেখাপড়া করেন। ১৯৫১ সালে ইলমে দ্বীনের ঊচ্চ শিক্ষা লাভের জন্য দারুল ঊলুম দেওবন্দে গমন করেন। দারুল উলুম দেওবন্দে সিলেটি ছাত্রদের সংগঠন জমিয়তুত তোলাবার দুইবার সেক্রেটারী ও একবার সভাপতি নিবার্চিত হন। ছদরে জমিয়ত আল্লামা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী বলেন,মরহুম মুফতি আহরারুজ্জামান আমার দারুল ঊলুম দেওবন্দের শিক্ষা জীবনের সাথীদের মধ্যে অত্যন্ত সরলপ্রাণ ও মেধাবী ছিলেন। দারুল ঊলুম দেওবন্দে তারঁ সাথীদের মধ্যে রয়েছেন, ফেদায়েমিল্লাত সৈয়দ আসআদ মাদানী (র:), মাওলানা সৈয়দ আরশাদ মাদানী, মুফতি ইঊসুফ কাসেমী চট্রগ্রাম,মুফতি নুরুল¬াহ(র:),মাওলানা নুরুল হক ধরমন্ডলী, মাওলানা আব্দুল হক জকিগন্ঝ, মাওলানা আব্দুল মুমিন শায়খে ইমামবাড়ী। ১৯৫৮ সালে পাকিস্তানের দারুল ঊলুম করাচি গমন করেন। সেখানে মুফতি মুহাম্মদ শফি (র:)এর নিকট ১৯৬১ সালে ইফতা কমপ্লে¬ট করেন। মুফতি মুহাম্মদ রফী ঊসমানী ও মুফতি মুহাম্মদ তাকি ঊসমানী এবং চট্রগ্রামের মুফতি ইউসুফ কাসেমী তারঁ করাচির সাথীদের অন্যতম ছিলেন। মরহুম মুফতি আহরারুজ্জামান (র:) ১৯৬২ সালে করাচির মাহমুদাবাদ জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব এবং তৎসংলগ্ন মাদ্রাসার ছদর মুদাররিসের দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে কর্মজীবনের সূচনা। ১৯৬৩ সালের শেষের দিকে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন। অত:পর পিতা মাতার সম্মতিতে বানিয়াচংগের তোপখানা মহল¬া নিবাসী আলহাজ আবদুল ওয়াহেদ খান (হাজী মন্নাফ মিয়া) এর কন্যা মোছা: রাজিয়া বেগমের সাথে তিনি পরিনয় সুত্রে আবদ্ধহন। ১৯৬৪ সালে তিনি উচ্চশিক্ষার সংকল্প নিয়ে মদীনা ইউনিভারসিটিতে ভর্তিহন। দুই বৎসর পর সেখান থেকে সরকারী অনুমতি পেয়ে স্ত্রী কে ও মদীনা শরীফে নিয়ে যান । সেখানে তারঁ প্রথম পুত্র শাহ আহমদ মদনী সহ ৩ ছেলে ১ মেয়ে জন্মগ্রহন করেন। ১৯৭২ সালে তিনি স্ত্রী-পুত্র সহ স্বাধীন বাংলাদেশে চলে আসেন । দেশে ফিরে নিজগ্রাম গুনই ফয়জে আম মাদ্রাসা পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহন করেন। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বপক্ষে ছিলেন। এমনকি সে সময় তিনি সৌদিআরবে প্রবাসীদের সংগঠিত করে বিধ্বস্ত এই দেশটির পুর্নগঠনের জন্য প্রবাসে থেকে অর্থ সংগ্রহ করেন । এসম্পর্কে শোলাকিয়া ঈদগাহের ইমাম মাওলানা ফরিদ উদ্দীন মাসুদ লিখেন, জমিয়তে উলামাযে হিন্দের তৎকালীন সভাপতি ফিদাযে মিল্লাত আওলাদে রাসুল হযরত মাওলানা সায়েদ আসআদ মাদানি (র) সারা ভারতে মুসলমানদের মাঝে বাংলাদেশের পক্ষে ব্যাপক প্রচারণা চালান। ভারত সরকারকে এ বিষযে সক্রিযভাবে এগিযে আসার জন্য উদ্যোগীকরেন। শুধু তাই নয় , মুসলিম বিশ্বের বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যে মুসলিম জনমত সৃষ্ঠিতে প্রয়াসী হন। জমিযতে উলামা বাংলাদেশের সাবেক মহাসচিব মরহুম মাওলানা আহরারুজ্জামান বরেন, এ উদ্দেশ্যে হযরত মাদানি (র) আমাকে নিজে মক্কা শরীফে প্রেরণ করেছিলেন। এভাবে মিসর,সিরিয়া, লিবিয়াসহ বিভিন্ন স্থানে তিনি (বাংলাদের…. র জন্য) জনমত গঠনে প্রয়াসী হন। (সূত্র: বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের ভূমিকা)। ১৯৭৩ সালে মাতৃভূমির আর্কষনে ইসলামী সমাজ ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার লক্ষে বাংলাদেশের রাজনৈতিক ময়দানে তিনি সক্রিয় ভূমিকা রাখতে আলেম সমাজের বিশ্বস্ত প¬াটফরম ‘জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তখন জমিয়তের সভাপতি নির্বাচিত হন মাওলানা তজম্মুল আলী (র:)। ইসলামী শিক্ষার ব্যাপক প্রচারের উদ্দেশ্যে তিনি ১৯৭৯ ইংল্যান্ড গমন করেন । লন্ডনে জামেয়া ইসলামীয়ার প্রধান মুফতি ছিলেন। ১৯৯৫ সালের ১৬ মার্চ দ্বীনী খেদমত রত অবস্থায়ই লন্ডনে তিনি ইন্তেকাল করেন। ং স্বাধীন বাংলার প্রথম সেক্রেটারী মুফতি আহরারুজ্জামান (র:) মুফতি শাহ আহরারুজ্জামান ১৯৩৩ ঈসায়ী মোতাবেক ১৩৩৬ বাংলার ৩০ শে পৌষ হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং থানার গুনই গ্রামে এক ঐতিহ্য বাহী “ শাহ ”পরিবারে জন্ম গ্রহন করেন। তারঁ পিতা ঊপমহাদেশ বিখ্যাত “ভিন্নুট বীর” আলেম মাওলানা শাহ মুহাম্মদ আমীর (র:)। তাদের পুর্বপুরুষ গন মহান দরবেশ হযরত শাহ তাজ ঊদ্দীন কুরাইশী আল ইয়ামনী (র:)এর বংশীয় ঊওর সুরী। মুফতি আহরারুজ্জামানের বাল্য নাম শাহ আকল মিয়া। তিনি স্বাধীন বাংলার জমিয়তের প্রথম সেক্রেটারী। বিশ্ববিখ্যাত বিদ্যাপীঠ ভারতের দারুল ঊলুম দেওবন্দ,পাকিস্তানের দারুল ঊরুম করাচি এবং জামেয়া ইসলামিয়া মদীনা মুনাওয়ারা থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রি প্রাপ্ত হয়ে জামেয়া ইসলামিয়া লন্ডনের অধ্যক্ষ পদে সমাসিন হন। ১৯৪৪ সালে আসাম প্রদেশের কাছাড় জেলার ভাংগা বদরপুর ইসলামিয়া মাদ্রাসায় ভর্তি হন। তখন ঊক্ত মাদ্রাসার মহা পরিচালক ছিলেন মরহুম খতিব উবায়দুল হকের পিতা মাওলানা জহুরুল হক (র:)। ১৯৪৭ সালে পিতার তত্বাবধানে নবীগঞ্জের জামেয়া ইসলামীয়া ইমামবাড়ী মাদ্রাসায় ভর্তি হয়ে চার বছর লেখাপড়া করেন। ১৯৫১ সালে ইলমে দ্বীনের ঊচ্চ শিক্ষা লাভের জন্য দারুল ঊলুম দেওবন্দে গমন করেন। দারুল উলুম দেওবন্দে সিলেটি ছাত্রদের সংগঠন জমিয়তুত তোলাবার দুইবার সেক্রেটারী ও একবার সভাপতি নিবার্চিত হন। ছদরে জমিয়ত আল্লামা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী বলেন,মরহুম মুফতি আহরারুজ্জামান আমার দারুল ঊলুম দেওবন্দের শিক্ষা জীবনের সাথীদের মধ্যে অত্যন্ত সরলপ্রাণ ও মেধাবী ছিলেন। দারুল ঊলুম দেওবন্দে তারঁ সাথীদের মধ্যে রয়েছেন, ফেদায়েমিল্লাত সৈয়দ আসআদ মাদানী (র:), মাওলানা সৈয়দ আরশাদ মাদানী, মুফতি ইঊসুফ কাসেমী চট্রগ্রাম,মুফতি নুরুল¬াহ(র:),মাওলানা নুরুল হক ধরমন্ডলী, মাওলানা আব্দুল হক জকিগন্ঝ, মাওলানা আব্দুল মুমিন শায়খে ইমামবাড়ী। ১৯৫৮ সালে পাকিস্তানের দারুল ঊলুম করাচি গমন করেন। সেখানে মুফতি মুহাম্মদ শফি (র:)এর নিকট ১৯৬১ সালে ইফতা কমপ্লে¬ট করেন। মুফতি মুহাম্মদ রফী ঊসমানী ও মুফতি মুহাম্মদ তাকি ঊসমানী এবং চট্রগ্রামের মুফতি ইউসুফ কাসেমী তারঁ করাচির সাথীদের অন্যতম ছিলেন। মরহুম মুফতি আহরারুজ্জামান (র:) ১৯৬২ সালে করাচির মাহমুদাবাদ জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব এবং তৎসংলগ্ন মাদ্রাসার ছদর মুদাররিসের দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে কর্মজীবনের সূচনা। ১৯৬৩ সালের শেষের দিকে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন। অত:পর পিতা মাতার সম্মতিতে বানিয়াচংগের তোপখানা মহল¬া নিবাসী আলহাজ আবদুল ওয়াহেদ খান (হাজী মন্নাফ মিয়া) এর কন্যা মোছা: রাজিয়া বেগমের সাথে তিনি পরিনয় সুত্রে আবদ্ধহন। ১৯৬৪ সালে তিনি উচ্চশিক্ষার সংকল্প নিয়ে মদীনা ইউনিভারসিটিতে ভর্তিহন। দুই বৎসর পর সেখান থেকে সরকারী অনুমতি পেয়ে স্ত্রী কে ও মদীনা শরীফে নিয়ে যান । সেখানে তারঁ প্রথম পুত্র শাহ আহমদ মদনী সহ ৩ ছেলে ১ মেয়ে জন্মগ্রহন করেন। ১৯৭২ সালে তিনি স্ত্রী-পুত্র সহ স্বাধীন বাংলাদেশে চলে আসেন । দেশে ফিরে নিজগ্রাম গুনই ফয়জে আম মাদ্রাসা পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহন করেন। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বপক্ষে ছিলেন। এমনকি সে সময় তিনি সৌদিআরবে প্রবাসীদের সংগঠিত করে বিধ্বস্ত এই দেশটির পুর্নগঠনের জন্য প্রবাসে থেকে অর্থ সংগ্রহ করেন । ১৯৭৩ সালে মাতৃভূমির আর্কষনে ইসলামী সমাজ ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার লক্ষে বাংলাদেশের রাজনৈতিক ময়দানে তিনি সক্রিয় ভূমিকা রাখতে আলেম সমাজের বিশ্বস্ত প¬াটফরম ‘জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তখন জমিয়তের সভাপতি নির্বাচিত হন মাওলানা তজম্মুল আলী (র:)। ইসলামী শিক্ষার ব্যাপক প্রচারের উদ্দেশ্যে তিনি ১৯৭৯ ইংল্যান্ড গমন করেন । লন্ডনে জামেয়া ইসলামীয়ার প্রধান মুফতি ছিলেন। ১৯৯৫ সালে দ্বীনী খেদমত রত অবস্থায়ই লন্ডনে তিনি ইন্তেকাল করেন। ৫ ছেলে ও ৩ মেয়ে রেখেযান। তাদের মধ্যে মাওলানা শাহ আহমাদ মাদানী তৃতীয়। তিনি বর্তমানে ইংল্যান্ডে অবস্থান করছেন। উল্লেখ্যযে, মাওলানা শাহ আহমাদ মাদানী ১৯৬৯ পবিত্র মদীনা শরীফে জন্মগ্রহণ করেন। প্রাথমিক শিক্ষা মায়ের নিকট,এরপর গুনই ফয়জে আম মাদ্রাসায়। এর পর উমেদ নগর আড়াই বছর, জামেয়া কাসিমুল উলুম সিলেট দরগাহ মাদ্রাসায় হিফজে ২ বছর লেখাপড়ার পর ১৯৮৪ সালে চলে যান ইংল্যান্ড। সেখানে দারুল উলুম আল আরাবিয়া, আল ইসলামী বেরী মাদ্রাসায় ১৯৮৫ পর্যন্ত (৪), ১৯৯৫-৯০ (৫ বছর) দারুল উলুম দেওবন্দে দাওরায়ে হাদীস পড়েন। ১৯৯৬ সালে চাচাত বোনের সাথে পরিনয় সুত্রে আবদ্ধ হন। বর্তমানে ৩ ছেলে, ২ মেয়ের জনক। তাঁর নানার নাম বানিয়াচঙ্গ নিবাসী হাজী আব্দুল ওয়াহিদ ওরফে মনাফ হাজী।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now