শীর্ষ শিরোনাম
Home » সিলেট » ছাত্র জমিয়তের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বন্ধকরে দিয়েছে পুলিশ : নেপথ্যে মাওলানা আমকুনী!

ছাত্র জমিয়তের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বন্ধকরে দিয়েছে পুলিশ : নেপথ্যে মাওলানা আমকুনী!

265সিলেট রিপোর্ট: শনিবার ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশ সিলেট জেলা শাখার উদ্যোগে সিলেট রেজিস্ট্রারী মাঠে অনুষ্টিত ইউনিয়ন প্রতিনিধি সম্মেলন ও ১৪৩৫ হিজরী সনের দাওরায়ে হাদীস উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্টান সমপন্ন হলেও পুর্বঘোষিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে করতে দেয়নি প্রশাসন। জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা কয়েক হাজার জমিয়ত কর্মী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে পুলিশী বাধার প্রতিবাদ জানিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন। জানাগেছে, রেজিষ্টারী মাঠে ২০ দলীয় জোটের শরীক জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সভাপতি সহ কয়েকজন র্শীষ নেতার উপস্তিতির সংবাদে পুলিশ প্রথমে প্রোগ্রামে বাধাদেয়। দুপুর ১২ টার দিকে পুলিশী বাধার সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে মুহুর্তে সংবাদ ছড়িয়ে পড়ে। ছাত্র জমিয়ত কর্মীদের মাঝে তখন কিছুটা উত্তেজনা দেখাযায়। সম্মেলনের দায়িত্বশীল সুত্র জানিেিয়ছে, নেতৃবৃন্দ যখন প্রশাসনের অনুমতি নেওয়ার পরেও কেন এই হয়রানী এমন প্রশ্নের জবাবে পুলিশ জানায়-আপনাদেরই প্রতিপক্ষ গ্রুপের দাবীর প্রেক্ষিতেই আমাদের এই নিষেধাজ্ঞা। ’
ছাত্র জমিয়ত নেতারা তখন পুলিশের অনুমতির  কাগজ দেখালে তখন অনেকটা বেকায়দায় পড়ে শর্তসাপেক্ষে সম্মেলন করার অনুমতি দেয় কিন্তুু সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের অনুমতি না দেওয়ায় সংগঠনের মুরুব্বীদের পরামর্শক্রমে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বাতিল ঘোষণা করেন। এব্যাপারে সিলেট জেলা ছাত্র জমিয়তের সভাপতি মাওলানা সাইফুর রহমান সিলেট রিপোর্টকে জানান, সরকারের পদলেহনকারী একটি কুচক্রিমহলের ইন্ধনেই আমাদের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রশাসন বাধাদিয়েছে। তিনি বলেন, আলেম নামধারী শাহবাগী নাস্তিকদের পক্ষাবলম্বনকারী সিলেটের দালাল গোষ্টি ছাত্র জমিয়তের সম্মেলন পন্ডকরে দেওয়ার জন্য পুটি মাছের মতো লাফালাফিকরেছিলো। সরকারী দলের অনেক নেতাদের দরজায় র্ধনা দিয়েও মুল সম্মেলন বাধাগ্রস্থ করতে পারেনি। তিনি বলেন,
সেই এই অপশক্তির মুল হোতারা সুবহানীঘাটে বসে কলকাটি নাড়িয়েছে। ওরা ২০০৮ সালে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের নিবন্ধন বাতিলের জন্যও শাহবাগী মাওলানা ফরিদ মাসুদের সাথে আতাতক রেছিলো।  জেলা ছাত্র জমিয়তের সেক্রেটারী লুৎফুর রহমান বলেন, ছাত্র জমিয়তের একটি প্রতিনিধি দল সম্মেলন সফলের জন্য এবং ১৪৩৫ হিজরী সনের দাওরায়ে হাদীস উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের সংর্বধনা দেওয়ার জন্য নগরীর প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে সফর করাহয়। এরই অংশ হিসেবে নগরীর সুবহানীঘাটস্থ জামিয়া মাহমুদিয়া মাদ্রাসায় সফর কালে প্রতিষ্ঠানটির প্রিন্সিপাল মাওলানা শফিকুল হক আমকুনী ছাত্র জমিয়ত নেতৃবৃন্দের সাথে অসৌজন্যমুলক আচরণ করেন। তিনি এক পযার্য়ে সম্মেলন প্রতিহত করার ও ঘোষণা দেন। সিলেট সরকারী আলীয়া মাদ্রাসা শাখা ছাত্র জমিয়ত নেতা মকসুদ আহমদ জানান, আমকুনী সাহেবের ইন্ধনেই পুলিশ আমাদের সম্মেলনে আগত  বিভিন্ন স্থান থেকে আগত মিছিল কারীদের বাধাদেয়।
এদিকে, পুলিশের বাধাউপেক্ষাকরেও  সম্মেলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন ছাত্র নেতারা।  প্রশাসনের উদ্দেশ্যে কঠোর হুশিয়ারী উচ্চারণ করে ছাত্র নেতারা সরকার বিরোধী বক্তব্যদেন।  সম্মেলনে বাধাআসলে নগরীতে বিক্ষোভ মিছিলের প্রস্তুতি নিয়েছিলো নেতৃবৃন্দ। এব্যাপারে ছাত্র নেতা এমাদ উদ্দীন সালিম বলেন, যদি সম্মেলনে বাধা আসতো তাহলে নগরীতে বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে সুবহানীঘাট পয়েন্টে অবস্থান করে হরতালের ঘোষণা আসতো। তিনি বলেন, সিলেটবাসী একজন কুখ্যাত পুটিমাছের যন্ত্রনায় অতিষ্ট।
আয়োজকরা জানিয়েছেন, সাংস্কৃুতিক অনুষ্ঠান বন্ধের পেছনে মাওলানা আমকুনীর হাত রয়েছে। তিনি সম্মেলনের আগেই হুমকি দিয়েছেন।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now

Leave a Reply

Your email address will not be published.