শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » শবে বরাত: ক্ষমা ও রহমতের রজনী

শবে বরাত: ক্ষমা ও রহমতের রজনী

dwa25

CL0034এহসান বিন মুজাহির: ২জুন সারাদেশে পবিত্র শবে বরাত পালিত হবে। শবে বরাত মুমিনদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি রাত। মহান আল্লাহ ত’ায়ালা ঈমানদারদের আখলাকি আমলি উৎকষের্র জন্য দিনক্ষণ, স্থান, কাল ও যুগ হিসাবে অনেক বরকতময় দিবস-রজনী ও ইবাদতের সুবর্ণ সুযোগ দান করেছেন। ইবাদতের এ সকল উর্বর সময়কে বান্দা যথাযথভাবে ঐকান্তিকতার সাথে কাজে লাগাতে পারলে সামান্য সাধনা, ক্ষুদ্র পরিশীলনী ও অনুশীলনী দ্বারা প্রশান্তির বারিধারায় স্নাত হয় এবং হাসিল করে আল্লাহর মহাসন্তুষ্টি। এমনি অন্যতম একটি রজনী হল পবিত্র শবে বরাত।
শবেবরাত কী? রাসুলের (সা.) ভাষায় ‘লাইলাতুন নিসফী মিন শাবান’। অর্থাৎ শাবান মাসের ১৫তম রজনী। এই রজনীর ফজিলত হাদিস দ্বারা প্রমাণিত। রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, শাবানের চৌদ্দ তারিখের আল্লাহ আমাদের নিকটতম আসমানে নেমে ডাকতে থাকেন ‘হাল মিম মুস্তাগফিরিন ইয়ুগফার লাহু’ কেউ কি ক্ষমাপ্রার্থী আছ? তাকে ক্ষমা করে দেব। ‘হাল মিম মুস্তারজিক্বিন ইয়ুরজাক্বলাহু’ কেউ কি রিজিক প্রার্থী আছ? তাকে রিজিক্বে পরিপূর্ণ করে দেব। এমন এক মহিমান্বিত সাধারণ ক্ষমার সুযোগ থেকে কিসে আমাদের বঞ্চিত করছে? আমাদের সমাজে শবেবরাত নিয়েও চলছে ফাতওয়াবাজী! কেউ করছে বাড়াবাড়ি আবার কেউ করছে ছাড়াছাড়ি। শবে বরাতের ফজিলত ভিত্তিহীন নয়। শবে বরাত ফজিলতপূর্ণ রজনী, যা বিশুদ্ধ হাদিস দ্বারা প্রমাণিত। বক্ষমান নিবন্ধে শবে বরাতের ফজিলত, করণীয় ও বর্জনীয় সর্ম্পকে আলোকপাত করা হলো।
শবে বরাত দুটি ফার্সি শব্দ দ্বারা গঠিত, প্রথমটি হলো শব, এর অর্থ হলো রাত, দ্বিতীয়টি হলো বরাত, এর অর্থ মুক্তি। সমষ্টিগত অর্থ হচ্ছে মুক্তির রাত্র। যেহেতু এই রাত্রের ইবাদতের মাধ্যমে আল্লাহর শাস্তি থেকে মুক্তির আশা করা যায়, তাই উক্ত রাত্রকে শবেবরাত বা মুক্তির রাত বলা হয়। বিশুদ্ধ হাদিসে এর প্রমাণ বিদ্যমান। রাসুলুলুল্লাহ (সা.) এই রাত্রিকে “লাইলাতুন নিসফি মিন শাবান” (শাবান মাসের ১৫তম রাত্রি) বলে উল্লেখ করেছেন।
বিশুদ্ধ হাদিসে এর প্রমাণ বিদ্যমান। রাসুলুলুল্লাহ (সা.) এই রাত্রিকে “লাইলাতুন নিসফি মিন শাবান” (শাবান মাসের ১৫তম রাত্রি) বলে উল্লেখ করেছেন।
হজরত মুআজ ইবনে জাবাল (রা.) সূত্রে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, অর্ধ শাবানের রাতে অর্থাৎ শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাতে আল্লাহ তায়ালা সৃষ্টিকুলের প্রতি রহমতের দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও হিংসুক-বিদ্বেষী লোক ছাড়া সবাইকে ক্ষমা করে দেন। (সহিহ ইবনে হিব্বান, হা. ৫৬৬৫, আল মু’জামুল কাবীর ২০/১০৯, শুআবুল ইমান, হদিস নং. ৬৬২৮)
হযরত আসিম ইবনে মুহাম্মদ ইবনে আবি বকর তাঁর পিতার সনদে দাদা হযরত আবুবকর (রা.) থেকে বর্ণনা করেন, রাসুল সা. ইরশাদ করেন, ‘আল্লাহ তায়ালা শাবানের ১৫তম রাত্রে দুনিয়ার আকাশে অবতরণ করেন এবং সকল পাপীকে (যারা ক্ষমা প্রার্থনা করে) ক্ষমা করে দেন। তবে’ মুশরিক’ (আল্লাহর সাথে সমকক্ষ সাব্যস্তকারী) ও ‘মুশহিন’ (হিংসুক) ব্যতীত। (-বায়হাকি ফি শুয়াবিল ঈমান হা. ৩৮৩৫)
হযরত মুয়াজ ইবনে জাবাল (রা.), আবু সালাম আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রা), আবু মুসা আশআরী (রা.) আবু হুরায়রা (রা.), আবুবকর (রা.),আউফ ইবনে মালিক (রা.) ও হজরত আয়েশা (রা) সকলেই এ হাদিসটি বর্ণনা করেছেন। হাদিসবিশারদগণ উক্ত হাদিসের রাবীদেরকে ছেক্বাহ তথা বিশ্বস্ত বলেছেন। মূল কথা হাদিসটি ‘সহীহ’। (-সহী ইবনে হিব্বান, আত তারগীব ওয়াত তারহীব ২ খন্ড:পৃঃ ১১৮, মাজমাউল ফাওয়ায়ীদ খন্ড ৮,পৃ. ৬৫, মুসনাদে বাযযার,খন্ড ৮.পৃ. ৬৭)
হজরত ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নিশ্চয়ই আল্লাহ তায়ালা অর্ধশাবানের রাতে যাবতীয় সিদ্ধান্তের চূড়ান্ত ফয়সালা করেন। আর শবেকদরে তা নির্দিষ্ট দায়িত্বশীলদের অর্পণ করেন। (তাফসিরে কুরতুবি ১৬/১২৬)।
হযরত আয়িশা সিদ্দিকা (রা.) থেকে বর্ণিত তিনি বলেন, একদা হযরত রাসুল (সা.) আমাকে বলেন, হে আয়েশা! তুমি কী জান, ‘লাইলাতুন নিছফি মিন শা‘বান’ বা শবে বরাতে কি সংঘটিত হয়? তদুত্তরে আমি বললাম না, আল্লাহ এবং আল্লাহর রাসুলই ভাল জানেন। তখন আমি রাসুলের কাছে জানতে চাইলাম এ রাত্রিতে কি কি সংঘটিত হয়? তখন রাসুল (সা.) বললেন মহান আল্লাহপাক এ রাতে আগামী এক বছরে কতজন সন্তান জম্মগ্রহণ করবে, কতজন লোক মৃত্যুরণ করবে তা লিপিবদ্ধ করেন। আর এ রাতে বান্দার (এক বছরের) আমলসমূহ মহান আল্লাহ তা’য়ালার নিকট পেশ করা হয় এবং এই রাতেই বান্দার (এক বছরের) রিযিকের ফায়সালা হয়”। (-বাইহাক্বী, ইবনে মাজাহ্ ও মিশকাত শরীফ)
হযরত আলী (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা). ইরশাদ করেন, ‘যখন অর্ধশাবানের রাত তথা শবে বরাত উপস্থিত সমুপস্থিত হবে তখন তোমরা উক্ত রাতে জাগ্রত থেকে ইবাদত-বন্দেগী করবে এবং দিনের বেলায় রোযা রাখবে। কেননা ১৫তম রাত্রে আল্লাহ তায়ালা দুনিয়ার আকাশে অবতরণ করেন। সন্ধা থেকে নিয়ে সূর্যাস্তপূর্ব পর্যন্ত ঘোষাণা করতে থাকেন কেউ আছো কি ক্ষমা প্রার্থনাকারী? আমি তাকে ক্ষমা করে দিব, জীবিকার সন্ধানী কেউ আছ কী? আমি তাকে পর্যাপ্ত পরিমাণে জীবিকা দান করবো। কেউ কী বিপদগ্রস্ত আছো? আমি তাকে বিপদমুক্ত করবো। এভাবে আল্লাাহ তায়ালা ঊষাকাল পর্যন্ত বান্দার চাহিদা পূরণ করার জন্য আহব্বান করতে থাকেন। (মিশকাত শরীফ, ইবনে মাযাহ) হযরত আয়েশা সিদ্দিকা (রা.) বলেন, একদা আমি রাসুলের (সা.) সাথে কোন এক রাত্রিতে রাত যাপন করছিলাম। এক সময় উনাকে বিছানায় না পেয়ে আমি মনে ধারণা করলাম যে, তিনি হয়ত অন্য কোন উম্মুল মু’মিনীনের হুজরা শরীফে তাশরীফ নিয়েছেন। আমি তালাশ করতে লাগলাম, কিন্ত কোন বিবির ঘরেই যাননি! অতপর হুজুরকে জান্নাতুল বাক্বীতে পেলাম। দেখলাম সেখানে তিনি উম্মতের জন্য মহান আল্লাহপাকের দরবারে ক্ষমা প্রার্থনা করছেন। এ অবস্থা দেখে আমি স্বীয় হুজরা শরীফে ফিরে এলাম। কিছুক্ষণ পর তিনিও ফিরে এলেন এবং বললেন, তুমি কী মনে করেছো আমি তোমার সাথে খিয়ানত করেছি? আমি বললাম, ইয়া রসূলাল্লাহ (সা).! আমি ধারণা করেছিলাম যে, আপনি হয়তো অন্য কোন উম্মুল মু’মিনীনের হুজরা শরীফে তাশরীফ নিয়েছেন। অতপর হুযুর পাক (সা.) বললেন, নিশ্চয়ই মহান আল্লাপাক শা‘বানের ১৫ তারিখের রাত্রিতে পৃথিবীর আকাশে অবতরণ করেন। অতপর তিনি ‘বনী কালবের’ মেষের গায়ে যত পশম রয়েছে তার চেয়ে বেশী সংখ্যক বান্দাকে ক্ষমা করে থাকেন”। (-বুখারী ও তিরমিযি)
আমল:
রাত জেগে ইবাদত করা ও পরদিন রোজা রাখা। হজরত আলী (রা.) সূত্রে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ১৫ শাবানের রাত যখন হয়, তোমরা রাতটি ইবাদত-বন্দেগিতে পালন করো এবং দিনের বেলা রোজা রাখো। কেননা এ রাতে সূর্যাস্তের পর আল্লাহ তায়ালা প্রথম আসমানে এসে বলেন, কোনো ক্ষমাপ্রার্থী আছে কি? আমি তাকে ক্ষমা করে দেব। কোনো রিজিক অন্বেষণকারী আছে কি? আমি তাকে রিজিক প্রদান করব। আছে কি কোনো রোগাক্রান্ত? আমি তাকে আরোগ্য দান করব। এভাবে সুবহে সাদিক পর্যন্ত আল্লাহ তায়ালা মানুষের বিভিন্ন প্রয়োজনের কথা উল্লেখ করে তাদের ডাকতে থাকেন।’ (সুনানে ইবনে মাজাহ, হা. ১৩৮৮)।
সারারাত জাগ্রত থেকে ইবাদত-বন্দেগী করত: পরদিন অর্থাৎ ১৫তম দিনে নফল রোজা রাখার চেষ্টা করা। তবে বাধ্যতামুলক নয়। এই রোজা মুস্তাহাব। নিজের যাবতীয় গোনাহের জন্য তাওবাহ করে রাব্বুল আলামিনের দরবারে ক্ষমা প্রার্থনা করা। নিজের মনের নেক আশা-আকাঙ্খা পূরণের জন্য ও মৃতদের মাগফিরাতের জন্য বেশী বেশী করে দোয়া করা। নফল নামাজ, কুরআন তিলাওয়াত, জিকির-আযকার, দোয়া-দুরুদ, তাওবাহ-ইসতিগফার, দান-সদকা, উমরি ক্বাযা নামাজ, কবর জিয়ারতসহ ইত্যাদি নফল আমলের মাধ্যমে রাতগুজার করা। তবে মাকবারে তথা কবরে যাওয়া জররী নয়। কবর জিয়ারতকে রুসম বা রেওয়াজ পরিণত করা যাবে না। কারণ রাসুল (সা.) চুপিসারে একাকী জান্নাতুল বাকিতে কবর জিয়ারত করেছেন। আয়েশা সিদ্দিকা (রা.)-কে নিদ্রা থেকে জাগ্রত করেননি এবং পরবর্তীতেও কবর জিয়ারত করার কথা বলেননি। তবে দলবদ্ধ ছাড়া একাকীভাবে কবর জিয়ারতে কোন বাধা নেই। আনুষ্ঠানিকতা ও জামাত ছাড়া একাকীভাবে সামর্থ্যানুযায়ী নফল ইবাদত-বন্দেগী করা। মসজিদে গিয়ে সমবেতভাবে ইবাদতের জরুরত নেই। যে সকল ইবাদত নামাজ জামাতে ও সমবেতভাবে আদায় করার প্রচলন রাসুল থেকে প্রমাণিত রয়েছে তা জামাতে আদায় করা। বাকীগুলো একাকীভাবে করা। আল্লাহ তায়ালা নফল ইবাদতকে একাকিত্বে আদায় করাই বেশি ভালবাসেন। ইখলাছের সাথে স্বল্প আমল ঐকান্তিকতাহীন অধিক আমল থেকে উত্তম।
বর্জণীয়: শবে বরাতের আলাদ কোন নামাজ নেই। নির্দিষ্ট সুরা দিয়ে নির্দিষ্ট রাকাত পড়ার রেওয়াজ ইসলামে নেই। শবে বরাত উপলক্ষে হালওয়া রুটি, তাবারুকের আয়োজন, রাতে মসজিদে অতিরিক্ত আলোকসজ্জ্বা করা, মরিচলাইট, তারাবাতি, আধুনিক নয়ানাভিরাম বর্ণিল বাতির ঝাড়ে দিগদিগন্ত পল্লাবিত করা, আগরবাতি, মোমবাতি, গোলাপজল পটকা, আতশাজি, রাস্তা-হাটবাজারে যুবকদের আড্ডা, অশূচি প্রতোযোগীতা এসকল কাজ নিন্দনীয়। এসকল কাজের কোন ভিত্তি শরীয়তে নেই। এগুলো অবশ্যই বর্জনীয়।
লেখক: সাংবাদিক, কলাম লেখক

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now