শীর্ষ শিরোনাম
Home » কলাম » রক্তাক্ত মায়ানমার! জেগে ওঠো মুসলিম উম্মাহ

রক্তাক্ত মায়ানমার! জেগে ওঠো মুসলিম উম্মাহ

manobtaএহসান বিন মুজাহির: বর্তমানে রাখাইন প্রদেশে রাহিঙ্গাদের উপর ভয়াবহ অত্যাচার-নির্যাতন চালাচ্ছে মায়ানমার সরকার। মুসলিম জনগণের ওপর সামরিক শক্তি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে, অমানবিক এবং অবৈধ, নৃশংস হত্যাকান্ডের মাধ্যমে মুসলমান শুন্য করার খেলায় মেতে উঠেছে। নিরীহ রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর এ নৃশংস বর্বরতার নিন্দা জানানোর ভাষা অভিধানে আজ পরাজিত!
বার্মার মজলুম রোহিঙ্গা মুসলমানের কান্নায় পৃথিবীর আকাশ ভারী হয়ে উঠছে। মুসলিম নারী-পুরুষ ও শিশুরা বাচাঁও বাচাঁও বলে আর্তচিৎকার করছে। মায়ানমারের বর্বর সরকার তাদের উপর নির্যাতনের স্টীম রোলার চালাচ্ছে। হত্যা করছে অসংখ্য নিষ্পাপ শিশু, যুবক, বৃদ্ধাদেরকে। ধর্ষণ করে কলঙ্কিত করছে অসংখ্য মা-বোনদের। বিধবা করছে হাজারো নারীদের। সন্তানহারা করছে অসংখ্য মাকে। স্বামীহারা করছে অসংখ্য স্ত্রীকে। ভাইহারা করছে অসংখ্য বোনকে। মজলুম রোহিঙ্গা মুসলমানদের আহাজারীতে পৃথিবীর আকাশ বাতাস প্রকম্পিত হয়ে উঠছে। কোথায় আজ বিশ্ব মুসলমানদের সহযোগীতা ও ভ্রাতৃত্বের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত সংস্থা ও.আই.সি। নীরব কেন আজ মানবধিকার সংস্থা? নিশ্চুপ কেন জাতিসংঘ?। পৃথিবীতে দেড়শ কোটি মুসলমান থাকার পরও কেন দেশে-দেশে মুসলমানরা আজ নির্যাতিত? মুসলমানগণ কি আমাদের কেউ নয়?
রোহিঙ্গাদের ওপর নির্মম নির্যাতন এটা পরিষ্কার করে দিয়েছে যে গোটা বিশ্বের অমুসলিম শক্তি আজ মুসলমানদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ। আমরা এখনও নিশ্চুপ! রোহিঙ্গা মুসলমানদের কিই বা দোষ ছিল, যার কারণে তারা আজ নির্মম-জুলুম নির্যাতন ভোগ করতে হচ্ছে? কারণ একটাই ওরা যে মুসলমান। ধর্মীয় পার্থক্য ও বৈপরিত্যের কারণেই রোহিঙ্গাদের উপর মায়ানমারের সামরিক জান্তা, প্রশাসন ও বৌদ্ধ এবং সাম্রাজ্যবাদী গোষ্ঠিরা তাদের উপর সীমাহীন জুলুম চালাচ্ছে।
জাতিসংঘের তথ্যমতে রোহিঙ্গারা বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ভাগ্যাহত জনগোষ্ঠি। শত শত বছর ধরে তারা নির্যাতিত ও নিপিড়ীত হচ্ছে। নির্যাতনের চিত্রগুলো বিশ্বমিডিয়ায় প্রকাশ পেয়েছে। মজলুম রোহিঙ্গাদের বিভৎস চেহারাগুলো দেখে কার চোঁখ না অশ্রুসিক্ত হবে? আপনার সামনে আপনার ভাই-বোন, মা-বাপ, ছেলে-মেয়েদের যদি আগুনে পুড়িয়ে ছাই করে, শরীরের উপর কামান তুলে মাথার মগজ বের করে ফেলে, চোঁখের সামনে তাজাদেহ দ্বিখন্ডিত করে ফেলে তখন আপনার কেমন লাগবে? আহ! বার্মার মুসলমানদের সাথে তাই করা হচ্ছে! জাতিসঙ্ঘ রোহিঙ্গা সম্প্রদায়কে বিশ্বের সবচেয়ে ববর নির্যাতনের শিকার জনগোষ্ঠী হিসেবে অভিহিত করেছে।
বড় আফসোস! আজও তারা ভাগ্য বিড়ম্বনার শিকার। বার্মা বা মিয়ানমার দেশটির রাখাইন রাজ্যে শত শত বছর ধরে বসবাসকারী রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠীর অস্তিত্বকে অস্বীকার করছে এবং তাদের প্রতিবেশী বাংলাদেশ থেকে আসা বাঙালি অভিবাসী বলে চিহ্নিত করার চেষ্টা চালাচ্ছে। রাখাইন রাজ্যে ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বসবাস করে। তাদের নাগরিকত্ব ও মৌলিক অধিকারকে অস্বীকার করছে মিয়ানমার সরকার। বর্তমানে লক্ষাধিক রোহিঙ্গাকে বাড়িঘর থেকে উচ্ছেদ করে অভ্যন্তরীণ উদ্বাস্তু শিবিরে আটক অবস্থায় রয়েছে। মায়ানমারের সামরিক জান্তা তার অধিবাসী মুসলমানদের জন্য সে দেশকে জাহান্নামের অগ্নিকুন্ডে পরিণত করেছে। তাদের থেকে কেড়ে নেওয়া হয়েছে উপার্জিত সব সম্পদের মালিকানা, নাগরিক অধিকার, মানবিক অধিকার, এমনকি বেঁচে থাকার অধিকারও। তাই তারা সমূহ বিপদের কথা জানার পরও মরিয়া হয়ে ছুটছে একটুখানি নিরাপদ ঠিকানার সন্ধানে। সর্বহারা এসব আদম সন্তন মৃত্যুর অপেক্ষায় বেঁচে আছে। বাংলাদেশ মায়ানমারের প্রতিবেশি দেশ হিসেবে মানবিক কারণেই মায়ানমারের মজলুম মুসলমানদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের উপর কর্তব্য।

ইসলাম মজলুমের পক্ষাবলম্বন করেছে। মজলুম যদি অমুসলিমও হয়, তবুও তাকে সাহায্য করতে ইসলাম নির্দেশ দিয়েছে। এ প্রসঙ্গে রাসূলুুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘তোমার ভাইকে সাহায্য করো। চাই সে জালিম হোক বা মজলুম। জনৈক ব্যক্তি জিজ্ঞেস করল, হে আল্লাহর রাসূল! মজলুমের সাহায্যের বিষয়টি তো স্পষ্ট। কিন্তু জালেমকে কীভাবে সাহায্য করব? তিনি বলেন, তাকে জুলুম থেকে বিরত রাখ। এটাই তার প্রতি তোমার সাহায্য’। (বুখারি শরিফ )
মজলুম মুসলমানদের সাহায্য করা আল্লাহর নির্দেশ। এ প্রসঙ্গে মহান আল্লাহপাক কুরআনেুল কারীমে ইরশাদ করেন, ‘হে ঈমানদারগণ! তোমাদের কী হলো, তোমরা কেন আল্লার রাস্তায় অসহায় নর-নারী ও শিশুদের জন্য লড়াই করছ না, যারা দুর্বলতার কারণে নির্যাতিত হয়ে ফরিয়াদ করে বলছে, হে আমাদের রব! এই জনপদ থেকে আমাদের বের করে নিয়ে যাও, যার অধিবাসীরা জালিম এবং তোমার পক্ষ থেকে আমাদের জন্য কোন বন্ধু, অভিভাবক ও সাহায্যকারী পাঠাও’। (-সুরা নিসা:৭৫-৭৬)
এক মুসলমান অপর মুসলমানের ভাই। বিশ্বের কোথাও কোনো মুসলমান আক্রান্ত হলে তার সাহায্য-সহযোগিতায় এগিয়ে আসা অপর মুসলমানের ঈমানি দায়িত্ব। হজরত নোমান (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা. ইরশাদ করেনÑ ‘সব মুমিন একই ব্যক্তিসত্তার মতো। যখন তার চোখে যন্ত্রণা হয় তখন তার গোটা শরীরই তা অনুভব করে। যদি তার মাথাব্যথা হয় তাতে তার গোটা শরীরই বিচলিত হয়ে পড়ে। (-মিশকাত শরীফ)
এ প্রসঙ্গে রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, মু’মিনরা পারস্পরিক ভালবাসা ও সহযোগিতার ক্ষেত্রে এক দেহের ন্যায়। দেহের কোনো অঙ্গ আঘাতপ্রাপ্ত হলে পুরো দেহ সে ব্যথা অনুভব করে। (-বুখারি)
একজন মুমিন-মুসলমান আহত হলে তার খোঁজ-খবর ও সহযোগীতা করা অপর মুসলমানের অন্যতমও কর্তব্য। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘আল্লাহপাক বান্দার সাহায্যে ততক্ষণ থাকেন, যতক্ষণ সে অপর ভাইয়ের সাহায্যে থাকে। মুমিন মাত্রই একে অন্যের ভাই। এক মুমিন অপর মুমিনের মাঝে এমন ভালবাসা ও আন্তরিকতা থাকবে যে পরস্পর একটি দেহের মতো মনে হবে। দরুণ একজনের ক্ষতি আরেক জনকে ততটাই আহত করবে যতটা মাথা আঘাত পেলে তার সারা শরীর আহত হয়। বিপদ মুসিবতের সময় একে অন্যের প্রতি আন্তরিকভাবে সহযোগিতার হাত প্রসারিত করবে। কোন ভাই অসুস্থ বা আহত হলে কিংবা কোন ক্ষতি বা বিপদের সম্মুখীন হলে তাহলে অপর ভাই তার সাহায্যে এগিয়ে আসা। কেউ কারো ইজ্জতহানী করতে চাইলে কেউ তাকে অন্যায়ভাবে পরাজিত করতে চাইলে তার আশু সমাধান বা তার পক্ষাবলম্বন করা মুমিনের অপরিহার্য দায়িত্ব। মিল্লাতে মুসলিম একটি দেহের মত। দেহের কোন অঙ্গ জখম হলে যেমন শরীরে ব্যথা অনুভব হয়, তেমনি কোথায় কোন ঈমানদার ভাই আহত নিহত হলে বা বিপদ-মুসিবতে পড়লে যদি তার মনে যদি এর জন্য দরদ বা ব্যথা অনুভব না হয় তাহলে মনে করতে হবে দুর্বল ঈমান। আর যদি এমন কারো জন্য ব্যথা অনুভব হয় তাহলে বুঝতে হবে সে প্রকৃত ঈমানদার।
শেষ কথা হচ্ছে, রোহিঙ্গারা আমাদের ভাই, তাদের বাঁচাতে এবং তাদের মানবিক ও নাগরিক অধিকার আদায়ে জাতিসংঘ এবং ও.আই.সি এবং মিয়ানমার সরকারকে দ্রুত কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণন করতে হবে।
লেখক: সাংবাদিক, কলাম লেখক

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now