শীর্ষ শিরোনাম
Home » আর্ন্তজাতিক » এবার বাংলাদেশের কাউকে ওমরার ভিসা দেবে না সৌদি আরব !

এবার বাংলাদেশের কাউকে ওমরার ভিসা দেবে না সৌদি আরব !

omra

সিলেট রিপোর্ট: ৫০ প্রতিষ্ঠানের ভুলের খেশারত দিতে হচ্ছে গোটা বাংলাদেশের ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের। এবার বাংলাদেশের কাউকে ওমরা ভিসা দেবে না সৌদি আরব। ফলে প্রতিবছর রমজানে প্রায় ৫০ হাজার বাংলাদেশি ওমরা ও এতেকাফ করলেও এবার সেই সৌভাগ্য হবে না। অবশ্য ধর্ম প্রতিমন্ত্রী গত সোমবার সংবাদ সম্মেলন করে বলেছেন, রমজানের আগে ওমরা ভিসা চালুর ব্যাপারে সৌদির সাথে কথা বলবেন। তাঁর এই আশ্বাসে ভরসা রাখতে পারছেন না হজ এজেন্সির নেতারা।

সূত্র জানিয়েছে, প্রত্যেক বছরই রমজানে ওমরা ও পবিত্র মক্কা মদীনায় ইতিকাফ পালনার্থে সারাবিশ্ব থেকে মুসলিমরা সৌদি আরবে জড়ো হন। সরাবছর ব্যবসা-বাণিজ্য ও পেশা নিয়ে ব্যস্ত অবস্থাসম্পন্ন বাংলাদেশিরাও রমজানের সময়টাকে ইবাদতে কাটাতে মক্কা-মদীনায় হাজির হন। ১১ মাসের কমতিকে তারা এক মাসে পূরণ করা চেষ্টা করেন। কিন্তু তাদের আর এবার ওমরা ও মক্কা-মদীনায় ইতিকাফ করার সৌভাগ্য হবে না। কয়েকটি এজেন্সির লোভের কারণে গোটা বাংলাদেশিদের মাশুল গুণতে হচ্ছে।

গোটা জাতিকে কলঙ্কিত ও বঞ্চিত করার জন্যে ৫০ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এখনও শাস্তিমূলক কোনো পদক্ষেপ নেওয়ার হয়নি। ট্রাভেলস এজেন্সিগুলোর অভিভাবক প্রতিষ্ঠান হজ্জ এজেন্সীজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)’ও দায়ীদের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিতে অপারগতা জানিয়েছে।

সূত্র জানিয়েছে, সারা দেশে হাবের বিস্তৃত নেটওয়ার্ক রয়েছে। এজেন্সীগুলোর যেকোনো বিপদে তারা পাশে দাঁড়ায়। এজেন্সীর স্বার্থরক্ষায় সরকারের সাথে দেনদরবারও করে। কিন্তু এই এজেন্সীগুলোই যখন চুক্তি লঙ্ঘন করে, মানব প্রাচারে জড়িয়ে পড়ে তখন তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক কোনো ব্যবস্থা তারা নিতে পারে না। এসময় তারা নিজেদের ‘ক্ষমতাহীনতা’র দোহাই দেয়। এই বছর ওমরা ভিসায় সৌদিতে লোক পাঠিয়ে রেকর্ড সংখ্যক মানুষ ফেরত না আসা এবং এ ব্যাপারে হাব কোনো পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হওয়ায়, তাদের এই ‘ক্ষমতাহীনতার’ প্রসঙ্গ ওঠে এসেছে।

জানা গেছে, সৌদি আরবের মিনিস্ট্রি অব ফরেন এফেয়ার্সের বেঁধে দেয়া নতুন নিয়মে বাংলাদেশ থেকে ওমরা হজযাত্রীদের দেশটিতে পাঠানো হয়েছে। এ নিয়মে রয়েছে যারা ওমরা ভিসায় সৌদি যাবেন তাদেরকে নির্ধারিত এজেন্ট বা কোম্পানির নিয়ন্ত্রণে থাকতে হবে। প্রতি মাসে এর সঠিক হিসাব সৌদি সরকারের কাছে প্রদান করতে হবে। ২০১৪ সালের ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে ৪০-৫০ হাজার লোক ওমরা পালন করতে গিয়েছিলেন। তাদের সবার ভিসার মেয়াদ ১৪ থেকে ২৮ দিন ছিল। এদের মধ্যে ১১ হাজার ৪৮৩ জন ফেরত আসেননি বলে অভিযোগ সৌদির। এ কারণে ২২ মার্চ থেকে বাংলাদেশিদের জন্যে ওমরা ভিসা প্রদান বন্ধ করে দিয়েছে দেশটি।

হাব সূত্র জানিয়েছে, হজ্জ ও ওমরা ভিসায় লোক পাঠাতে এজেন্সিগুলোকে দুই দেশেই (নিজ ও সৌদি) নিবন্ধিত হতে হয়। নিবন্ধনের জন্যে সৌদি সরকারকে এজেন্সি প্রতি দিতে হয় এক লাখ রিয়াল। বাংলাদেশি টাকায় বর্তমানে এটা ২২ লাখ টাকা। আর বাংলাদেশে নিবন্ধনের জন্যে সরকারকে দিতে হয় ২০ লাখ টাকা। দুই দেশে মিলে এজেন্সিগুলোর নিবন্ধন বাবৎ জমা থাকে ৪২ লাখ টাকা। এছাড়া বাংলাদেশ সরকারের নিবন্ধন পেতে তিনশত টাকার স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করতে হয় এজেন্সিগুলোকে। এই স্ট্যাম্পের চুক্তিতে উল্লেখ রয়েছে, কোনো এজেন্সির কেউ ওমরা ভিসা গিয়ে ফেরত না আসলে জন প্রতি ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হবে সংশ্লিষ্ট এজেন্সিকে। একই সাথে চুক্তি লঙ্ঘনের দায়ে সরকার এজেন্সির জামানত বাজেয়াপ্ত ও নিবন্ধন বাতিল করলেও কোনো আপত্তি করা যাবে না।

হজ্জ এজেন্সীজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) সিলটের প্রেসিডেন্ট মনসুর আলী খান বললেন, এতসব নিয়মের পরও প্রতিবছরই কিছু কিছু এজেন্সি ওমরা ভিসায় মানবপ্রাচার করে। যা গোটা জাতির জন্যে কলঙ্কের। তিনি বললেন, এই ব্যাপারটি জানার পরও একটা সীমা পর্যন্ত সৌদি সরকার ছাড় দেয়। কোনো ব্যবস্থা নেয় না। কিন্তু সীমা অতিক্রম করলেই তারা এক চুলও ছাড় দেয় না। তিনি জানালেন, সেই সীমা হল এক শতাংশ। একটি দেশ থেকে যে পরিমাণের লোক ওমরা করতে যায়, সেই দেশের এক শতাংশ যদি কোনো কারণে ফেরত না আসলে, তাহলে সৌদি সরকার এনিয়ে খুব একটা মাথা ঘামায় না। কিন্তু সেটা ১.১ শতাংশ হলেই আর রক্ষে নেই। তখন তারা নিজের আইনের ব্যাপারে কঠোর অবস্থান নেয়। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে এইবার সেটিই ঘটেছে বলে বিশ্লেষণ তার।

তিনি জানালেন, এবার প্রায় চল্লিশ হাজার লোক বাংলাদেশ থেকে ওমরা করতে গিয়েছেন। তার এক শতাংশ হল চারশ। চারশ জন যদি ফেরত না আসতেন, তাহলে হয়তো সৌদি কিছুই বলত না। কিন্তু বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য মতে ফেরত আসেননি, ১১ হাজার ৪৮৩ জন ফেরত আসেননি। এটাকে ভয়াবহ অবস্থা মন্তব্য করে তিনি বললেন, কিছু প্রতিষ্ঠানের লোভের কারণে গোটা জাতিকে এর মাশুল দিতে হচ্ছে। এই বছর তো ওমরা ভিসা বন্ধ রয়েছেই আগামি বছরও সেটি খুলবে কিনা তা অনিশ্চিত বলে মনে করেন তিনি।

গোটা জাতিকে এমন কলঙ্কিত করার জন্যে অভিভাবক হিসেবে হাব অভিযুক্ত এজেন্সিগুলোর বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষে নেবে কি না? এমন প্রশ্নে তিনি বললেন, হাব তো সদস্যদের বিপদ-আপদে পাশে দাঁড়ায়। তাদের স্বার্থরক্ষায় সর্বোচ্চভাবে কাজ করে। কিন্তু অপরাধ করলে ‘শাস্তিমূলক’ কোনো পদক্ষে হাব নিতে পারে না। হাবের এই ক্ষমতা নেই দাবি করে তিনি বলেন, অপরাধ করলে সরকারই ব্যবস্থা নেবে।

হজ্জ এজেন্সীজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব) মুখপত্র ‘হজ্জ বার্তা ২০১৪’ থেকে প্রাপ্ত তথ্য মতে, সারা দেশে তাদের এক হাজার ১৪৯টির বেশি সদস্য রয়েছে। এর মধ্যে সিলেটে ৪৯ টি ট্রাভেলস হাবের সদস্য। এবছর ওমরায় প্রায় চল্লিশ হাজার মানুষ সৌদি গিয়েছেন। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের পর তারা আর দেশে ফেরত আসেননি। ফলে অনির্দিষ্টকালের জন্যে বাংলাদেশিদের ওমরা ভিসা বন্ধ করে দিয়েছে সৌদি সরকার। চলতি বছরের ২২ মার্চ থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করেছে সৌদি। এজন্যে আসছে রমজানে আর কেউ ওমরার জন্যে সৌদিতে যেতে পারবেন না।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, এছবর ওমরা পালন করতে গিয়ে সিলেটের চারটিসহ দেশের ৫০ টি এজেন্সির ১১ হাজার ৪৮৩ জন ফেরত আসেননি। এদের ফেরত না আনা পর্যন্ত বাংলাদেশিদের আর ওমরা ভিসা দেবে না বলে সতর্ক করে দিয়েছে সৌদি সরকার। সৌদির এই কঠোর মনোভাবের কথা জেদ্দার হজ কাউন্সিলর মো. আসাদুজ্জামান সম্প্রতি চিঠি দিয়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছেন। ফেরত না আসাদের মধ্যে সিলেটের রয়েছেন এক হাজার ৪৩৭ জন।

সিলেটের চার প্রতিষ্ঠানের মধ্যে এলাইট ট্রাভেলসের (লাইসেন্স নং এইচএল ২১৯) ৯৯২ জন, রব্বানী ওভারসিজের (লাইসেন্স নং-এইচএল ৩১৩ ও ৫৬৪) ৩১১ জন, বাংলাদেশ ওভারসিজ সার্ভিসেস (লাইসেন্স নং-এইচএল ৩৬) ১১৮ জন ও কানিজ ট্রাভেলসের (লাইসেন্স নং-এইচএল ০৭৭) ১৬ জন যাত্রী ওমরা ভিসায় সৌদি গিয়ে ফেরত আসেননি।

Share Button
Hello

এই ভিডিও প্লে করুন | video play now